কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ব্যাগভর্তি টাকা স্বর্ণালঙ্কার মোবাইল ফেরত দিয়ে যারা গড়েছেন সততার অনন্য নজির


 আশরাফুল ইসলাম, প্রধান সম্পাদক, কিশোরগঞ্জনিউজ.কম | ৭ জুন ২০১৯, শুক্রবার, ৬:২৮ | এক্সক্লুসিভ 


ঈদের আগের দিন রাতে সিএনজিতে ফেলে যাওয়া বাজিতপুর উপজেলার শাহপুর গ্রামের হতদরিদ্র গার্মেন্ট কর্মী ফজিলা খাতুনের টাকা, স্বর্ণালঙ্কার, মোবাইল ফোন, কাপড়-চোপড় ও অন্যান্য মালামাল ভর্তি ব্যাগটি বাড়িতে গিয়ে ফিরিয়ে দেয়ার ঘটনাটি কিশোরগঞ্জ নিউজ এর সংবাদের মাধ্যমে ইতোমধ্যে পেয়ে গেছেন দেশ-বিদেশের লাখো মানুষ। জেনেছেন হারানো ব্যাগ ও ব্যাগের সব কিছু ফিরে পেয়ে ফজিলা ও তার পরিবারের আনন্দে উদ্বেলিত হওয়ার কথাও।

এরপর থেকে সোশ্যাল মিডিয়াসহ নানা মাধ্যমে প্রশংসায় ভাসছেন সততার অনন্য নজির স্থাপন করা বাজিতপুর উপজেলার সুলতানপুর গ্রামের সিএনজি চালক মো. হারুন মিয়া এবং সুলতানপুর গ্রামেরই পাঁচ তরুণ-যুবক সাজ্জাদ হোসেন সুজন, শেখ বোরহান উদ্দিন পরান, সুমন মিয়া, অসীম মিয়া ও হৃদয় মিয়া।

শাহপুর গ্রামে ফজিলা খাতুনকে নামিয়ে দিয়ে মঙ্গলবার (৪ জুন) রাত ১টার দিকে সিএনজি চালক হারুন মিয়া সুলতানপুর বাজারে যান। এ সময় তার সিএনজির পাশে গিয়ে দাঁড়ান সুলতানপুর গ্রামের পাঁচ তরুণ-যুবক সাজ্জাদ হোসেন সুজন, শেখ বোরহান উদ্দিন পরান, সুমন মিয়া, অসীম মিয়া ও হৃদয় মিয়া। তখনই সিএনজির পিছনে একটি ব্যাগ দেখতে পান চালক হারুন মিয়া।

হারুন মিয়ার ব্যাগটি দেখে সন্দেহ হয়, কোন যাত্রী হয়তো ভুলে ব্যাগটি ফেলে রেখে গেছেন। সিএনজির পাশে দাঁড়ানো পাঁচ যুবকের কথায় চালক মো. হারুন মিয়া ব্যাগটি খুলেন। দেখতে পান, ঈদের নতুন জামা কাপড়। তখন সিএনজি চালক মো. হারুন মিয়াকে যুবকেরা বলেন, ব্যাগটির মধ্যে টাকাও থাকতে পারে। তারপর ব্যাগটি ভাল করে পরীক্ষা করা হয়। তখন ব্যাগটিতে দুইটি বক্স পাওয়া যায়।

বক্স দু’টি খোলার পর দেখা যায়, অনেকগুলো টাকা, সাথে কিছু স্বর্ণালঙ্কার, একটি মোবাইল ফোন। টাকাগুলো গুণে দেখা যায়, ৪৫ হাজার টাকা। এছাড়া ঈদের নতুন কাপড় ছাড়াও কিছু মূল্যবান জিনিসপত্র রয়েছে। সব মিলিয়ে প্রায় এক লাখ টাকার সমপরিমাণ হবে বলে তারা ধারণা করেন।

সিএনজিচালক হারুন মিয়া যুবকদের জানান, তিনি কটিয়াদী থেকে সিএনজিতে উঠা এক মহিলাকে শাহপুর গ্রামে নামিয়ে দিয়ে এসেছেন। ব্যাগটি হয়তো তারই হবে। এরপরই সিএনজি নিয়ে সুলতানপুর গ্রামের পাঁচ যুবক সাজ্জাদ হোসেন, হৃদয় মিয়া, শেখ বোরহান উদ্দিন পরান, সুমন ও অসীম মিয়া সিএনজি চালক মো. হারুন মিয়াকে নিয়ে ছুটেন শাহপুর গ্রামের উদ্দেশ্যে। শাহপুর গ্রামের সামনের রাস্তাতেই ব্যাগ হারিয়ে পাগলপ্রায় ফজিলা খাতুনের সাথে দেখা হয় সিএনজিচালক হারুন মিয়া ও ব্যাগ ফিরিয়ে দিতে যাত্রী হয়ে আসা পাঁচ যুবকের। ফজিলাকে সাথে নিয়ে তারা যান মেয়েটির বাড়িতে।

বাড়িতে গিয়ে তারা দেখেন, মেয়েটির হতদরিদ্র রিক্সাচালক বাবা কাঁদছেন। মাটিতে লুটিয়ে বিলাপ করছেন মা। তারা গিয়ে মেয়েটির হাতে ব্যাগটি তুলে দিতেই বদলে যায় দৃশ্যপট। হারানো ব্যাগ ও ব্যাগের সকল কিছু ফিরে পেয়ে যেন হাতে আসমান পায় পরিবারটি। আনন্দে উদ্বেলিত হয় পরিবারের সদস্যরা। হারানো ব্যাগ ও ব্যাগের সব কিছু ফিরে পেয়ে ফজিলা ও তার মা-বাবা আনন্দে কেঁদে ফেলেন। সিএনজি চালক এবং সিএনজি যাত্রী যুবকদের এমন সততায় মুগ্ধ পরিবারটি ও শাহপুর গ্রামবাসী। তাদের এই সততায় গ্রামবাসীর প্রশংসার যেন শেষ ছিল না!

অথচ সিএনজিতে ব্যাগটি ফেলে রেখে যাওয়ার কারণে ঈদ করা নিয়েই সংশয়ে পড়েছিল ফজিলা ও তার পরিবার। পরিবার পরিজনদের সাথে ঈদ করতে এক বছর পর গার্মেন্ট কর্মী ফজিলা ঢাকা থেকে ছুটে এসেছিলেন শাহপুর গ্রামের বাড়িতে। কিন্তু দুর্ভাগ্য! ভুলে সাথে আনা টাকা, স্বর্ণালঙ্কার, মোবাইল ফোন, কাপড়-চোপড় ও অন্যান্য মালামাল সমেত ব্যাগটিই তিনি ফেলে যান সিএনজিচালিত অটোরিকশায়। বাসে ঢাকা থেকে কটিয়াদী নেমে সেখান থেকে সিএনজিচালিত অটোরিকশায় করে বাড়ি ফিরেছিলেন ফজিলা।

ঈদের আগের দিন মঙ্গলবার (৪ঠা জুন) রাতে বাড়ি পৌঁছে ফজিলা খাতুনের তখন এক দুঃসহ অবস্থা। ব্যাগটিতে ছিল তার দীর্ঘদিনের সঞ্চিত ৪৫ হাজার টাকা, স্বর্ণালঙ্কার, মোবাইল ফোন, পরিবার-পরিজনের জন্য কেনা ঈদের কাপড়-চোপড়সহ আরো কিছু মূল্যবান জিনিসপত্র। সবমিলিয়ে লাখ টাকার জিনিসপত্র ছিল ব্যাগটিতে। সিএনজিতে মেয়ে ফজিলা খাতুন টাকা, স্বর্ণালঙ্কার, মোবাইল ফোন, কাপড়-চোপড় ও অন্যান্য মালামাল ভর্তি ব্যাগটি ফেলে যাওয়ায় ফজিলার হতদরিদ্র রিক্সাচালক বাবা নির্বাক হয়ে যান। সহায় সম্বলহীন মায়ের কান্না আর বিলাপে জড়ো হন গ্রামবাসী। দিশেহারা ফজিলাও। ঈদ করতে না পারার আশঙ্কা ভর করে পরিবারটিতে। আত্মীয়-স্বজন আর গ্রামবাসীর সান্ত¦না আর আফসোস, কোন কিছুই ফজিলার পরিবারের এই বেদনায় প্রলেপ দিতে পারছিল না।

এরই মাঝে সবাইকে অবাক করে দিয়ে টাকা, স্বর্ণালঙ্কার, মোবাইল, কাপড়-চোপড় ও অন্যান্য মালামাল ভর্তি ফজিলার ব্যাগটি নিয়ে হাজির হন সিএনজির চালক মো. হারুন মিয়া। তার সাথে সিএনজিযাত্রী পাঁচ তরুণ-যুবক সাজ্জাদ হোসেন সুজন, শেখ বোরহান উদ্দিন পরান, সুমন মিয়া, অসীম মিয়া ও হৃদয় মিয়া। তারা ব্যাগটি তুলে দেন ফজিলা খাতুনের হাতে। সবকিছু ঠিক আছে কিনা পরীক্ষা করতেও বলেন। সিএনজিতে ফেলে যাওয়া ব্যাগটি পেয়ে ফজিলা তখন আত্মহারা। ব্যাগ খুলে দেখতে পান, তার নগদ ৪৫ হাজার টাকা, স্বর্ণালঙ্কার, মোবাইল ফোন, পরিবার-পরিজনের জন্য কেনা ঈদের কাপড়-চোপড়সহ অন্যান্য মূল্যবান জিনিসপত্র সবই ঠিক আছে।

সততার অনন্য নজির গড়া সিএনজিচালক মো. হারুন মিয়া বাজিতপুর উপজেলার পিরিজপুর ইউনিয়নের সুলতানপুর গ্রামের মো. আপ্তর মিয়ার ছেলে। ব্যক্তিগত জীবনে বিবাহিত সিএনজিচালক হারুন মিয়ার তিন মেয়ে ও এক ছেলে সন্তান রয়েছে। সাথে রয়েছেন বাবা-মা। সিএনজি চালিয়ে বাবা-মাসহ আট সদস্যের সংসার চালাতে হিমশিম খেতে হয় তাকে। এরপরও সিএনজিতে ফেলে যাওয়া যাত্রীর নগদ ৪৫ হাজার টাকাসহ লাখ টাকার মালামাল তাকে প্রলুব্ধ করতে পারেনি। চরম দারিদ্রতার মাঝেও মালিকের কাছে ফিরিয়ে দিয়েছেন হাসিমুখে।

সিএনজিচালক হারুন মিয়ার পাশে থেকে যে পাঁচ তরুণ-যুবক এই মহৎ কাজের অংশীদার হয়েছেন তাদের মধ্যে সাজ্জাদ হোসেন সুজন সরকারি গুরুদয়াল কলেজ থেকে মাস্টার্স পরীক্ষা দিয়েছেন। তিনি সুলতানপুর গ্রামের মৃত মুর্শিদ মিয়ার ছেলে। শেখ বোরহান উদ্দিন পরান উচ্চ মাধ্যমিকের ছাত্র। পড়াশোনার পাশাপাশি টুকটাক গান করেন। তিনি সুলতানপুর গ্রামের প্রান্তিক কৃষক শেখ হাসেন আলীর ছেলে।

সুমন ঢাকার একটি জুতার কারখানায় কাজ করেন। তিনি সুলতানপুর গ্রামের ভ্যানচালক ফালু মিয়ার ছেলে। অসীম মিয়াও ঢাকার একটি জুতার কারখানায় কাজ করেন। তিনি সুলতানপুর গ্রামের অটোরিকশাচালক আব্দুর রহিমের ছেলে। হৃদয় মিয়া এ বছর এইচএসসি পাশ করেছেন। তিনি সুলতানপুর গ্রামের প্রান্তিক কৃষক নিবু মিয়ার ছেলে। সিএনজি চালক এবং যুবকদের এমন সততায় গর্বিত তাদের পরিবারও।

এ সংক্রান্ত পূর্ববর্তী সংবাদ: ব্যাগভর্তি টাকা স্বর্ণালঙ্কার মোবাইল কাপড় মালিকের বাড়িতে দিয়ে আসলেন দরিদ্র সিএনজি চালক




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর