কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোগঞ্জের মুফতি মিজানুর রহমান জাতীয় ঈদগাহে দেশের প্রধান ঈদ জামাতের ইমাম


 যুবায়ের আহমাদ | ৪ জুন ২০১৯, মঙ্গলবার, ৬:০৯ | ইসলাম 


জাতীয় ঈদগাহে দেশের প্রধান ঈদ জামাতে ইমাম হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন কিশোরগঞ্জের কৃতিসন্তান, জামিয়া ইমদাদিয়ার প্রাক্তন ছাত্র মাওলানা মুফতি মিজানুর রহমান। তিনি বায়তুল মুকাররম জাতীয় মসজিদের সিনিয়র পেশ ইমাম। মাওলানা মুফতি মিজানুর রহমান ৪ বছর ধরে দেশের প্রধান ঈদ জামাতের ইমামতি করে আসছেন।

ইসলামিক ফাউন্ডেশন সূত্রে জানা গেছে, রাজধানীতে ঈদুল ফিতরের প্রধান জামাত জাতীয় ঈদগাহে সকাল সাড়ে ৮টায় অনুষ্ঠিত হবে। এতে রাষ্ট্রপতি, মন্ত্রিসভার সদস্য, প্রধান বিচারপতি, কূটনৈতিকসহ গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা নামাজ আদায় করবেন।

মুফতি মিজানুর রহমান ১৯৭৭ সালের ১৬মে কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জ উপজেলার নিয়ামতপুর গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন। কিশোরগঞ্জের তাড়াইলের কাজলা আলিম মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ ও সর্বজন শ্রদ্ধেয় আলেম মরহুম মাওলানা সৈয়দ মোহাম্মাদ তোহা তাঁর পিতা।

নিজ গ্রামের ধলিয়ারকান্দা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রাথমিক শিক্ষা শেষে তিনি ভর্তি হন দেশের অন্যতম শীর্ষ ইসলামী বিদ্যাপীঠ কিশোরগঞ্জের আল জামিয়াতুল ইমদাদিয়ায়। আল্লামা আযহার আলী আনোয়ার শাহ, মরহুম আল্লামা আতাউর রহমান খান (সাবেক এমপি) তার উস্তাদ। জামিয়া ইমদাদিয়ায় হিফজ থেকে শুরু করে কওমি মাদরাসার সর্বোচ্চ স্তর দাওরায়ে হাদিস পাস করেন কৃতিত্বের সঙ্গে।

তারপর উচ্চশিক্ষার জন্য বিশ্ববিখ্যাত ইসলামী শিক্ষালয় ভারতের দারুল উলুম দেওবন্দ গমন করেন। সেখান থেকে আবার দাওরায়ে হাদিস পাস করেন। উচ্চশিক্ষা শেষে দেশে ফিরে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক ও প্রিন্সিপাল হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

২০০৬ সালে সরকারি প্রথম শ্রেণির কর্মকর্তা হিসেবে চট্টগ্রামের আন্দরকিল্লা শাহী জামে মসজিদে ইমাম হিসেবে নিয়োগ লাভ করেন। ৬ মাস পরই তাকে জাতীয় মসজিদ বায়তুল মুকাররমে ইমাম হিসেবে পদায়ন করা হয়। বর্তমানে তিনি জাতীয় মসজিদ বায়তুল মুকাররমের সিনিয়র পেশ ইমাম হিসেবে কর্মরত আছেন।

বায়তুল মুকাররম জাতীয় মসজিদের সিনিয়র পেশ ইমাম হিসেবে কর্মরত থাকা মুফতি মিজানুর রহমান রাষ্ট্রীয় ও ধর্মীয় বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ কাজে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকেন। এ বছর জাতীয় ফিতরা নির্ধারণ কমিটির সভাপতি ছিলেন তিনি। তার সুমধুর কণ্ঠের তিলাওয়াত, শুদ্ধ বাংলা উচ্চারণ, চমৎকার বিষয়ভিত্তিক আলোচনার কারণে সারা দেশেই তিনি ওয়াজ মাহফিলের জন্য আমন্ত্রণ পান।

বিভিন্ন মাসিক জাতীয় পত্রিকায় তার ইসলামবিষয়ক বেশ কিছু প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে। তিনি বিভিন্ন টিবি চ্যানেলে ইসলামী প্রোগ্রামে আলোচনা করেন। একাধিকাব হজ করেছেন তিনি। তাছাড়া সৌদি আরব, পাকিস্তান, ভারত, জর্ডানসহ বিভিন্ন দেশ সফর করেছেন তিনি। একই জামাতে তারই এলাকার মহামান্য রাষ্ট্রপতি মুক্তাদি আর তিনি ইমাম।

মুফতি মিজানুর রহমান বলেন, এটা আমার উস্তাদবৃন্দ, পিতামাতা ও এলাকাবাসীর দোয়া। আল্লাহ তায়ালার দয়া। মুফতি মিজানুর রহমান ঈদের দিন এলাকাবাসীকে কাছে পান না কিন্তু এলাকারই এক মুরব্বি, অভিভাবক মহামান্য রাষ্ট্রপতিকে সামনে থাকতে দেখে তিনি আনন্দিত হন। এলাকাবাসীর শূন্যতা কিছুটা হলেও পূরণ হয়। এতবড় জাতীয় জামাতের ইমাম হয়েও তিনি এলাকাবাসীকে ঈদের দিন মিস করেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর