কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


পাকুন্দিয়ায় দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী নাজিমের লেখাপড়ার জন্য ল্যাপটপ দিলেন ইউএনও


 স্টাফ রিপোর্টার | ২২ মে ২০১৯, বুধবার, ৪:০৩ | পাকুন্দিয়া  


নাজিম হোসেন। পাকুন্দিয়া উপজেলার মঙ্গলবাড়িয়া গ্রামের মো. বাচ্চু মিয়ার ছেলে। জন্মগত দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী। সকল প্রতিবন্ধকতার সঙ্গে লড়াই করে পড়ালেখা চালিয়ে যাচ্ছেন। এ বছর পাবনা শহীদ এম মনসুর আলী কলেজ থেকে এইচএসসি পরীক্ষা দিয়েছেন।

পড়ালেখার প্রতি প্রবল ইচ্ছে তার। তারা যে মাধ্যমে পড়াশোনা করেন, সেটা পুরোটাই রেকর্ডিং পদ্ধতি। তাই পড়ালেখার সহায়ক হিসেবে একটি ল্যাপটপ ভীষণ প্রয়োজন ছিলো তার। কিন্তু পরিবারের আর্থিক অসচ্ছলতার কারণে ল্যাপটপ কেনা সম্ভব হচ্ছিল না।

একটি ল্যাপটপের জন্য গত ফেব্রুয়ারি মাসে পাকুন্দিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে পড়ালেখার সহায়ক হিসেবে একটি ল্যাপটপ চেয়ে আবেদন করেন নাজিম হোসেন।

তাঁর আবেদনে সাড়া দেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মোকলেছুর রহমান। যিনি অল্প সময়ে তার দক্ষতা দিয়ে উপজেলা প্রশাসনকে গতিশীল করেছেন। জনবান্ধব করেছেন।

দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী নাজিম হোসেনের মানবিক আবেদনে সাড়া দিয়ে ইউএনও নিজস্ব উদ্যোগে একটি নতুন ল্যাপটপ নাজিম হোসেনের হাতে তুলে দিয়েছেন। বুধবার (২২ মে) সকালে ইউএনও’র কার্যালয়ে ল্যাপটপটি হস্তান্তর করা হয়। এ সময় নাজিম হোসেনের সাথে তার পিতা মো. বাচ্চু মিয়া ছিলেন।

এছাড়া উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মো. ফাইজ উদ্দিন আকন্দ, উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ের অফিস সহকারী একেএম দেলোয়ার হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

ল্যাপটপ পাওয়ার অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে নাজিম হোসেন বলেন, ল্যাপটপটি তাঁর পড়ালেখার ক্ষেত্রে খুবই কাজে আসবে। এজন্য তিনি ইউএনও’র প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। পাশাপাশি সে যেন ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ে ভর্তি হতে পারে এবং ভবিষ্যতে পড়ালেখা করে ভালো মানুষ হতে পারে সেজন্য সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন।

নাজিম হোসেনের বাবা মো. বাচ্চু মিয়া বলেন, আমার ছেলেটা জন্ম থেকে দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী। তবে পড়ালেখার প্রতি তার প্রবল আগ্রহ। ছেলেকে ল্যাপটপ দেয়ায় ইউএনও’র প্রতি তিনি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, আমার ছেলে যেন পড়ালেখা করে ভালো মানুষ হতে পারে সেজন্য দোয়া করবেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মোহাম্মদ মোকলেছুর রহমান বলেন, নাজিম হোসেন নামে এক দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী তাঁর পড়ালেখার কাজে সহায়ক হিসেবে একটি ল্যাপটপ চেয়ে আবেদন করে। তার আবেদনের প্রেক্ষিতে মানবিক দিক বিবেচনা করে নিজস্ব উদ্যোগে ল্যাপটপটি দেয়া হয়েছে। আমাদের সবার উচিত মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে তাদের পাশে থাকা।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর