কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে নতুন ধারার ধর্মান্দোলনের সূচনা


 মু আ লতিফ | ১১ জুলাই ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৮:২৪ | আমাদের কিশোরগঞ্জ 


আগেই বলা হয়েছে, এখানে হিন্দুরাই সর্বক্ষেত্রে এগিয়ে ছিলেন। অন্যদিকে আরো একটা বিষয় উল্লেখ করার মতো। তা হচ্ছে, উনবিংশ শতাব্দির শেষ দিকে কিশোরগঞ্জে নতুন ধারার ধর্মান্দোলনের সূত্রপাত ঘটেছিল।

ওই সময় বর্ণ হিন্দুদের বাড়িতে বাড়িতে হিন্দু ধর্মনেতা, ব্রহ্মচারি এঁরা অতিথি হতেন। তাঁরা হিন্দু ধর্মের প্রচার ও প্রসারে কাজ করতেন। তাঁরা জীর্ণ মন্দির সংস্কার সাধন, নানা পূজা ও মেলার আয়োজনের জন্য হিন্দু সমাজকে পরামর্শ দিতেন।

সে সময় হিন্দুদের ধর্ম সভায় মুসলমান ভদ্রলোকদেরও নিমন্ত্রণ করা হতো। তাদের সভা ঘন ঘন হতো। দেশ বিদেশের বড় বড় ধর্মবেত্তারা ওইসব সভায় আগমন করতেন। তাঁরা তখন স্থানীয় উকিল, মোক্তার ও অন্যান্য বর্ণহিন্দুদের বাড়িতে আতিথেয়তা গ্রহণ করতেন।

গাঙ্গাটিয়ার জমিদার স্বর্গীয় গিরিশ চন্দ্র চক্রবর্তী চৌধুরীর বাড়িতেও তাঁরা দিন কাটাতেন এবং ধর্মালোচনায় নিয়োজিত থাকতেন।  তখনকার দিনে ব্রাহ্মণ পৌরহিতদের প্রতি সাধারণ হিন্দুদের ভক্তি-শ্রদ্ধা প্রবল ছিলো। তখন এখানে সাধু ও বৈরাগীদের বেশ আগমন ঘটেছিল। সার্বিক অবস্থা হচ্ছে তৎকালে শিক্ষাসহ সবক্ষেত্রে হিন্দুরা এগিয়ে ছিলেন।

শিক্ষার কথা আগেও বলেছি। এটাও ঠিক সেসময় হিন্দুদের ধর্মীয় শিক্ষা ব্যবস্থায়ও মুসলিমদের চাইতে উন্নত ছিলো। স্কুল ও টোলে যে সব শিক্ষক ছিলেন তাঁদের মধ্যে মাদরাসার মৌলবীদের চাইতে হিন্দু শিক্ষকরা অধিক মানসম্পন্ন ছিলেন।

হিন্দু পণ্ডিতেরা বেশ জ্ঞানী ও তাঁদের পাঠদানে পাণ্ডিত্য এবং দার্শনিকতা প্রকাশ পেতো। টোলের পণ্ডিতেরা নিমা চাদর পড়তেন। তারা সভা সমাবেশেও অনেক হিতোপদেশ ও নীতির কথা বলতেন।

একজনের কথা জানা যায় তিনি পণ্ডিত প্রয়াত কালীকৃষ্ণ সিদ্ধান্ত। বেশ  সুন্দর বক্তৃতা করতেন তিনি। এ ধরণের গুণী ও পণ্ডিত শিক্ষক টোল ও বেদ বিদ্যালয়ে দেখা যেতো। যা সাধারণত মাদরাসাগুলোয় দেখা যেতো না।

মাদরাসার শিক্ষকগণ পুরনোদিনের ইসলামের ইতিহাস ও বেহেস্ত-দোজকের বাইরে সাধারণত তেমন কিছু বলতেন না। নবী-রাসুলদের সহজ সরল জীবন যাপন ইত্যাদি তারা বর্ণনা করতেন। অবশ্য এখনো তাদের অধিকাংশই এ ধরণের ওয়াজ করে মানুষকে নছিহত করেন। যদিও ওই ধরণের জীবনাচার তারা নিজেরা খুব কমই পালন করেন।

আধুনিক প্রযুক্তি, জ্ঞান-বিজ্ঞান ও বিজ্ঞানমনস্ক জীবনকে তাদের অধিকাংশ এখনো অবজ্ঞার চোখে দেখে থাকেন। যদিও সকল প্রযুক্তি ও বিজ্ঞানের আবিস্কৃত যেমন মাইক, মোবাইল, যন্ত্রযান, এমনকি সিসিটিভিও ইত্যাদি তারা ব্যবহার করে থাকেন।

তৎকালে এখানকার সামাজিক অবক্ষয় চরমে পৌছেছিলো। পতিতালয়ে নির্বিঘ্নে যাওয়া আসা, মদ খেয়ে মাতাল হয়ে রাস্তায় পড়ে থাকা ও রাস্তার ধারে দাঁড়িয়ে প্রশ্রাব করা এবং নদীর পাড়ে মলত্যাগ অনেকটা স্বাভাবিক ঘটনা ছিলো। তৎকালে মানুষের খাদ্যাভ্যাসের তেমন কোনো হিসেব নিকেস ছিলো না। তারা তরকারির মধ্যে ডাটা, বেগুন ও আলুই বেশি পছন্দ করতো।

যদিও বাড়ি বাড়ি প্রচুর পেঁপে গাছ দেখা যেতো। তবে তারা পেঁপে তেমন একটা খেতেন না। সাধারণ মানুষ তখন মোটা চালের ভাত বেশি পছন্দ করতো। খাদ্যপুষ্ঠি সম্পর্কে কোনো ধারণাই তাদের ছিলো না। (চলবে)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর