www.kishoreganjnews.com

শহীদ সিরাজের রক্ত ভেজা পথ ধরে



[ অ্যাডভোকেট মারুফ আহমেদ | ৩ আগস্ট ২০১৭, বৃহস্পতিবার, ৯:১২ | মুক্তিযুদ্ধ ]


রাত ১১টায় কিশোরগঞ্জ থেকে সুনামগঞ্জগামী নাইট কোচে উঠার পর ফজরের আজানের সময় হালকা ঝিরি ঝিরি বৃষ্টি ভেজা পরিবেশে সিলেট মহানগর অতিক্রম করে ছাতকের দিকে এগিয়ে গেলাম। এভাবে ঘন্টাখানেক চলার পর যখন দিনের আলো স্পষ্ট থেকে স্পষ্টতর হয়ে উঠলো সরু রাস্তার দুপাশেই হাওরের দিগন্ত জলরাশি চোখে পড়ল। আশপাশের সাইনবোর্ড দেখে বুঝতে পারলাম সুনামগঞ্জ জেলার ভিতর ঢুকে গেছি। সকাল সাতটার দিকে সুনামগঞ্জ শহরে এসে বাস থামল। ততক্ষণে বৃষ্টি থেমে গেছে। কিন্তু বাস থেকে নেমে আকাশে কৃষ্ণ-কালো জমাট মেঘ দেখে ভারী বৃষ্টিপাতের আশংকা বোধ করলাম।

কিশোরগঞ্জ জেলার সন্তান অসম সাহসী শহীদ মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলাম, বীর বিক্রমের কবর খুজে বের করার দীর্ঘ দিনের লালিত ইচ্ছা পূরণের বিশাল আখাংকা নিয়েই প্রথমবারের মত সুনামগঞ্জে আসা। এর আগে খোঁজ-খবর নিয়ে যা জানলাম তাতে বুঝলাম স্বাধীনতার পর উনার পরিবারের হাতে গোনা দু’একজন এলেও পরবর্তীতে ৪৫ বছরে কেউ আর এ মুখো হননি। তাই তার কবরের অবস্থান সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহে অনেককে জিজ্ঞেস করেও সুনির্দিষ্ট করে কিছুই জানতে পারলাম না। অগত্যা তাঁকে নিয়ে লিখা আমার সংগ্রহে থাকা বিভিন্ন পত্রিকা-ম্যাগাজিনের তথ্যের উপর ভরসা করেই একদিন বেড়িয়ে পড়লাম সুনামগঞ্জের উদ্দেশ্যে।

যা হোক, সুনামগঞ্জে পৌছে প্রাকৃতিক দুর্যোগের ঘনঘটা দেখে আমার মিশনের সফলতা নিয়ে কিছুটা দুশ্চিন্তায় পড়ে গেলাম। তাই বিন্দুমাত্র সময় অপচয় না করে স্থানীয় মানুষের কাছে গন্তব্য সম্পর্কে জেনে নিয়ে ছুটলাম বৈঠাখালি ঘাটে। সামনেই প্রমত্তা সুরমা নদী। নদীর অপর পাড়ে বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার পলাশ ইউনিয়ন। সেখান থেকে ভাড়ায় চালিত মটর সাইকেল যোগে চল্লিশ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে যেতে হবে ভারতের সীমান্ত ঘেষা টেকেরঘাট এলাকায় আমার সম্ভাব্য গন্তব্যে।

নদীর তীরে খেয়া নৌকার জন্য অপেক্ষমান থাকা অবস্থায় হঠাৎ পাশ থেকে এক তাগড়া গোছের তরুণ প্রশ্ন করল, স্যার কি বড় ছড়া যাবেন। আমি বললাম, না তো টেকেরঘাট যাব। সে পাল্টা শুধাল, টেকেরঘাটের কোথায় যাবেন। আমি উত্তর দিলাম, একদম বর্ডার এলাকায় চুনাপাথর ও কয়লা আমদানীর স্থানটিতে। শুনে হেসে বলল, আমি এই জায়গার কথাই বলেছিলাম। এখানে সীমান্ত ঘেষা ভারতের উঁচু গারো পাহাড় থেকে বড় আকারের পানির ধারা নেমে এসেছে। আমরা একে বড় ছড়া বলে ডাকি। তারপর বলল, আমি মটর সাইকেলে ভাড়ায় প্যাসেঞ্জার নিয়ে যাই, এটাই আমার পেশা। তার নাম জানাল মোঃ আবু লেইছ। মনে মনে ভাবলাম, সহজেই মিলে যাওয়ায় ভালোই তো হল। আসা যাওয়া বাবদ সাত শত টাকা ভাড়া সাব্যস্ত হল।

নদীর অপর তীরে বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার পলাশ ইউনিয়নে উঠার পর শুরু হল মটর সাইকেলে পথ চলা। চালক আবু লেইছ খুব হাসিখুশী ও আলাপপ্রিয় হওয়ায় খুব দ্রুত তার সাথে কথাবার্তা জমে উঠল। আমার মন ভালো করে আকাশেও মেঘ কেটে সূর্য্য উকি দিল। সকালের নরম আলোয় স্নিগ্ধ আবহাওয়ায় গন্তব্যের পানে ছুটে চললাম। সরু ও ভাঙ্গাচোরা সড়ক হওয়ায় ঝাঁকুনিতে দ্রুত কাহিল হয়ে পড়লাম। কিন্তু আমার রাস্তার দিকে মন নেই। যতই এগিয়ে যাচ্ছিলাম শহীদ সিরাজের কথা মনে করে প্রচন্ড আবেগে শরীর মন অবশ হয়ে যাচ্ছিল। শুধু ভাবছিলাম দেশমাতৃকার প্রতি প্রচন্ড ভালোবাসার কারণে তাঁর মুক্তিযুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়ার কথা, জন্ম স্থান থেকে কত দূরে শহীদ হয়ে অনাদরে অবহেলায় শেষ শয্যা নেওয়ার কথা। দেশের একজন নাগরিক হিসেবে, কিশোরগঞ্জের একজন বাসিন্দা হিসেবে  নিজেকে কেন জানি অপরাধী মনে হচ্ছিল। যদিও মুক্তিযুদ্ধের সময় আমার বয়স ছিল মাত্র পাঁচ বছর।

বাবার কর্মসূত্রে সে সময় আমরা কুমিল্লায় ক্যান্টনমেন্টের কাছে কোটবাড়িতে সরকারী বাসায় থাকতাম। ক্যান্টনমেন্টের কাছে বিধায় যুদ্ধের শুরুতেই নিরাপত্তার কারণে সামরিক কর্মকর্তরা বাবাকে বাসা ছেড়ে চলে যেতে বললেন। ঐ এলাকার বিভিন্ন রণাঙ্গনে চলমান প্রচন্ড যুদ্ধের কারণে রাস্তাঘাট বন্ধ থাকায় প্রায় এক সপ্তাহ কখনো পায়ে হেটে, কখনো নৌকায় করে বাবা আমরা চার ভাই ও মাকে নিয়ে কিশোরগঞ্জ পৌছেছিলেন। খাদ্য ও রাতে থাকার প্রয়োজন হলে গ্রামের মানুষের কাছে সাহায্য চেয়ে মুখাপেক্ষি হওয়া ছাড়া বিকল্প ছিলনা। সহজ-সরল গ্রামের মানুষরাও যথাসাধ্য চেষ্টা করেছেন। সে সময়ের একটি স্মৃতি আমার এখনো মনে আছে। পথিমধ্যে একবার ছোট নদী পড়েছে, কিন্তু পারাপারের কোন নৌযান নেই। বাধ্য হয়ে বাবা আমাদের পাঁচজনকে একজন একজন করে নিয়ে সাঁতরে অপর তীরে পৌছে দিয়েছিলেন। ভৈরব পৌছার পর একটি নৌকা পেয়ে তাতে সবাই চড়ে বসলাম। কিন্তু কিছুদুর যেতেই ভৈরব রেলসেতুর উপর অবস্থানরত পাকসেনারা নৌকার উপর গুলি চালাল। সৌভাগ্য ক্রমে সে যাত্রা প্রাণে বেঁচে গেলেও পাকসেনারা আমাদেরকে নৌকা থেকে নামিয়ে দেয়। এভাবেই নিজ জন্মভুমিতে এক সপ্তাহ শরনার্থীর মত পথ চলার পর গ্রামের বাড়িতে পৌছি। দীর্ঘ চলার পথে দেখেছি পাক বাহিনীর বর্বরতায় মানুষের সীমাহিন দুর্ভোগের চিত্র। এখানে সেখানে পুড়ে যাওয়া বসত বাড়ি আর হাট-বাজার, পচেঁ যাওয়া লাশের স্তুপ, নিরাপদ আশ্রয়ের খোঁজে ভীত সন্ত্রস্ত মানুষের ছুটে চলার অমানবিক দৃশ্য। বারুদ আর পঁচা লাশের গন্ধ এবং মানুষের সীমাহিন আর্তনাদে যেন বাংলার আকাশ-বাতাস ভারী হয়ে আছে।

মুক্তিযুদ্ধের মহান শহীদ সিরাজুল ইসলাম, বীর বিক্রম কিশোরগঞ্জের ইটনা উপজেলার ছিলনী গ্রামের মকতুল হোসেন ও গফুরুন্নেছা দম্পতির একমাত্র পুত্র ছিলেন এবং দুই বোন ও এক ভাইয়ের মধ্যে তিনি ছিলেন সবার বড়। তিনি ছিলেন আমার বাবার আপন চাচাত ভাই, বাবাকে তিনি বড় ভাই বলেই ডাকতেন। ১৯৭১ সনে তিনি কিশোরগঞ্জ গুরুদয়াল কলেজের বিএ প্রথম বর্ষের ছাত্র ছিলেন। শহীদ সিরাজ ছিলেন অবিবাহিত।

আমরা গ্রামের বাড়িতে পৌছানোর পর সিরাজ চাচা দেশ স্বাধীন করতে মুক্তিযুদ্ধে যোগ দেয়ার সিদ্ধান্তের কথা জানালেন। এক সকালে তিনি সবার কাছ থেকে বিদায় নিয়ে এই গ্রামেরই কয়েকজন বন্ধুকে সাথে নিয়ে মুক্তিযুদ্ধে যোগ দিতে গৃহ ত্যাগ করে রওয়ানা হন। বাড়ীর সামনের মাটির সড়ক দিয়ে তিনি ইটনা থানা সদরের দিকে হাটা শুরু করেন। পুত্রের পিছু পিছু পিতা মকতুল হোসেনও দাড়ালেন সড়কের উপর। তারপর যতক্ষণ দেখা যায়  একদৃষ্টে তিনি তাকিয়ে থাকলেন তাঁর গমন পথের দিকে। একসময় তাঁর আদরের পুত্র সিরু যখন দৃষ্টি সীমা থেকে হারিয়ে গেল তিনি ধপাস করে মাটির উপর নিশ্চল বসে রইলেন অনেকক্ষণ। হয়ত বুঝতে পারছিলেন এটাই তার ঔরসজাত একমাত্র পুত্র সিরুকে শেষ দেখা।

তিনি মুক্তিবাহিনীতে যোগ দিয়ে ভারতের আসামে ইকোয়ান ক্যাম্পে প্রশিক্ষণ গ্রহন করেন। প্রশিক্ষণ শেষে দেশে ফিরে তিনি ৫ নং সেক্টরের অধীনে সাব-সেক্টর কমান্ডার হিসেবে সিলেট ও সুনামগঞ্জ এলাকায় অনেক যুদ্ধে বীরত্বের সাথে অংশগ্রহন করেন। ১৯৭১ সনের ৮ আগষ্ট সুনামগঞ্জ জেলার গুরুত্বপূর্ণ নদীবন্দর সাচনা পাক হানাদারদের হাত থেকে দখল মুক্ত করার লক্ষে পরিচালিত রক্তক্ষয়ী সম্মুখ যুদ্ধে তিনি শাহাদৎ বরণ করেন। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে অন্যতম স্মরণীয় এ যুদ্ধে তিনি কমান্ডার হিসাবে নেতৃত্ব দেন। ভয়াবহ এই যুদ্ধে মুক্তিসেনাদের প্রবল আক্রমণে ৩৬ জন পাকসেনা নিহত হয় এবং এক পর্যায়ে পাকসেনারা ছত্রভঙ্গ হয়ে পড়লে সাচনা বন্দর শক্রমুক্ত হয়। কিন্তু যুদ্ধ শেষে পলায়নরত পাকসেনাদের কাভারিং ফায়ারের একটি বুলেট শহীদ সিরাজের কপালে বিদ্ধ হলে তিনি গুরুতর আহত হন। সঙ্গে সঙ্গে মিত্র বাহিনীর হেলিকপ্টার যোগে ভারত নেওয়ার সময় পথিমধ্যে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তাঁর লাশ নিয়ে হেলিকপ্টার ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তের নিকট টেকেরঘাটে অবতরণ করে। সেখানে খাসিয়া পাহাড়ের পাদদেশে পূর্ণ সামরিক মর্যাদায় তাঁর দাফন সম্পন্ন হয়।

দেশ স্বাধীন হওয়ার পর মুক্তিযুদ্ধের কৃতিত্বপূর্ণ অবদানের জন্য সরকার শহীদ সিরাজকে বীর বিক্রম খেতাব প্রদান করেন। স্বাধীনতার পর ১৯৭২ সালের  জানুয়ারিতে সুনামগঞ্জে অনুষ্ঠিত এক জনসভায় সুরঞ্জিত সেন গুপ্ত সাচনা নদী বন্দরকে সিরাজ নগর হিসেবে নামকরনের ঘোষণা প্রদান করেন। যদিও প্রয়োজনীয় উদ্যোগের অভাবে দুঃখজনকভাবে এই নামকরন বেশী দিন স্থায়ী হয়নি।

স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে শহীদ সিরাজের পরিবারের কাহিনী অত্যন্ত করুণ। পুত্র সিরুর শোকে তাঁর পিতা বেশী দিন বাঁচেননি, ১৯৭৩ সালে তিনি ইন্তেকাল করেন। একমাত্র পুত্রকে হারিয়ে তাঁর মা মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলেন এবং দীর্ঘদিন অপ্রকৃতিস্থ থাকার পর রোগে-শোকে ১৯৮৮ সালে তিনিও মারা যান। জীবদ্দশার বাকি সময়টুকুতে তিনি যাকে সামনে পেতেন শুধু একটা কথাই শুধাতেন যে, তোমরা কি আমার সিরুকে কোথাও দেখেছ। কোথায় আছে সিরু, কখন ফিরবে আমার কাছে। কোন সান্তনাতেই তিনি শান্ত হতেন না। ছোট বোন আনোয়ারা খাতুন  তিন পুত্র ও দুই কন্যা রেখে ১৯৯২ সালে মৃত্যুবরন করেন। পরিবারের একমাত্র জীবিত সদস্য অপর বোন মনোয়ারা খাতুন কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জ উপজেলার নিয়ামতপুরে ঘর-সংসার করছেন।

মৃত্যুর মাত্র ৭ দিন পূর্বে তিনি যুদ্ধত্রে থেকে তাঁর পিতাকে একটি পত্র লেখেন। সেই চিঠির প্রতিটি লাইনে ফুটে উঠেছে মাতৃভূমির প্রতি শহীদ সিরাজের নিখাঁদ ভালোবাসা। যুদ্ধে মৃত্যুকে নিশ্চিত জেনে অসাধারণ সেই চিঠিতে ছিল নিজ পরিবার ও দেশবাসীর প্রতি দেশপ্রেমমুলক মর্মস্পর্শী নির্দেশনা। চিঠির ভাষা নিম্নরূপ :

প্রিয় আব্বাজান,                                                                          টেকেরঘাট, তাং- ৩০-০৭-৭১ ইং

আমার সালাম নিবেন, আশা করি খোদার কৃপায় ভালই আছেন। বাড়ীর সকলকেই আমার শ্রেণীমত সালাম ও স্নেহ রহিল। আলীরাজ, রওশন, মাতাব, রনু, ইব্রাহীম, ফুল মিয়া, সকলেই একত্রে আছি। দেশের জন্য আমরা সকলেই জান কোরবান করিয়াছি। আমার জন্য ও দেশ স্বাধীন হওয়ার জন্য দোয়া করবেন। আমি জীবনকে তুচ্ছ মনে করি। কারণ দেশ স্বাধীন না হইলে জীবনের কোন মূল্য থাকিবে না। তাই যুদ্ধই জীবনের পাথেয় হিসাবে নিলাম। আমার অনুপস্থিতিতে মাকে কষ্ট দিলে আমি আপনাদেরকে মা করিব না। পাগলের সব জ্বালা সহ্য করিতে হইবে। চাচা, মামাদের ও বড় ভাইয়ের নিকট আমার সালাম। বড় ভাইকে চাকুরীতে যোগদান করিতে নিষেধ করিবেন। জীবনের চেয়ে চাকুরী বড় নয়। দাদুকে দোয়া করিতে বলিবেন। মৃত্যুর মুখে আছি। যে কোন সময় মৃত্যু হইতে পারে এবং মৃত্যুর জন্য প্রস্তুত। দোয়া করবেন মৃত্যু হইলেও যেন দেশ স্বাধীন হয়। তখন দেখিবেন লাখ লাখ ছেলে বাংলার বুকে পুত্র হারাকে বাবা বলে ডাকবে। এই ডাকের অপোয় থাকুন। আর আমার জন্য চিন্তার কোন কারণ নেই। আপনার দুই মেয়েকে পুরুষের মত শিায় শিতি করে তুলবেন। তবেই আপনার সাধ মিটে যাবে।
দেশবাসী স্বাধীন বাংলা কায়েমের জন্য দোয়া কর। মীর জাফরী করিও না। কারণ মুক্তি ফৌজ তোমাদের মা করিবে না এবং বাংলায় তোমাদের জায়গা দিবে না। সালাম, দেশবাসী সালাম।

ইতি,
মোঃ সিরাজুল ইসলাম

সবচেয়ে দূভার্গ্যরে বিষয় হল শহীদ সিরাজের পিতা-মাতা ও দুই বোনসহ অনেক স্বজনই বীর বিক্রম খেতাব প্রাপ্তির গৌরবময় কীর্তির কথা জেনে পরপারে যেতে পারেননি। দূর্ভাগ্যজনকভাবে এই প্রাপ্তির কথা তখন কেউ জানতেন না। ১৯৯৪ সালে সে সময়কার প্রধানমন্ত্রি বেগম খালেদা জিয়া এক অনুষ্ঠানে খেতাবপ্রাপ্ত সকল মুক্তিযুদ্ধাকে আনুষ্ঠানিকভাবে পদক প্রদান করেন। সে অনুষ্ঠানটি সরাসরি বিটিভিতে সম্প্রচার হয়েছিল। সৌভাগ্যক্রমে আমি তখন টিভি সেটের সামনে। এ সময় দেখলাম শহীদ সিরাজ বীর বিক্রমের নাম ঘোষিত হল, কিন্তু তাঁর পক্ষে কেউ পদক নিতে এলেন না। সেখান থেকেই আমার কৌতুহলের জন্ম। আমি ঢাকায় মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কেন্দ্রিয় অফিসে গিয়ে গেজেট দেখে বড় ধাক্কা খেলাম। কারণ শহীদ সিরাজ বীর বিক্রমের পিতার নাম মকতুল হোসেনের স্থলে মকবুল হোসেন এবং দুঃখজনকভাবে ঠিকানার স্থানে অজ্ঞাত হিসেবে উল্লেখ আছে।

কিন্তু আমি নিশ্চিত হয়ে যাই তিনিই আমাদের শহীদ সিরাজ। কিশোরগঞ্জ এসে আমি জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড ও গুরুদয়াল কলেজের অধ্যক্ষের সাথে যোগাযোগ করে এর স্বপক্ষে প্রত্যয়নপত্র সংগ্রহ করি। এ ছাড়া রণাঙ্গনে উনার সাথীদের সাথে যোগাযোগ করে মুক্তিযুদ্ধের সময় উনার অবদানের কাহিনী লিপিবদ্ধ করে ও বিভিন্ন পত্রিকার কাটিং সংগ্রহ করে শহীদ সিরাজকে বীর বিক্রম হিসেবে গেজেট সংশোধনের আবেদন করি। তারপর ঢাকায় মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কেন্দ্রিয় অফিসে চলে নিয়মিত এই টেবিল সেই টেবিলে ঘোরাঘুরি। এভাবে বেশ কিছুদিন পর একদিন পত্র মারফত আমাকে ঢাকায় আসার জন্য বলা হয়। পরদিনই আমি পৌছার পর আমাকে তখন গুরুত্বপূর্ণ পদে থাকা সেক্টর কমান্ডার মেজর জেনারেল (অবঃ) আবু উসমান চৌধুরী, বীর উত্তমের সাথে দেখা করতে বলা হল। আবু উসমান চৌধুরীর কক্ষে গিয়ে তাঁর সামনে দাড়ানো মাত্র তিনি বললেন, আপনিও তো আপনার চাচার মত আরেক যুদ্ধে জয়লাভ করেছেন। এই বলে আমার হাতে শহীদ সিরাজ বীর বিক্রমের পদক আমার হাতে তুলে দিলেন। পরবর্তীতে ১৯৯৭ সালের ২৬ মার্চ ঢাকায় সংসদ ভবন প্লাজায় খেতাবপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মনে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রি শেখ হাসিনার হাত থেকে এ সংক্রান্ত প্রত্যয়নপত্র গ্রহন করি।

যা হোক, শহীদ সিরাজকে নিয়ে নিয়ে আবেগময় ভাবনায় নিমজ্জিত থাকা অবস্থায় এক সময় বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার শেষ প্রান্তে অপরুপ যাদুকাটা নদীর তীরে পৌছে যাই। টলটলে নীল স্বচ্ছ পানির যাদুকাটা নদী নৌকা যোগে মটর সাইকেলসহ নদী পার হয়ে তাহিরপুর উপজেলায় প্রবেশ করি। সেখানে পৌছেই দৃশ্যপট পাল্টে যায়। শুরু হয় চড়াই উৎড়াই পাহাড়ি পথ। অনতিদূরেই চোখে পড়ে ভারতের মেঘালয় রাজ্যের গারো পাহাড়ের নয়নাভিরাম নৈসর্গিক প্রকৃতি। যতই এগুতে লাগলাম সবুজ পাহাড়ও যেন ক্রমান্বয়ে কাছে চলে আসছে। এভাবেই দুই-আড়াই ঘন্টা টানা পথ চলার পর টেকেরঘাট পৌছে গেলাম।

টেকেরঘাট পৌছে চেপে রাখা দুর্দমনীয় আবেগ যেন আর বাধ মানতে চাইছে না। কিন্তু মারাত্মক হোঁচট খেলাম এ জন্য যে, যাকেই জিজ্ঞেস করি কেউই শহীদ সিরাজের কবরের সন্ধান দিতে পারে না। কি দূভার্গ্য, কেউ যে তাঁর নামই শুনেননি। অবশেষে একজন বলল, ঐ যে সীমানার কাছে চুনা পাথর খনি প্রকল্প ও পুলিশ ফাঁড়ির পিছনে একটি পুরনো গোরস্থান আছে সেখানে গিয়ে দেখতে পারেন। সেখানে মুক্তিযুদ্ধর সময় অনেককে দাফন করা হয়েছে।

এক দৌড়ে ছুটে গেলাম সেখানে। গোরস্থানে ঢুকতে উপরে গম্বুজ বিশিষ্ট ছোট গেইট আছে, কিন্তু চারিদিকে কোন সীমানা প্রাচীর নেই। ভিতরে কিছু কবর আছে, যার বেশীর ভাগই অযত্নে-অনাদরে ধ্বসে গেছে বহু আগে। যেগুলো কোনমতে টিকে টিকে আছে, তাও খুব জরাজীর্ণ অবস্থায়। তার উপর ঝোপ-ঝাড়, লতা-গুল্মের আগাছায় ঢাকা পড়ে আছে সব কটি কবর। সহজেই বুঝা যায় প্রিয় মাতৃভুমির স্বাধীনতার লাল সূর্য্য ছিনিয়ে আনতে যাঁরা বীরের মত নিঃস্বার্থভাবে নিজের প্রাণ হাসিমুখে বিলিয়ে গেছেন, তাঁদের কবরে কারো আসা হয়না, রক্ষণাবেক্ষণ তো দূরের কথা। তাঁদের কবর ধ্বংস হয়ে যাক, কুকুর-শৃগালের বিচরণ ক্ষেত্র হোক - এ নিয়ে বোধ হয় কারো সামান্যতম মাথা ব্যাথা নেই।

কিন্তু আমাকে তো শহীদ সিরাজের কবর খুঁজে বের করতেই হবে। মটর সাইকেল চালক আবু লেইছকে আবেগ মাখা কণ্ঠে বললাম, চল একটা একটা করে কবর খুঁজে দেখি। আবু লেইছ উৎসাহের সাথে আমার সাথে হাত লাগাল। ঝোপ-ঝাড়, লতা-গুল্ম সরিয়ে একটা একটা করে কবর দেখি আর হতাশায় বুক ভেঙ্গে আসে। বেশীর ভাগ কবরের ইট-সিমেন্টের দেয়াল ভেঙ্গে মাটিতে মিশে গেছে, চেনার কোন উপায় নেই। দু’একটির নাম-পরিচয় আছে। একটি কবরে লিখা আছে, ‘নাম না জানা শহীদ মুক্তিযোদ্ধা’। এ কবরটি দেখে দু চোখ বেয়ে অশ্রু বেরিয়ে এল। কত অভাগা এই নাম না জানা বীর শহীদ মুক্তিযোদ্ধা। না জানি কোন মমতাময়ী মায়ের নাড়ি ছেড়া সাত রাজার ধন ছিলেন তিনি। তাঁর পথ চেয়ে থাকা পরিবারের আপনজন, বন্ধু-স্বজনরা কোনদিন জানতেও পারবে না যে কোথায় তাঁর শেষ শয্যা হয়েছে। এই কবরটির পাশেই দুরু দুরু বুকে যখন আরেকটি কবরের ঝোপঝাড় সরিয়ে মাথার দিকে অস্পষ্ট হয়ে আসা লিখাটি পড়তেই বুঝলাম এটিই শহীদ সিরাজ বীর বিক্রমের কবর। কাঁচা সিমেন্টের উপর কাঠি দিয়ে খোদাই করে আকাবাকা করে কোনমতে লিখা “শহীদ মোঃ সিরাজুল ইসলাম, গ্রাম চিলনী, থানা ইটনা, জেলা ময়মনসিংহ, বাংলাদেশ, ২২ শে শ্রাবন, বাংলা ১৩৭৮”। কবরের সীমানার চারটি দেয়ালের দুই দিকেই ভেঙ্গে গেছে, বাকিটুকুর অবস্থাও খুবই জরাজীর্ণ।

আমার তখন চিৎকার করে কাঁদতে ইচ্ছে করছিল, গলা ফাঁটিয়ে বলতে ইচ্ছে করছিল চাচা, আমাদের অযোগ্যতার জন্য ক্ষমা করে দাও, আমরা তোমাদের প্রাপ্য মর্যাদা দিতে পারিনি। অতি কষ্টে আবেগ দমন করতে পারলেও চোখ থেকে অবিরল অশ্রুধারা ঠেকিয়ে রাখার সাধ্য ছিলনা, আমিও যেন কবর জড়িয়ে কেঁদে কেঁদে হালকা হতে চাইলাম।

সূরা ফাতিহা, সূরা এখলাস, দরুদ পাঠ শেষে মোনাজাতের মাধ্যমে কবর জিয়ারত শেষে অনেকক্ষণ সেখানে বসে রইলাম। ফিরে আসতে মোটেই ইচ্ছে করছিল না। চাচা যেন আর্তি করে বলছিল এতদিন পর এসেছিস, আরেকটু থাক না হয় বাবা। কিন্তু আমার কি আর সে উপায় আছে চাচা। নিষ্ঠুরের মত ধীর পায়ে একটু একটু করে কবর থেকে দূরে সরে যেতে লাগলাম। যতক্ষণ দেখা যায় বার বার ঘাড় ঘুরিয়ে শেষবারের দেখতে চাইলাম। আপাতত বিদায় সিরু চাচা, তোমার প্রতি আমার হৃদয় নিংড়ানো ভালোবাসা। শুধু তুমি নও, এই কবরস্থানসহ দেশের মহান সকল শহীদদের প্রতি আমার বিনম্র শ্রদ্ধা। আবার আমি ফিরে আসব, আবার দেখা হবে।

যা হোক, উনার কবর খুঁজে পেলেও একটা অপূর্ণতা রয়েই গেল। কারণ উনার কবরের জরাজীর্ণ অবস্থা দেখে আমি দারুণ মর্মাহত।  বর্তমানে এই বীর শহীদের কবরের এতই জীর্ণদশা, যে কোন সময় ধ্বসে পড়ে মাটিতে মিশে যেতে পারে।  তাহলে উনার কবরের কোন চিহ্নই আর থাকবে না। যা হবে শহীদ সিরাজ বীর বিক্রম তথা দেশের লাখো শহীদের প্রতি অবমাননার শামিল। তবে কিছুটা আশার আলো দেখতে পাচ্ছি এ কারণে যে, আমি বিষয়টি কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসনকে জানালে উনারা খুব ইতিবাচকভাবে বিষয়টি নিয়েছে। ইতিমধ্যে কবর সংস্কারের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ জানিয়ে কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসক কর্তৃক সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক বরাবরে সরকারী স্মারকে একটি চিঠি চলতি বছরের জানুয়ারী মাসে পাঠানো হয়েছে। মুক্তিযোদ্ধা সংসদের জেলা ইউনিট কমান্ডার সুপারিশকৃত উক্ত পত্র পাওয়ার পর সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসনও সক্রিয় চিন্তা-ভাবনা করছেন বলে আমি সেখানে যোগাযোগ করে জানতে পেরেছি। আমি আশা করি মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রনালয় ও সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসন অতি দ্রুতই শহীদ সিরাজের কবর সংস্কার করে নতুন করে নির্মাণের কার্যকর ভুমিকা গ্রহণ করবেন।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]



প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম

সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ

সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার

কিশোরগঞ্জ-২৩০০

মোবাইল: +৮৮০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮

ইমেইল: kishoreganjnews247@gmail.com

©All rights reserve www.kishoreganjnews.com