কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


স্মৃতি বিস্মৃতির লোকালয়


 মু আ লতিফ | ৫ জুলাই ২০১৯, শুক্রবার, ৮:৫১ | আমাদের কিশোরগঞ্জ 


কিশোরগঞ্জ বদলে গেছে এবং ক্রমেই বদলে যাচ্ছে। পৃথিবী বদলে যাচ্ছে। এটাই তো স্বাভাবিক। মানুষ বদলাচ্ছে, মানুষের চরিত্র বদলে যাচ্ছে। আবহাওয়া-প্রকৃতি, মানুষের চিন্তা-চেতনা এবং জ্ঞান-বিজ্ঞানের সর্বত্রই পরিবর্তন ঘটছে। একদিন আমাদের পূর্ব পুরুষেরা যা ভাবতেন এখন আমরা তাদের অনেক কিছুই পরিহার করছি।

একদিন কিশোরগঞ্জ শহর যেমন ছিল, আজকের কিশোরগঞ্জ সেদিনের স্থানে নেই। মানুষের অগ্রগতির সঙ্গে সঙ্গেই সব বদলে যাচ্ছে। তবু এই বদলে যাওয়ার এবং ক্রমবিবর্তনের মাঝেও মানুষ তার অতীত জানতে আগ্রহ বোধ করে। পুরনো দিনের কথা শুনতে মন চায়। অতীত স্মৃতি সবাইকে আপ্লুত করে, আলোড়িত করে।

ধরুন, কিশোরগঞ্জ শহরের খড়মপট্টি আগে কেমন ছিল আমাদের জানতে ইচ্ছে করে। পূর্বে কেমন ছিল আমাদের অনেকেরই বিশেষ করে নতুন প্রজন্মের তা জানা নেই। মহল্লাটি একদিন এত প্রশস্ত ছিল না। এত লোকালয়ে পরিপূর্ণও ছিল না। আবার খড়মপট্টি নাম হওয়ার পেছনে কী কারণ আমরা তাও জানতে পারিনি।

সুনির্দিষ্ট কোন ঐতিহাসিক সাক্ষ্যপ্রমাণ না থাকায় এ সম্পর্কে তেমন কিছুই জানি না আমরা। বয়স্করাও বিভিন্নভাবে অস্পষ্ট অনেক কিছু বললেও এর পেছনে জোরালো কোন যুক্তি দাঁড় করাতে পারেন না। মুলত: খড়মপট্টি নামের যুক্তিগ্রাহ্য ও তথ্যনির্ভর কোন প্রমাণ নেই বললেই চলে। তারপরও অনুসন্ধিৎসু মানুষের ভাবনার শেষ নেই।

মুসলিমলীগ নেতা এমএনএ মরহুম আব্দুল আলী মেনু মিঞা (মর্ত্তুজা ভিলা) ও বর্তমানে ঢাকায় কর্মরত বিশিষ্ট সাংবাদিক এডভোকেট আলী আসগর স্বপনের দাদা আলী মাহমুদ তাঁদের সময়েরও আরো আগের কথা। বর্তমান আওয়ামী লীগ অফিস সংলগ্ন ভবনটি ছিল ক্ষিরোদ গোবিন্দ মহানবিশের বাসভবন। খড়মপট্টি এলাকায় অনেক আইনজীবীর বাস ছিলো। তাঁরা বিকাল বেলায় এই বাসস্থানেই গল্পের আসর জমাতেন। সেই ব্রিটিশ আমলে দেশ-বিদেশ, সংসার কর্ম ও রাজনীতিসহ বিভিন্ন বিষয়ে তাদের মধ্যে সারগর্ভ আলোচনা হতো। তাছাড়া বহু রসালাপের কথা আজও শোনা যায়। যতদূর জানা যায়, প্রাত:ভ্রমণ ও আড্ডার সময় সে আমলে বিশিষ্ট ব্যক্তিদের সবার পায়েই থাকতো বউলাখড়ম।

বর্তমান প্রেসক্লাব ছিল তৎকালীন উকিল ক্ষিতিশ রায়ের বাসভবন। তিনি ছিলেন নিঃসন্তান। তার বাড়িটিতে ছিল প্রচুর ফল গাছে পরিপূর্ণ। এছাড়া বাসভবনে ছিলো সুন্দর ফুলের বাগান। ওই সময়কার অশ্বিনী মজুমদারের টিনের বাসস্থানে এখন সুরম্য অট্টালিকা শোভাবর্ধন করছে। এখানে বর্তমানে দাঁড়িয়ে রয়েছে বাইতুন নিলুফার ও গ্রামীণ ব্যাংক। অনেকেই এটিকে এখন ডেনমাকের্র বাসভবন বললেই চেনে।

অশ্বিনী মজুমদার ছিলেন একজন উকিল। ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধে তাঁর দুই ছেলেকে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী নির্মমভাবে হত্যা করে। একজনের নাম প্রদীপ মজুমদার, সে গুরুদয়াল কলেজের ছাত্র ও  অপরজন সূদীপ মজুমদার সে কিশোরগঞ্জ হাই স্কুলের ছাত্র ছিলো। নিরপরাধ, নিষ্পাপ, সম্ভাবনাময় দুটি ভাইয়ের এই হৃদয়বিদারক হত্যার ঘটনা কিশোরগঞ্জের মানুষ কখনো ভুলবে না। এরা পশু ও বর্বর, ধর্মের নাম করে যে কোনো অধর্ম করতে তারা পারঙ্গম।

খড়মপট্টিতে বাস করতেন মরহুম মোহাম্মদ ইসরাইল। সেটি সম্ভবত খড়মপট্টির প্রথম মুসলিম পরিবার। তিনি প্রথমে সরকারি পুলিশ কর্মকর্তা ছিলেন। পরে তিনি আমৃত্যু কিশোরগঞ্জ বারে উকালতি করেছেন। নীলগঞ্জ মোড়ের শোলাকিয়া জামে মসজিদটির জন্য তিনি জমি দান করে যান। এ মসজিটিই খড়মপট্টি এলাকার প্রথম মসজিদ। এর আগে অত্র এলাকায় কোন মসজিদ ছিল না।

তাঁর ছোট সন্তান এটিএম সফদার জিতু এখন মসজিদের মোতাওয়াল্লি। তাঁর বড় সন্তান শহীদ লে. কর্নেল এটিএম হায়দার (বীর উত্তম) মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম বীর সেনানী। মুক্তিযুদ্ধকালীন বঙ্গবন্ধুর অবর্তমানে যিনি ৯ মাস নেতৃত্ব দিয়েছিলেন তিনি কিশোরগঞ্জের কৃতী সন্তান শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম। তাঁর জন্য আমরা গর্বিত। তেমনি পাকিস্তানি আর্মী ১৯৭১ সালের ১৬ই ডিসেম্বর ঢাকার রেসকোর্সে যখন আত্মসমর্পণ করেছিল তখন কিশোরগঞ্জের সন্তান তৎকালীন মেজর এটিএম হায়দার সেখানে উপস্থিত ছিলেন। তিনিও আমাদের অহংকার।

তাঁরই বোন ক্যাপ্টেন ডা. সিতারা বেগম (বীর প্রতীক) মুক্তিযুদ্ধকালীন ‘বাংলা হাসপাতাল’ পরিচালনার মাধ্যমে আহত মুক্তিযোদ্ধা, সৈনিক ও সাধারণ মানুষের চিকিৎসাসেবায় যে অসামান্য ভূমিকা পালন করেছেন তা মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে সোনালি পালক হয়ে থাকবে। শহীদ এটিএম হায়দারকে খড়মপট্টিতেই নীলগঞ্জ মোড় মসজিদ সংলগ্ন স্থানে কবরস্থ করা হয়েছে।

খড়মপট্টির আর এক কৃতী সন্তান শহীদ খায়রুল জাহান বীর প্রতীক। তাঁর পিতা হলেন আলহাজ্ব আবদুল হাই তালুকদার। মুক্তিযুদ্ধকালীন ১৯৭১ সালের ২৬ নভেম্বর প্যারাভাঙ্গা এলাকায় হানাদার বাহিনীর সঙ্গে অসম সাহসীকতার সঙ্গে  সম্মুখযুদ্ধে শাহাদৎ বরণ করেন। তাঁর স্মৃতি রক্ষার্থে শহীদ খায়রুল স্মৃতি সংসদ হয়েছে। প্যারাভাঙ্গায় তাঁর স্মরণে স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ করা হয়েছে।

খড়মপট্টি সরকারি পুকুর পারের পশ্চিমে থাকতেন ডা. প্রফুল্লবীর। তিনি একাধারে চিকিৎসক ও রাজনৈতিক নেতা ছিলেন। তিনি পৌরসভার চেয়ারম্যান হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন। পরে এখানে বসবাস করতেন গুরুদয়াল কলেজের বাংলার শিক্ষক প-িত নরেন্দ ্রচন্দ্র ঘোষ। আমি যখন নরসুন্দা পত্রিকা সম্পাদনা করি তখনও স্যারের লেখা আনতে ও তাঁর পরামর্শ নিতে এ বাসায় যেতে হয়েছে।

খড়মপট্টিতে মসজিদুল আমান নামে যে মসজিদটি নির্মাণ করা হয়েছে এখানে থাকতেন ভাটির বাসিন্দা মো. ইসহাক ভুইয়া। তিনি একজন ধর্মপ্রাণ মুসলিম ছিলেন। তিনি তাঁর বাসার সামনেই এ মসজিদের জন্য জমি দান করেছেন।

মনে আছে, তাঁর বাড়ির সামনে একটি বকুল ফুলের বৃক্ষ ছিল। ছোট বেলায় ভোরে উঠে ফুল কুঁড়াতে সেই বৃক্ষের নিচে যেতাম। বকুল ফুলের সুভাস আমাদের মোহিত করতো। হিন্দুরা বকুল ফুল কুঁড়িয়ে নিতেন পুঁজোর জন্য। এ বাড়িটির আগেকার মালিক ছিলেন প্রকাশ নন্দী। এ মহল্লার বাসিন্দা ছিলেন নাজীরুল হোসেন চৌধুরী। তিনি ছিলেন একজন ধর্মপ্রাণ ব্যক্তি। পেশায় ছিলেন একজন মোক্তার। তাঁরই সন্তান এডভোকেট আমিনুল ইসলাম চৌধুরী ফেরদৌসের কথাও মনে পড়ে। ফেরদৌস ছিল খুবই প্রাণবন্ত। প্রেসক্লাব, খেলাঘর আসর, ছাত ইউনিয়ন ও সাংস্কৃতিচর্চায় ছিল সক্রিয়।

খড়মপট্টির উত্তর-পূর্ব প্রান্তে (নীলগঞ্জ মোড়) আরো বাস করতেন আবু সাঈদ মো.ওয়াহিদ খান ধনু মিয়া। তিনি পাকিস্তান আমলে নেজামে ইসলাম পার্টি থেকে প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। আইয়ুব বিরোধী আন্দোলনের সময় তিনি পদত্যাগ করেন। তাঁরই সন্তান একে নাসিম খান এখন একজন সিনিয়র সংবাদকর্মী।

আরো একজনের কথা বিশেষভাবে উল্লেখ করা যায়। তিনি হচ্ছেন মরহুম আবদুল কদ্দুস উকিল। তিনি ১৯৭০ এর নির্বাচনে আওয়ামীল থেকে প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন এবং মুক্তিযুদ্ধকালীন ভারতে চলে যান। দেশ স্বাধীন হলে তিনি ১৯৭৩ সালে আবারও করিমগঞ্জ-তাড়াইল থেকে এমপি নির্বাচিত হন। তিনি কিশোরগঞ্জ মহকুমা আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলেন।

এখানে একটা বিষয আমি উল্লেখ করার লোভ সম্বরণ করতে পারছি না। তাই উল্লেখ করছি। হঠাৎ একদিন কদ্দুস সাহেব (আমি তাঁকে কাকু ডাকতাম) আমার বাসায় এসে উপস্থিত হন। তাঁর সঙ্গে মযমনসিংহ থেকে প্রকাশিত ‘দৈনিক ইনসাফ’ পত্রিকার সম্পাদক শেখ নুরুদ্দিন সাহেব। সম্পাদক সাহেবকে আমি চিনতাম না। পরিচিতি পর্বের পর কাকু আমাকে বলেন, তোমাকে ওই পত্রিকার কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধির দায়িত্ব নিতে হবে। যেখানে সম্পাদক সাহেব নিজে এসেছেন এবং সেই সঙ্গে কাকুর মত একজন সম্মানী ও গুরুজন আমাকে আদেশ করেছেন- তাই আমি তাঁদের আদেশ মেনে নেই,কারণ সেটা ছিলো আমার জন্য সৌভাগ্যও বটে।

সেই দিনের কথা আজো আমি ভুলতে পারি নাই। আজীবন তা আমার জন্য স্মরনীয় হয়ে থাকবে। তাঁরই সন্তান এডভোকেট রুহুল কদ্দুস সেলিম বর্তমানে বাংলাদেশ টেলিভিশনের কিশোরগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি।

আওয়ামী লীগের কিশোরগঞ্জ জেলার সাধারণ সম্পাদক ছিলেন মহিউদ্দিন আহমদ। তিনিও খড়মপট্টির বাসিন্দা। গণতান্ত্রিক আন্দোলনে ও মুক্তিযুদ্ধের বলিষ্ঠ সংগঠক হিসেবে তিনিও স্মরনীয় হয়ে থাকবেন। তাঁরই নাতি সাকাউদ্দিন আহমদ রাজন একজন সংবাদকর্মী।

খড়মপট্টির বুলবুল ভিলা একটি সুপরিচিত নাম। এ বাড়ির বিরাট পুকুরটি আজ নেই। এর মালিক দুদু ভুইয়াও নেই। জানাযায়, এটি পূর্বে ছিল উকিল রুহিনী চক্রবর্তীর বাড়ি। পরে এর মালিক হন হাওরের বাসিন্দা দুদু ভুইয়া। তিনি তার ছেলের নামে বাড়ির নাম রেখেছিলেন ‘বুলবুল ভিলা’। দুদু ভূইয়া সবসময় পরিপাটি থাকতে ভালোবাসতেন। তার পুত্র বুলবুলও তারই মত সৌখিন ব্যক্তি। বর্তমানে বুলবুল ঢাকায় থাকে। এসবই আমাদের সোনালি অতীত। কোনদিন এ অতীত ভুলা যায় না। (চলবে)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর