কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


শিসার অক্ষরে পত্রিকা বের করতাম


 মু আ লতিফ | ৬ জুলাই ২০১৯, শনিবার, ১০:১৬ | আমাদের কিশোরগঞ্জ 


কিশোরগঞ্জ মডেল থানা ও কালীবাড়ীর মাঝ দিয়ে উত্তর দিকে সড়কটি সোজা গিয়েছে সমবায় ভবনে। এটি আগে টিনের ঘর ছিলো। বর্তমান কমিউনিটি সেন্টারটিতে ছিলো মালটিপারপাস প্রেস। এর ম্যানেজার ছিলেন জনাব শামছুদ্দিন ভূইয়া। তিনি কসবার বাসিন্দা এবং ভালো মানুষ ছিলেন।

এখানে কম্পোজের কাজ করতেন শিমুল বাঁকের বোরহান উদ্দিন মল্লিক সাহেব ও মানিক হাসান। মল্লিক সাহেব গত হয়েছেন আর মানিক হাসান ঢাকায় নিজেই প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান চালাচ্ছেন।

আমার মনে আছে, কানাডা প্রবাসী শিবব্রত নন্দী, আক্কাস এরা মিলে ওইসময় এ প্রেস থেকে ‘দেয়াশলাই’ নামে একটি মিনি ম্যাগাজিন বের করেছিল। তৎসময় এসব প্রকাশনার কাজ যারা করতেন তারা সবাই চিন্তা-চেতনায় প্রগতিশীল ছিলেন।

আমি প্রথম ১৯৮১ সালে পাক্ষিক নরসুন্দা’র সম্পাদনা করতাম। এটির প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন ডা. ফজলুল করিম (সাবেক প্রতিমন্ত্রী)। তিনি আমাকে খুবই স্নেহ করতেন। পরে পত্রিকাটি বন্ধ হয়ে যায়।

সে সময় আমি আর আশুতোষ ভৌমিক (কবি) পত্রিকা প্রকাশের তারিখের আগের দিন ও সারারাত প্রেসে কাটাতাম প্রেস মেটার তৈরি করে এবং প্রুফ দেখে দেখে। সুবেহ সাদেকের সময় দু’জন প্রেসের বাইরে এসে নির্মল বাতাসে প্রাণ জুড়াতাম এবং কবিতার পঙক্তি আওড়াতাম।

ওই সময় পত্রিকা বের করতে হতো ট্রেডেল মেশিনে ও শিসার অক্ষরে কম্পোজ করে। বড় বড় হেড লাইন কাঠখুদাই করে  তৈরি করা হতো। মনে পড়ে এসব কাঠের ব্লক তৈরি করতে আমরা নিতাই রায়ের দ্বারস্ত হতাম। নিতাই বাবুর পিতা ছিলেন দেবেন্দ্র নাথ রায়। তিনি ছিলেন চাঁদসী চিকিৎসক। নিতাই আমাদের চাহিদা অনুযায়ী চমৎকারভাবে কাঠের ব্লক তৈরি করে দিতেন। আজ তিনি নেই কিন্তু তিনি তাঁর কাজের মাঝে বেঁচে আছেন।

যে কথা বলছিলাম, দিনরাত কাজ করে সকালে যখন পত্রিকা বের করা হতো সব কষ্টই আনন্দে পরিণত হতো। আশুর ধৈর্য্য আমাকে সাহস যোগাতো। এসময় আমাদের সঙ্গে নরসুন্দার নিবেদিত কর্মি ছিল পাকুন্দিয়ার হাসান ইমাম আরমান ও খড়মপট্টির আইনুল কবির চৌধুরী নাইরু। তাদের অকৃত্রিম ভালোবাসা ও সহযোগিতার তুলনা হয় না।

মনে পড়ে পাক্ষিক নরসুন্দার প্রথম (উদ্বোধনী) সংখ্যাটি বের করেছিলাম ঢাকার শিল্পতরু প্রেস থেকে। শিল্পতরু ছিল কবি আবিদ আজাদের (হাবিবুর রহমান) প্রতিষ্ঠান। রাতের এক পর্যায়ে আবিদ আমাকে বললো, লতিফ ভাই, সম্পাদকীয় কোথায়?

কী করা যাবে তাড়াহুড়া করে সে রাতে কি লিখেছিলাম আজ আর মনে করতে পারবো না। তবে ভালো যে হয়েছিল তা কিশোরগঞ্জ শিল্পকলা একাডেমি হলে অনুষ্ঠিত প্রকাশনা উৎসবেই বোঝা গিয়েছিল। সেদিনের প্রকাশনা উৎসবে তৎকালীন প্রতিমন্ত্রী ডা. ফজলুল করিম উপস্থিত ছিলেন।

ওই অনুষ্ঠানে সেদিন আরো একজন ছিলেন যার কথা আমার চিরকাল মনে থাকবে। তিনি বিশিষ্ট সাংবাদিক আকম রুহুল আমীন। তিনি ঢাকার পত্রিকা দৈনিক দেশ এর মফস্বল সম্পাদক ছিলেন। তাঁর অকৃত্তিম স্নেহ ও ভালোবাসার কথা ভুলা যায় না।

পরে আবার আমি ১৯৯৩ সালে সাপ্তাহিক নরসুন্দা প্রকাশ করি। এসময় সাংবাদিক সাইফউদ্দীন আহমেদ লেনিন, আনোয়ার হোসেন বাচ্চু, নূর মোহাম্মদ ও নান্দাইলের শাহ আলম ভূইয়া ছিল সাপ্তাহিক নরসুন্দার প্রাণ ও আমার বিস্বস্ত সহকর্মী। আর হাসান প্রিন্টার্স এর মালিক কামরুল হাসান আরজু’র আন্তরিক সহযোগিতা ছিল অকৃত্রিম।

কবি আজহারুল ইসলাম ছিলেন কিশোরগঞ্জের একজন কৃতী লেখক। তিনি প্রায়ই আমাদের পত্রিকা অফিসে এসে বসতেন এবং নানাভাবে আমাদের উৎসাহিত করতেন। তিনি ‘সওগাত’ ও ‘মোহাম্মদী’ যুগ থেকে একবিংশ শতাব্দীর প্রাথমিক সময় পর্যন্ত সাহিত্য সাধনায় ব্যাপৃত ছিলেন। তিনি কবিতা, প্রবন্ধ, গল্প, উপন্যাস ও অনুবাদ সাহিত্যে যথেষ্ট ব্যুৎপত্তি অর্জন করেছিলেন। তিনি ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ ও মোহিতলাল মজুমদারের পৃষ্ঠপোষকতা লাভ করেছিলেন। তৎকালে আধুনিক কবিদের মধ্যে আবদুল কাদির, আহসান হাবীব, ফররুখ আহম্মদসহ অনেকের সঙ্গে তাঁর গভীর বন্ধুত্ব গড়ে উঠেছিল।

তৎকালে শহরে কোনো ডিজটাল বা অফসেট প্রেস ছিল না। পায়ে প্যাডেল মেরে ছাপার কাজ করতে হতো। আগেই বলেছি শিসার অক্ষর দিয়ে কম্পোজ করতে হতো। সেসময় শহরের একরামপুরে জুবিলি প্রেস, পুরানথানায় ইউনিয়ন প্রেস, জামিয়ার সামনে কামাল প্রেস, হোটেল মোবারকের সামনে ক্রিসেন্ট প্রেস ও  রথখোলায় শরীফ প্রেস বেশ প্রসিদ্ধ ছিল। (চলবে)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর