কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ভৈরবে প্রেমের ফাঁদে মুঠোফোনে ডেকে নিয়ে কিশোরীকে ধর্ষণ, সহযোগী গ্রেপ্তার


 সোহেল সাশ্রু, ভৈরব | ৮ জুন ২০১৯, শনিবার, ৬:১৮ | ভৈরব 


ভৈরবে প্রেমের ফাঁদে ফেলে কিশোরী (১৩) ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। মুঠোফোনে ওই কিশোরীকে ডেকে নিয়ে একটি কিন্ডারগার্টেন স্কুলের ভেতরে ধর্ষণ করে কথিত প্রেমিক রনি মিয়া (২০)। ঈদের পরদিন বৃহস্পতিবার (৬ জুন) রাত সাড়ে দশটার দিকে পৌর শহরের ভৈরবপুর উত্তর পাড়ায় কাশঁফুল কিন্ডারগার্টেন স্কুলের ভেতর এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় কিশোরীর মা বাদী হয়ে শুক্রবার (৭ জুন) ভৈরব থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেছেন। মামলায় কিশোরীর প্রেমিক রনি মিয়াকে প্রধান আসামি করা হয়। এছাড়া ধর্ষণে সহযোগিতা করায় কাঁশফুল কিন্ডারগার্টেন স্কুলের পিয়ন ইমন মিয়া (২২) সহ তাঁর বন্ধু নূর মোহাম্মদ (২১) ও আশিক (২০) কে আসামি করা হয়েছে।

এই মামলায় অভিযুক্ত ৪নং আসামি আশিককে গ্রেপ্তার করেছে ভৈরব থানা পুলিশ। তবে মূল অভিযুক্ত রনি মিয়া পলাতক রয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, ঈদের পরদিন বৃহস্পতিবার (৬ জুন) প্রেমের সম্পর্কের টানে কিশোরী প্রেমিক রনি মুঠোফোনের ডাকে ভৈরবপুর উত্তরপাড়া এমপি পাইলট গার্লস স্কুলের সামনে কাশফুল কিন্ডারগার্টেন স্কুলে যায়। স্কুল পিয়ন ইমনের সহযোগিতায় রনি কিশোরী প্রেমিকাকে স্কুলের একটি কক্ষের ভিতর নিয়ে যায়। এসময় স্কুলের গেইট তালা বদ্ধ করে দেয় পিয়ন।

স্কুল কক্ষের ভেতরে ওই কিশোরী প্রেমিকাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ করে রনি। ধর্ষণের পরপরই মেয়েটি অসুস্থ হয়ে পড়লে পরবর্তীতে ঘটনাটি সবার নজরে আসে।

জানা গেছে, ধর্ষক রনি মিয়া ভৈরবের রাণীর বাজার এলাকার অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী রুহুল আমীনের ছেলে। অন্যদিকে কিশোরী পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী।

ভৈরব থানার ওসি মোখলেছুর রহমান জানান, কিশোরীর মা বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। আশিক নামে মামলার এক আসামিকে গ্রেপ্তার করে শনিবার (৮ জুন) কিশোরগঞ্জের আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। প্রধান আসামি রনি মিয়া সহ অন্যান্য আসামীদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে বলেও ওসি জানান।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর