কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ফিতরা ও এর তাৎপর্য


 হাফেজ মাওলানা যুবায়ের আহমাদ | ৩১ মে ২০১৯, শুক্রবার, ২:৪০ | ইসলাম 


ফিতরার মাধ্যমে আল্লাহ তায়ালা রোজার ভুল মাফ করে দিয়ে সদকাতুল ফিতর আদায়কারীকে রোজার পূর্ণ সওয়াব দিয়ে দেন। সদকাতুল ফিতরের দুইটি উদ্দেশ্য। ১. রোজাদারের রোজাকে পবিত্র করা। ২. মিসকিন ও অভাবীদের ঈদের আনন্দের দিনে হাত পাতা থেকে বিরত রাখা।

আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘অশ্লীল ও অনর্থক কথাবার্তার কারণে সিয়ামে ঘটে যাওয়া ক্রটিবিচ্যুতিগুলো দূর ও মিসকিনদের খাবারের ব্যবস্থা করার জন্য রাসুলে করিম (সা.) সদকাতুল ফিতর ওয়াজিব করেছেন। (আবু দাউদ : ২/১১১)।

জাকাত ও সদকাতুল ফিতর উভয়ের উদ্দেশ্যে ব্যবধান আছে। জাকাত হলো দারিদ্র্যকে সমূলে উৎপাটন করার জন্য আর সদকাতুল ফিতর হলো সাময়িকভাবে ঈদের দিন গরিবদের খাবার ও নিত্যপ্রয়োজন পূরণের জন্য। সদকাতুল ফিতর ওয়াজিব হওয়ার জন্য শর্ত হলো নিসাব পরিমাণ মালের মালিক হওয়া। জাকাত এবং ফিতরা উভয়টির জন্যই নিসাব পরিমাণ মাল থাকতে হয়। তবে উভয়টির এ শর্তে ভিন্নতা আছে। জাকাতের জন্য বছরপূর্তি অর্থাৎ নিত্যপ্রয়োজনের অতিরিক্ত সম্পদ ১ বছর স্থায়ী হওয়া শর্ত; কিন্তু সদকাতুল ফিতরের জন্য ১ বছর শর্ত নয়।

ঈদুল ফিতরের দিন ভোরবেলায় যার কাছে নিসাব পরিমাণ মাল থাকবে, তার ওপরই সদকাতুল ফিতর ওয়াজিব হবে। এমনকি ওই ব্যক্তি যদি এর আগের দিন কিংবা পরের দিনও সম্পদহীন থাকে; কিন্তু ঘটনাক্রমে ঈদুল ফিতরের দিন ভোরবেলায় তার পরিবারের প্রয়োজনের অতিরিক্ত নিসাব পরিমাণ মাল থাকে তাহলেই তার এবং তার অধীনদের সবার পক্ষ থেকে সদকাতুল ফিতর আদায় করতে হবে।

নিসাব হলো নিত্যপ্রয়োজনীয় ও ঋণের অতিরিক্ত কারও কাছে সাড়ে সাত তোলা স্বর্ণ অথবা সাড়ে ৫২ তোলা রুপার সমপরিমাণ অর্থ থাকা। সদকাতুল ফিতরের পরিমাণ হলো এক সা (৩ কেজি ৩০০ গ্রাম) খাদ্যদ্রব্য, খেজুর, যব, কিশমিশ অথবা পনির।

আবু সাঈদ খুদরি (রা.) বলেন, আমরা এক সা (৩ কেজি ৩০০ গ্রাম) খাদ্য অথবা এক সা খেজুর অথবা যব অথবা কিশমিশ অথবা পনির দ্বারা সদকাতুল ফিতর আদায় করতাম। (বোখারি : ২/৫৪৮)।

তাছাড়া অর্ধ সা (১ কেজি ৬৫০ গ্রাম) গম দিয়েও সদকাতুল ফিতর আদায় করা যায়। আসমা বিনতু আবি বকর (রা.) থেকে বর্ণিত আরেকটি হাদিসে এসেছে, রাসুলুল্লাহ (সা.) এর যুগে আমরা দুই মদ্দ গম দিয়ে সদকাতুল ফিতর আদায় করতাম। (মুসনাদে আহমাদ : ৬/৩৫৫)।

অন্য একটি হাদিসেও খেজুর, যব, কিশমিশ, পনির ও গম দিয়ে সদকায়ে ফিতর আদায় করার বিষয়টি বর্ণিত। গম দিয়ে আদায় করলে অর্ধ সা আদায় করতে হয়। ইসলাম গরিবের স্বার্থকেই সব সময় বড় করে দেখেছে। সর্বনিম্ন অর্ধ সা গম ও সর্বোচ্চ এক সা খেজুর, যব, কিশমিশ কিংবা পনির (বেশি দামের জিনিসটি) দিয়ে আদায় করা যায়।

সামর্থ্য অনুযায়ী সদকাতুল ফিতর আদায় করতে হবে। বেশি বিত্তশালীদের খেজুর বা পনির দিয়ে আদায় করতে হবে। যার সামর্থ্য কম সে অন্তত গমের হিসেবে আদায় করবে। গম দিয়ে দিলে আধা সা বা ১ কেজি ৬৫০ গ্রাম। আর খেজুর, যব, পনির বা কিশমিশ দিয়ে আদায় করলে জনপ্রতি এক সা বা ৩ কেজি ৩০০ গ্রাম দিতে হবে। গমের পরিমাণটা কম, কারণ তখন আধা সা গমের দাম ১ সা খেজুর, কিশমিশ যব কিংবা পনিরের চেয়েও বেশি ছিল। বর্তমানে এ পাঁচটি পণ্যের মধ্যে গমের দামই সবচেয়ে কম।

সাহাবায়ে কেরাম যে জিনিসের দাম বেশি, সে জিনিস দিয়ে সদকাতুল ফিতর দিতেন অথচ আমরা যে জিনিসের দাম কম, সেই জিনিস দিয়ে সদকাতুল ফিতর দিই। সাহাবায়ে কেরাম (রা.) সর্বনিম্ন দামি পণ্য দিয়ে সদকায়ে ফিতর আদায় করেছেন এমনটি পাওয়া যায় না। সর্বাধিক দামি জিনিসটিই ছিল ফিতরার জন্য তাদের প্রথম পছন্দ। আধা সা গম বা তার মূল্য দিলেই সদকাতুল ফিতর আদায় হবে ঠিক; কিন্তু যাদের সামার্থ্য আছে কিশমিশ দ্বারাই আদায় করবেন।

বাংলাদেশের বর্তমান বাজারের মূল্য অনুযায়ী আধা সা গমের দাম ৭০ টাকা। তাই ইসলামিক ফাউন্ডেশন সর্বনিম্ন ফিতরা নির্ধারণ করেছে ৭০ টাকা। তাছাড়া এক সা যবের মূল্য ৫০০ টাকা, ১ সা কিশমিশের দাম ১ হাজার ৩২০ টাকা, এক সা খেজুরের দাম ১ হাজার ৬৫০ টাকা আর সর্বোচ্চ ১ সা পনিরের দাম ১ হাজার ৯৮০ টাকা।

বেশি সামর্থ্যবানরা ১ হাজার ৯৮০ টাকাই আদায় করবেন। ফিতরা একজন গরিবকে দেয়া উত্তম। তবে কয়েকজনকে ভাগ করে দেয়াও জায়েজ আছে। কেউ কোনো কারণবশত রমজানের রোজা না রাখতে পারলেও ঈদুল ফিতরের দিন নিসাব পরিমাণ মালের মালিক থাকলে তাকে সদকাতুল ফিতর আদায় করতে হবে।

ঈদুল ফিতরের দিন সুবহে সাদিকের সময় ফিতরা ওয়াজিব হয়। সুতরাং যে সন্তান ঈদুল ফিতরের দিন সুবহে সাদিকের আগে জন্মগ্রহণ করবে তার সদকাতুল ফিতর আদায় করতে হবে। কিন্তু যে শিশু সুবহে সাদিকের পর জন্মগ্রহণ করবে তার পক্ষ থেকে বাবাকে সদকাতুল ফিতর আদায় করতে হবে না। (বাদায়েউস সানায়ে : ২/২০৬)।

কখন আদায় করবেন সদকাতুল ফিতর? যেহেতু সদকাতুল ফিতরের ব্যবস্থা করা হয়েছে ঈদুল ফিতরের দিন গরিবকে ভিক্ষামুক্ত রাখতে তাই ঈদুল ফিতরের দুই-একদিন আগে অথবা ঈদের দিন নামাজের জন্য বের হওয়ার আগে তা আদায় করাই উত্তম। এরও আগে আদায় করলেও আদায় হবে তবে অবশ্যই তা ঈদের নামাজে বের হওয়ার আগে আদায় করতে হবে। গরিব ভাইবোন অথবা নিকটাত্মীয়দেরও সদকাতুল ফিতর দেয়া যায়। (ফাতওয়ায়ে হিন্দিয়া : ১/১৯০)।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর