কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


সরগরম হাওরের চাঁইপল্লী


 স্টাফ রিপোর্টার | ১৭ মে ২০১৯, শুক্রবার, ১১:৪৪ | হাওর 


বর্ষায় চিংড়িসহ দেশীয় মাছ আহরণের গুরুত্বপূর্ণ এবং উল্লেখযোগ্য কেন্দ্রবিন্দু হয়ে ওঠে কিশোরগঞ্জ জেলার হাওর অধ্যুষিত উপজেলাগুলো। জেলার হাওর উপজেলা ইটনা, মিঠামইন, অষ্টগ্রাম, নিকলী, করিমগঞ্জ ও তাড়াইলের জেলেপাড়াগুলোর স্থায়ী বাসিন্দা হাজার হাজার জেলে ছাড়াও এসব এলাকার মৌসুমী বেকার হাজার হাজার লোক বর্ষা মৌসুমে মাছ ধরা পেশায় সম্পৃক্ত হন।

বিভিন্ন ধরনের জালের পাশাপাশি বাঁশের তৈরি চাঁই দিয়ে তারা মাছ শিকার করেন। ভরা বর্ষায় বিশেষ করে জ্যৈষ্ঠ-আষাঢ় মাস থেকে আশ্বিন মাস পর্যন্ত চিংড়ি মাছ শিকারের জন্য এ অঞ্চলে চাঁইয়ের ব্যাপক চাহিদা থাকে। আর এ কারণে অনেকেই জীবিকা নির্বাহ করার উপায় চাঁই তৈরির সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন। অনেক জায়গায় গড়ে ওঠেছে চাঁইপল্লী।

জেলার ইটনা উপজেলার ইটনা সদর ইউনিয়নের হাজারিকান্দা, দাসপাড়া, ঈমানপাড়া ও নয়াপাড়া এ চারটি চাঁইপল্লীতে কাজ করছেন চার শতাধিক কারিগর। তারা চাঁই তৈরির কাজ করে তাদের পরিবারে সচ্ছলতা ফিরিয়ে এনেছেন। অভাবের কারণে একসময় কলহ ও অশান্তিতে থাকা বিষন্ন মুখগুলোতে এ কাজ এনে দিয়েছে হাসি।

সরেজমিন হাজারিকান্দা, দাসপাড়া, ঈমানপাড়া ও নয়াপাড়া ঘুরে দেখা গেছে, বর্ষা মৌসুমকে সামনে রেখে এ চারটি পাড়ার প্রতিটি বাড়িতে এখন চাঁই তৈরির ধুম পড়েছে। বাঁশ, প্লাষ্টিকের বস্তা, গুনা ও সুতা দিয়ে চাঁই তৈরির কাজ করে জীবন সংগ্রামে টিকে থাকার পাশাপাশি স্বাবলম্বী হচ্ছে তারা।

অথচ ১৫/২০ বছর আগেও এখানকার লোকজন এ কাজে সেভাবে যুক্ত ছিলেন না। চাষবাস করে কোনরকমে চলে যেতো তাদের। কিন্তু মৌসুমী বেকারত্ব আর আগাম বন্যায় ফসলহানি তাদের মেরুদণ্ড ভেঙ্গে দেয়। প্রকট দারিদ্রকে সঙ্গী করে এলাকার অনেকেই কাজের খোঁজে পাড়ি জমায় দেশের নানা প্রান্তে। ভিটেমাটি আঁকড়ে যারা গ্রামে পড়ে ছিলো, তাদের কেউ কেউ সাময়িক বেকারত্ব ঘুচাতে যুক্ত হয় চাঁই তৈরির কাজে।

তাদের তৈরি করা চাঁই গুণেমানে ও টেকসইয়ের দিক থেকে বেশ ভালো হওয়ায় মাছ শিকারীদের কাছে এগুলোর কদর বেড়ে যায়। ফলে এ কাজে অন্যদেরও আগ্রহ তৈরি হয় এবং সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়তে থাকে চাঁই তৈরির কারিগরের সংখ্যা। হাজারিকান্দা, দাসপাড়া, ঈমানপাড়া ও নয়াপাড়া মিলিয়ে বর্তমানে চাঁই তৈরির কারিগরের সংখ্যা ৪০০ ছাড়িয়ে যাবে। এ ছাড়াও চাঁই তৈরির বিভিন্ন পর্যায়ে আরো বহু লোক জড়িয়ে আছে এ পেশায়। সবমিলিয়ে কর্মমুখর গ্রামজুড়ে কেবল অভাব জয়ের উদ্যোগ।

বেশ কয়েকজন চাঁই কারিগরের সাথে কথা হলে তারা জানান, হাজারিকান্দা ও দাসপাড়া গ্রামের অনেকেই দীর্ঘদিন ধরে চাঁই তৈরির কাজ করছেন। একজন কারিগর প্রতিদিন ১০ থেকে ১২টি চাঁই তৈরি করতে পারেন। তবে বর্তমানে চাঁই তৈরির বিভিন্ন উপকরণ যেমন বাঁশ, প্লাষ্টিকের বস্তা, গুনা ও সুতার দাম এখন কয়েকগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে চাঁই তৈরির খরচও বেশ বেড়েছে। কিন্তু সে তুলনায় তারা দাম পান না।

শুক্কুর আলী নামে এক কারিগর জানান, বর্ষায় এ এলাকার হাজার হাজার লোক চাঁই দিয়ে চিংড়ি মাছ শিকার করেন। এ কারণে সেসময় চাঁইয়ের প্রচুর চাহিদা থাকে। এজন্যে তাদের পুরো বছর ধরে চাঁই তৈরি করতে হয়।

তিনি আরো জানান, নিজেদের মূলধন না থাকায় চাঁই তৈরি করতে গিয়ে তাদের বেপারীদের নিকট থেকে দাদন নিতে হয়। চাঁই তৈরি করে তাদের আবার বেপারীদের নিকটই বিক্রি করতে হয়। একেকটি চাঁইয়ে তারা মাত্র ৫ থেকে ১০ টাকা লাভ পান। এ কারণে বছরের পর বছর ধরে কারিগর হিসেবে কেবল চাঁই তৈরি করে গেলেও কষ্ট করেই পরিবার পরিজন নিয়ে দিন কাটাতে হচ্ছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর