কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কালীবাড়ী প্রতিষ্ঠার কিংবদন্তী


 মু আ লতিফ | ৭ জুলাই ২০১৯, রবিবার, ৯:৩২ | আমাদের কিশোরগঞ্জ 


কিশোরগঞ্জ কালীবাড়ীর গঠনতন্ত্রের মুখবন্ধ থেকে প্রাপ্ত তথ্যে জানা যায়, এটি প্রতিষ্ঠার সঠিক দিন-ক্ষণ জানা যায়নি। তবে এটা ঠিক কালক্রমে ভক্তবৃন্দের আগ্রহ, ভক্তি ও অর্থে কালীবাড়ী বর্তমান অবস্থায় এসেছে।

সেখানে বলা হয়েছে, অভিজ্ঞ ও প্রবীণ ব্যক্তিদের ধারণা আনুমানিক তিন শত বছর আগে এখানে কালী বিগ্রহ স্থাপন করা হয়েছিল। তখন এ স্থানটি ছিল খরস্রোতা নরসুন্দা নদীর একটি বাঁক এবং বাঁকের উত্তর পার্শ্বে অর্থাৎ বর্তমান কালীবাড়ী স্থানে ছিল একটি বিরাট বটবৃক্ষ।

বিস্তৃত এলাকা নিয়ে উঁচু টিলায় এই বটবৃক্ষের চারপাশে ছিল জলাশয় এবং সামনের সুগভীর বাঁকটির নাম ছিল ‘সরকুনার কুড়’।

তৎকালে বিস্তৃত নরসুন্দার তীরবর্তী বর্তমানে রাকুয়াইল বীরপাড়া ও শ্রীধর খিলা নিয়ে ছিল কৈবর্ত বা জেলে সম্প্রদায়ের বাস। এই জেলে সম্প্রদায়ই আজকের কালীবাড়ী স্থানে উল্লেখিত বটবৃক্ষের গোড়ায় প্রথম কালীমাতার বিগ্রহ স্থাপন করেছিলেন।

জনশ্রুতি হচ্ছে, রাকুয়াইল জেলেপাড়ার এক বৃদ্ধ জেলে ওই কুড়ে মাছ ধরতে জাল ফেললে পরে বহু টানটানি করেও ওঠাতে পারেননি। চিন্তিত জেলে রাতে স্বপ্নাদেশ পেয়ে পরদিন প্রভাতে এসে জাল ধরতেই জাল ওঠে আসে। এর সঙ্গে একটি কালো মিশমিশে আলোয় উজ্জল করা পাথরের ছোট বিগ্রহ নিয়ে। এই বিগ্রহই পরে স্বপ্নাদেশ অনুযায়ী রাকুয়াইলের জেলে সম্প্রদায় সম্মিলিতভাবে বটবৃক্ষের গোড়ায় স্থাপন করে এবং পূজার্চনার ব্যবস্থা করেন।

এছাড়াও আরো একটি কিংবদন্তী হলো, একজন কালীসাধক জেলে ছিলেন। তিনি নরসুন্দা নদীতে মাছ ধরে জীবীকা নির্বাহ করতেন। তিনি মাছ ধরার পূর্বে কালীদেবীর নামজপ করে পুঁজো দিতেন। ফলে তার জালে প্রচুর মাছ ধরা পড়তো। তিনি ওই মাছ বিক্রি করে প্রচুর অর্থ উপার্জন করেছিলেন।

পরবর্তীতে তিনি তার অর্থে কালীবাড়ীর জমিটি ক্রয় করেন। কিন্তু তিনি কালীবাড়ী প্রতিষ্ঠা করার আগেই মারা যান। পতিত জমি পড়ে থেকে ঝোপ, জঙ্গলে পরিপূর্ণ হয়ে পড়েছিল।

একসময় খড়মপট্টি এলাকার বর্ণহিন্দুসম্প্রদায় ওই জমির ওপর কালীবাড়ী প্রতিষ্ঠা করেন। তবে কারা এর প্রতিষ্ঠার সঙ্গে জড়িত ছিলেন কেউ তা বলতে পারেন না।

আরো কথিত আছে ওইসময় কালীবাড়ীতে নিম্নশ্রেণির হিন্দুদের প্রবেশ নিষেধ ছিল। তখন জনৈক রামলাল চাঁদসী এ প্রথার বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তুলেন। অন্যদিকে আজিমউদ্দিন হাই স্কুলের হেডমাস্টার বসন্ত কুমার চক্রবর্তীর নেতৃত্বে বর্ণহিন্দুরা ওই আন্দোলনের বিরুদ্ধে অবস্থান নেন।

এ নিয়ে শহরে বেশ বাগবিতন্ডা শুরু হয়েছিল। পরে তৎকালীন কিশোরগঞ্জের প্রশাসক ইংরেজ সাহেবের মধ্যস্থতায় এর মিমাংসা হয় এবং কথিত নিম্নবর্ণের হিন্দুরাও কালীবাড়ীতে প্রবেশাধিকার পায়। বর্তমানে উক্ত কালীবাড়ীটি এতদঞ্চলের হিন্দু সম্প্রদায়ের একটি পবিত্র তীর্থস্থান হিসেবে পরিগণিত হয়েছে। (চলবে)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর