কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ইরাকে পুত্র হত্যা, বিচার চেয়ে হতভাগ্য পিতার কুলিয়ারচরে সংবাদ সম্মেলন


 মুহাম্মদ শাহ্ আলম, স্টাফ রিপোর্টার, কুলিয়ারচর | ১৩ জুন ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৭:১৬ | কুলিয়ারচর 


ইরাকে পুত্র হত্যার ঘটনায় বিচার চেয়ে কুলিয়ারচরে সংবাদ সম্মেলন করেছেন মো. আরজু মিয়া (৫০) নামে এক হতভাগ্য পিতা। বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) বিকালে কুলিয়ারচর পৌর শহরের কুলিয়ারচর শপিং কমপ্লেক্সের নিচতলায় দৈনিক পূর্বকন্ঠ পত্রিকার কুলিয়ারচর আঞ্চলিক অফিসে এই সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

মো. আরজু মিয়া কুলিয়ারচর পৌরসভার বড়খারচর গ্রামের আবু তাহেরের পুত্র। ইরাকে নিহত তার ছেলের নাম হোসাইন তোফাজ্জল (২৪)। সংবাদ সম্মেলনে তোফাজ্জলের বাবা আরজু মিয়া ছাড়াও তার মা এবং ছোট ভাই উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে মো. আরজু মিয়া জানান, প্রায় সাড়ে তিন বছর আগে কুলিয়ারচর উপজেলার নোয়পাড়া গ্রামের মিলন মিয়ার পুত্র দালাল মো. বাদল মিয়া (৪৫) তার বড় ছেলে হোসাইন তোফাজ্জলকে ইরাক পাঠায়। ইরাকে তার ছেলের কর্মজীবন ভালোই চলছিলো।

মো. আরজু মিয়া অভিযোগ করেন, গত ৩ ফেব্রুয়ারি দিবাগত রাত ২টার দিকে তার ছেলে তোফাজ্জলের সহকর্মী ইরাক প্রবাসী কিশোরগঞ্জ জেলার বাজিতপুর উপজেলার গাজীরচর গ্রামের মৃত ছমেদ মিয়ার ছেলে বকুল মিয়া (৪৫), দ্বীন ইসলামের ছেলে সোহেল মিয়া (২৮) ও মুন্সিগঞ্জের ইসলাম (৪০) মিলে পূর্ব পরিচয়ের সূত্র ধরে একসাথে থেকে টাকার জন্য ইরাকের বাগদাদ শহরের তাজী এলাকায় এক ব্যবসায়ীর বাসায় তার ছেলেকে নির্মম ভাবে হত্যা করে।

এই হত্যাকাণ্ডের প্রায় তিন মাস পর গত ২৯ মে সকালে তার ছেলে তোফাজ্জলের মরদেহ বাংলাদেশে আসে। শাহজালাল আর্ন্তজাতিক বিমানবন্দর থেকে তারা তোফাজ্জলের মরদেহ গ্রহণ করেন। পরে ওই দিন বিকালে জানাজার নামাজ শেষে পারিবারিক কবরস্থানে মরদেহ দাফন করা হয়।

আরজু মিয়া সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে বিদেশে নির্মমভাবে খুন হওয়া তার ছেলের হত্যাকারীদের উপযুক্ত বিচার দাবি করে এ ব্যাপারে প্রশাসনের উর্ধতন কর্মকর্তাদের সুদৃষ্টি কামনা করেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর