কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


‘কিশোরগঞ্জ আমার প্রিয় কিশোরগঞ্জ’


 মু আ লতিফ | ১ জুলাই ২০১৯, সোমবার, ৫:১৮ | আমাদের কিশোরগঞ্জ 


‘কিশোরগঞ্জ আমার প্রিয় কিশোরগঞ্জ’ অনেকটা স্মৃতিকথার মতই। এছাড়া এটি অতীত অনুসন্ধানী পর্যালোচনাও বটে। তবে এটাও ঠিক একে ইতিহাস বা ঐতিহাসিক দলিল বলা সঙ্গত হবে না। আমি ছোটবেলায় আমার জন্মভূমিকে কি ভাবে দেখেছি- এখানে আমার বড় হওয়া, বেড়ে ওঠা, এখানকার মাটি, প্রকৃতি, মানুষই এ লেখার উপজীব্য বিষয়।

এছাড়াও এই শহরের অলি-গলি, এর আদি অবয়ব, সৌন্দর্য, নদী, নদীর প্রভাব ও প্রবাহ আমার দেখা কিশোরগঞ্জকে চিত্রায়নের প্রয়াস রয়েছে। সেই সাথে আমার ছাত্রজীবনের শিক্ষাঙ্গন, তৎকালীন ছাত্র রাজনীতির কিছুটা ধারণা এতে পাওয়া যাবে। আরো রয়েছে সাহিত্য-সংস্কৃতি ও ক্রীড়াঙ্গনের অতীত বিবরণ।

সময় ও প্রয়োজনের তাগিদে পরিবর্তন ঘটছে সর্বত্র। আমাদের ছেলেবেলার যা কিছু সবই বদলে গেছে, সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে পরিবর্তিত হচ্ছে চার পাশের দৃশ্যপট। আধুনিকতার ছোঁয়ায় ও প্রযুক্তির উন্নয়নে এ পরিবর্তন অনিবার্য। আমাদের ছেলেবেলার সেই কিশোরগঞ্জও এ বদলে যাওয়ার (উন্নয়ন) সড়কের বাইরে নয়।

কিন্তু সেই আগেকার কিশোরগঞ্জ এর অতীত অবয়ব, সমাজ, সামাজিক কর্মকাণ্ড, জনগোষ্ঠী সম্পর্কে জানার আগ্রহ আমার মত অনেকেরই রয়েছে। সেই আকাঙ্ক্ষা ও আগ্রহ এ লেখাটি রচনায় আমাকে উৎসাহিত করেছে।

এছাড়া কিশোরগঞ্জ আমার জন্মভূমি। এর আলো-বাতাস ও মাটির পরশে আমি বড় হয়েছি। এখানকার মানুষ ও প্রকৃতির কাছে আমার ঋণের শেষ নাই। এটি প্রকাশের মধ্য দিয়ে যদি কিছুটা ঋণ পরিশোধ হয় তাতেও কম কি। তথ্যগত কোন ভুল হলে সবাই ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন ও আমাকে ভবিষ্যতে সংশোধনের সুযোগ দেবেন আশা করি।

পর্ব- এক: শুধুই আপন স্মৃতি!
কিশোরগঞ্জ শহরের দক্ষিণে মণিপুরিঘাটের পাশ দিয়ে যে রাস্তাটি চলে গেছে এর পাঁচশ’ গজের মাথায় একটি আমলকি বৃক্ষ ছিল। ছেলেবেলায় এ বৃক্ষতলে আমলকির স্বাদ পেতে কতবার যে গিয়েছি এর কোন হিসাব দিতে পারবো না। আজ এ বৃক্ষটির কোন অস্থিত্ব নেই। সে দিনের সেই ছায়াঘেরা ছোট্ট শহর, বিস্তীর্ণ খোলা আকাশ, মেঠো মসৃণ পথ আমার কাছে শুধুই স্মৃতি। এসব স্মৃতির অনেক কিছুই আজ অতীতের গহবরে হারিয়ে যাচ্ছে।

শহরের একেবারে দক্ষিণে ওই আমলকি বৃক্ষের সঙ্গে আমার পরিচয় সেই পাঠশালা জীবনে। আমি তখন তারাপাশা মাদরাসার প্রাইমারির ছাত্র। বর্তমানে এখানে মাদরাসার বদলে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে আরজত আতরজান হাই স্কুল। আমাদের গৃহশিক্ষক মৌলভী মো. আবদুল হেকিম সাহেবের উৎসাহেই আমি সেখানে ভর্তি হই। তিনি ছিলেন আমাদের খুবই শ্রদ্ধাভাজন ‘ওস্তাদজি’।

এক সময় ‘ওস্তাদজি’ সেনাবাহিনীর সদস্য ছিলেন। অবসর জীবনে এসে এ মাদরাসায় শিক্ষকতা শুরু করেন। সে সময় শহরের গৌরাঙ্গ বাজারে আমাদের একটি সমৃদ্ধ লাইব্রেরি ছিল। আমার পিতা মরহুম মো. আব্দুল ওয়াহেদ-এর সঙ্গে ‘ওস্তাদজির’ এ লাইব্রেরিতেই পরিচয় ঘটে। এ পরিচয়ের সূত্র ধরেই তাঁর অনুরোধে আমাকে উক্ত মাদরাসায় ভর্তি হতে হয়।

মাদরাসায় যাতায়াতকালে পথেই এ বৃক্ষটির আমি সন্ধান পাই। আর সেই থেকেই আমলকির স্বাদ পেতে আমি কতবার যে এ বৃক্ষতলে হানা দিয়েছি এবং কতবার গৃহকর্তার সতর্ক তাড়া খেয়ে ছুটে পালিয়েছি এর কোন হিসাব দিতে না পারলেও আজো হৃদয়ে এর শিহরণ অনুভব করি। সেদিনের সেই স্মৃতি ভোলার নয়। ছেলেবেলার এসব স্মৃতি কি সহজে ভোলা যায়!

আজ ওখানে আমলকি বৃক্ষ নেই, সেদিনের মেঠোপথও নেই, শহরের মাঝ দিয়ে প্রবাহিত নরসুন্দা পাড়ের তালবৃক্ষও উধাও হয়েছে কবেই। এসবের হিসাব কেউ আর রাখে না। আমাদের চেনা-জানা এই ছোট্ট শহর এখন বড় হয়েছে-নগরে রূপান্তরিত হচ্ছে। সভ্যতার ক্রমবিকাশের ধারায় কোন কিছুই থেমে থাকেনা। নতুনের কেতন উড়িয়ে স্থান দখল করে নিচ্ছে নব নব সৃষ্টি। নতুন সৃষ্টির আশীর্বাদে মানুষের জীবন পাল্টে যাচ্ছে। মানুষের জীবনবোধে তৈরি হচ্ছে নবতর উচ্ছ্বাস।

হাল আমলটা হচ্ছে বিশ্বায়নের যুগ। যোগাযোগের এতসব মাধ্যম আবিস্কৃত হয়েছে যে, নিমিষেই হাতের কাছে সব হাজির। আগেকার সময় বহির্বিশ্ব কেন, ঢাকার সঙ্গে যোগাযোগের তেমন কোন সহজ পথ ছিল না। যাতায়াতের জন্য নৌপথই ছিল তখন সহজলভ্য।

মনিপুরি ঘাটের কথা প্রথমেই উল্লেখ করেছি। ছেলেবেলায় দেখেছি নৌঘাট হিসেবে এটি ছিল খুবই জমজমাট। ’৬০ এবং ’৭০ দশকে মনিপুরিঘাটে শত শত বজরার নোঙর ছিল নিত্য দিনের চিত্র। আজ নরসুন্দা মরে গেছে, মনিপুরিঘাটের অস্থিত্বও বিলুপ্ত হয়েছে।

পরিবেশবাদীরা নিশ্চয় বলবেন, নরসুন্দাকে মায়ের মত যতœ করা কর্তব্য ছিল। সেক্ষেত্রে ঘটেছে বিপরীত। আমরাই আমাদের প্রিয় নরসুন্দাকে মেরে ফেলেছি। শহরের মাঝ দিয়ে নদী বয়ে যাওয়া আশীর্বাদ হলেও ওকে আমরা পায়ে মাড়িয়েছি।

সেদিনের নরসুন্দা আজ কোথায়! নরসুন্দায় পালতোলা নৌকার দৃশ্য, মাঝির কণ্ঠ নিঃসৃত ভাটিয়ালি সুর আমাদের মোহিত করতো। শহরের বড় বাজারে, পুরানথানা, একরামপুর রেলব্রিজের নিচে, গৌরাঙ্গবাজারে এবং রথখোলা ঘাটে শত শত নৌকা নোঙর ফেলত। এসব নৌকায় যাত্রীরা আনোগোনা করত। তাছাড়া মালামাল পরিবহনের জন্য বৃহদাকায় নৌকাও এসব ঘাটে এসে ভিড়তে আমি দেখেছি। তবে রথযাত্রার সময় ঘাটে ঘাটে বেশি নৌকা দেখা যেতো।

ওই সময়ের কথা এখনো মনে আছে। ব্যবসায়ীরা তখনকার দিনে তাদের মালামাল নৌকাযোগে পরিবহন করতেন। পাবনা, ইশ্বরদি, সিলেটসহ অন্যান্য স্থান থেকেও মালবোঝাই বড় বড় নৌকা এখানে এসে নোঙর ফেলতো। হাওরের সঙ্গে যোগাযোগের একমাত্র অবলম্বন ছিল নৌকা।

এখন ওই সব বদলে গেছে। বাংলার চিরচেনা রূপবৈচিত্র্য, নদীর অস্তিত্ব বিলুপ্ত হতে চলেছে। নৌকার পরিবর্তে বাস, টেম্পু ও অটোরিক্সার প্রচলন হয়েছে। প্রকৃতির আশীর্বাদের পরিবর্তে জনজীবনে জায়গা করে নিচ্ছে যান্ত্রিক সব আয়োজন। পুরনো দিনের সব কিছু হারিয়ে যাচ্ছে। অবশিষ্ট থাকছে শুধুই স্মৃতির আলো। (চলবে)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর