কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ভৈরবে চার বখাটের বিরুদ্ধে শিশু ধর্ষণ চেষ্টার মামলা করে গৃহবন্দি পরিবার


 সোহেল সাশ্রু, ভৈরব | ১৭ মে ২০১৯, শুক্রবার, ১১:৫৯ | ভৈরব 


ভৈরবে এক শিশুকে (১৩) ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ এনে ৪ বখাটের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করেছেন তার মা। বখাটেদের পক্ষ থেকে এখন মামলা তুলে নেয়াসহ নানা ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছে বলে অভিযোগ পরিবারটির। তাই বখাটেদের ভয়ে ভৈরবের কালিকাপ্রাসাদ গ্রামের হাইস্কুল পাড়া এলাকার পরিবারটি এখন গৃহবন্দি অবস্থায় রয়েছে।

গত ১০ মে সন্ধ্যায় এলাকার চার বখাটে শিশুটিকে পাশের একটি ক্ষেতে নিয়ে গিয়ে ধষণের চেষ্টা চালায়। মেয়েটির আর্তচিৎকারে লোকজন ছুটে এলে বখাটেরা পালিয়ে যায়। এ ঘটনার পর গত ১৩ মে শিশুটির মা বাদী হয়ে কিশোরগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২ এ মামলা করেন।

মামলায় অভিযুক্ত করা হয়, একই এলাকার হেদায়েত উল্লার ছেলে শরীফ (২২),  মন্নাফ মিয়ার ছেলে ফাহিম (১৮), লবু মিয়ার ছেলে বায়েজিদ (২৪) ও আউয়াল মিয়ার ছেলে তৌহিদ (২৬) কে।

নির্যাতিতা শিশুটির মা জানান, গত ১০ মে সন্ধ্যায় ওই ৪ বখাটে তাদের বাড়িতে এসে মেয়েকে মুখ বেঁধে জোরপূর্বক ঘর থেকে বের করে পাশের একটি ক্ষেতে নিয়ে যায়। এসময় তিনি ও তার স্বামী বাড়ীর পাশে একটি মাঠে ধান মাড়াই করছিলেন। মেয়েকে একা পেয়ে বখাটেরা ক্ষেতে নিয়ে তার কাপড় খুলে ধর্ষণের চেষ্টা করে এবং তার বুকে, গালে শরীরের বিভিন্ন অঙ্গে কামড়ে দেয়। এ সময় তার মেয়ের চিৎকারে আশেপাশের লোকজন ছুটে আসলে বখাটেরা পালিয়ে যায়।

পরে ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে ওই বখাটেদের পরিবারের প্রভাবশালী সদস্যরা নানা অপতৎপরতা চালায়। মামলা দায়েরের পর পরিবারটিকে একঘরে এবং গৃহবন্দি করে রেখেছে।

শিশুটির মা আরও জানান, ঘটনাটি ঘটার পর থেকে বখাটেদের পরিবারের লোকজন তাদেরকে নানাভাবে হুমকি দিচ্ছে মামলা তুলে নিতে। তারা তাদের ভয়ে থানায় যেতে পারেননি। তাই গোপনে কিশোরগঞ্জ গিয়ে মামলা করেছেন।

তিনি অভিযোগ করেন, বিষয়টি এলাকার চেয়ারম্যান-মেম্বারকে জানিয়েও তারা সুবিচার পাননি। এ ছাড়াও তিনি ঘটনাটি উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে জানিয়েছেন বলেও জানান।

বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে কালিকাপ্রসাদ ইউপির চেয়ারম্যান মো. ফারুক মিয়া জানান, এক মহিলার মোবাইল ফোনে তিনি ঘটনাটি জেনেছেন। তবে তিনি কয়েকদিন ভৈরবের বাইরে থাকায় প্রতিকারে কোনো ব্যবস্থা নিতে পারেননি।

ভৈরব উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইসরাত সাদমীন জানান, ঘটনাটি জানাতে শিশুটির মা তাঁর কাছে এসেছিলেন। কিন্তু আদালতে মামলা করায় বিষয়টি আদালতের বিচারাধীন হয়ে গেছে। তারপরও পরিবারটিকে নিরাপত্তা দিতে তিনি পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছেন বলেও জানান তিনি।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর