কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


মেয়ে ও নাতি-নাতনির মৃত্যুশোক সইতে না পেরে না ফেরার দেশে তাজমহল বেগম


 স্টাফ রিপোর্টার | ১৬ মে ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ১২:৪৮ | বিশেষ সংবাদ 


রাজধানী ঢাকার উত্তরখানের একটি বাসায় মেয়ে ও নাতি-নাতনির মৃত্যুশোক সইতে না পেরে না ফেরার দেশে চলে গেছেন তাজমহল বেগম। মেয়ে জাহানারা বেগম, নাতি কাজী মুহিব হাসান ও নাতনি তাপসিয়া সুলতানা মীমের মৃত্যুর খবরে অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বুধবার (১৫ মে) সকালে রাজধানীর ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশনে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান বলে পারিবারিক সূত্র জানিয়েছে।

জাহানারা বেগমের দেবর সুলতান আহমেদ কোরেশী জানান, মেয়ে, নাতি-নাতনির মৃত্যুর খবর শুনে তাজমহল বেগম অসুস্থ হয়ে পড়েন। অবস্থা খারাপ দেখে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশনে চিকিৎসাধীন অবস্থাতেই তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

গত রোববার (১২ মে) রাতে উত্তর খান থানার ময়নারটেকের পানের টেক এলাকার একটি বাসা থেকে মা জাহানারা বেগম (৫০), ছেলে মুহিব হাসান রশ্মি (৩০) ও মেয়ে তাসফিয়া সুলতানা মিমের (১৮) মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

একই পরিবারের তিনজনের মৃত্যুর পর থেকে নানা রহস্যর সৃষ্টি হয়েছে। এই মৃত্যু হত্যা না আত্মহত্যা এ নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে খোদ আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর তদন্ত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের। মৃত্যুর রহস্য উদঘাটনে ইতিমধ্যে নানামুখী তদন্তও শুরু হয়েছে।

নিহত জাহানারার স্বামীর নাম ইকবাল হোসেন। তিনিও ২০১৬ সালে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান। তাদের বাড়ি ভৈরব শহরের জগনাথপুর গ্রামে।

উত্তরখানের ওই বাসা থেকে জাহানারা ও তার দুই সন্তানের মরদেহ উদ্ধারের দিন ঘর থেকে একটি চিরকুট উদ্ধার করে পুলিশ। চিরকুটে লেখা ছিল, ভাগ্য আর আত্মীয়-স্বজনের অবহেলার কারণে আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছেন তারা।

তাদের তিনজনের মরদেহ ভৈরবে নিজ এলাকায় আনার পর সোমবার (১৩ মে) রাতে জানাজা শেষে দাফন করা হয়।

এ ঘটনার দুইদিন পর মঙ্গলবার (১৪ মে) রাতে জাহানারার ভাই মনিরুল হক বাদী হয়ে উত্তরখান থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। মামলায় কাউকে অভিযুক্ত করা হয়নি বলে পুলিশ জানায়।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর