কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


রোজা রাখতে না পারলে কী করবেন


 হাফেজ মাওলানা যুবায়ের আহমাদ | ১৮ মে ২০১৯, শনিবার, ১০:০৯ | ইসলাম 


একেবারে বৃদ্ধ অথবা এমন অসুস্থ ব্যক্তি যার সুস্থ হওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম সে রোজা রাখতে না পারলে ফিদিয়া দেবে। কেউ রোজা রাখতে অসামর্থ্য হলে তার জন্য ফিতরার পরিমাণ যে ক্ষতিপূরণ দিতে হয়, তাকে ফিদিয়া বলা হয়।

(অক্ষমতার কারণে) রোজা রাখতে না পারলে কিংবা কাজা আদায় করতে না পারলে প্রতিটি রোজার জন্য একটি করে ‘সদকাতুল ফিতর’-এর সমপরিমাণ গম বা তার মূল্য গরিবদের ফিদিয়া হিসেবে দিতে হবে। (মা’আরেফুল কোরআন, পৃষ্ঠা ৯৬)

অতিশয় বৃদ্ধ বা গুরুতর রোগাক্রান্ত ব্যক্তি, যার সুস্থ হওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই অথবা রোজা রাখলে জীবনহানির আশঙ্কা থাকে, তারা রোজার বদলে ফিদইয়া আদায় করবে। পরবর্তী সময়ে ওই ব্যক্তি যদি সুস্থ হয়ে রোজা রাখার মতো শক্তি ও সাহস পায়, তাহলে তার আগের রোজার কাজা আদায় করতে হবে। তখন আগে আদায়কৃত ফিদইয়া সদকা হিসেবে গণ্য হবে।

অসুস্থ ব্যক্তি ফিদইয়া আদায় না করে মারা গেলে তার পরিত্যক্ত সম্পদ থেকে ফিদইয়া আদায় করা কর্তব্য; যদি মৃত ব্যক্তি অসিয়ত করে যায়। অন্যথায় আদায় করা মুস্তাহাব।

উল্লেখ্য যে প্রতিটি রোজার ফিদইয়া হলো ৮০ তোলা সের হিসাবে এক সের ১২ ছটাক (এক কেজি ৬৬২ গ্রাম) গম বা আটা কিংবা তার মূল্য দিতে হবে। তবে পূর্ণ দুই সের (এক কেজি ৮৬৬ গ্রাম বা তার মূল্য দেওয়া উত্তম। (মা’আরেফুল কোরআন, পৃষ্ঠা ৯৬)।

অথবা একজন ফকির বা গরিবকে দুই বেলা পেট পুরে খাওয়ানো। মৃত্যুমুখী বৃদ্ধলোক অথবা কোনো ব্যক্তি ভীষণ রোগে আক্রান্ত হওয়ার কারণে রোজা রাখতে অপারগ হলে সে প্রতিটি রোজার পরিবর্তে পৌনে দুই সের গম অথবা সমপরিমাণ মূল্য আদায় করবে। (জাওয়াহিরুল ফিকাহ, খণ্ড-১, পৃষ্ঠা ২৯)।

হাফেজ মাওলানা যুবায়ের আহমাদ: জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত কারি, মুফাসসিরে কোরআন; বিভিন্ন বাংলা ও ইংরেজি জাতীয় দৈনিকের নিয়মিত কলামিস্ট।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর