kishoreganjnews.com:কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

একুশে পদক পেলেন ইলিয়াস কাঞ্চন


 কিশোরগঞ্জ নিউজ ডেস্ক | ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, মঙ্গলবার, ৬:০৮ | জাতীয় 


সমাজসেবায় বিশেষ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ নিরাপদ সড়ক চাই এর চেয়ারম্যান ঢাকাই চলচ্চিত্রের কিংবদন্তি অভিনেতা ইলিয়াস কাঞ্চনকে একুশে পদক প্রদান করছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ মঙ্গলবার সকালে ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে ইলিয়াস কাঞ্চনের হাতে এ সম্মাননা তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ভাষা আন্দোলন, শিক্ষা, সংস্কৃতি ও সমাজসেবাসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ এ পদক ২১ গুণীকে প্রদান করা হয় আজ।

দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় পুরস্কার হচ্ছে একুশে পদক। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ গত বছরের ৮ আগস্ট সংশোধিত ‘জাতীয় পুরস্কার/পদক সংক্রান্ত নির্দেশাবলী’তে স্বাধীনতা পুরস্কার, একুশে পদক, বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি পুরস্কার, বেগম রোকেয়া পদক, জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ও জাতীয় ক্রীড়া পুরস্কারের অর্থ বৃদ্ধি করে। এর আগে ১৮ ক্যারেট মানের পঞ্চাশ গ্রাম স্বর্ণের পদক, পদকের একটি রেপ্লিকা ও একটি সম্মাননাপত্রের সঙ্গে এক লাখ টাকা দেওয়া হত। অর্থ বাড়িয়ে এবার দুই লাখ টাকা করা হয়। ভাষা আন্দোলনে নিহত শহীদদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে বিশিষ্ট নাগরিকদের একুশে পদকে ভূষিত করা হয় প্রতিবছর।

মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় ইলিয়াস কাঞ্চনের স্ত্রী জাহানারার মৃত্যুর পর তিনি নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) নামের একটি সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেন। তার আওতায় নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলন করে আসছিলেন। আন্দোলনের প্রেক্ষিতে দেশে পালিত হচ্ছে নিরাপদ সড়ক দিবস। সংগঠনটি জাতিসংঘেও প্রশংসিত হয়েছে। তারই স্বীকৃতি হিসেবে ইলিয়াস কাঞ্চন একুশে পদক সম্মাননা পেলেন।

স্বাধীনতার পরপর সুভাষ দত্তের হাত ধরে ইলিয়াস কাঞ্চনের চলচ্চিত্রর আগমন। দীর্ঘ চলচ্চিত্র জীবনে তিনি ইন্ডাস্ট্রিতে উপহার দিয়েছেন অসংখ্য ব্যবসা সফল ও দর্শক নন্দিত সিনেমা। অভিনেত্রী অঞ্জু ঘোষের সঙ্গে ‘বেদের মেয়ে জোসনা’ ছবিটি ঢাকাই ছবির ইতিহাসে সর্বাধিক ব্যবসা করা সিনেমার তালিকায় প্রথম হয়ে আছে আজও। এছাড়াও তিনি দিতি ও চম্পার সঙ্গে জুটি বেঁধে সফল হয়েছেন।

শুধু সিনেমার পর্দায় তিনি সফল নায়ক নন তিনি বাস্তব জীবনে বিভিন্ন সামাজিক কর্মকান্ডেও রেখেছেন যথেষ্ঠ অবদান। নিরাপদ সড়কের দাবিতে দীর্ঘদিন ধরে সামাজিক আন্দোলন করে আসছেন ইলিয়াস কাঞ্চন। সড়ক দুর্ঘটনায় বাংলার পথে পথে যখন মৃত্যুর মিছিল, তখন জনসচেতনতা বাড়াতে ছুটছেন দেশের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে। কাজ করছেন যাত্রী/পথচারী/চালকদের সচেতনতা সৃষ্টিতে। দীর্ঘ ২৫ বছর ধরে সড়ককে নিরাপদ করার দাবীতে অনড় ব্যক্তিত্ব, নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনের পথিকৃৎ, বরেণ্য ও জননন্দিত চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন এর সাথে একাত্মতা প্রকাশ করেছে দেশ বিদেশের লক্ষ-কোটি সাধারণ জনতা।

নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলন আজ দেশের প্রতিটি জেলা উপজেলাতে গড়ে উঠেছে সেই সাথে দেশের বাইরে বিদেশের মাটিটেও রয়েছে নিসচার অনেক শাখা। সকলকে নিয়ে ইলিয়াস কাঞ্চন দেশের দুর্ঘটনারোধ করার লক্ষে কাজ করে যাচ্ছেন নিঃস্বার্থভাবে।

ইলিয়াস কাঞ্চন শুরু থেকে এই পর্যন্ত সড়ক দুর্ঘটনায় আহত নিহতদের স্বজনদের পাশে দাঁড়িয়েছেন সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। অনেক পঙ্গু ব্যক্তিকে হুইল চেয়ার, কৃত্রিম পা প্রদানসহ তাদের কর্মসংস্থান এর ব্যবস্থা তিনি নিসচার পক্ষ থেকে করে আসছেন। দেশে শিক্ষিত ও দক্ষ চালক তৈরীতে নিসচার পক্ষথেকে ড্রাইভিং প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট চালু করা হয়েছে যেখান থেকে এসএসসি পাশ যুবকরা বিনা খরচে গাড়ি চালনার প্রশিক্ষন নিয়ে থেকেন।

নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ইলিয়াস কাঞ্চন শুধু নিরাপদ সড়ক আন্দোলন নিয়ে বসে থাকেননি। সমাজের বিভিন্ন সামাজিক কর্মকান্ডে রয়েছে তার যথেষ্ট অবদান। বিভিন্ন সময় তিনি বিভিন্ন যায়গায় সাহায্যের হাত বাড়িয়েছেন। ছুটে গেছেন দূর্গত অসহায় মানুষের পাশে নিজের সামর্থ্য অনুযায়ী প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় অর্থ নিয়ে। বন্যায় দেশে যখন চারদিকে পানিবন্দি মানুষের আহাজারি তখন ত্রান সামগ্রি নিয়ে তাদের পাশে দাড়িয়েছেন এই মহৎ মানুষটি শুধু তাই নয়, মিয়ানমার থেকে বিতাড়িত, নির্যাতিত অসহায় বাংলাদেশ টেকনাফ সিমান্তে আশ্রয় নেয়া মুসলিম রোহিঙ্গাদের পাশে ত্রাণ সামগ্রী নিয়ে একে একে দু’বার তাদের পাশে দাঁড়িয়েছেন ইলিয়াস কাঞ্চন। যার স্বীকৃতিস্বরূপ পেলেন একুশে পদক।

চলতি বছরের একুশে পদকপ্রাপ্তরা হলেন: অধ্যাপক সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম, অভিনেতা হুমায়ূন ফরিদী (মরণোত্তর), ইলিয়াস কাঞ্চন (সমাজ সেবা), আ. জা. ম. তকীয়ুল্লাহ (মরণোত্তর), অধ্যাপক মির্জা মাজহারুল ইসলাম, শেখ সাদী খান, সুজেয় শ্যাম, ইন্দ্র মোহন রাজবংশী, মো. খুরশীদ আলম, মতিউল হক খান, বেগম মীনু হক (মীনু বিল্লাহ), হুমায়ুন ফরিদী (হুমায়ুন কামরুল ইসলাম), নিখিল সেন (নিখিল কুমার সেনগুপ্ত), কালিদাস কর্মকার, গোলাম মুস্তাফা।

সাংবাদিকতায় একুশে পদক পেয়েছে হয়েছেন রণেশ মৈত্র। গবেষণায় ভাষা সৈনিক প্রফেসর জুলেখা হক। অর্থনীতিতে ড. মইনুল ইসলাম, সমাজসেবায় ইলিয়াস কাঞ্চন। ভাষা ও সাহিত্যে সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম, সাইফুল ইসলাম খান (কবি হায়াৎ সাইফ), সুব্রত বড়ুয়া, রবিউল হুসাইন ও মরহুম খালেকদাদ চৌধুরী।

সূত্র: নিরাপদনিউজ



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ