কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


বিশ্বকাপের ছক্কা-২২

ওই নতুনের কেতন ওড়ে


 মো. শাহাদত হোসেন | ১২ জুলাই ২০১৯, শুক্রবার, ৬:১১ | বিশ্বকাপ ফুটবল ’১৮/ ক্রিকেট বিশ্বকাপ ‘১৯ 


অনেক বছর পর বিশ্ববাসী আইসিসি ওয়ার্ল্ড কাপের নতুন চ্যাম্পিয়ন পেতে যাচ্ছে। ১৯৭৫ সালে আইসিসি ওয়ার্ল্ড কাপ চালু হওয়ার পর প্রথম ছয়টি বিশ্বকাপ ছিল রোমাঞ্চ আর নতুনত্বে ভরা। প্রথম দু’বিশ্বকাপে ওয়েস্ট ইন্ডিজ চ্যাম্পিয়ন হলেও তৃতীয় বিশ্বকাপের ফাইনালে তাদেরকেই হারিয়ে ট্রফি জিতে নেয় ভারত।

পরের আইসিসি ওয়ার্ল্ড কাপেও বিশ্ববাসী পেল নতুন চ্যাম্পিয়ন; সেবার ভারতের মাটিতে ইংল্যান্ডকে হারিয়ে প্রথমবারের মত কাপ জিতে নেয় অস্ট্রেলিয়া। পঞ্চম আর ষষ্ঠ বিশ্বকাপেও নতুনের জয় অব্যাহত থাকে, চ্যাম্পিয়ন হয় যথাক্রমে পাকিস্তান ও শ্রীলংকা।

কিন্তু সপ্তম বিশ্বকাপ থেকে আইসিসি ওয়ার্ল্ড কাপের ট্রফিটা নিজের সম্পত্তি বানিয়ে ফেলে অস্ট্রেলিয়া। টানা তিন বিশ্বকাপ; অর্থাৎ ১৯৯৯, ২০০৩ ও ২০০৭ সালের আইসিসি ওয়ার্ল্ড কাপ জিতে একটা বিরতি দেয় অজিরা।

২০১১ সালের দশম বিশ্বকাপে নিজেদের মাটিতে ভারত দ্বিতীয়বারের মত চ্যাম্পিয়ন হলেও পরের বিশ্বকাপেই প্রতিবেশি নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে পঞ্চমবারের মত চ্যাম্পিয়ন হয় অস্ট্রেলিয়া। তাই আইসিসি ওয়ার্ল্ড কাপ মানেই অস্ট্রেলিয়া, এমন একটি ধারণা ক্রিকেটপ্রেমীদের মনে গেঁথেই গিয়েছিল।

চলতি বিশ্বকাপেও যেন অস্ট্রেলিয়া ছিল অপ্রতিরোধ্য; ক্রিকেট বোদ্ধাদের সবারই ধারণা ছিল, ফাইনাল খেলা হবে ভারত ও অস্ট্রেলিয়ার মধ্যে। শুধু প্রশ্ন ছিল, অস্ট্রেলিয়া ষষ্ঠবারের মত ট্রফি জিতবে নাকি ভারত তৃতীয়বারের মত। কিন্তু ক্রিকেট বোদ্ধাদের সকল ধারণাকে অমূলক প্রমাণিত করে, অনেক নাটক ও রোমাঞ্চের জন্ম দিয়ে ফাইনালে উঠেছে ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ড।

মজার ব্যাপার হলো, ইংল্যান্ডের এটি চতুর্থবারের মত ফাইনাল খেলা, আর নিউজিল্যান্ডের দ্বিতীয়বার। দু’দলই আগে ফাইনাল খেললেও কখনো চ্যাম্পিয়ন হতে পারেনি, রানার্সআপ হয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছে। তবে এবার সুযোগ এসেছে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার।

আর যে দলই ট্রফি জিতুক না কেন, প্রায় দু’যুগ পর বিশ্ববাসী এবার ক্রিকেটে নতুন চ্যাম্পিয়ন দেখার সুযোগ পাবে।

অবিশ্বাস্য হলেও সত্যি যে, গ্রুপ পর্বে ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ড ছিল তৃতীয় ও চতুর্থ অবস্থানে। আইসিসি ওয়ার্ল্ড কাপের গ্রুপ পর্বে নয় ম্যাচের মধ্যে সর্বোচ্চ সাত ম্যাচ জিতে শীর্ষে ছিল ভারত, আর দ্বিতীয় অস্ট্রেলিয়া।

তাই স্বাভাবিকভাবেই প্রত্যাশা ছিল, ভারত নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে এবং অস্ট্রেলিয়া ইংল্যান্ডকে হারিয়ে ফাইনাল নিশ্চিত করবে। কিন্তু বিশেষজ্ঞদেরকে অজ্ঞ প্রমাণ করে ১৪ জুলাই লর্ডসের টিকেট ছিনিয়ে নিয়েছে এউইন মরগান ও কেন উইলিয়ামসন।

আর এ ঘটনায় ভারত ও অস্ট্রেলিয়ার সমর্থক ছাড়া সারা বিশ্বের ক্রিকেটপ্রেমীরা খুশি। কেননা সবাই চায়, নতুনের জয় দেখতে। ফিফা ওয়ার্ল্ড কাপেও কিন্তু ফুটবলপ্রেমীরা নতুন কোন দেশকে চ্যাম্পিয়ন হিসেবে পেতে মুখিয়ে থাকে।

আর সেজন্যেই ২০১৮ সালের একুশতম বিশ্বকাপের প্রথম সেমিফাইনালে সবাই বেলজিয়ামকে এবং দ্বিতীয় সেমিফাইনালে ক্রোয়েশিয়াকে সমর্থন দিয়েছিল। এমনকি ফ্রান্স-ক্রোয়েশিয়া ফাইনালেও বিশ্বের ফুটবলপ্রেমীরা চেয়েছিল, লুকা মডরিচরাই কাপ জিতুক।

(লেখক: মো. শাহাদত হোসেন, সহকারী অধ্যাপক, ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগ, গুরুদয়াল সরকারি কলেজ, কিশোরগঞ্জ। Email: sahadot.hossain@gmail.com)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর