কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জ আমার প্রিয় জন্মভূমি


 মু আ লতিফ | ৩ জুলাই ২০১৯, বুধবার, ৯:৪৩ | আমাদের কিশোরগঞ্জ 


আমাদের সব স্মৃতিই কিন্তু মরে যায় না। অনেক স্মৃতি মনের অলিন্দে জ্বল জ্বল করে। আমার স্কুল জীবনের কথা মনে পড়লে মতিয়ুর রহমান স্যারের কথা বেশ মনে হয়। মনে পড়ে আহাদ স্যার, ফজলুল বারী স্যার, রমজান আলী স্যার, আশরাফউদ্দিন স্যার, অরুণ বাবু স্যার, আবদুল হাফিজ স্যারসহ আরো অনেকের কথা।

ওই সময় আজিমউদ্দিন হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক ছিলেন মো. মতিয়ুর রহমান। তিনি ছিলেন একজন দক্ষ প্রশাসক, আদর্শ শিক্ষক ও বিচক্ষণ ব্যক্তি। স্কুলের উন্নয়ন ও লেখাপড়ার মানোন্নয়নে তাঁর নিরলস প্রচেষ্টা ছিল। তাছাড়া শিক্ষার সাথে সংস্কৃতিচর্চা ও ক্রীড়ার উন্নয়নেও তিনি গুরুত্ব দিতেন। তাঁরই আগ্রহে স্কুলে প্রতি বছর রবীন্দ্র ও নজরুল জয়ন্তি উদযাপন করা হতো। ক্রীড়া ক্ষেত্রেও তাঁর সমান আগ্রহ দেখা যেত।

আমরা স্কুলে ‘সবুজ কাফেলা’ নামে দেয়াল পত্রিকা বের করতাম। এজন্যে তিনি আমাদের খুব স্নেহ করতেন। তাঁর উৎসাহের কারণে আমরা বিশেষভাবে উদ্দীপ্ত ও অনুপ্রাণিত বোধ করতাম। তাঁর নির্দেশে স্কুলে শিক্ষার্থীদের নিয়ে কবিতা আবৃত্তি ও বিতর্ক প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হতো। তাঁর সময়ে আজিমউদ্দিন হাই স্কুল শিক্ষা, সংস্কৃতি ও ক্রীড়া ক্ষেত্রে যথেষ্ট সুনাম অর্জন করেছিল।

মুক্তিযুদ্ধকালীন এক সময় মেজর সফিউল্লাহর নেতৃত্বে এই স্কুলে একদল সৈনিক ক্যাম্প স্থাপন করেছিলেন। মুক্তিযুদ্ধে স্যারের কনিষ্ঠপুত্র আতিক ভৈরবে হানাদার বাহিনীর সঙ্গে সম্মুখযুদ্ধে শাহাদাৎ বরণ করেন। স্বাধীনতার পর খড়মপট্টিতে ‘শহীদ আতিক যাদুঘর’ প্রতিষ্ঠা করা হলেও তা কেন জানি টিকে থাকেনি।

স্যার স্কুলের চারপাশে প্রচুর পরিমাণে নানা জাতের বৃক্ষরোপণ করেছিলেন-যার সুফল এখনো স্কুল কর্তৃপক্ষ ভোগ করছে। এক সময় তিনি স্কুল আঙ্গিনায় বিশেষ জাতের  তুলার চাষ করেছিলেন। সম্ভবত ১৯৭৮ সালে প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান রেল পথে কিশোরগঞ্জ হয়ে ময়মনসিংহ যাওয়ার সময় কিশোরগঞ্জ রেল স্টেশনে স্যার সেই তুলা প্র্রেসিডেন্টকে উপহার দিলে জিয়া খুবই খুশি হন এবং স্যারকে এজন্যে দশহাজার টাকা পুরস্কার প্রদান করেন।

স্কুলে প্রবেশ পথের দু’পাশে ছিলো ফুলের বাগান। বাগানে গোলাপ, বেলি, গন্ধরাজ, গাদা, সূর্যমুখী, টগর, ডালিয়া, হাসনাহেনাসহ নানা জাতের ফুলের গাছ ছিলো। স্কুলে বেশ ক’টি কদমফুলের বৃক্ষও ছিল। মতিয়ুর রহমান স্যার নিজেই বাগানের তদারকি করতেন। কত সুন্দর ছিলো বাগান ও এর পরিবেশ।

আমাদের সময়ের ওই সকল মহৎপ্রাণ, চিন্তাশীল ও উদার মনের শিক্ষকদের কথা মনে হলে বুক ভরে যায়। স্যারেরা শুধু পাঠ্য পুস্তকই পড়াতেন না। পরিবারের খোঁজ-খবর নিতেন। জীবনকে গড়ে তুলবার জন্য মূল্যবান নানা উপদেশও দিতেন।

সৈয়দ ফজলুল বারী স্যার ছিলেন আমাদের ক্রীড়া শিক্ষক। ক্লাস শুরুর আগে তিনি প্রতিদিন ছাত্রদের পিটি করাতেন। প্রতিদিন তাঁর বাঁশির ফুতে আমরা ক্লাস থেকে বেরিয়ে এসে কম্পাউন্ডে জমায়েত হতাম এবং সারিবদ্ধভাবে রেলস্টেশনের দিকে মুখ করে দাঁড়াতাম পিটি করার জন্য। মনে হতো সমস্ত স্কুলটিই যেন তাঁর নির্দেশের জন্য একত্রিত হয়েছে।

তিনি যখন তেজোদৃপ্ত কন্ঠে বলতেন ‘চেস্ট আউট, লুক ফরোয়ার্ড’, স্টেশনের দিকে তাকাও’- আমাদের বুক তখন সাহস ও  সম্ভাবনায় ভরে উঠতো। ওই সময় কিশোরগঞ্জ খেলার মাঠে (বর্তমান পুরাতন স্টেডিয়াম) আন্তঃস্কুল ফুটবল খেলায় যেদিন আমাদের স্কুলের খেলা থাকতো সেদিন স্যার মাঠে উপস্থিত থাকতেন। বিশেষ করে কিশোরগঞ্জ বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের সাথে যেদিন প্রতিদ্বন্দ্বিতা হতো সেদিন তিনি কখনো চেয়ারে বসে খেলা দেখতেন না। সারাক্ষণ খেলোয়াড়দের উৎসাহ দিয়ে যেতেন। আর বিজয়সূচক গোল হলেই হকারের কাছ থেকে বাদাম কিনে চিবোতে শুরু করতেন।

স্যারের ছোট ছেলে সৈয়দ আজিজুল বারী এক সময় ইত্তেফাকের কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি ছিল। এক সাথেই আমরা কাজ করতাম। বর্তমানে সে যুক্তরাষ্ট্রে রয়েছে। গত ২০১৮ সালে আজিজুল বারী দেশে এসেছিলো। আমার সঙ্গে দেখা করেছিলো। আমার লেখা বেশ কয়টি বই সংগ্রহ করে আমেরিকায় নিয়ে গেলো।

স্যারের বড় ছেলে সৈয়দ ইরফানুল বারী মজলুম জননেতা মাওলানা ভাসানীর একান্ত সহচর ছিলেন। এক সময় টাঙ্গাইল থেকে প্রকাশিত ও জনপ্রিয় ‘সাপ্তাহিক হক কথা’র তিনি সম্পাদক ছিলেন। আমিও তখন ওই পত্রিকার কিশোরগঞ্জ সংবাদদাতা ছিলাম। সৈয়দ ইরফানুল বারী ২০১৮ সালের এপ্রিল মাসে ‘ভাসানী সমীপে নিবেদন ইতি মাওলানা ভাসানীকে লেখা চিঠিপত্র-১৯৬৯-১৯৭৬ এই নামে তাঁর সম্পাদিত একটি গ্রন্থ আমাকে পাঠান। গ্রন্থের মলাটে তিনি লিখেছেন, গবেষক লেখক মু আ লতিফ-কে সস্নেহে সকাতরে দিলাম’ সৈয়দ বারী ১৬.০৪.২০১৮।

গ্রন্থটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ ও মূল্যবান। এর মধ্যে রয়েছে জননেতা ভাসানীকে লেখা পারিবারিক পত্র, বঙ্গবন্ধুসহ দেশ বিদেশের রাষ্ট্রনেতা ও  রাষ্ট্রদূত এবং বহু গুণীজনদের চিঠিপত্র।

আজ বারী স্যার নেই, সেই আজিমউদ্দিন হাই স্কুলও আগের  মতো নেই। স্কুলের  ছায়াঘেরা সুনিবিড় পরিবেশ আর শিক্ষকদের স্নেহসিক্ত হয়ে ওঠার লোভনীয় দিনগুলোও হারিয়ে গেছে। দিগন্তবিস্তারি নীলাকাশ, বিরাট খেলার মাঠ এবং প্রকৃতির উজার করে দেয়া নৈসর্গিক পরিবেশ আজ যেন অধরা।

আরো একজন শিক্ষকের কথা আমার বলতেই হয়, তিনি হলেন আমার প্রিয় শিক্ষক রমজান আলী স্যার। তিনি ছিলেন স্কাউটিং-এর শিক্ষক। মানুষের সেবার ব্রতে উজ্জীবিত একজন স্কাউটারের পথিকৃত। স্যারের এক ছেলে আহসানুল মুজাক্কিরও একজন নিবেদিত স্কাউট লিডার। আইন পেশার পাশাপাশি পিতার পদাংক অনুসরণ করে চলেছেন নিরলসভাবে। স্যারের আর এক পুত্র আশরাফুল মুসাদ্দেক, সরকারের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা। তিনি একজন সংস্কৃতিমনা ব্যক্তি, কবিতা লিখেন এবং তাঁর  কটি  বইও প্রকাশিত হয়েছে ইতোমধ্যে।

কিশোরগঞ্জ আমার জন্মভূমি-আমার প্রিয় শহর। এর আলো-বাতাস, মাটি, বৃক্ষ-লতা, নদী ও প্রকৃতির স্পর্শে আমি বড় হয়েছি। আমার হাসি-কান্না, সুখ-স্বপ্ন এই কিশোরগঞ্জের মাটি ও মানুষকে ঘিরেই পল্লবিত এবং বিকশিত হয়েছে। এখানকার বহু গুণী মানুষের সান্নিধ্য আমাকে শিক্ষায়, সৃজনশীলতা চর্চায় সমৃদ্ধ করেছে। সারাটা হৃদয় জড়িয়ে রয়েছে আমার প্রিয় এই কিশোরগঞ্জ।

এ প্রিয় জন্মভূমির অনেক কিছুই আজ বদলে গেছে। এক সময়ের খরস্রোতা নরসুন্দার আজ হতশ্রী অবস্থা। শহরের মাঝ দিয়ে নদীটি পূর্বে করিমগঞ্জ হয়ে ভাটিতে চলে গেছে। অন্যদিকে দক্ষিণে যশোদল হয়ে গচিহাটার ধুলদিয়া হয়ে আরো দক্ষিণে এবং পশ্চিমে হোসেনপুরের ব্র‏হ্মপুত্রের সঙ্গে গিয়ে মিশেছে। এক সময় সারা বছরই এ নদী নাব্য থাকতো।

বর্ষায় এর দু’কূল ছাপিয়ে পানিতে থৈ থৈ করতো। বছর জুড়ে জেলেরা নদীতে মাছ শিকার করতো। নদীর এখানে ওখানে মাছ ধরার খড়া দেখা যেতো। পালতোলা নৌকার ছলাৎ ছলাৎ শব্দ, মাঝির কন্ঠে ভাটিয়ালি সুর, ঘাটে ঘাটে নোঙর করা অসংখ্য নৌকায় সন্ধ্যা প্রদীপের অপরূপ ও মোহনীয় দৃশ্য সবই আজ বিস্মৃতির গহ্বরে হারিয়ে গেছে। গৌরাঙ্গবাজারের জ্ঞানদা সুন্দরি পুলের ওপর থেকে তরুণ-যুবকদের খরস্রোতা নদীতে ঝাঁপিয়ে পড়ার দৃশ্য আবার কখনো কি দেখা যাবে?

নরসুন্দার দুর্দশা দেখে কিশোরগঞ্জের প্রতিটি সচেতন মানুষ শংকিত। ঢাকাস্থ কিশোরগঞ্জ সমিতির পক্ষ থেকেও বহুবার এ ব্যাপারে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়েছে। সমিতির এককালীন মহাসচিব (পরে সভপতি) প্রকৌশলী মুহাম্মদ ইউসুফ নরসুন্দাসহ কিশোরগঞ্জের উন্নয়নে বহুবার সভা সমাবেশসহ বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেন। কিশোরগঞ্জ প্রেসক্লাবে স্থানীয় সূধি সমাজকে নিয়েও তিনি বৈঠক করেছেন। এক সময় পৌর মেয়র আবু তাহের ও সাংস্কৃতিক কর্মী অসীম সরকার বাধনের নেতৃত্বে ‘নরসুন্দা বাঁচাও’ ব্যানারে আন্দোলন হয়েছে। মানববন্ধন, অনশন, বিক্ষোভ সমাবেশ ও হরতাল কর্মসুচি পালন করা হয়েছে নরসুন্দাকে বাঁচাতে। প্রিন্সিপাল শরীফ সাদীর পরম নরসুন্দাকে বাঁচাতে সংগ্রাম করেছে। সবই হয়েছে, রক্ষা হয়নি কিশোরগঞ্জের ঐতিহ্য নরসুন্দা। এর সঙ্গে বাঁচেনি এ শহরের বহু জলাশয়, খাল-বিল ও পুকুর।

আমদের মহল্লা জামেয়া সড়কের উত্তরে কানিকাটার দক্ষিণ-পশ্চিমের প্রায় সবটাই ছিলো বিল। আষাঢ়-ভাদ্রে বিলের জলে শাপলা-শালুকের খোঁজে হানা দিয়েছি বার বার। বিলের পাশের ঝোপ-ঝাড় ও বাঁশ বাগানের সঙ্গে সখ্যতা গড়ে আমি বেড়ে ওঠেছি নীলাকাশের নিচে। আমাকে ঘিরে ছিল নদী, খাল-বিল, দিগন্তবিস্তারি মাঠ, খোলা আকাশ, আম-কাঁঠালের বাগান আর সবুজের সমারোহ।

কানিকাটা আর রেল লাইনের পশ্চিমের বিল-ঝিল আজ  হয়েছে উকিল পাড়া। উকিল পাড়ার সড়কে দাঁড়ালে পূবের সেই রেল লাইন এখন আর চোখে পড়ে না। কু.. ঝিক ঝিক শব্দ করে রেলগাড়িও চলে না। এসব কথা মনে  হলেই হৃদয়ে কাঁপন ধরে, আর বুকে হুহু করে উঠে।

আমার তখন মাকে খুব মনে পড়ে। মনে পড়ে পাড়া পড়শিদের। আমি কেবলি মাকে খুঁজি; খুঁজি আর্ত মানবতার সেবায়, নিস্পাপ শিশুর হাসিতে, সবুজের সমারোহে, দিগন্ত বিস্তারি আকাশের তারায় তারায়, মানুষের ভালোবাসায় এবং প্রতিটি সৎকাজের সহমর্মিতায়। আমি মাকে খুঁজে পাই যেন আমার সন্তানের মাঝেই। (চলবে)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর