কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


আমাদের ঈদগানা, আমাদের শোলাকিয়া


 শাহ মুহাম্মদ মোশাহিদ | ৫ জুন ২০১৯, বুধবার, ১:৫৭ | রকমারি 


গল্পটা শোলাকিয়া ঈদগাহের। অথবা আমার। আমি কে? শোলাকিয়ার ছেলে। এই পরিচয়েও সামান্য খাদ আছে। জন্মগতভাবে আমি কিশোরগঞ্জের হলেও, শোলাকিয়ার নই। বেড়ে উঠেছি শোলাকিয়াতেই। সারা দেশের মানুষ এই শোলাকিয়াকে যেভাবে চিনেন, আমি চিনি অন্যভাবে।

সেই অন্যরকম চেনার কথায় একটু পর আসছি। আগে ভূমিকা সেরে নেয়া দরকার-

শোলাকিয়া বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় ঈদগাহ। এখানে হয় বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম জামাত। ঈদ এলেই গণমাধ্যমগুলোতে শোলাকিয়া নিয়ে তোড়জোর শুরু হয়। কেউ পত্রিকায় পড়েন, টেলিভিশনে দেখেন। দেখে, পড়ে অবাক হন- ৭ একর জমি নিয়ে এই মাঠটিতে একসাথে ৩ লাখেরও বেশি মানুষ নামাজ পড়ে!

অনেকেই হয়তো মাঠটিতে নামাজও পড়তে গিয়েছেন। দৈত্যাকার রেইনট্রিতলায় দাঁড়িয়ে মাঠের শেষ মাথায় দৃষ্টি দিয়েছেন। খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে গোণার চেষ্টা করেছেন কাতারের সংখ্যা। সত্যিই কি এখানে ২৫০ টি কাতার আছে! সীমানা দেয়াল ধরে নাম্বারিং করা কাতারগুলো এক, দুই, তিন করে গুণতেও শুরু করলেন। কেউ হয়তো ভেবেছেন, মাঠটির এমন অদ্ভুত নাম কেন? কী অর্থ হয় ‘শোলাকিয়া’ শব্দের!

এর জন্য বেশি ঘাঁটাঘাঁটি করতে হয় না। ইন্টারনেটের যুগ। জানতে চাইলেই সব জানা যায়। তবে ঈদের মৌসুমে জানতে না চাইলেও টেলিভিশনগুলোর কল্যাণে আপনি বিনাশ্রমে জেনে যেতে পারেন।

নামের ইতিহাস খুব জটিল নয়, আবার একেবারে সহজও নয়। অর্থাৎ কি করে এই নামটি এলো তা হলফ করে কেউ বলতে পারেন না। তবে ধারণা করা হয়, মাঠটি প্রতিষ্ঠা হওয়ার পর প্রথম জামাতে সোয়া লাখ লোক নামাজ পড়েছিলেন। আর এ কারণেই মাঠটি সোয়ালাখিয়া হিসেবে পরিচিতি পায়। পরে এটাই মানুষের মুখে ঘুরতে ঘুরতে সোয়ালাকিয়া, এবং শোলাকিয়ায় পরিণত হয়। আর এই শোলাকিয়া ঈদগাহর নামেই এখন কিশোরগঞ্জ শহরের বড় একটি এলাকার নামই শোলাকিয়া।

আবার কেউ কেউ বলেন, এই মাঠটির প্রতিষ্ঠাতা শাহ সুফি সৈয়দ আহমদ ১৮২৮ সালে প্রথম জামাতের মোনাজাতে দোয়া করেন, ভবিষ্যতে কোনোদিন যেনো এখানে সোয়া লাখ লোক এক সাথে নামাজ পড়তে পারেন।

তাঁর মোনাজাত কবুল হলো। পরে ১৯৫০ সালে ঈশা খাঁর বংশধর হয়বতনগর জমিদারবাড়ির দেওয়ান মান্নান দাদ খাঁ আরো কিছু জমি দান করেন। এতে মাঠটি বর্তমান রূপ পায়। আর এখন ঈদের জামাতে মুসল্লি হয় তিন লাখ ছাড়িয়ে। কোথা থেকে আসেন এতো মুসল্লি?

সারা দেশ থেকে আসেন। ঈদের কয়েকদিন আগে থেকেই শোলাকিয়া মাঠকে কেন্দ্র করে আয়োজন শুরু হয়ে যায় শহরে। মানুষ আর মানুষ। পুটলা-পুটলি বেঁধে দূর থেকে মানুষ এসে জায়গা নিতে থাকে কিশোরগঞ্জে। আবাসিক হোটেলগুলো টইটম্বুর হয়। অনেকেই শুকনো খাবার নিয়ে দুই দিন আগেই চলে আসেন মাঠে। রাত হলে শহরের বিভিন্ন মসজিদে লাইন করে ঘুমিয়ে থাকেন।

আর যারা কোনো আত্মীয়-স্বজনের সূত্র ধরে থাকার একটা ব্যবস্থা করতে পেরেছেন, তাদের পোয়াবারো। তবে এ বিষয়টা আমাদের জন্য ছিলো কিছুটা বিরক্তিকর- ঈদের আগের রাতে অমুক জেলার তমুকের সূত্র ধরে পরিচিত কিছু লোক বাসায় এসে হাজির হতেন। রাতে থাকবেন, শোলাকিয়ায় নামাজ পড়ে তারপর বিদায় হবেন। এদের যতœ আত্তি করতে গিয়ে নিজের ঈদের আনন্দটাই মাটি হওয়ার উপক্রম।

তবুও, ঈদ তো ঈদ-ই। আনন্দটা কি এতো সহজে মাটি করে দেয়া যায়? তাছাড়া কিশোরগঞ্জের ঈদ মানে মানুষ দেখার ঈদ। আর সাজ সাজ শহরের আলোকোজ্জ্বল ঈদ। সেই শবে কদর থেকেই মফস্বল শহরটির মোড়ে মোড়ে তোরণ বানানো শুরু হয়। কিছু তোরণ তৈরি করে কিশোরগঞ্জ পৌরসভা, প্রশাসন। আর কিছু অমুক, তমুক নেতা বা ব্যবসায়ির পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা। ইদানিং আবার যোগ হয়েছে মোবাইল ফোন অপারেটর কোম্পানিগুলোর শুভেচ্ছা ও উপহারের বহর।

তবে তোড়ণের আসল আয়োজনটি শুরু হয় পুরানথানা মোড় থেকে। পুরানথানা থেকে ঈদগাহের দূরত্ব অর্ধ কিলোমিটারের মতো হবে। এই তোড়ণের পর গাড়ি নিয়ে প্রবেশ নিষেধ। এমনকি সাইকেল নিয়েও যাওয়া যাবে না। তবে সাইকেল নিয়ে মাঠের দিকে এগুনোর একটা চোরাই পথ ছিলো আমাদের বাসার সামনে দিয়ে।

আমাদের বাসাটা ছিলো রেল লাইন পেরিয়ে আজিম উদ্দিন স্কুল লাগোয়া। রেল লাইনের ওপর দিয়ে সাইকেল পার করে স্কুল মাঠ পর্যন্ত আসা যায়। তবে এর বেশি আগানো সম্ভব নয়। বাকিটা গলিপথ। নামাজের সময় শোলাকিয়া যাওয়ার গলিপথ নয়, মূল পথ ধরেও দশ কদম এগুতে সময় লাগে দশ মিনিট। আর এই সময় লাগাটাই ছিলো আমাদের জন্য আনন্দের।

নিজেদের বিশেষ বিশেষ মনে হতো। দূর দূরান্ত থেকে আসা মানুষের লাইন দেখে অনেক সময় করুণা হতো। মনে হতো এই মাঠে নামাজ পড়ার জন্য এতদূর থেকে কেন আসে মানুষ?

আমাদের কাছে তো এটা মামুলি। এই মাঠটাকে আমরা বলি ঈদগানা।

আমার কাছে ঈদগানা মানে একটি খেলার মাঠ। রেইনট্রিতলার অলস বিকেল। কখনো কখনো রাতের ক্যানভাস।

ওই যে বলেছিলাম, শোলাকিয়ার ছেলে হিসেবে মাঠটাকে আমি অন্যভাবে চিনি। এবার আসা যাক সে প্রসঙ্গেই। তবে প্রসঙ্গগুলো শুরু করা যাক একটি অপমানজনক ঘটনা দিয়ে-

অপমানটা আমার। ঈদের আগের রাত। পুরানথানা থেকে শোলাকিয়া মাঠ পর্যন্ত আলোকবাতিতে উজ্জ্বল। সাজানো হয়েছে মাঠের মিম্বর। সামনের পুকুরে ওজুর জন্য বানানো হয়েছে বাঁশের ঘাট। দক্ষিণ-পশ্চিম কোণার পানির কলগুলো ছাড়া হয়েছে। আর পুরো মাঠের সীমানা দেয়ালে নতুন রঙের প্রলেপ। তবে কাউকে সীমানা দেয়ালের ভেতরে ঢুকতে দেয়া হচ্ছে না। পুলিশ, র‌্যাবের কড়া প্রহরা। মেটাল ডিটেক্টর দিয়ে পরীক্ষা করা হচ্ছে পুরো মাঠ।

আর এই নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা বলয়ের মধ্য দিয়ে বিশেষ এক প্রয়োজনে মাঠে প্রবেশ করেছি আমরা। আমরা বলতে আমি আর বদরুল। এই প্রবেশে কোনো সমস্যা ছিলো না, সমস্যাটা বাঁধালো আমার পরনের লুঙ্গিটা। আরামদায়ক এই পোশাকের কারণে অবমূল্যায়িত হতে হয়েছিলো সেদিন।

দূর থেকে এক পুলিশ কনস্টেবল তুই-তুকারি করতে শুরু করলো। লাঠি হাতে তেড়ে এলো। সবই এই লুঙ্গির কল্যাণে। পোশাকে নয় গুণেই আসল পরিচয়, শেখ সাদির এই গল্পটা মিথ্যা প্রমাণ হলো! পরে অবশ্য পরিচয় জানার পর সমস্যা মিটে গিয়েছিলো।

আমার এই বদ বন্ধু বদরুলকে নিয়ে শোলাকিয়ার রেইনট্রিতলায় কেটেছে অলস বিকেল। হাহাকার সন্ধ্যা। আর মধ্যরাত।

শোলাকিয়া মাঠের এই বৃষ্টিগাছটি আয়তনে অসম্ভবরকম বড়। মাঠের দক্ষিণ-পশ্চিম কোণায় প্রবেশ তোরণের মুখেই গাছটি। ইয়া মোটা কা-। আর বিশাল এলাকাজুড়ে ডালপালা বিস্তৃত। এর ডালগুলো ছাতার মতো যতটা যায়গা আগলে রেখেছে, ততটুকুতে ঘাস নেই। দক্ষিণ দিকটায় মাঠ ছাড়িয়ে, সড়ক পেরিয়ে ডালগুলো এসে নুইয়ে পড়েছে পুকুরজলে।

মরা নরসুন্দা নদীর পাশে এই পুকুরটাও ঈদগাহেরই, খনন করা হয়েছিলো মুসল্লিদের ওজু করার জন্য। বছরে দুইবার এটি কাজে লাগে। এ ছাড়া অন্যসময় স্থানীয়রা এখানে সাঁতার কাটে। আর আমরা শান বাঁধানো ঘাটের বেদিতে বসে সময় পার করি।

সময়গুলো ছিলো অসাধারণ। বৃষ্টিগাছের শীতল ছায়া, শান বাঁধানো ঘাট। আর শেঁওলা পরা পুকুর জল। কখনো কখনো সেই সকাল থেকে বসে থাকতাম সেখানে। সকাল গড়িয়ে দুপুর হতো। খাওয়ার বিরতির জন্য যে যার বাসায় যেতাম। তারপর দুপুর গড়িয়ে বিকেল। অতঃপর আবার সেই ঈদগানার পুকুরঘাট।

বিকেলের সূর্যটাও তলিয়ে যেতো। তারপর সন্ধ্যা এবং রাত। এই সময়টুকু ঈদগানাকে কেন্দ্র করেই কেটে যেতো। কখনো ভেতরের ঝাঁকড়া আম গাছের ছায়ায়। কখনো বুড়ো জামগাছের গোড়ায়, আবার সেই বৃষ্টিগাছের দশাসই শেকড়ে।

এই বৃষ্টিগাছটা নিয়েও আছে কিংবদন্তি। ছোটবেলায় শুনেছি, একবার কে জানি গাছটা কাটতে এসেছিলেন। কাঠুরে এসে কয়েক কোপ দিয়েই আর কাটবে না বলে ঘোষণা দিলেন।
কেনো, কি হয়েছে?

কুঠার দিয়ে কোপ দেয়ার পর নাকি গাছ থেকে গলগলিয়ে রক্ত বেরিয়ে এলো!

খবর শুনে হইচই পড়ে গেলো। সাঙ্ঘাতিক কাণ্ড! পরের ঘটনা কি হলো আর জানি না। সম্ভবত ওইদিন রাতেই কঠিন জ্বরে কাঠুরে মারা গেলেন!

ঈদগানার ভেতর-বাইরে এমন বেশ কয়েকটি পুরনো গাছ রয়েছে। আর সেই প্রাইমারি স্কুলে যাওয়ার সময় দেখেছিলাম সরকারি উদ্যোগে মাঠের ভেতরে বেশ কিছু মেহগনি গাছ লাগানো হয়েছিলো। কিছু গরু-ছাগল আর মানুষের আগ্রাসনে নষ্ট হয়ে গেলো। আর বাকিগুলো বাড়তে শুরু করলো।

গাছের সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়তে লাগলাম আমরাও। ওগুলো এখন বেশ হৃষ্টপুষ্ট হয়ে ওঠেছে। আর আমরা?

আমরাও খারাপ নেই। টিকে আছি পৃথিবীতে। বদ বন্ধু বদরুল এখনো আছে। লেখালেখি আর সাংবাদিকতা নিয়ে আছেন সেই আহমদ আমিনও। শোলাকিয়াতেই রয়ে গেছে ফারুক।

সাংবাদিক আহমদ আমিন আমার কাছে আল আমিন ভাই। টুকটাক লেখালেখির অভ্যাসের কারণে তার সঙ্গে আমার অদ্ভুত এক জুটি। আমরা কিশোরগঞ্জ থেকে লেখা পাঠাতাম ডাকসাইটে কিছু পত্রিকায়, ছাপা হতো পাশাপাশি। সম্ভবত এ কারণেই আমরাও পাশাপাশিই থাকতাম। লেখা নিয়ে আলাপ করতাম। ছড়ার ছন্দ কিভাবে গড়তে হয়, এ নিয়ে রীতিমতো গবেষণা করতাম। আমাদের গবেষণার একটি স্থান এই ঈদগানা। এখানে বৃষ্টিগাছতলায় বসতাম। সেখানে একদুপুর, একরাতও কাটিয়ে দেয়ার রেকর্ড আছে। রাতচুরি করার সঙ্গী থাকতো বদরুলও।

বাসার সবাই ঘুমিযে গেলে আস্তে করে গ্রিলটা খুলে পায়ে পায়ে বেরিয়ে যেতাম। আমাদের নিজস্ব সঙ্কেত বাজিয়ে ডেকে নিতাম একেকজনকে। এই সঙ্কেতগুলো ছিলো আমাদের নিশিডাক।

নিশিডাকে সারা দিয়ে সবাই জড়ো হতাম ঈদগানাতে। সেই বৃষ্টিগাছ আর পুকুর ঘাট। সাধারণ একটি বিষয় দিয়ে আড্ডা শুরু। শেষ হতো বিষয়টার গোষ্ঠি উদ্ধারের পর। রাতের শেষ দিকে একজন একজন করে আড্ডায় লোক কমতো। সবশেষে আমি আর বদরুল।

বদরুলকে এগিয়ে দেয়ার জন্য নরসুন্দার সাঁকু পেরিয়ে ওর বাসার দিকে যেতাম। নদীর ওপারটায় ভয়ঙ্কর কয়েকটা স্পট আছে। ওর বাসার কাছাকাছি যাওয়ার পর সেও আমাকে এগিয়ে দিতে আসতো। তারপর আবার আমি এগিয়ে দিতাম।

এই হলো শোলাকিয়া ঈদগানা আর ঈদগানার সাথে আমাদের গল্প। এই গল্পটা লিখেছিলাম বেশ কয়েক বছর আগে। যখন শোলাকিয়ার স্মৃতিতে কাতর ছিলাম। এক যুগ হবে, কিশোরগঞ্জে আমার ঈদ করা হয়নি।

লেখাটার শেষ অংশ যখন লিখছি, তখন আমি কিশোরগঞ্জে, ঈদ করতে এসেছি। চাঁদরাতে কিশোরগঞ্জ নিউজ অফিসে এলাম, আল আমিন ভাইয়ের সঙ্গে দেখা করতে। তিনি এই লেখাটা চাইলেন। আমি মেইল অনুসন্ধান করে বের করলাম। তারপর আবার সেই স্মৃতি এবং কাতরতা।

আমাদের ঈদগানা আর আজকের শোলাকিয়া ঈদগাহ মাঠ, এর মধ্যে কেটে গেছে অনেক বছর। ২০১৬ সালে প্রিয় এই মাঠে জঙ্গি হামলার ঘটনাও ঘটে গেছে। এর পর থেকে বাস্তবতা নিষ্ঠুর হয়ে গেছে। শোলাকিয়াকে ঘিরে বেড়েছে নিরাপত্তার কড়াকড়ি। এখন ঈদ এলে মাঠে প্রবেশ করতে হয় আর্চওয়ে দিয়ে। শহরজুড়ে মাইকিং হয়, তল্লাশি হয়। প্রশাসনের লোকদের নির্ঘুম রাত কাটাতে হয়। সাংবাদিকদেরও থাকতে হয় তৎপর। এর ভেতরেই আমি খুঁজি সেই ‘নিশ্চিন্ত ঈদগানা’টাকে। উৎসবমুখর একটি চাঁদরাত, বৃষ্টিগাছ এবং পুকুরঘাট।

বৈশ্বিক হুমকির কারণে ঈদগানাকে ঘিরে আজ পুলিশের ড্রোন, র‌্যাবের স্নাইপার বন্দুক। এতটুকু বাস্তবতা আমাদের মেনে নিতেই হবে। কারণ আমরা চাই ভালো থাকুক আমাদের ঈদগানা, ভালো থাকুক শোলাকিয়া।

# শাহ মুহাম্মদ মোশাহিদ : সাংবাদিক




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর