কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


হাত পাতা অপছন্দ করে ইসলাম


 হাফেজ মাওলানা যুবায়ের আহমাদ | ১৬ মে ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ১১:৪২ | ইসলাম 


চলার পথে গণপরিবহণে বিভিন্ন সময় রশিদ বই হাতে দান সংগ্রহকারীর দেখা পাই আমরা। রমজান এলেই বাড়ে এদের সংখ্যা। রমজান ইবাদতের মাস। কিন্তু দুঃখজনক হলো, কিছু লোক একে ভিক্ষার মাস বানিয়ে ফেলেছে।

ইসলামের লেবাস কিংবা অনুভূতিকে পূঁজি করে বিচিত্র কৌশলে নানা কৌশলে সাধারণ মানুষকে প্রভাবিত এরা। সরলপ্রাণ অনেকে বিশ্বাস করে এদেরকে দানও করেন। আর এদেরকে দান করার কারণেই বেড়ে চলেছে এসব প্রাতরকের সংখ্যা।

অনেক সময়ই যাচাই করে দেখা যায় এদের অনেকেরই সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সম্পর্ক নেই। মসজিদ, মাদরাসা বা এতিমখানার জন্য দান করা সওয়াবের কাজ। এসব প্রতিষ্ঠানের জন্য সংশ্লিষ্ট এলাকায় দান সংগ্রহও করা যেতে পারে। কিন্তু পেশাদার এসব দান সংগ্রহকারীরা যে দান সংগ্রহ করে তার কতটুকু সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান পায়?

এতে একদিকে যেমন কিছু লোক ওইসব প্রতিষ্ঠানের নামে প্রতারণা করছে অন্যদিকে ইসলামের লেবাস কিংবা অনুভূতিকে ব্যবহার করে রাস্তায়, গণপরিবহণে এভাবে দান চেয়ে ইসলামকে খাটো করা হচ্ছে। তাদের হাতে রাস্তাঘাটে কিংবা গণপরিবহনে দান না করে নিকটস্থ প্রতিষ্ঠান অথবা ওই প্রতিষ্ঠানে সরাসরি যদি দানকারী দান করেন তাহলে সমস্যাটি কমবে বলে মনে হয়। দানকারীদের সচেতনতাও ধর্মের এ অপব্যবহার বন্ধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে।

এছাড়া রয়েছে একটি ব্যবসায়ী ভিক্ষুক শ্রেণি। যারা ভিক্ষাবণিজ্য চালান নির্লজ্জভাবে। চরম অলসতা ও কর্মবিমুখতার কারণে অভাবী এসব হতভাগ্য বিনা পুঁজির মাধ্যম হিসেবে নির্লজ্জভাবে বেছে নেয় ভিক্ষার পেশা। কৃত্রিমভাবে ভিক্ষুক সৃষ্টির বিষয়টিও প্রায়ই আসে মিডিয়ায়। বিকলাঙ্গ শিশু, প্রতিবন্ধী বা অসুস্থ কোনো ব্যক্তিকে মাধ্যম বানিয়ে চালিয়ে যান ভিক্ষা বণিজ্য। ধোকাবাজির মাধ্যমে আবার সিন্ডিকেট করে এক শ্রেণির লোক একে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিয়েছে। যেখানে ভিক্ষা করাটাও একটা চাকরি। একজন ভিক্ষুক সারাদিন ভিক্ষা করে যা উপার্জন করে সেটা দিয়ে দিতে হয় মালিককে।

ঠিকমতো নামাজ না পড়লেও ভিক্ষার সুবিধার্থে অধিকাংশ ভিক্ষুকই ব্যবহার করে পাঞ্জাবি কিংবা টুপি। ইসলামের পোশাক কিংবা ধর্মীয় অনুভূতি ব্যবহার করে ভিক্ষা বা রাস্তাঘাটে কিংবা গণপরিবহনে এ ধরণে ধরণে ভিক্ষার মতো ‘কালেকশন’ রমজান ও ইসলামের শিক্ষার পরিপন্থি। ইসলাম বরাবরই ভিক্ষা কিংবা কারো কাছে হাত পাতার বিষয়ে অন্যান্য ধর্মের চেয়ে কঠোর অবস্থানে।

রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘ভিক্ষাবৃত্তি হলো ক্ষত স্বরূপ; এর দ্বারা মানুষ মুখমন্ডলকে ক্ষতবিক্ষত করে’। (নাসায়ী: ৫/৯৭)। তাই তো রাসুলুল্লাহ (সা.) সাহাবীদেরকে কারো কাছে হাত না পাতার ব্যাপারে শপথ করিয়েছেন।

হজরত আউফ ইবনে মালিক (রা.) বলেন, ‘আমরা রাসুলুল্লাহ (সা.) দরবারে নয়জন, আটজন কিংবা সাতজন ছিলাম। তিনি আমাদের বললেন: তোমরা কি আল্লাহর রাসুলের হাতে বায়াত গ্রহণ করবে না? অথচ আমরা মাত্রই আকাবায় বাইয়াত গ্রহণ করেছি। আমরা বললাম, ইয়া রাসুলাল্লাহ! আমরা তো আপনার হাতে বাইয়াত গ্রহণ করেছি। তিনি আবার বললেন: তোমরা কি আল্লাহর রাসুলের হাতে বাইয়াত গ্রহণ করবে না? আমরা তখন হাত বড়িয়ে দিয়ে বললাম- হে রাসুল! আমরা তো বায়াত গ্রহণ করেছি। এখন আবার কিসের বায়াত? তিনি বললেন, ‘এই মর্মে শপথ নাও, কেবল আল্লাহর ইবাদত করবে, তাঁর সঙ্গে কাউকে শরিক করবে না, পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়বে, আমিরের কথা মেনে চলবে। তারপর তিনি নিচু স্বরে একটি গোপন কথা বললেন- আর মানুষের কাছে কোনো কিছু চাইবে না।’ (মুসলিম: ২/৭২১)।

অন্যদিকে অভাব ছাড়া যদি কেউ কারো কাছে হাত পাতে তাহলে ইসলাম একে নিষিদ্ধ করে এর জন্য কঠিন শাস্তির ঘোষণা করেছে। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি অভাব ব্যতীত ভিক্ষা করল সে যেন জাহান্নামের আগুন ভক্ষণ করল। (মুসনাদে আহমাদ: ২৯/৫১)।

কিছু লোক আছে যাদের সম্পদ থাকা সত্বেও তারা তাদের সম্পদ বাড়ানোর জন্য অন্যের কাছে হাত পাতে। রাসুলে কারিম (সা.) তাদেরকে কঠোর হুশিয়ারী উচ্চারণ করেছেন। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, যে ব্যক্তি নিজের সম্পদ বৃদ্ধির জন্য কারো কাছে ভিক্ষা চায় সে তো জাহান্নামের আগুন ভিক্ষা চায়। তার ইচ্ছা, সে চাইলে জাহান্নামের আগুন কম ভিক্ষা করতে পারে বেশিও ভিক্ষা করতে পারে। (ইবনে মাজা: ১/৫৮৯)।

পক্ষান্তরে যে ব্যক্তি কারো কাছে কিছুই না চাওয়ার দৃঢ় ইচ্ছা করবে ইসলামে তার জন্য শুভ সংবাদ। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, যে ব্যক্তি এই মর্মে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হবে যে সে অন্যের কাছে হাত পাতবে না আমি তার জান্নাতের জিম্মাদারী গ্রহণ করবো। (ইবনে মাজা: ১/৫৮৮) একান্ত অভাবে পড়েও কারো কাছে হাত না পেতে কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে নিজ হাতে উপার্জন করা ইসলামের শিক্ষা।

ইসলামই বিশ্ববাসীকে শুনিয়েছে এই শ্লোগান, ‘নবীর শিক্ষা করো না ভিক্ষা’। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘তোমাদের কারোর নিজ পিঠে কাঠের বোঝা বয়ে এনে বিক্রি করা কারো কাছে হাত পাতার চেয়ে উত্তম। তাকে (প্রার্থীকে) সে কিছু দিক বা না দিক।’ (বুখারি: ২/৫৩৫)

হাফেজ মাওলানা যুবায়ের আহমাদ: জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত কারি, মুফাসসিরে কোরআন; বিভিন্ন বাংলা ও ইংরেজি জাতীয় দৈনিকের নিয়মিত কলামিস্ট।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর