কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


পাকুন্দিয়ায় নতুন সিনেমা চালিয়েও লোকসানে হল মালিকেরা


 স্টাফ রিপোর্টার | ৮ জুন ২০১৯, শনিবার, ১০:০৪ | বিনোদন 


পাকুন্দিয়া উপজেলার দু’টি সিনেমা হলে মুক্তিপ্রাপ্ত নতুন চলচ্চিত্র ‘নোলক’ ও ‘পাসওয়ার্ড’ চালিয়েও দর্শকদের হলমুখী করা যাচ্ছে না। দর্শক কম হওয়ায় বেশি টাকা খরচ করে নতুন সিনেমা চালিয়েও লোকসানের মুখে পড়েছেন হল মালিকেরা।

জানা যায়, পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে উপজেলার পৌরসদরে অবস্থিত মৌসুমী সিনেমা হলে ‘নোলক’ ও মঠখোলা বাজারে অবস্থিত সুমন সিনেমা হলে ‘পাসওয়ার্ড’ নামে দুটি নতুন ছবি চালানো হয়। পর্যাপ্ত প্রচার-প্রচারণা করেও নতুন এ দুটি ছবি দর্শকদের হলমুখী করতে পারেনি। এতে যে টাকা খরচ করে নতুন এ দুটি ছবি আনা হয়েছে সে খরচও উঠছে না বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট হল মালিকেরা।

এ দুটি সিনেমা হল ছাড়াও উপজেলার পুলেরঘাট এলাকায় রাখী টকিজ ও ফাল্গুনী সিনেমা হল নামে আরও দুটো সিনেমা হল রয়েছে। কিন্তু দর্শকরা হলমুখী না হওয়ায় ক্রমাগত লোকসানের মুখে ওই দুটি সিনেমা হল দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ রয়েছে।

পৌরসদরে মৌসুমী সিনেমা হলটিও দীর্ঘদিন বন্ধ ছিলো। ঈদ উপলক্ষে ব্যবসা করতে পারবে সে আশায় হলের সংস্কার করা হয়। বেশি টাকা খরচ করে আনা হয় নতুন সিনেমা। উপজেলাজুড়ে প্রচার-প্রচারণায় ছিলো বেশ। এরপরও দর্শকরা হলমুখী না হওয়ায় হল কর্তৃপক্ষ লোকসানের মুখে পড়েছেন।

অপরদিকে উপজেলার মঠখোলা বাজারে অবস্থিত সুমন সিনেমা হলও চলছে ঝিমিয়ে ঝিমিয়ে। ঈদের আগে মাঝে মধ্যে শো চললেও দর্শক না পাওয়ায় ব্যবসা করতে পারেনি। ঈদ উপলক্ষে নতুন ছবি চালিয়ে দর্শকদের হলমুখী করার চেষ্টা করা হয়। পর্যাপ্ত প্রচার-প্রচারণার পরও দর্শক খুবই কম হওয়ায় এ হল মালিকও লোকসানের মুখে পড়েছেন।

এ ব্যাপারে মৌসুমী সিনেমা হলের ব্যবস্থাপক মো. সোহাগ মিয়া জানান, তিনি ছয় মাস বিদেশ থাকেন। আর ছয় মাস দেশে থাকেন। দেশে থাকা ওই ছয় মাস হল চালান। কিন্তু সিনেমা হলে দর্শকরা এখন তেমন একটা আসেন না। এতে ক্রমাগত লোকসান হলেও শখের কারণে তিনি এখনও হল চালু রেখেছেন।

পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে হলটি সংস্কার করেন এবং অধিক টাকা খরচ করে নতুন সিনেমা আনেন। কিন্তু নতুন সিনেমায়ও দর্শকরা হলমুখী হচ্ছেন না। তার হলটিতে ছয়জন কর্মচারি রয়েছেন। গত চারদিন সিনেমা চালিয়েও ছবি কেনার টাকাই উঠেনি। অথচ কয়েক বছর আগেও প্রথমদিনেই সিনেমার টাকা ওঠে যেত।

মঠখোলা সুমন সিনেমা হলের মালিকপক্ষের মতিউর রহমান জানান, মানসম্মত চলচিত্র নির্মাণ না হওয়া, দর্শকদের বিদেশী চ্যানেল ও বিদেশী সিনেমার প্রতি আকৃষ্ট হওয়া এবং প্রযুক্তির আধুনিকতায় সিনেমা পাড়ায় দর্শক নেই বললেই চলে।  আগের মতো দর্শকরা এখন আর সিনেমা হলে আসেন না। এতে লোকসান গুণতে হচ্ছে হল মালিকদের।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর