কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


‘কিশোরগঞ্জ আমার প্রিয় কিশোরগঞ্জ’

স্বর্ণালী স্কুল স্মৃতি


 মু আ লতিফ | ২ জুলাই ২০১৯, মঙ্গলবার, ৯:৩৯ | আমাদের কিশোরগঞ্জ 


তারাপাশা মাদরাসা থেকে পরে আমি আজিমউদ্দিন হাই স্কুলে এসে ভর্তি হই চতুর্থ শ্রেণিতে। এই স্কুল থেকেই ১৯৬৪ সালে আমি এসএসসি পাশ করি। এই স্কুলে পড়ার স্বর্ণালী জীবনের কত শত স্মৃতি রয়েছে যা আজো আমার মনের আয়নায় ভিড় করে। স্কুল জীবনের বন্ধুদের সাহচর্য, ভালবাসা, আড্ডার সেইসব স্বর্ণালী দিনগুলোর তুলনা হয় না।

মনে পড়ে সহপাঠি সজল দেব-এর কথা। আজিমউদ্দিন হাই স্কুলে প্রথম যেদিন আমি ক্লাসে যাই, সেদিনই পরিচয় হয় সজলের সঙ্গে। প্রথম পরিচয়ের পর ঘনিষ্টতা এবং পরে তা গভীর হৃদ্যতায় পরিণত হয়।

সজলদের বাড়ি ছিলো দক্ষিণে করমুলি গ্রামে। সে লেখাপড়ায় ভালো  ছিলো। আবার ভালো গানও করতো সে। আমাদের সময় স্কুলে রবীন্দ্র ও নজরুল জয়ন্তী উপলক্ষে অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করা হতো। এসব অনুষ্ঠানে সজল গান পরিবেশন করে যথেষ্ট সুনাম অর্জন করেছিল।

স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় সজল ভারতে চলে যায়। আর ফিরে আসেনি। পরে জানতে পারি সজল বেঁচে নেই। ছেলেবেলার বন্ধুর মৃত্যু সংবাদটি আমার হৃদয়ে শেলের মতো বিধেছিল। সজলের আর এক ভাই আছে নাম কাজল দেব। সেও ভালো গান গায় । জেলা শিল্পকলাসহ অন্যান্য বিভিন্ন অনুষ্ঠানে মাঝে মাঝে এখনো তার গান আমরা শুনি।

আর এক বন্ধুর কথা মনে পড়ে। তার নাম বাহার গোলন্দাজ। সে ছিলো গফরগাঁও এলাকার ছেলে। খুবই ডানপিটে ছিলো সে। তার দুষ্টুমি ও প্রাণখোলা হাসির তুলনা হয় না। সে যুব উন্নয়ন’র উচ্চ পদে চাকরি করতো জানতাম। চাকরিকালীন সময় বেশ ক’বার তার সঙ্গে দেখা সাক্ষাৎ হয়েছে।

মনে পড়ে সহপাঠি গোপাল ও সিরাজের কথা। এ দু’জনই খুব দুষ্ট ছিলো। ক্লাসেও তাদের জন্য রীতিমত ক্লাস করা কঠিন হয়ে পরতো। সৈয়দ ফজলুল বারী স্যার ক্লাসে ঢুকেই এদের কোনো একজনকে ডেকে নিয়ে স্যারের টেবিলের নিচে বসিয়ে রাখতেন। তারপরও এদের বাঁদরামি কমতো না।

আজিমউদ্দিন হাই স্কুলে আমাদের সঙ্গে পড়তো অরুণ, সাখের, জামান, সুজিত তাদের কথাও মনে পড়ে। সাখের সূর্য় দিঘলবাড়ি নামে একটি চলচ্চিত্র নির্মাণ করেছিলো জানি, তারপর আর কিছু তার সম্পর্কে জানি না। অরুণ ভালো ফুটবল খেলতো। এজন্যে তার যথেষ্ট কদর ছিলো। ছেলেবেলায় আমরা ছোট ছোট ফুটবল দল গঠন করে প্রতিযোগিতা করতাম। শক্তিশালী দল গড়তে তাই অরুণকে দলে ভেড়াতে সবাই প্রাণপণ চেষ্টা করতো। আর যে দলের হয়ে অরুণ খেলতো তাদের বিজয় ছিলো প্রায় নিশ্চিত। সেই অরুণও একদিন সবাইকে ছেড়ে ভারত চলে গেল।

আজিমউদ্দিন হাই স্কুলের মাঠে সব সময়ই ফুটবল খেলা  হতো। আমরা যারা  ফুটবল খেলতাম, কখন বিকাল হবে সেই অপেক্ষায় থাকতাম। আবার সন্ধ্যার আগে খেলা শেষে সবাই বাড়ি-ঘরে ফিরতাম। কোনো কারণে দেরি হলে মা’র কাছে কৈফিয়ৎ দিতে হতো। মাঠের পাশ দিয়ে চলে যাওয়া রেল লাইনের দুর্বা ঘাষে বসে বসে কতদিন কত সময় গল্প করে পাড় করেছি এর হিসাব দিতে পারবো না।

এমন সুন্দর ও মনোরম পারিবেশ আজ আর সেখানে নেই। বদলে গেছে সেই পরিবেশ। আর এক সহপাঠির কথা মনে পড়ে। তার নাম মোহাম্মদ সফিকুর রহমান। আমাদের প্রতিবেশি ছিল সে। জামিয়া পোস্ট অফিসের পোস্ট মাস্টার ছিলেন তার পিতা। সে ভালো ছাত্র ছিলো। দীর্ঘ প্রায় ত্রিশ বছর পর হঠাৎ গত ২০১৫ সালে তার সঙ্গে সাক্ষাৎ। অগ্রণী ব্যাংকের সহকারী মহা ব্যবস্থাপক এবং পরে একটি গার্মেনটস গ্রুপ-এর পরিচালক ছিলো। সে এখন অবসরে। তার আবার লেখালেখির অভ্যাস রয়েছে। প্রকাশিত ক’টি বইও রয়েছে তার। স্কুল জীবনের সহপাঠিকে পেয়ে খুব ভালো লাগলো।

পুরান থানা এলাকার ডা. শরফুদ্দিন আহমদ-এর মেঝো ছেলে সায়দুল্লাহ ছিল আমার ছেলেবেলার খেলার সাথী। খেলা এবং খেলা নিয়ে ঝগড়াও করেছি উভয়ই। স্কুল জীবন শেষে ঢাকয় চলে যাবার পর তার সঙ্গে আমার আর দেখা সক্ষাৎ হয়নি। সে কর্মজীবনের একপর্যায়ে স্বপ্নের দেশ আমেরিকায় চলে যায় এবং সেখানে দীর্ঘদিন বসবাসের পর মারা যায়।

আমার বন্ধুদের মধ্যে রতনের কথা উল্লেখ করতেই হয়। সে আমার স্কুল ও কলেজের সহপাঠি। স্কুল জীবন থেকেই আমাদের বন্ধুত্ব।  রতন, পানু এরা আমার বন্ধু এবং নিকট প্রতিবেশিও। জীবনের স্বপ্নিল দিনগুলোর এরা আমার সহযাত্রী। স্কুলে পড়ার সময় এরা ছিলো খেলার সাথী। কলেজে খেলাধুলার পাশাপাশি ছাত্র রাজনীতিরও সহযাত্রী। আমরা একসঙ্গে ওই সময় ছাত্র ইউনিয়ন করতাম। ছাত্র রাজনীতির উত্তাল দিনগুলোতে একে অপরের সাথী হিসেবে কাজ করেছি। আড্ডায় রতন খুব পারদর্শী। হাস্যরসের মাধ্যমে সহজেই জমিয়ে তুলতে পারে। ওই সময় ভালো ফুটবল খেলার কারণে সবাই মিলে আমাকে কলেজ ছাত্র সংসদ নির্বাচনে খেলাধুলা সম্পাদক পদে দাঁড় করায়। এতে আমি বিজয় লাভ করি। সেটি ১৯৬৭ সালের কথা।

আর এক বন্ধুর কথা না বললেই নয়। তার নাম বিকাশ মজুমদার। রতনের ন্যায় সেও এখন কিশোরগঞ্জ জেলা বারের উকিল। উভয়ই সিনিয়র আইনজীবী। বিকাশের সঙ্গে ছাত্র জীবনের বহু স্মৃতি এখনো টন টন করে বাজে। শোলাকিয়া ঈদগাহের পূর্বে গাঙ্গাইলে তাদের পৈত্রিক নিবাস। একসময় তাদের জমিদারি ছিল। প্রকাণ্ড দালানবাড়ির সামনে খোলা মাঠের পরেই ছিল বিরাট পুকুর। বাড়ির চারপাশে আম কাঁঠালসহ ফলজ ও বনজ বৃক্ষের বাগান। এক ছায়াঘেরা প্রাকৃতিক মনোরম পরিবেশ। পুকুর ঘাটে কত রাত দু’জনে গল্প করে কাটিয়েছি এর ইয়ত্তা নেই।

আমরা দু’জনই এক সময় কবিতা লিখতাম। সেই পুকুর ঘাটে স্বরচিত কবিতা পাঠ করে এক অনাবিল আনন্দে বিভোর হতাম। বিকাশের বাবা-মা আমাকে খুবই স্নেহ করতেন। বিকাশের ছোট দুটি বোন ছিল-একজন শিলা মজুমদার, অন্যজন মালা মজুমদার। আমিও তাদেরকে বোনের মত স্নেহ করতাম। শিলা ও মালা উভয়ই গান গাইতে পাড়তো। যখনই আমি তাদের বাড়িতে গিয়েছি শিলা-মালার গান শুনেছি।

বন্ধু মঈন উদ্দিন সোনা মিয়া করিমগঞ্জের গুণধর সাহেববাড়ির ছেলে। আমার সঙ্গে তার অন্তরঙ্গ সম্পর্ক। তাদের বাড়িতে বহুবার গিয়েছি। তার বড় বোন সুফিয়া বুজির আদর স্নেহ কখনও ভুলবার নয়। বুজির ছেলে রবিন, কলিন, অচিন ও মেয়ে নিরুর কথা আজো মনে পড়ে। মুক্তিযুদ্ধকালীন সুফিয়া বুজির স্বামী মাখন ভাইকে রাজাকাররা ধরে নিয়ে যায়। তাঁর কোন খোঁজ আজো মিলেনি।

বন্ধু সালাউদ্দিন, শহরের রঙমহল সিনেমা হলের উল্টোদিকেই তাদের বাসা। ভালো ছাত্র বলে তার সুনাম ছিল। কাপ্তাই সুইডিশ ইন্সটিটিউট থেকে ডিপ্লোমা করে কিছুদিন চাকরি করার পর সেই যে কিশোরগঞ্জে এসেছে আর কোথাও যায়নি। ছাত্র জীবনে রাজনীতিতে ততটা সক্রিয় না হলেও এখন সে সার্বক্ষণিক বাম রাজনীতি নিয়ে ব্যস্ত।

খড়মপট্টির জিতু। পুরো নাম এটিএম সফদার। একসময় চুটিয়ে ব্যবসা করত। বন্ধুদের নিয়ে আড্ডা দিতেও কম ছিলো না। একসময় জিতুসহ, বকুলভাই, বুলবুল, নরেশদা ও  আমরা বন্ধুরা মিলে রাতের পর রাত যাত্রাপালা দেখতাম। ঐতিহাসিক ও লোক সংস্কৃতি বিষয়ক যাত্রাপালা আমাদের আন্দোলিত করতো। জিতু স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে সুখেই ছিলো। তার স্ত্রী গত হয়েছেন। সন্তানেরাও দেশের বাইরে। জিতু এখন বড় একা।

তারাপাশার জিয়াউদ্দিন অবসরে এসে ওকালতি করছিলেন, সম্প্রতি সেও মারা গেছে।  গাইটাল কনট্রাক্টর বাড়ির হারুন অর রশিদ একজন ফুটবলার। আমার বন্ধুদের একজন। প্রকাণ্ড তাদের বাড়ি, বাড়ির চারপাশে আম-কাঠালের প্রচুর বৃক্ষ। আম-কাঠালের মৌসুমে আমাদের সে দাওয়াত করে নিয়ে যেত তাদের বাড়িতে। গাছ থেকে এসব ফল পেড়ে আমাদের খাওয়াতো। ফলের রাজা কাঠাল ও মধুময় আমের রসাশ্বাধন করে আমরা সবাই তৃপ্ত হতাম হারুনও বন্ধুদের আপ্যায়ন করে আনন্দ লাভ করতো।

সিরাজগঞ্জের নান্নুর কথা মনে পড়ে। সে কলেজ জীবনে কিশোরগঞ্জে থেকে লেখাপড়া করতো। এখন সে নারায়ণগঞ্জে ব্যবসা করে, ভালোই আছে স্ত্রী-সন্তান  নিয়ে। মাঝে মাঝে তার সঙ্গে কথা হয় কিন্তু দেখা নেই কয়েকযুগ ধরে। অতীত দিনের ওই সব কথা এখনো মাঝে মাঝে মনে হয়। এসব কথা মনে হলে মনটা হুহু করে ওঠে।

গুরুদয়াল কলেজের এসটি হল, সিএস হল আর জিআরসহ সারি সারি হল, কমনরুম,কলেজ ক্যান্টিন ও বিশাল মাঠের সঙ্গে মিশে আছে আমার কলেজ জীবনের বহু সুখ, সংগ্রাম, সাফল্য-ব্যর্থতা ও বন্ধুদের সাহচর্যের রোমাঞ্চকর স্মৃতি। আমার আজো মনে পড়ে প্রিন্সিপাল মো. ওয়াসিমুদ্দীন স্যারের কথা। তিনি কলেজটিকে প্রাণের চেয়ে বেশি ভালোবাসতেন। যক্ষের ধনের মত আগলে রেখেছিলেন কলেজটিকে।

মনে পড়ে আতিকুল্লাহ চৌধুরী, জিয়াউদ্দিন স্যার, নরেণ ঘোষ, সিএল রায় ও শামসুল হক, নুরুল হক স্যারের কথা। তাঁরা আমাদের জ্ঞানার্জন ও সৃজনশীলতার পথ প্রদর্শক । আমরা মন্ত্রমুগ্ধের মত তাঁদের কথা শুনতাম। তাঁরা হলেন আমাদের জন্য অনুকরণীয় আদর্শ। এই সব আদর্শ শিক্ষকদের কেউ আজ আর বেঁচে নেই, রয়েছে শুধুই স্মৃতি। (চলবে)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর