কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


অপরাধ দমনে রমজানের ভূমিকা


 হাফেজ মাওলানা যুবায়ের আহমাদ | ২০ মে ২০১৯, সোমবার, ৬:১৫ | ইসলাম 


বছর ঘুরে আবারো আমাদের কাছে এলো পবিত্র রমজান। রমজানের মূল ইবাদত হলো সিয়াম তথা রোজা। আর রোজার লক্ষ্য হলো মানুষকে মুত্তাকি (খোদাভিরু) বানানো। এরশাদ হচ্ছে, ‘হে ইমানদারগণ! তোমাদের ওপর ফরজ করা হয়েছে সিয়াম যেমন ফরজ করা হয়েছিল তোমাদের পূর্বববর্তী লোকদের ওপর যেন তোমরা তাকওয়া অর্জন করতে পার।’ (সুরা বাকারা, ১৮৩)

কুরআনুল কারিমে তাকওয়া শব্দটি এসেছে ১৫ বার। তাছাড়াও অনেকবার আল্লাহ তায়ালা ‘ইত্তাকু’ শব্দটি ব্যবহার করেছেন।

তাকওয়া কী? তাকওয়া অর্থ আল্লাহভীতি। তাফসিরে এসেছে ‘আল্লাহর আদেষসমূহ পালন ও নিষেধগুলো থেকে বেচে থাকাই তাকওয়া।’ (তাফসিরে জালালাইন: ১/৯)।

ব্যাপক অর্থে বলতে গেলে তাকওয়া তো মানুষের মনের আল্লাহর ভয়ে হালাল হারামের বিধানের প্রতি  ঐ শ্রদ্ধা ও ভীতি যা মানুষের আচার-আচরণ নিয়ন্ত্রণ করে। প্রত্যেকটি মানুষের গোপনে অপরাধ করার প্রবণতা থাকে। যেখানে পুলিশ কিংবা কোনো মানুষ পাহারা দিতে পারে না। সেই গোপন অপরাধের জায়গায় আল্লাহর ভয়ের অদৃশ্য পাহারাটাই হলো তাকওয়া। রোজার মাধ্যমে এই পাহারা মজভূত হবে। আইনের প্রতি মানুষ শ্রদ্ধাশীল হবে। অন্তরে তাকওয়া (আইনের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ) নামক অদৃশ্য সিসি ক্যামেরার পাহারা বসাতে পারলেই সমাজ থেকে অপরাধ অনেকাংশে কমে যাবে।

ইতিহাস স্বাক্ষী, তাকওয়ার মাধ্যমে অপরাধ দমনের এ পদ্ধতি শতভাগ সফল হয়েছিল। কারণ এতে মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিন আইন প্রণয়নের পরই মানুষকে আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল করার বিষয়টিতে গুরুত্ব দিয়েছেন।

সুরাতুল মায়েদার ৯০ নং আয়াত নাজিল করে যখন মদ নিষিদ্ধ করা হলো তখন রাসুলে আকরাম (সা.) হাফেজ সাহাবিদেরকে নির্দেশ দিলেন গলিতে গলিতে আয়াতটি পাঠ করার জন্য। আইন প্রণেতার ভয় এবং আইনের প্রতি শ্রদ্ধার ফলে তখন কোনো আইন প্রয়োগকারী সংস্থার লোক ছাড়াই সাহাবায়ে কোরাম (রা.) মদ ত্যাগ করলেন। মদ নিষিদ্ধ হওয়ার ঘোষণা শুনে যার হাতে মদের গ্লাস ছিল তিনি তা ছুড়ে ফেললেন; যার মুখে মদ ছিল তিনি তা ফেলে দিয়ে কুলি করলেন; যিনি ঐ সময় মদ পানরত ছিলেন তিনি গলায় আঙ্গুল দিয়ে বমি করে পেট থেকে মদ বের করার চেষ্টা করলেন। যার বাড়িতে মদের কলসি ছিল তিনি লাথি মেরে তা ভেঙ্গে ফেললেন। মদিনার রাস্তায় মদ প্রবাহিত হয়ে গেল। (ইবনে কাসির: ৭/৯০৯)।

পুলিশ-জনগণ সবাইকে আল্লাহর আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হওয়ার জন্য যে বিশেষ প্রশিক্ষণ কোর্সের ব্যবস্থা করা হয়েছে তাই রমাজান। একটি দেশের ক্ষুদ্রতম ইউনিট (একক) হচ্ছে নাগরিক, প্রত্যেকটি নাগরিক যতক্ষণ আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল না হবে ততক্ষণ সে আইন সমাজে বাস্তবায়ন করা সম্ভব নয়। আইনকে মেনে নেয়ার মানসিকতা তৈরির জন্যই তাই পুলিশ-নাগরিক সবাইকেই অপরাধ প্রবণতা থেকে বাঁচানোর জন্যই রোজার ব্যবস্থা। সিয়াম তথা রোজার সংজ্ঞার দিকে তাকালেই বিষয়টি আরো স্পষ্ট হবে।

রোজার সংজ্ঞায় বলা হয়, ‘পানাহার, সহবাস ও সব ধরণের গুনাহের কাজ ছেড়ে দেয়াই রোজা’। শুধু পানাহার ত্যগ করে গুনাহের কাজ না ছাড়লে তা কিছুতেই রোজা হবে না।

হজরত আবু হুরায়রা (রা.) হতে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘পানাহার বর্জনের নাম সিয়াম নয়; সিয়াম হলো অনর্থক ও অশ্লীল কথা এবং কাজ বর্জন করা। (বায়হাকি: ৪/২৭০)। অর্থাৎ রোজার মাধ্যমে পানাহারের মতো একটি বৈধ বা জায়েজ বিষয়কেও যখন অল্প সময়ের জন্য আল্লাহ নিষিদ্ধ করে দিলেন, সে নিষিদ্ধ বিষয়টিকে যেমন সে ‘না’ বলে প্রচণ্ড ক্ষুধার সময়েও পানাহার না করে আল্লাহর আইনের প্রতি শ্রদ্ধ দেখায় তেমনি সব অপরাধকে ‘না’ বলে সেগুলোও ছেড়ে দেয়ার বাস্তব প্রশিক্ষণ নিতে হবে রোজা থেকে। তবেই সে রোজাদারের রোজা পূর্ণ পুরস্কারের যোগ্য হবে। মানে হলো পবিত্র কোরআনে নিষিদ্ধ জিনিসগুলো ছেড়ে দেয়ার প্রশিক্ষণ নিতে হবে। নিজেকে বিরত রাখতে হবে সব ধরণের মিথ্যা ও পাপাচার থেকে। কোরআনের শান্তির সমাজ গড়ার মিশন বাস্তবায়নের মতো যোগ্য ও তাকওয়া সম্পন্ন (মুত্তাকি) নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে হবে।

হজরত আবু হুরায়রা (রা.) হতে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘যে ব্যক্তি পাপ, মিথ্যা কথা, অন্যায় কাজ ও মূর্খতাসুলভ কাজ ত্যাগ করতে না পারবে তার পানাহার ত্যাগ করাতে আল্লহ তায়ালার কোনো প্রয়োজন নেই। (বোখারি: ৫/২২৫১)।

সিয়াম কোরআনের আইনের প্রতি মানুষের মনে ভীতি ও শ্রদ্ধা তৈরি করবে সযতনে। রোজা পানাহারকে নিয়ন্ত্রণ করে আর অপরাধ প্রবণতাকে করে সমূলে উৎপাটন। রমজান শেষে পানাহার চালু হবে বটে কিন্তু অপরাধ থেকে বেঁচে থাকার যে বাস্তব প্রশিক্ষণ গ্রহণ করা হয়েছিল তা চলবে সারা বছর।

রোজা অপরাধের হাত-পা মজবুতভাবে বেঁধে দেবে তাকওয়ার রশি দিয়ে। আল্লাহর ভয় (তাকওয়া) থাকলে রাতের অন্ধকারেও অন্যায় থেকে বিরত থাকা সম্ভব।

মানুষের অন্তরে তাকওয়া বিধৌত সেই অদৃশ্য পাহারাই বসাবে রোজা। তাকওয়ার মাধ্যমে অপরাধ দমন হবে সমাজ থেকে। মানুষ বাঁচবে মানুষের অনিষ্ট থেকে। কেউ কারো ক্ষতি করবে না। প্রতিষ্ঠিত হবে শান্তির সমাজে।

# হাফেজ মাওলানা যুবায়ের আহমাদ: খতিব, বাইতুশ শফিক মসজিদ, বোর্ডবাজার (আ. গণি রোড), গাজীপুর।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর