কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


দেশপ্রেমিক ত্রৈলোক্য মহারাজ


 গৌরমোহন দাস | ২৪ মে ২০১৯, শুক্রবার, ৯:৩৫ | ব্যক্তিত্ব 


“আমি ভারতবর্ষের মধ্যে, ভারতবর্ষ কেন সম্ভবত পৃথিবীর মধ্যে রাজনৈতিক কারণে সর্বাপেক্ষা অধিকবার যাঁহারা রাজনৈতিক কারণে সর্বাপেক্ষা অধিক বৎসর কারাগারে কাটাইয়াছেন, তাঁহাদের অন্যতম”। কথাগুলো শুনে মনে হয় একজন সাহসী তথা বিপ্লবীর কথা। কথাগুলো যিনি বলেছিলেন তিনি হলেন ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনের অন্যতম পথিকৃৎ বিপ্লবী মহারাজ ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী। তিনি শুধু বিপ্লবীই ছিলেন না; ছিলেন একজন মানবদরদী, দেশপ্রেমিক, সমাজসংস্কারক, ধার্মিক। তাঁর সম্পর্কে স্বল্প পরিসরে লেখনিতে প্রকাশ সম্ভব না।

কিশোরগঞ্জ জেলার কুলিয়ারচর থানার কাপাসাটিয়া গ্রামে ১২৯৬ বঙ্গাব্দের ২১ বৈশাখ ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী জন্মগ্রহণ করেন। পিতা দুর্গাচরণ চক্রবর্তী, মাতা প্রসন্নময়ী দেবী। ছয় ভাই-বোনের মধ্যে তিনি ছিলেন সবার ছোট। তাঁর পারিবারিক নাম ছিল ত্রৈলোক্যমোহন চক্রবর্তী।

তাঁর ছাত্রাবস্থায় বিদ্যালয় পরিদর্শক অফিস থেকে বিদ্যালয়ের শিক্ষকের নিকট একটি পত্র আসে। তাতে লেখা ছিল ‘ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী’ আপনার বিদ্যালয়ের ছাত্র-রাজনৈতিক আন্দোলনে যোগদান করে.. ইত্যাদি ইত্যাদি। সে চিঠির এবং চিঠির উত্তরের প্রেক্ষিতে তাঁর নামের ‘মোহন’ শেষে ‘নাথ’ -এ পরিবর্তিত হয়ে যায়।

আবার উড়িষ্যার পুরিতে ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী মহাশয় ‘শশীকান্ত’ ছদ্মনামে বাস করেন। ময়মনসিংহ জেলার তখনকার মহারাজের নাম ছিল শশীকান্ত রায় চৌধুরী। লোকে তাকে শশীকান্ত রায় চৌধুরী মনে করে ‘মহারাজ’ বলে ডাকতেন। এভাবেই তিনি হয়ে যান ‘মহারাজ’। পরে ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী বললে কেউ না চিনলেও মহারাজ নামে সকলেই তাকে চিনতেন।

সুদর্শন পঞ্জিকা ও মাসিক সমাজ দর্পণ পত্রিকার প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক শ্রী শিবশঙ্কর চক্রবর্ত্তী মহাশয়ের সাথে তাঁর প্রসঙ্গে কথা বলেছিলাম (উক্ত পঞ্জিকাই তার ছবিসহ জন্ম ও মৃত্যুদিবসের কথা প্রকাশ করে)। তখন তিনি মহারাজের নামকরণ বিষয়ে একটি ঘটনার কথা বললেন- ‘আমি যখন পুঁথিঘরে চাকরি করি তখন আমাদের কাছে ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী মহাশয় যাওয়া-আসা করতেন। তো একদিন আমাদের পাশে বসে সচিবালয়ে ফোন করছেন। কে যেন ফোন ধরেছে এবং বলছে- আপনি কে? মহারাজ উত্তর দিচ্ছেন- “তুমি কে? আর তুমি যেই হও, গিয়ে বল ‘মহারাজ’ ফোন করেছে।” তাঁর এ কথাতেও বুঝা যায় ‘মহারাজ’ হিসেবে তিনি বেশ পরিচিত ছিলেন।

মহারাজের ছাত্রজীবন শুরু হয় মালদহ জেলার কানসাটে। দু’বছর পর তিনি চলে যান ময়মনসিংহ জেলার ধলা হাই স্কুলে। সেখানে তিনি বেশি পড়াশোনা করতে পারেন নি। ইংরেজ বেনিয়া শাসকগোষ্ঠী ভারতবাসীর স্বাধীনতা সংগ্রামকে ধূলিস্যাৎ করে দেবার জন্য ১৯০৫ খ্রিস্টাব্দের ১৬ অক্টোবর বঙ্গভঙ্গ ঘোষণা দেন। জাতীয় কংগ্রেস নেতাগণ উপযুক্ত সময় বঙ্গভঙ্গ উপলক্ষ করে স্বদেশি আন্দোলনের জন্ম দেন। এই আন্দোলনই ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের প্রথম সোপান। স্বদেশি আন্দোলন সারা বাংলাদেশকে আলোড়িত করেছিল।

ধলা স্কুলে পড়ার সময় ত্রৈলোক্য মহারাজ স্বদেশি আন্দোলনে যোগদান করেছিলেন। স্বদেশি আন্দোলনের ডাক গিয়ে তাঁর ক্ষুদ্রগ্রাম কাপাসাটিয়াতেও পৌঁছেছিল। তাঁর কথার প্রমাণ মেলে, প্রমাণ মেলে স্বদেশ প্রেমের “একদিন দেখিলাম বাড়ি হইতে আমার নামে একটি পার্শ্বেল আসিয়াছে। কীসের পার্শ্বেল বুঝিতে পারি নাই। আমার নামে কোন পার্শ্বেল আসার কথা ছিল না, আমি মনে করিলাম, এখানে খাওয়ার কিছু পাওয়া যায় না। এ জন্য বাড়ি হইতে কিছু খাদ্য দ্রব্য পাঠাইয়াছে। তাড়াতাড়ি পার্শ্বেল খুলিয়া দেখিলাম একজোড়া দেশি মোটা কাপড়। ... পার্শ্বেল পাঠাইয়াছিলেন আমার পিতা। তিনি সম্ভবত চাহিয়াছিলেন তাহার  কনিষ্ঠপুত্র স্বদেশপ্রেমী হউক।...”

পরে তার ছোড়দা’ চন্দ্রমোহন চক্রবর্তী তাকে সাটিরপাড়া স্কুলে ভর্তি করে দেন। বিদ্যালয়ের সাধারণ সম্পাদক ললিতমোহন বাবুর ভাই মোহিনী বাবু এবং ব্রাহ্মণদীর কামিনী মল্লিক মহাশয় ঐ অঞ্চলের স্বদেশি আন্দোলনের নেতৃত্বস্থানীয় ছিলেন।  ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী মহাশয় অল্প দিনের মধ্যেই সকলের পরিচিত ও ঐ অঞ্চলের উৎসাহী কর্মীরূপে পরিচিতি লাভ করেন।

সাটিরপাড়ায় পড়ার সময় ১৯০৬ খ্রিস্টাব্দে বিপ্লবী পুলিনবিহারী দাসের কাছে স্বদেশি মন্ত্রের দীক্ষা গ্রহণের মাধ্যমে অনুশীলন সমিতির সদস্য পদ লাভ করেন। অনুশীলন সমিতির স্রষ্টা ও নেতা ব্যারিস্টার প্রমথ মিত্র (পি.মিত্র) সমিতির পশ্চিমবঙ্গের ভার সতীশ চন্দ্র বসুর ওপর এবং পূর্ববঙ্গের ভার পুলিনবিহারী দাসের ওপর ন্যস্ত করেন।

স্বদেশি আন্দোলনকে আরো একধাপ এগিয়ে নিতে পুলিন বাবু দেশের জনগণের জাগরণে ক্ষাত্রশক্তি লাভ করার জন্য সমিতির মাধ্যমে বিভিন্ন প্রশিক্ষণ প্রদান করেন। আত্মরক্ষার কৌশল শিক্ষা গ্রহণ করতে মানুষও দলে দলে সমিতির সদস্য হতে থাকে। এই অনুশীলন সমিতির সংস্পর্শে সে সময় ভারতবর্ষের নামকরা পুলিনবিহারী দাস, রবি সেন, মাখন সেন, নেতাজী সুভাষ চন্দ্র বসু, দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন দাস প্রমুখ বিপ্লবীদের সাথে তিনি রণকৌশল শিক্ষা গ্রহণ করেন, তাতে করে মহারাজের মধ্যে এক অ™ভুত নেতৃত্বের বিকাশ ঘটে। কর্তৃপক্ষ ঐ বালকের সংগঠন ক্ষমতা দেখে খুশি হয়ে ত্রৈলোক্য মহারাজের ওপর মহেশ্বরদী পরগনার ৫০টি শাখা সমিতি পরিচালনার ভার দেন। তখন তিনি মাত্র তৃতীয় শ্রেণীর ছাত্র।

১৯০৮ খ্রিস্টাব্দে নৌকা চুরি করে ডাকাতি করতে যাবে এই অভিযোগে প্রবেশিকা পরীক্ষার ঠিক আগে নারায়ণগঞ্জে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। নৌকা চুরির অভিযোগে তিনি প্রথমবার ১২ মাস কারাভোগ করেন। ঢাকা ষড়যন্ত্র মামলার পলাতক আসামী কালীন ১৯১২ খ্রিস্টাব্দে ঢাকা শহরের একজন পুলিশ কর্মচারী (রতিলাল রায়) হত্যার অভিযোগে আবার তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

ঢাকার অতিরিক্ত ম্যাজিস্ট্রেট যামিনীমোহন দাস মহাশয়ের আদালতে ১০৯ ধারায় বিচার শেষে কয়েক মাস হাজতবাসের পর তিনি বেকসুর খালাস পান। গুপ্তচরের কড়া নজর থাকায় তিনি আবার আত্মগোপন করে থাকেন। এক পর্যায়ে মহারাজকে ধরার জন্য সরকার পক্ষ থেকে পুরস্কার ঘোষণা করা হয়েছিল। ১৯১৪ খ্রিস্টাব্দে কলকাতায় গঙ্গাস্নান করার সময় পুলিশ তাঁকে গ্রেপ্তার করে। বরিশাল ষড়যন্ত্র মামলার আসামী করে কোর্টে হাজির করা হলে দশ বছরের নির্বাসনদণ্ড দেওয়া হয় আন্দামানের সেলুলার জেলে। পরে ১৯২৪ খ্রিস্টাব্দে আলীপুর সেন্ট্রাল জেল থেকে মুক্তি দেয়া হয়। স্বাধীনতা লাভের পূর্বে ১৯০৮ থেকে ১৯৪৬ স্বদেশপ্রেমিক মহারাজের জীবনের ৩০ বছর ইংরেজদের জেলে কেটে গেছে। ৫ বছর কেটেছে আত্মগোপন করে।

দেশ বিভাগের পর তিনি আপনজনদের নিয়ে ভারত চলে যান নি। ১৯৪৮ খ্রিস্টাব্দে বরিশালে পাকিস্তান সোসালিস্ট পার্টি প্রতিষ্ঠা করে সভাপতিরূপে স্বাধীন দেশে তার কাজ শুরু করেন। হিন্দুরা যাতে দেশ ত্যাগ না করে, পূর্ব পাকিস্তানের জেলায় জেলায় ঘুরে তিনি তার জন্য চেষ্টা করেন। ১৯৬৫ খ্রিস্টাব্দে ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধের সময় ঐ অশীতিপর দেশপ্রেমিক মানুষটিকে পাকিস্তান সরকার দু’বছর কারারুদ্ধ করে রাখেন। ঐ সময় হিন্দুদের সম্পত্তি বহুস্থানে শত্রু সম্পত্তি বলে দখল করে নেয়। তিনি তার প্রতিবাদ করেছেন এবং জোরালো আন্দোলন করেছেন।

মানবদরদী এই মহারাজজীকে ১৯৭০ খ্রিস্টাব্দের ২৪ জুন দেশ বিভাগ আর দেশ ত্যাগ বিষয়ে আনন্দবাজার পত্রিকার এক সাংবাদিক প্রশ্ন করেছিলেন- দেশ বিভাগের পর পূর্ব পাকিস্তানে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের একজন না হয়ে ভারত চলে গেলেন না কেন? আপনার সহকর্মীগণ বা অনেকেই তো পশ্চিম বাংলায় চলে গেছেন।

চির বিপ্লবী মহারাজ দীপ্তকণ্ঠে জবাব দেন- “প্রকৃত বিপ্লবীরা কোন সম্প্রদায়ে বিশ্বাস করে না একমাত্র মানব সম্প্রদায় ছাড়া। আপনারা কি মনে করেন যে, ভারতের হিন্দু সম্প্রদায়ভুক্ত বিপ্লবীরা কেবলমাত্র হিন্দুদের স্বাধীনতার জন্যই জীবন উৎসর্গ করেছেন? তারা ভারতের মুক্তি কামনায় জীবন উৎসর্গ করেছিলেন; কোন বিশেষ সম্প্রদায়ের জন্য তারা গৃহত্যাগ করেন নি। দেশত্যাগ বিপ্লবীর ধর্ম নয়। সর্বভারতের মুক্তিকামী হয়েও মুসলমানদের দুঃখ দুর্দশা-ই একদিন আমাকে বিপ্লবী রাজনীতিতে উদ্বুদ্ধ করেছিল। আজও এখানে দুই সম্প্রদায় বর্তমান। এদের দুঃখ দুর্দশার অবসান আজও হয় নি।’’

দেশপ্রেমিক ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী মহাশয় বহুগুণের অধিকারী ছিলেন। ধর্মীয় কুসংস্কারগুলোতেও তীব্র প্রতিবাদ করেছেন। একজন ব্রাহ্মণ সন্তানকে অন্যের অন্ন-জল গ্রহণে যখন ছিল প্রথম বাধা তখনই তিনি ব্রাহ্মণ সন্তান হয়েও নিম্নবর্ণের মানুষের সাথে একাত্ম হয়ে কাজ করেছেন।

বিবাহে উপহার দেয়া বা নেয়া বিষয়ে তিনি বলেছেন- “বিবাহ উপলক্ষে উপহার দেওয়া বা গ্রহণ করা যেমন কুপ্রথা; বিবাহে পণ দেওয়া বা নেওয়াও কুপ্রথা। ইহা হিন্দু সমাজের কলঙ্কবিশেষ, ইহাও বন্ধ করিতে হইবে। ......... যেখানে আত্মীয়তা হইবে সেখানে ব্যবসা করা উচিত নয়। শুধু আইন দ্বারা সমাজ হইতে এই কুপ্রথা দূর হইবে না। প্রয়োজন প্রচার দ্বারা জনমত গঠন করা।”

জেলখানায় বসে তিনি ‘জেলে তিরিশ বছর’, ‘পাক ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রাম’ নামক বই রচনা করেন। অবশ্য দুইটি বই-ই পাক ভারত সরকার বাজেয়াপ্ত ঘোষণা করেছিল। তখন গীতা স্বরাজ নামে একটি গীতা গ্রন্থও রচনা করেছিলেন। ফলে হয়তো গীতার কথা মনে রেখেই তিনি তাঁর মৃত্যুকে একান্ত সহজভাবে নিয়েছিলেন। তিনি মৃত্যুর জন্য ভয় না পেয়ে এক পত্রে লিখেছিলেন “আমার ঘণ্টা বাজিতেছে, ডাক পড়িয়াছে, পা ফুলিয়াছে।”

৮ আগস্ট, ১৯৭০ খ্রিস্টাব্দে ২১ জনপথ রোডে সুরেন্দ্রমোহন ঘোষ মধু বাবুর বাড়িতে এক প্রীতিভোজের আয়োজন করা হয়েছিল। ঐ দিনের ভোজসভায় কেন্দ্রীয় সরকারের বহু মন্ত্রী, লোকসভার সরকার ও বিরোধী পক্ষের বহু সদস্যও আমন্ত্রিত হয়েছিলেন। মহারাজের শরীর সে দিন সন্ধ্যা থেকেই খারাপ যাচ্ছিল। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী শ্রীমতী ইন্দিরা গান্ধীর অনুরোধ, আগ্রহ ও পরিবেশনে কিছু খান। রাত  ৩ টার দিকে তবে তিনি একবার বাথরুমে যান। ফিরে বিছানায় শোয়ার সাথে সাথে (৩টা ২০ মিনিটে) বিপ্লবী মহানায়ক তাঁর শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

তাঁর মৃত্যুতে দেশবাসী ১০ আগস্ট এক শোকযাত্রা বের করে, কোলকাতার কেওড়াতলা মহাশ্মশানে তাঁর শেষকৃত্য সম্পন্ন করা হয়। উল্লেখ্য শ্রীমতী ইন্দিরা গান্ধীকে তিনি অনুরোধ করে বলেছিলেন- “বাংলাদেশের মানুষ সাম্প্রদায়িক নয়। মনে প্রাণে তারা ১০০ ভাগ বাঙালি। তারা কারো আধিপত্য মানতে চায় না। তারা কোন শক্তিশালী পড়শীর সহযোগিতা পেলে সার্বভৌমত্ব নিয়ে মাথা তুলে দাঁড়াতে পারে। মা তুমি তাদের প্রতি নজর রেখো।”

বিপ্লবী এই মহারাজের কথা আমাদের প্রজন্মের জানা থাকা ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশের প্রয়োজন ছিল। কিন্তু তাঁর স্মৃতি তথা অবদান, জন্মস্থানটির ঐতিহ্য, কুলিয়ারচর সদরে স্থাপিত ‘ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী স্মৃতি পাঠাগার’, আন্দামান দ্বীপের জেল কারাকর্তৃপক্ষ তার মুক্তির সময় রাস্তায় বিশেষ সুবিধার জন্যে প্রদত্ত মূল্যবান চেয়ার, কাঠের বক্স ইত্যাদি যথাযথ সংরক্ষণ অভাবে ও অবহেলায় পরে আছে। তাঁকে অনেকেই আজ চিনে না।

অধ্যপাক হীরেন্দ্র নাথ বিশ্বাস মহাশয় সম্পাদিত, বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু সমাজ সংস্কার সমিতি কর্তৃক প্রকাশিত সুদর্শন পঞ্জিকা-ই তাঁর ছবি সংবলিত তথ্য পরিবেশন করে সুধীজনের প্রশংসার দাবীদার হচ্ছে। তাঁর স্মৃতি ধরে রাখার প্রয়োজন মনে করেও সরকারি সহায়তা ভিন্ন ধরে রাখা সম্ভব হচ্ছে না। জাতীয় জাদুঘরের গ্যালারীতে বহু লোকের ছবি স্থান পেলেও ছবি নেই দেশের জন্য সংগ্রামী ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী মহারাজের। সত্যি কি তার ছবি জাদুঘরের গ্যালারীতে স্থান পাওয়ার যোগ্য নয়? নাকি অবহেলায়, অকৃতজ্ঞতায় তা সম্ভব হয় নি! দেশের জন্য নিবেদিত প্রাণ ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী মহাশয়ের অবদানের কথা বিবেচনা করে জাতীয় জাদুঘরে তাঁর একটি ছবি, স্মৃতিচিহ্ন যথাযথ সংরক্ষণের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ সমীপে জোরালো অনুরোধ জানাচ্ছি।

কৃতজ্ঞতা: (১)  বিপ্লবী মহানায়ক ত্রৈলোক্য মহারাজের পত্রাবলি (সংগ্রাহক : শ্রী নরোত্তম দাস- কুলিয়ারচর)।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর