কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


তাড়াইলে প্রতিবন্ধী তরুণকে বেঁধে মধ্যযুগীয় নির্যাতন, নির্যাতনকারী হিটলার কারাগারে


 আমিনুল ইসলাম বাবুল | ৭ জুন ২০১৯, শুক্রবার, ৮:০৭ | তাড়াইল  


তাড়াইলে ‘চোর’ আখ্যা দিয়ে মোশারফ (১৮) নামে এক প্রতিবন্ধী তরুণকে বেঁধে মধ্যযুগীয় নির্যাতনের ঘটনায় গ্রেপ্তার হওয়া নির্যাতনকারী সাজ্জাদ হোসেন হিটলার (৩০) কে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। শুক্রবার (৭ জুন) দুপুরে তাকে আদালতে পাঠানোর পর বিচারকের নির্দেশে কারাগারে পাঠানো হয়।

কারাগারে পাঠানো নির্যাতনকারী সাজ্জাদ হোসেন হিটলার তাড়াইল উপজেলার দড়িজাহাঙ্গীরপুর গ্রামের মৃত নূর হোসেনের ছেলে এবং তরুণ নির্যাতনের মূল হোতা অবসরপ্রাপ্ত কাস্টম অফিসার মোখলেসুর রহমান খান শাহান এর বাড়ির কেয়ারটেকার।

বৃহস্পতিবার (৬ জুন) সকালে তাড়াইল উপজেলার তাড়াইল-সাচাইল ইউনিয়নের পূর্ব-দড়িজাহাঙ্গীরপুর গ্রামে এই বর্বর কাণ্ডটি ঘটে। এ ঘটনায় নির্যাতনকারী সাজ্জাদ হোসেন হিটলারকে পুলিশ আটক করলেও মূল হোতা অবসরপ্রাপ্ত কাস্টম অফিসার মোখলেসুর রহমান খান শাহানকে এখনো আটক করতে পারেনি পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (৬ জুন) সকালে প্রতিবন্ধী ওই তরুণকে বেঁধে মধ্যযুগীয় নির্যাতনের ঘটনাটির ভিডিও মুঠোফোনে ধারণ করেন স্থানীয় এক যুবক। পরে ভিডিওটি ফেসবুকে পোস্ট করা হলে, এটি ভাইরাল হয়।

ফেসবুকে দেয়া ভিডিও’র সূত্র ধরে বৃহস্পতিবার (৬ জুন) দুপুরে তাড়াইল থানার ওসি মো. মুজিবুর রহমান এর নেতৃত্বে পুলিশ অভিযান চালিয়ে নির্যাতনকারী সাজ্জাদ হাসান হিটলারকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। পরে শুক্রবার (৭ জুন) আদালতের মাধ্যমে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

ভাইরাল হওয়া ভিডিওটিতে দেখা যায়, মোশারফ নামের ওই প্রতিবন্ধী তরুণের রশি দিয়ে বাঁধা দুই পা এক ব্যক্তি ধরে রেখেছে। সাজ্জাদ হাসান হিটলার ছেলেটিকে লাঠি দিয়ে বেধড়ক পেটাচ্ছে। এ সময় চারপাশে লোকজন গোল করে এই মারপিট দেখছিলেন। বেধড়ক এই মারপিটের সময় মোশারফ আর্তচিৎকার করে তার বাবা-মাকে ডাকছিলো। কিন্তু কেউ তাকে বাঁচাতে এগিয়ে যায়নি। মারপিট শেষে মোশারফকে একটি গাছের সাথে বেঁধে রাখা হয়।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, মোশারফ হোসেন নামের ওই প্রতিবন্ধী তরুণের বাড়ি উপজেলার দক্ষিণ শামুকজানি গ্রামে। তার বাবার নাম কেন্তু মিয়া। মোশারফ হোসেন অনেক দিন ধরে মানসিক প্রতিবন্ধী। বৃহস্পতিবার (৬ জুন) বাড়ির পার্শ্ববর্তী পূর্ব-দড়িজাহাঙ্গীরপুর গ্রামের সাবেক কাস্টম অফিসার মোখলেসুর রহমান খান শাহানের (এম.আর.খান) বাড়ির ছাদের উপর ওঠে নারকেল গাছে ওঠার চেষ্টা করছিল সে।

এতেই ঘটে বিপত্তি...। এ সময় ওই বাড়ির লোকজন মিলে মোশারফকে আটক করে।

পরে বাড়ির মালিক মোখলেসুর রহমান খান শাহানের নির্দেশে বাড়ির পাশের গুলবাগ জামে মসজিদের সামনে খোলা মাঠে ‘চোর’ আখ্যা দিয়ে ছেলেটিকে বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্মমভাবে পেটানো হয়। বাড়ির মালিক মোখলেসুর রহমান খান শাহানের (এম.আর.খান)  উপস্থিতিতে কেয়ারটেকার সাজ্জাদ হাসান হিটলার ও হিটলারের সহযোগিরা মোশারফকে হাত-পা বেঁধে এই নির্মম নির্যাতন চালায়।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়া নির্যাতনের ভিডিওতে দেখা যায়, মারপিটের সময় ওই কিশোর বাঁচার জন্য আকুতি করলেও মন গলছিল না বাড়ির মালিকসহ অন্যদের। এ ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর এলাকায় তোলপাড় শুরু হয়। শুক্রবার (৭ জুন) সকালে এর প্রতিবাদে এলাকায় বিক্ষোভ মিছিল করেন স্থানীয় লোকজন।

এছাড়া নির্যাতনের শিকার প্রতিবন্ধী তরুণ মোশারফকে তাড়াইল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

তাড়াইল থানার ওসি মো. মুজিবুর রহমান জানান, বিষয়টি তার নজরে আসার পর পরই অভিযুক্তকে ধরতে তারা অভিযান পরিচালনা করেন। দুপুরেই অভিযুক্ত সাজ্জাদ হাসান হিটলারকে গ্রেপ্তার করে তারা থানায় নিয়ে যান।

এছাড়া এ ঘটনায় নির্যাতনের শিকার মোশারফের বড় ভাই সাদ্দাম হোসেন বাদী হয়ে বৃহস্পতিবার (৬ জুন) রাতে মোখলেসুর রহমান খান শাহান, আলম, সাজ্জাদ হোসেন হিটলার এবং আরও অজ্ঞাত কয়েকজনকে আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে বলেও ওসি জানান।

 




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর