কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


দেশসেরা প্রধান শিক্ষক এসভি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শাহনাজ কবীর


 বিশেষ প্রতিনিধি | ২০ জুন ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৯:০৪ | এক্সক্লুসিভ 


দেশের সেরা প্রতিষ্ঠান প্রধান নির্বাচিত হয়েছেন কিশোরগঞ্জ শহরের এসভি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শাহনাজ কবীর। জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ ২০১৯ উপলক্ষে বৃহস্পতিবার (২০ জুন) মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তর তাকে মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সেরা প্রতিষ্ঠান প্রধান নির্বাচিত করে।

আগামী ২৬ জুন আনুষ্ঠানিকভাবে দেশসেরা প্রতিষ্ঠান প্রধান হিসেবে এসভি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শাহনাজ কবীরকে পুরস্কৃত করা হবে।

জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ ২০১৯ এ শাহনাজ কবীর প্রথমে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা পর্যায়ে ও পরে কিশোরগঞ্জ জেলা পর্যায়ে সেরা প্রতিষ্ঠান প্রধান নির্বাচিত হন। পরবর্তিতে ময়মনসিংহ অঞ্চলের সেরা প্রতিষ্ঠান প্রধান নির্বাচিত হয়ে তিনি জাতীয় পর্যায়ে নাম লেখান।

শাহনাজ কবীর ২০০৬ সালের ৬ মার্চ কিশোরগঞ্জ শহরের ঐতিহ্যবাহী প্রাচীন বিদ্যাপীঠ এসভি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে সহকারী প্রধান শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন। এছাড়া তিনি বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন। পদোন্নতি পেয়ে ২০১০ সালে তিনি প্রধান শিক্ষক হন।

এই সময়ে তার নেতৃত্বে প্রতিষ্ঠানটি জেলার শীর্ষ প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে। তার একান্ত কর্মনিষ্ঠা, আন্তরিকতা ও দায়িত্বশীল কর্মকাণ্ড এসভি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়কে এই ঈর্ষণীয় সাফল্যের খ্যাতির শিকরে নিয়ে গেছে। শিক্ষার্থী, অভিভাবক এমনকি শহরের সব শ্রেণি-পেশার মানুষের কাছে শ্রদ্ধেয় ব্যক্তিত্ব হিসেবে জায়গা করে নিয়েছেন।

১৯৭০ সালের ১৮ মার্চ হবিগঞ্জ জেলার বানিয়াচং উপজেলার কুমড়ি-দুর্গাপুর গ্রামে শাহনাজ কবীর জন্মগ্রহণ করেন। বাবা শামছুল কবীর ছিলেন পুলিশ কর্মকর্তা। দারুণ মেধাবী শাহনাজ কবীর মুন্সিগঞ্জ এ, ভি, জে, এম সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৯৮৬ সালে প্রথম বিভাগে কৃতিত্বের সঙ্গে এসএসসি পাস করেন। কিশোরগঞ্জ সরকারি মহিলা কলেজ থেকে ১৯৮৮ সালে এইচএসসি পরীক্ষায় প্রথম বিভাগে উত্তীর্ণ হন।

ঢাকার লালমাটিয়া মহিলা কলেজ থেকে ১৯৯০ সালে বিএ এবং আনন্দমোহন সরকারি কলেজ থেকে ১৯৯২ সালে এমএ পাশ করেন তিনি। এরপর ১৯৯৩-৯৪ সালে টিচার্স ট্রেনিং কলেজ (মহিলা) ময়মনসিংহ থেকে বিএড প্রশিক্ষণে প্রথম শ্রেণি লাভ করেন। ১৯৯৪-৯৫ শিক্ষাবর্ষে টিচার্স ট্রেনিং কলেজ, ময়মনসিংহ থেকে এমএড প্রশিক্ষণেও প্রথম শ্রেণিতে উত্তীর্ণ হন।

১৯৯৭ সালে ঐতিহ্যবাহী নোয়াখালী জিলা স্কুলে ইংরেজি শিক্ষক হিসেবে যোগদানের মাধ্যমে শাহনাজ কবীরের বর্ণাঢ্য শিক্ষকতা জীবনের শুরু। এরপর ময়মনসিংহের ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাময়ী সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়সহ বিভিন্ন স্কুলে সহকারী শিক্ষিকা (ইংরেজি) পদে সুনামের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেন।

শাহনাজ কবীর ২০০৩ সালের পিএসসি (বাংলাদেশ পাবলিক সার্ভিস কমিশন) এর মাধ্যমে সরাসরি সহকারী প্রধান শিক্ষক নির্বাচিত হন। ২০০৫ সালের ১ ফেব্রুয়ারি কিশোরগঞ্জ সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ে সহকারী প্রধান শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন। সেখান থেকে ২০০৬ সালের ৬ মার্চ তিনি এসভি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে সহকারী প্রধান শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন।

তাঁর সুযোগ্য নেতৃত্বে এসভি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় বর্তমানে জেলার সেরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে। ২০১০ সালে প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পাওয়ার পর ২০১২ ও ২০১৩ সালে টানা দু’বার এসএসসি পরীক্ষায় ফলাফলে এসভি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় জেলার সেরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মর্যাদা লাভ করে।

এরপর ২০১৫ সাল থেকে শতভাগ পাশ ও সর্বাধিক জিপিএ-৫ এর কৃতিত্ব দেখিয়ে কিশোরগঞ্জ জেলায় ধারাবাহিকভাবে প্রথম স্থান দখল করে আছে এসভি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়। এবারের এসএসসি পরীক্ষার ফলাফলেও এই ধারা অব্যাহত ছিল। এসভি সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের মোট ২৩৯জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১৩৬ জন জিপিএ-৫ সহ শতভাগ পরীক্ষার্থী পাশ করে।

একাডেমিক এই ফলাফলের বাইরে শিল্প-সংস্কৃতি ও সাহিত্য অঙ্গণেও প্রতিষ্ঠানটি তার কৃতিত্বের স্বাক্ষর রেখে চলেছে।

ব্যক্তিগত জীবনে শাহনাজ কবীর দুই কন্যা সন্তানের গর্বিত জননী। তার বড় মেয়ে তাসনিম ইসলাম স্বর্ণা এবার জিপিএ-৫ পেয়ে এসএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছে। ছোট মেয়ে তাহসিন ইসলাম রাফা সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী। স্বামী ড. মো. রফিকুল ইসলাম সরকারের একজন উপসচিব।

ক্যান্সারজয়ী শাহনাজ কবীর কিশোরগঞ্জের নারী শিক্ষা প্রসারে এক অনন্য আলোকবর্তিকা। তাঁর সততা ও আদর্শ সর্বজনবিদিত। দেশসেরা প্রতিষ্ঠান প্রধান এর স্বীকৃতি তাঁর সেই মহৎ কর্মেরই অনুপম মূল্যায়ন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর