কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


বাই-সাইকেলে বাংলাদেশ ভ্রমণে বের হয়েছেন পাকুন্দিয়ার হিমেল


 স্টাফ রিপোর্টার | ৬ জুলাই ২০১৯, শনিবার, ৭:৫৯ | বিশেষ সংবাদ 


‘রক্ত দিন, জীবন বাঁচান’ এই স্লোগান সবার মাঝে ছড়িয়ে দিতে বাই-সাইকেলে করে বাংলাদেশ ভ্রমণে বের হয়েছেন পাকুন্দিয়ার অনার্স পড়ুয়া শিক্ষার্থী হিমেল হক। শনিবার (৬ জুলাই) সকাল ৮টায় পঞ্চগড় জেলার তেঁতুলিয়ার বাংলাবান্ধা জিরো পয়েন্ট থেকে তিনি এই ভ্রমণ শুরু করেন।

তেঁতুলিয়া থেকে টেকনাফ পর্যন্ত তার এই ভ্রমণে সঙ্গী হিসেবে রয়েছেন নরসিংদী জেলার মনোহরদী উপজেলার কৃষ্ণপুর গ্রামের আতিকুল লিমন।

‘রক্ত দিন, জীবন বাঁচান’ প্রচারণায় বাই-সাইকেলে বাংলাদেশ পরিভ্রমণে বের হওয়া হিমেল হক পাকুন্দিয়া উপজেলার এগারসিন্দুর ইউনিয়নে খামা গ্রামের সন্তান।

কৃষক বাবা মস্তুফা কামাল এবং গৃহিণী মা  পারুল বেগমের দুই পুত্র সন্তানের মধ্যে হিমেল বড়। পাকুন্দিয়া সরকারি কলেজে অনার্স তৃতীয় বর্ষে পড়ছেন হিমেল।

বাই-সাইকেলে বাংলাদেশ পরিভ্রমণের বিষয়টি জানাতে গিয়ে হিমেল হক কিশোরগঞ্জ নিউজকে জানান, শখের বসে সাইকেল দিয়ে এদিক-সেদিক ঘোরাঘুরি করতে গিয়ে সাইক্লিং এর প্রতি তার আগ্রহ তৈরি হয়। এরপর থেকে তিনি সাইক্লিং করে বিভিন্ন দর্শণীয় স্থানে ঘুরে বেড়াতে শুরু করেন।

একা একা কিছুদিন রাইড দেয়ার পর তার সাথে আরো অনেকেই যুক্ত হতে থাকে। এভাবেই আস্তে আস্তে তৈরি হয় এগারসিন্দুর সাইকেল রাইডার্স গ্রুপ।

হিমেল জানান, এক সময় তিনি চিন্তা করলেন, কেবল ঘোরাফেরার মধ্যে সীমাবদ্ধ না থেকে কিভাবে একটিকে জনকল্যাণমুখী করা হয়। এই ভাবনা থেকেই শুরু হয় জনসচেতনতামূলক কার্যক্রম।

এরপর থেকে যত সাইক্লিং করছেন, ততই দেশের প্রতি ভালবাসার মাত্রাটা বেড়েছে। কারণ সাইক্লিং এর মাধ্যমে তারা বিভিন্ন দর্শণীয় স্থান ঘুরে দেখার সুযোগ পাচ্ছেন।

সাইক্লিং এর ইতিবাচক দিক তুলে ধরতে গিয়ে হিমেল বলেন, এখকার তরুণ-তরুণীরা বিকৃত আনন্দে মশগুল হচ্ছে। রাত জেগে ইন্টারনেট ফেসবুকিং করে কাটিয়ে দিচ্ছে সময়। যা ভবিষ্যতের জন্য খুবই ভয়াবহ।

তবে সাইক্লিং করলে শরীর যেমন ভাল থাকে, ঠিক তেমনি মনটাও ভাল থাকে। আমরা চাই সব সময় মানুষের পাশে থাকতে এবং জনসচেতনতামূলক কাজ করতে। আর সেই চিন্তা থেকেই আমার এ ভিন্ন আয়োজন। রক্তদিন জীবন বাঁচান। এই স্লোগানে আমি তেতুলিয়া থেকে টেকনাফ পর্যন্ত সাইকেলে ক্রস কান্ট্রি রাইড দিচ্ছি।

হিমেল বলেন, তাদেরকে উল্লেখ করে আমাদের এ আয়োজন, যারা রক্তদানে উপযুক্ত, কিন্তু রক্ত দিতে ইচ্ছুক না। কারণ রক্তদানের সম্পর্কে তাদের দৃষ্টিভঙ্গি স্বচ্ছ নয়।

রক্তদানের ফলে মানুষের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বেড়ে যায় এবং তাতে যে অনেক উপকার তা অধিকাংশ মানুষ জানেন না। সেই প্রসঙ্গেই আমরা মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছি। জনস্মমুখে রক্তদানের ব্যপারে আলোচনা করছি।

হিমেল জানান, এই যাত্রায় তার সহযোগী হিসেবে রয়েছেন কবি নজরুল সরকারি কলেজের শিক্ষার্থী আতিক লিমন। এই ক্রস কান্ট্রি শেষ করতে তাদের ১০ দিন সময় লাগবে। এই সময়ে তাদের যে ব্যয় হচ্ছে, তা নিজেরাই বহন করছি।

হিমেল বলেন, কোন স্পন্সর পাওয়া গেলে আরো অনেক কিছুই তারা করতে পারতেন। দেশের জন্য দেশের মানুষের জন্য তাদের এই প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে বলেও হিমেল প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর