কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


বাদল দিনের কদমফুল


 মো. আল আমিন, প্রদায়ক সম্পাদক, কিশোরগঞ্জনিউজ.কম | ১৫ জুন ২০১৯, শনিবার, ১:০০ | রকমারি 


কিছুদিন ধরেই দরজায় কড়া নাড়ছিল বর্ষা। দরজার আগল খুলে গেল আজ। আজ আষাঢ়ের প্রথম দিন। এই বর্ষাকে স্বাগত জানাতে বৃষ্টিস্নাত কদমের ডালে ডালে ফুটেছে অজস্র কদম ফুল। রিমঝিম বৃষ্টি আর ফুলের গন্ধে একাকার বাংলার প্রকৃতি।

কদম দেখতে টেনিস বলের মতো। বড় বড় সবুজ পাতার ফাঁকে একেকটি ঝুলে থাকে। মূল বলটা হলুদ সোনালি রঙের। উপরিভাগটায়  সাদা রঙের একটা প্রলেপ।

বলে রাখা ভালো, আমরা যে গোল আকারের কদমফুলটা দেখি সেটি কিন্তু একটিমাত্র ফুল নয়। অজস্র ফুলের সমারোহ। এর ভেতরের মাংসলপিণ্ড থেকে হলুদ রঙের নলাকৃতির হাজার হাজার ফুল বেরিয়ে এসে বলটাকে স্পঞ্জ বানিয়ে রাখে। উপরের সাদার প্রলেপগুলো অজস্র ফুলের পরাগকেশ।

বলতে পারেন, হাজার ফুলের একটি ফুল এটি। কদমফুলের ঘ্রাণ তীব্র নয়। তবে  চারপাশ মদির করে রাখতে পারে। বড় নস্টালজিক সেই ঘ্রাণ। যে কাউকেই মোহময় করে তুলতে পারে।

কদম গাছের পাতা  বেশি হলেও পাতার ফাঁকে  উজ্জ্বল আর্কষণীয় কদমফুল দূর থেকে চোখে পড়ে। কদমফুলকে বলা হয় বর্ষার দূত। এর কারণ, কদমফুল মূলত বর্ষার ফুল হলেও ফোটা শুরু করে জ্যৈষ্ঠ’র শেষ দিকে থেকেই। কদম ছাড়া আমাদের বর্ষা বেমানান। তবে আষাঢ় মাসেই এ ফুলের সমারোহ হয় বেশি। কদম ছাড়া আষাঢ় যেন কল্পনাই করা যায় না। কদম না ফুটলে যেন বৃষ্টি ঝরে না।

কদম নামটি সংস্কৃত কদম্ব নামের অপভ্রংশ। এর অর্থ ‘যা বিরহীকে দুঃখি করে’। কদম ফুলের নজরকাড়া সৌন্দর্য এবং এর সৌরভ যুগে যুগে বাঙালিকে মুগ্ধ করেছে। এই ফুল পথিককে উদাস করে। গ্রাম্য বালিকাকে বড় চঞ্চল করে তোলে। নারীদের চুলের খোঁপায় কদম গেঁথে দিলে ওরা খুব খুশি হয়।

বর্ষায় অঝোর ধারার সাথে পাল্লা দিয়ে এ ফুল যখন ফুটে তখন প্রেমিক হৃদয় কী এক শূণ্যতায় হাহাকার করে ওঠে! এ ফুলের সৌন্দর্য বিরহী মনকে বড়ই একাকি করে তোলে। এ জন্যই বুঝি হুমায়ুন আহমেদ লিখেছেন-  যদি মন কাঁদে তুমি চলে এসো,/ চলে এসো এক বরষায়.../
যদিও তখন আকাশ থাকবে বৈরি/ কদমগুচ্ছ হাতে নিয়ে আমি তৈরি/
...কদমগুচ্ছ খোঁপায় জড়ায়ে দিয়ে/ জলভরা মাঠে নাচিব তোমায় নিয়ে/
তুমি চলে এসো, চলে এসো এক বরষায়...

‘নির্জন যমুনার কূলে, বসিয়া কদম্ব ডালে/ বাজায় বাঁশি বন্ধু শ্যামরায়’। সেই বাঁশির সুরে রাধার মন ব্যাকুল। কৃষ্ণও রাধার প্রেমে বিকুলি। মধ্যযুগের পুরো বৈষ্ণব সাহিত্য রাধা-কৃষ্ণের বিরহ বেদনা মোহিত হয়ে আছে কদমের সুরভিতে।
আজো লোকসংগীতে, গাঁথায় অত্যন্ত জনপ্রিয় এই আখ্যান।

কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর কদমফুল নিয়ে অসংখ্য গান কবিতা লিখেছেন। কদমের প্রেমে বড়ই মজে গিয়েছিলেন তিনি। কদম বললেই মনে পড়ে তাঁর গান ‘বাদলও দিনেরও প্রথমও কদম ফুল’। তিনি লিখেছেন ’কদম্বেরই কানন ঘেরি আষাঢ় মেঘের ছায়া খেলে’। কিংবা ’কদম্ববন গভীর মগন আনন্দঘন গল্পে’। কদমের আরেকটি নাম নীপ। কবি লিখেছেন ‘ব্যথিয়া উঠে নীপের বন পুলক ভরা ফুলে’। ‘এসো নীপবনে ছায়াবীথিতলে...’।

কদমফুলের সৌন্দর্যের মতো তার আরো কিছু চমৎকার নাম রয়েছে। বৃত্তপুষ্প, সর্ষপ, ললনাপ্রিয়, সুরভী, প্রাবৃষ্য, সিন্ধুপুষ্প, মেঘাগমপ্রিয়, ভৃঙ্গবল্লভ, মঞ্জুকেশিনী, কর্ণপূরক, পুলকি এসবও কদম ফুলের নাম।

কদম আমাদের নিজস্ব গাছ। তবে ভারতের উষ্ণ অঞ্চল, চীন, মালয় এর আদি নিবাস। কদমের বৈজ্ঞানিক নাম Anthocephalusindicus। পরিবার Rubiaceae। দ্বিজেন শর্মা তাঁর শ্যামলী নিসর্গ বইয়ে কদমকে বলেছেন, ‘বর্ণে গন্ধে সৌন্দর্যে কদম এ  দেশের রূপসী তরুর অন্যতম।’ গাছ দীর্ঘাকৃতির। ডালপালা বিস্তৃত। মাটির সাথে সমান্তরাল। পাতা বেশ বড় বড়। ডিম্বাকৃতির। গাঢ় সবুজ।

গাছের কান্ড সরল, উন্নত, ধূসর থেকে প্রায় কালো এবং বহু ফাটলে রু, কর্কশ। শীতে সব পাতা ঝরে যায়। বসন্তে কচিপাতা আসে উচ্ছ্বাস নিয়ে।

প্রস্ফুটন মৌসুমে ছোট ছোট ডালের আগায় একক কলি আসে গোল হয়ে। বর্ষাকালেই মূলত ফুল ফোটে। তবে জৈষ্ঠ্যের শেষ দিকে অনেক গাছে ফুল ফোটা শুরু হয়। গাছের ছাল, কান্ড, পাতা, ফল, ফূল ফুলের রেণু ঔষধ হিসাবে ব্যবহৃত হয়।

বর্ণে গন্ধে সৌন্দর্যে কদম এ দেশের রূপসী তরুর অন্যতম হলেও এর দারু মূল্য খুবই কম।  সে হিসেবে অবহেলা-অনাদরে ধীরে ধীরে হারিয়ে যাচ্ছে এ গাছ।  একসময় তো কদম গাছ ছাড়া কোনো গ্রাম আছে এটা কল্পনাই করা যেতো না।  এখন দশ গ্রাম ঘুরেও কদমের দেখা পাওয়া যায় না।

বলা যায়না অবহেলায় অবহেলায় একদিন হয়তো হারিয়ে যাবে এই গাছটা। তখন হয়তো কদম ছাড়াই বর্ষা উদযাপন করতে হবে আমাদের। তাই প্রয়োজন সচেতনতা। প্রকৃতির ঐতিহ্য রক্ষায় সরকারি ও ব্যক্তি উদ্যোগে অন্য গাছের পাশাপাশি কদম গাছ রোপণ করা প্রয়োজন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর