কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ছেলেবেলার রথখোলা


 মু আ লতিফ | ৪ জুলাই ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৮:৪২ | আমাদের কিশোরগঞ্জ 


কিশোরগঞ্জের কত স্মৃতি প্রাণের মাঝে লুকিয়ে রয়েছে। আমাদের রথখোলার কথা বেশ মনে পড়ে। একসময় রথখোলার রথযাত্রা উৎসবের সুনাম ছিল। এখানে রথযাত্রার সঙ্গে রথমেলাও বসতো। এটি ধর্মীয় উৎসব হলেও শেষ পর্যন্ত এটি সর্বজনিন উৎসবে পরিণত হয়েছিলো।

এখানে দলে দলে শিশু-কিশোররা ছুটে যেতো। ছোটরা যেতো খেলনা পুতুল বুড়াবুড়ি কিনতে, আবার অনেকেই যেত মুড়ি-মুড়কী ও বাতাসা, জিলাপি কিনার জন্য। রথমেলায় থাকতো নানা জাতের পাখি। শালিখ, ময়না, টিয়া, ঘুগু, দোয়েল এবং বুলবুলিসহ নানা রকমের পাখির সমারোহ। পাওয়া যেত হাতি, ঘোড়া, গরু, বাঘ, সিংহসহ নানা জাতের মাটির তৈরি হস্তশিল্প। এসবই শিশু-কিশোরদের আকর্ষণের কেন্দ্র ছিল।

এছাড়া থাকতো নানা বিনোদনের আয়োজন। থাকতো চরকগাছ, পুতুল নাচ, বাক্সবন্ধী একধরণের বাইস্কোপ ও সার্কাস পার্টি। সার্কাসে ছেলেরা ও মেয়েরা শরীরচর্চার নানা কসরত দেখাতো। একটি কাঠের তৈরি গোলাকার চৌবাচ্চার ভেতর সাইকেল চালানোর চ্যালেঞ্জিং খেলাটি তখনকার দিনে খুবই উত্তেজনাপূর্ণ ও উপভোগ্য ছিল। সার্কাস দলের মধ্যে একজন জোকার থাকতেন। তিনি বেশ মজার মজার খেলা দেখিয়ে ও কৌতুক শুনিয়ে দর্শকদের হাসিতে ভরিয়ে দিতেন।

উৎসবটি হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের হলেও বাঙালির কৃষ্টি ও ঐতিহ্যের এক মিলনমেলায় রূপ নিয়েছিল। জমিদার বিরাজ মোহন রায়ের বাড়ির আঙ্গিনায় ছোট মাঠটিতে রাখা হতো রথ। রথটির যাত্রার সময়  তার উপর বর্ষণ করা হতো কলা, বাতাসা ও নানা জাতীয় ফল। এসময় হিন্দু-মুসলিম উভয় শ্রেণির উৎসুক দর্শকদের মধ্যে শুরু হতো এসব কুড়ানোর প্রতিযোগিতা।

আসলে এটা ছিল এক আনন্দঘন মুহূর্ত।  যদিও তখনকার দিনে উচ্চ বর্ণের অনেক হিন্দুদের মধ্যে সাম্প্রদায়িক সংকীর্ণতা লক্ষ্য করা যেতো। তবে সাধারণের মাঝে এর তেমন কোন প্রভাব ছিল না। ফলে হিন্দু-মুসলিম উভয় শ্রেণির মানুষের পদভারে রথখোলা মুখরিত হয়ে উঠতো।

তৎকালে উচ্চ বর্ণের হিন্দুদের অনেকেই নিম্ন বর্ণের হিন্দুদের অবহেলার চোখে দেখতেন। তারা নিজেদেরকে সব সময় আলাদা করে রাখতে পছন্দ করতেন। এক শ্রেণির মুসলমানদের মধ্যেও এটা প্রকট ছিলো। তারা নিজেদেরকে সম্ভ্রান্ত ও অন্যদের খাটো ভাবতেন।

এছাড়া কিছু মানুষ হিন্দুদের সম্পদ দখল করার উদ্দেশ্যে সাম্প্রদায়িকতা ছড়াতেন। এরা রাজনীতির মোড়কে দাঙ্গা সৃষ্টির চেষ্টা করতেন। বর্তমানেও এমনি একটি শ্রেণি রয়েছে তারা প্রভাবশালী ও ক্ষমতাবান। এরা সংখ্যায় কম হলেও স্বার্থের কারণে সংঘবদ্ধ ও শক্তিশালী। এখনো তারাই এসব অঘটন ঘটায়। বৃহৎ জনগোষ্ঠী কখনো এটা চায় না। তারা অসাম্প্রদায়িক ও শান্তি প্রিয়। বিপদের দিনে তারাই অসহায়দের পাশে এসে দাঁড়ায়। নষ্টদের শক্তি কারা যোগায় সবাই জানলেও কেউ বলতে সাহস পায় না।

যাক আগের কথায় ফিরে আসি। কিশোরগঞ্জের রথখোলার রথউৎসব ও রথমেলা বহুকাল ধরে এতদঞ্চলে প্রসিদ্ধ ছিলো। এখানে হিন্দু-মুসলিম মিলেমিশেই উৎসব পালন করেছে।  কিন্তু আজ সেই ঐতিহ্য অনেকটাই অতীত স্মৃতিমাত্র।

রথখোলার ভিন্ন আরো একটি পরিচয় রয়েছে। রথখোলাকে রাজনীতির চারণভূমি বলা যায়। প্রতিটি গণতান্ত্রিক আন্দোলন, স্বাধীনতা ও মুক্তির জয়গান উচ্চারিত হয়েছে এ মাঠ থেকেই। ব্রিটিশ ও পাকিস্তানি শোষণের বিরুদ্ধে তৎকালীন প্রাজ্ঞ রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ জনসাধারণকে দিক নির্দেশনা দিয়েছেন এ মাঠে অনুষ্ঠিত জনসভা থেকেই।

উনসত্তর, সত্তর এর উত্তাল দিনগুলোতেও রথখোলা ছিলো রাজনীতিবিদদের প্রাণকেন্দ্র। পাকিস্তানি শাসন ও শোষণের বিরুদ্ধে এখানে রাজনীতিবিদরা জনসভা করেছেন। বিরাট সব জনসভায় গণতন্ত্র ও বৈষম্যহীন সমাজ-রাষ্ট্র গড়ে তোলার এখান থেকেই শপথ নেয়া হয়েছে। ঐতিহ্যবাহী রথখোলার অস্তিত্ব এখন সংকটে। এটি ছোট হতে হতে প্রায় নিঃশেষ হতে চলেছে।

রথখোলা এলাকার বেশ ক’জন ব্যক্তির কথাও আমার বেশ মনে আছে। আমার মনে পড়ে আদর্শ শিক্ষক মো. আবদুল কাইয়ুম, মৌলভী আফতাব উদ্দিন আহমদ, বিরাজ মোহন রায়, শৈলেন্দ্র শেখর সরকার, ডা. জেবি রায়, মানিক কাজীসহ আরো অনেকের কথা।

এরা তৎকালে শিক্ষা ও সামাজিক বিভিন্ন উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করেছেন, এর সুফল আমরা এখনো ভোগ করছি। কালের ইতিহাসে রথখোলার মর্যাদা যেমন অপরিসীম তেমনি তৎকালীন বিশিষ্ট ব্যক্তিদেরও মানুষ ভুলবে না। (চলবে)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর