kishoreganjnews.com:কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

উত্তাল ভাষা আন্দোলন হয়েছিল কিশোরগঞ্জেও


 মোস্তফা কামাল | ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, বুধবার, ১২:৩২ | বিশেষ বাছাই 


বায়ান্নতে উত্তাল ভাষা আন্দোলন হয়েছিল কিশোরগঞ্জেও। রাজধানীর মহান ভাষা আন্দোলনের উত্তাল ঢেওয়ে টালমাটাল ছিল কিশোরগঞ্জের শিক্ষাঙ্গন আর রাজনীতির মাঠ। বাংলাকে মাতৃভাষা হিসেবে প্রতিষ্ঠা করার মহান সংগ্রামে কিশোরগঞ্জের ছাত্রসমাজ আলোড়ন তুলেছিল বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ সমগ্র জনপদে। শহর কেন্দ্রিক আন্দোলনের সেই ঢেউ আছড়ে পড়েছিল গ্রাম পর্যন্ত।

পাকিস্তানী শাসক গোষ্ঠীর রক্তচক্ষুকে উপেক্ষা করে এখানে যেমন সভা-সমাবেশ আর মিছিল হয়েছে, তারুণ্যের গর্বিত অগ্রসেনানী সেদিনের ছাত্রনেতাদের বিরুদ্ধে হুলিয়া জারি হয়েছে। অনেকে নির্ভিক চিত্তে কারাগারেও গিয়েছেন। সেদিনকার ভাষা সৈনিকদের কয়েকজন ছাড়া অনেকেই আজ বেঁচে নেই।

ভাষা আন্দোলনকে সফল করার জন্য গঠিত হয়েছিল সর্বদলীয় রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদ। এর মহকুমা শাখার আহবায়ক ছিলেন প্রয়াত হেদায়েত হোসেন। তিনি তৎকালীন মুসলিম ছাত্র লীগের কিশোরগঞ্জ মহকুমা শাখার প্রতিষ্ঠাতা আহবায়কও ছিলেন। ভাষা আন্দোলনের সময় তিনি স্থানীয় গুরুদয়াল কলেজের দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্র। আর ’৫৪ সনে গুরুদয়াল কলেজ ছাত্র সংসদের সাধারণ সম্পাদক।

হোদায়েত হোসেন জীবদ্দশায় এ প্রতিনিধির কাছে এক সাক্ষাৎকারে ভাষা আন্দোলনের বিরবণ দিতে গিয়ে বলেছিলেন, ’৫২ সনে পশ্চাতপদ যোগাযোগ ব্যবস্থার কারণে ঢাকায় ২১ ফেব্রুয়ারীর গুলিতে কয়েকজন শহীদ হওয়ার খবর কিশোরগঞ্জে পৌঁছে পরদিন ২২ ফেব্রুয়ারি। খবর শুনেই এখানকার ছাত্র সমাজ ক্ষোভে ফেটে পড়ে। ২৩ ফেব্রুয়ারী মুসলিম ইনস্টিটিউট (বর্তমান জেলা পাবলিক লাইব্রেরি) প্রাঙ্গনে হেদায়েত হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয় ছাত্রদের বিক্ষোভ সমাবেশ। সেই সমাবেশের একমাত্র বক্তা ছাত্রনেতা আবু তাহের খান পাঠান ২৪ ফেব্রুয়ারি হরতালের ঘোষণা দেন।

হেদায়ত হোসেন তার আন্দোলনের সহকর্মি হিসেবে আওয়ামী লীগের প্রয়াত সংসদ সদস্য আশরাফুদ্দীন আহমদ (আশরাফ মাস্টার), আবু তাহের খান পাঠান ও আবু ছিদ্দিকসহ আরো অনেকের নাম উল্লেখ করে বলেন, সারাদেশ যখন ভাষা আন্দোলনে উত্তাল, তখন কিশোরগঞ্জের জনগণ উজ্জীবিত হয়েছিল স্থানীয় তরুণ ছাত্র নেতাদের মিছিল আর সভা-সমাবেশ দেখে।

আশরাফুদ্দীন আহমদ, হেদায়েত হোসেন, আবু তাহের খান পাঠান, রফিকউদ্দিন ভূঁইয়া, এবি মহিউদ্দিন আহমেদ, আবু সিদ্দিক, প্রয়াত কমিউনিস্ট নেতা গঙ্গেশ সরকার, মোশারফ হোসেন আকঞ্জি, ফুলে হুসেন, আব্দুল মতিন, আ.ফ.ম সামছুল হুদা, আবু নাঈম, নজরুল ইসলাম, ফজলুল হক, আব্দুল ওয়াদুদ চৌধুরী, মিছিরউদ্দীন আহমেদ, শহীদুল হক, শামছুদ্দিন আহম্মদ, এম.এ আনিস, মাসুদুল আমিন খান প্রমুখ ছাত্রনেতা সেই সময়কার ভাষা আন্দোলনে কিশোরগঞ্জে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন।

এছাড়া, বাংলাদেশের প্রথম অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম, প্রয়াত রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক অর্থ সম্পাদক ডা. মাজহারুল হকও ঢাকায় ভাষা আন্দোলনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছিলেন।

রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদ কর্তৃক কেন্দ্রীয়ভাবে ঘোষিত কর্মসূচী অনুসারে ২১ ফেব্রুয়ারি কিশোরগঞ্জ, বাজিতপুর ও করিমগঞ্জে ধর্মঘট পালিত হয়েছিল। তখন ভাষা আন্দোলনের বিরোধীতাকারী নেতারা শহরের মোড়ে মোড়ে উর্দু ভাষার পক্ষে গণস্বাক্ষর সংগ্রহের উদ্যোগ নিলেও জনগণের বাধার মুখে তা ব্যর্থ হয়।

২১ ফেব্রুয়ারি ঢাকায় কয়েকজন শহীদ হবার পরদিন কিশোগঞ্জে খবর পৌঁছলে উত্তোলিত হয় কালো পতাকা। ২৩ ফেব্রুয়ারি শোক র‌্যালি বের হলে তাতে ন্যাশনাল গার্ড বাহিনী হামলা চালিয়ে কয়েকজনকে আহত করে। ২৫ ফেব্রুয়ারি রথখলা ময়দানে মাটি দিয়ে তৈরি করা হয় কিশোরগঞ্জের প্রথম শহীদ মিনার। নগ্ন পায়ে প্রভাতফেরি করে তাতে সবাই পুষ্পস্তবক অর্পণ করে।

সেদিনের ভাষা সৈনিকদের অধিকাংশই এখন আর জীবিত নেই। এদের মধ্যে এবি মহিউদ্দিন আহমেদ কিশোরগঞ্জ গুরুদয়াল কলেজ ছাত্র সংসদের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। পরবর্তীতে আওয়ামৗ লীগের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক হয়েছিলেন। তিনি মুক্তিযুদ্ধকালে তাড়াইল হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক থাকার সময় অনেক যুবককে মুক্তিযুদ্ধে যাবার জন্য উদ্বেুদ্ধ করেন। আর সেই কারণে তাকে একাত্তরে কিশোরগঞ্জ শহরের কাচারি বাজার এলাকা থেকে রাজাকাররা তুলে নিয়ে অজ্ঞাত স্থানে হত্যা করে। তার লাশটিও পাওয়া যায়নি। এ ঘটনায় অবশ্য এখন আন্তর্জাতিক মানবতা বিরোধী অপরাধ ট্রাইবুনালের তদন্ত সংস্থা তদন্ত করছে।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর











সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ