কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


পাকুন্দিয়ায় সর্দি-কাশি ও জ্বরের প্রকোপ বৃদ্ধি, ওষুধের সংকট


 স্টাফ রিপোর্টার | ১৩ জুন ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ১:১৮ | স্বাস্থ্য 


গত কয়েকদিনের প্রচন্ড দাবদাহে ও ভাইরাসজনিত কারণে পাকুন্দিয়ায় সর্দি-কাশি ও জ্বরের প্রকোপ মারাত্মক বেড়ে গেছে। উপজেলার প্রায় প্রত্যেক বাড়িতেই কেউ না কেউ এ রোগে আক্রান্ত হয়ে বিছানায় শুয়ে আছে। শিশু থেকে বয়স্ক কেউই রেহাই পাচ্ছেন না।

প্রথমে একজন থেকে শুরু হয়ে পরিবারের প্রায় সবাই আক্রান্ত হচ্ছে জ্বর, মাথাব্যাথা ও সর্দি-কাশিতে। এ কারণে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও ওষুধের দোকানগুলোতেও প্যারাসিটামল জাতীয় সিরাপ ও সাপোজিটরির সংকট দেখা দিয়েছে। এতে ভোগান্তিতে পড়েছেন রোগিরা।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা গেছে, গত এক সপ্তাহে তীব্র দাবদাহ ও ভাইরাজনিত কারণে সর্দি-কাশি ও জ্বরের প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় উপজেলার প্রত্যন্ত এলাকা থেকে প্রতিদিন প্রায় পাঁচ শতাধিক রোগি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা  নিতে আসছেন। হঠাৎ করে এ রোগে আক্রান্ত রোগির সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় হাসপাতালে ওষুধ সংকট দেখা দিয়েছে। তাছাড়া এত রোগিকে চিকিৎসা দিতে গিয়ে চিকিৎসকদের হিমশিম খেতে হচ্ছে।

হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা বীর পাকুন্দিয়া গ্রামের শওকত হোসেন বলেন, গত দুদিন ধরে জ্বরে ভুগতেছি। আজ সকালে হাসপাতালে এসে দেখি রোগির প্রচুর ভিড়। অনেকক্ষণ দাঁড়িয়ে থেকে ডাক্তারের দেখা পেয়েছি। তিনি কয়েকটি প্যারাসিটামল দিয়েছেন মাত্র।

পাকুন্দিয়া পৌরসদর বাজারের সততা ফার্মেসীর প্রোপাইটর মো. মোবারক হোসেন বলেন, জ্বর ও সর্দি-কাশি রোগির প্রচুর চাপ। প্যারাসিটামল জাতীয় সিরাপ ও সাপোজিটরির সংকট দেখা দিয়েছে। কোন কোম্পানিরই প্যারাসিটামল সিরাপ ও সাপোজিটরি সরবরাহ পাওয়া যাচ্ছে না।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. রেজাউল কবির কাওসার জানান, গত এক সপ্তাহ ধরে রোগির ভিড় প্রচুর বেড়ে গেছে। প্রতিদিন বহিঃবিভাগে প্রায় পাঁচ শতাধিক রোগি সেবা নিতে আসছে। এসব রোগির প্রায় সবাই জ্বর ও সর্দি-কাশিতে আক্রান্ত।

এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও প. প. কর্মকর্তা ডা. জমির মো. হাসিবুস ছাত্তার বলেন, এ রোগে আতঙ্ক হওয়ার কিছু নেই। আক্রান্ত রোগিকে সম্পূর্ণ বিশ্রামে থাকতে হবে। প্রচুর পরিমাণে তরল জাতীয় খাবার খেতে হবে। ৫ থেকে ৭ দিন থাকতে পারে এ জ্বর। এ জ্বরে আক্রান্ত রোগিদের শুধু প্যারাসিটামল খাওয়া যেতে পারে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর