কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ভৈরবে পুলিশের এসআইকে গণধোলাইয়ের ঘটনা তদন্তে অ্যাডিশনাল এসপি


 সোহেল সাশ্রু, ভৈরব | ৩ জুন ২০১৯, সোমবার, ৭:৪৯ | ভৈরব 


ভৈরবে শিক্ষার্থীকে মাদক দিয়ে ফাঁসানোর অভিযোগে থানা পুলিশের এসআইকে গণধোলাইয়ের ঘটনা তদন্তে নেমেছে পুলিশ। এজন্যে অতিরিক্তি পুলিশ সুপার (অপরাধ) মো. মিজানুর রহমান সোমবার (৩ জুন) দুপুরে ভৈরবে যান। রোববার (২ জুন) কিশোরগঞ্জ নিউজ এ ‘মাদক দিয়ে শিক্ষার্থীকে ফাঁসাতে গিয়ে ভৈরবে গণধোলাইয়ের শিকার দুই এসআই’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ হয়। এছাড়া সোমবার (৩ জুন) বেশ কয়েকটি জাতীয় ও স্থানীয় দৈনিকসহ বিভিন্ন অনলাইন পোর্টালে এ সংক্রান্ত সংবাদ প্রকাশ হওয়ায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়।

এ রকম পরিস্থিতিতে ঘটনা তদন্তে সোমবার (৩ জুন) দুপুরে ভৈরবে যান কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) মো. মিজানুর রহমান।

এ ব্যাপারে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) মো. মিজানুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, এসপি স্যারের নির্দেশে আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। স্থানীয়দের সাথে কথা বলেছি। যা যা জেনেছি, সবই এসপি স্যারকে জানাবো। পরে তিনিই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।

এদিকে পুলিশের এসআইকে গণধোলাইয়ের ঘটনায় আটক ৫ জনকে থানা থেকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। কিন্তু আটক ব্যক্তিদের থানা থেকে ছাড়িয়ে আনার নামে শহরের ৭নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক হাজী মো. সেলিম মিয়ার বিরুদ্ধে ৫০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ ওঠেছে। যদিও পুলিশ এবং আওয়ামী লীগ নেতা হাজী সেলিম টাকা নেয়ার বিষয়টি অস্বীকার করেছেন।

জানা গেছে, সজিব নামে এক কলেজ শিক্ষার্থীকে মাদক দিয়ে ফাঁসানোর অভিযোগে স্থানীয়দের হাতে গণধোলাইয়ের শিকার হন থানা পুলিশের দুইজন এসআই। তারা হলেন, এসআই আবুল খায়ের ও এসআই আজিজুল হক। এদের মধ্যে এসআই আবুল খায়ের সবচেয়ে বেশি বেধড়ক মারপিটের শিকার হয়েছেন। গত শনিবার (১ জুন) রাত ৮টার দিকে ভৈরব-কিশোরগঞ্জ আঞ্চলিক সড়কের শম্ভুপুর পাক্কার মাথা এলাকায় এই ঘটনা ঘটে।

শিক্ষার্থীর পরিবারের দাবি, মদের বোতল দিয়ে শিক্ষার্থী সজিব মিয়াকে ফাসাঁনোর চেষ্টা করে পুলিশ। সে শম্ভুপুর সরকারি টেকনিক্য্যাল স্কুল এন্ড কলেজের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী। সজিবের বাবা মো. সাবু মিয়া একজন মুদি দোকানী।

পুলিশ জানায়, শনিবার (১ জুন) রাত ৮টার দিকে শহরের চান্দ ভান্ডারের সামনে থেকে মদের বোতলসহ মোটর সাইকেল আরোহী সজিবকে আটক করে পুলিশ। পরে মোটর সাইকেলেসহ সজিবকে থানায় নেয়ার চেষ্টা করে পুলিশ। কিন্তু সজিব কৌশলে মোটর সাইকেল নিয়ে দুর্জয় মোড় থেকে সজোরে পাক্কার মাথায় চলে যায়। পরে সজিবকে হাতকড়া পড়াতে চাইলে সে দৌঁড়ে পালিয়ে যায়।

এদিকে স্থানীয়রা এবং সজিবের পরিবারের সদস্যরা জানায়, মোটর সাইকেল নিয়ে সজিব তার দুই বন্ধুকে নিয়ে সন্ধ্যায় ঈদের কেনাকাটা করতে মার্কেটে যায়। তাদেরকে চান্দ ভান্ডারের সামনে আটকে সজিবের গায়ে মদ ছিটিয়ে মাদক ব্যবসায়ী বানানোর চেষ্টা করে পুলিশ। পরে সজিব মোটরসাইকেল নিয়ে তার মহল্লা শহরের পাক্কার মাথা চলে আসে। তাদের পিছু নেয় ভৈরব থানার এসআই আবুল খায়ের ও আজিজুল হক।

পরে সজিবকে জোরপূর্বক ধরে নিয়ে যেতে চাইলে বিষয়টি স্থানীয়দের চোখে পড়ে। এসময় এসআই আবুল খায়েরের গায়ে পুলিশের পোশাক না থাকার কারণে ছিনতাইকারী ভেবে তাকে গণধোলাই দেয়। আর আব্দুল আজিজ কৌশলে পালিয়ে আসে। খবর পেয়ে ভৈরব থানার এসআই মোখলেছুর রহমান রাসেল ও অভিজিৎ ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে আবুল খায়েরকে উদ্ধার করে। একই সাথে পুলিশের উপর হামলার অভিযোগে ঘটনাস্থল থেকে ৪ জনকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। পরে সেহরি খাওয়ার সময় সজিবের বাবা মো. সাবু মিয়াকেও আটক করে পুলিশ।

এ ঘটনার পর রোববার (২ জুন) দুপুরে পাক্কার মাথা এলাকার স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিরা অনাকাক্সিক্ষত ঘটনার জন্য দুঃখ প্রকাশ করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন, হাজী মতিউর রহমান, হাজী আব্দুল মালেক, আব্দুস সাদেক, বোরহান উদ্দিন ও হাজী সেলিম মিয়া। পরে তারা মুচলেকা দিলে আটক ৫ জনকে ছেড়ে দেয় পুলিশ। কিন্তু থানা থেকে তাদেরকে ছাড়িয়ে আনার নামে হাজী সেলিম মিয়া ৫০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন সজিবের ফুফা মাহবুব আলম।

টাকা নেয়ার অভিযোগ অস্বীকার করে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা হাজী মো. সেলিম মিয়া বলেন, তাদের কাছ থেকে কোনো টাকা নেয়া হয়নি। তাছাড়া হামলার শিকার পুলিশ সদস্যের মোটর সাইকলেটি ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার কারণে তিনি ১০ হাজার টাকা দিতে চেয়েছিলেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর