কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জ সদরের বধ্যভূমি: বর্বরতার জীবন্ত সাক্ষ্য (পর্ব-২)


 জাহাঙ্গীর আলম জাহান | ১৪ জুলাই ২০১৯, রবিবার, ৯:১০ | মুক্তিযুদ্ধ 


কিশোরগঞ্জ শহর থেকে আনুমানিক ৮ কিলোমিটার পূর্বদিকে নীলগঞ্জ বাজারের অবস্থান। এটি সদর উপজেলার মাইজখাপন ইউনিয়নে অবস্থিত। শহরের পুরানথানাস্থ শহিদী মসজিদ এলাকা ও উকিলপাড়া থেকে রিকশা-সিএনজি ও ইজিবাইক নিয়মিত এই পাকা রাস্তায় চলাচল করে। রাস্তাটি জেলা শহরের সাথে তাড়াইল উপজেলার সংযোগকারী সড়ক হিসেবে পরিচিত।

কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার পূর্বদিকের শেষ সীমানায় নীলগঞ্জ বাজারের অবস্থান। এই বাজারের শেষ মাথায় নরসুন্দা নদীর ওপর নির্মিত ব্রিজটির অপর পাশেই তাড়াইল উপজেলার সীমানা শুরু। ১৯৭১-এর মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় (জুলাই থেকে নভেম্বর পর্যন্ত) হানাদার পাকিস্তানি সেনারা এই ব্রিজে আনুমানিক ২৮ জন নিরীহ বাঙালিকে নির্মমভাবে হত্যা করে।

সদর উপজেলার একটি অন্যতম বধ্যভূমি হিসেবে নীলগঞ্জ ব্রিজটি পরিচিত। এই ব্রিজে নির্মম হত্যার শিকার সকলের নামধাম আজ আর পাওয়া যায় না। উল্লেখ্য যে, এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের দাবি সত্ত্বেও আজ অবধি এই বধ্যভূমিতে কোনো স্মৃতিফলক নির্মিত হয়নি এবং বধ্যভূমিটি সংরক্ষণেরও কোনো উদ্যোগ লক্ষ করা যায় না।

নীলগঞ্জ ব্রিজ বধ্যভূমিতে হত্যাযজ্ঞের শিকার যে ক’জন শহিদের পরিচয় পাওয়া গেছে তাঁদের নাম-ধাম নিচে তুলে ধরা হলো:

ক্রমিক    শহীদের নাম    পিতা/স্বামীর নাম    গ্রামের নাম    বয়স
০১.    আহম্মদ আলী     মো. ফজর আলী    হয়বতনগর , কি.গঞ্জ    ৩০
০২.    গোপাল চন্দ্র বর্মণ    নীলমোহন বর্মণ    বেপারীপাড়া, নীলগঞ্জ    ১৯
০৩.    সুভাষ চন্দ্র বর্মণ    নীলমোহন বর্মণ     ঐ    ১৭
০৪.    যুধিষ্ঠির বর্মণ    নীলমোহন বর্মণ    ঐ    ৫০
০৫.    হলধর বর্মণ    পরমেশ্বর বর্মণ    ঐ    ৬৫
০৬.    মুকুন্দ বর্মণ    পবণ চন্দ্র বর্মণ    ঐ    ৫৫
০৭.    কেবল চন্দ্র গোস্বামী    বোধরাম বর্মণ    ঐ    ৭০
০৮.    সজনী বর্মণ    সনাতন বর্মণ    ঐ    ৬০

শোলমারা ব্রিজ বধ্যভূমি:
কিশোরগঞ্জ শহরতলীর মহিনন্দ ইউনিয়নে কিশোরগঞ্জ-তাড়াইল সড়কপথে শোলমারা ব্রিজের অবস্থান। এটি মূল শহর থেকে ৩ কিলোমিটার পূর্বদিকে অবস্থিত। সদর উপজেলা পরিষদের নিকটবর্তী এই ব্রিজটি মহান মুক্তিযুদ্ধের একটি বধ্যভূমি হিসেবে পরিচিত।

মুক্তিযুদ্ধকালে জুলাই থেকে অক্টোবর মাসের মধ্যে এই ব্রিজে হানাদার পাকিস্তানি সেনারা অন্তত ১১ জন নিরীহ বাঙালিকে হত্যা করে। এখানে শহিদ হওয়া নিরীহ সকল বাঙালির পরিচয় অনেক চেষ্টা করেও উদ্ধার করা যায়নি। শোলমারা ব্রিজ সংলগ্ন ভূমিতে কিশোরগঞ্জ জেলা পরিষদের অর্থায়নে একটি স্মৃতিফলক নির্মিত হয়েছে।

এই বধ্যভূমিতে শহিদ হওয়া মাত্র ২ জনের পরিচয় সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া গেছে।  তাদের বিবরণ নিম্নে তুলে ধরা হলো:

ক্রমিক    শহীদের নাম    পিতা/স্বামীর নাম    গ্রামের নাম    বয়স
০১.    নবী হোসেন ভূইয়া    সোনাধর ভূইয়া    তমালতলা, কিশোরগঞ্জ     ৫৫
০২.    পরিমল চন্দ্র সাহা    ক্ষেত্রমোহন সাহা    চরশোলাকিয়া, কিশোরগঞ্জ     ২৪

বড়পুল বধ্যভূমি:
কিশোরগঞ্জ শহরের উত্তরদিকে মাত্র তিন কিলোমিটার দূরে লতিবাবাদ ইউনিয়ন। এই ইউনিয়নের মধ্য দিয়ে কিশোরগঞ্জ-ময়মনসিংহ মহাসড়কটি ময়মনসিংহের সাথে কিশোরগঞ্জের সংযোগ সৃষ্টি করেছে। মহাসড়কের পাশে অবস্থিত বর্তমান পুলিশ লাইন থেকে ২০০ মিটার দূরে মহাসড়কের ওপর বড়পুলের অবস্থান।

পুলের নিচ দিয়ে বয়ে গেছে একটি খাল। এই খাল মহাসড়কের পশ্চিম পাশ থেকে শুরু হয়ে পুলের নিচ দিয়ে পূর্বপাশে আধা কিলোমিটার দূরে অবস্থিত সদর উপজেলার সর্ববৃহৎ জলাধার ভাস্করখিলা বিলে গিয়ে মিশেছে। বর্ষাকালে পানির প্রবল তোড়ে খালটি টইটম্বুর থাকতো।

১৯৭১-এর জুলাই থেকে অক্টোবর মাসের মধ্যে হানাদার পাকিস্তানি সেনারা চার দফায় এই বড়পুলে প্রায় ৩৫ জন নিরীহ বাঙালিকে হত্যা করে। হত্যাকাণ্ডে স্থানীয় দোসর রাজাকার-আলবদরদের কোনো অংশগ্রহণ ছিল না। তৎকালীন মহকুমার বিভিন্ন এলাকা থেকে ধরে এনে নিরীহ বাঙালিদের এই পুলে হত্যা করা হয়েছে।

নিহতদের স্বজনেরা অনেকেই তাদের শহিদ স্বজনকে শনাক্ত করতে এখানে আসেননি। যে কারণে অধিকাংশ লাশ পানির প্রবল তোড়ে ভেসে গিয়ে ভাস্করখিলা বিলে পঁচে-গলে একাকার হয়েছে। কিছু লাশ স্থানীয় জনসাধারণ পরিবেশ রক্ষার স্বার্থে বিলের কাছে অবস্থিত বড়পুকুরের পূর্বপাশে চিতাশাল সংলগ্ন ভূমিতে গণকবর দেয়।

উল্লেখ্য যে, এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের দাবি সত্ত্বেও আজ অবধি এই বড়পুল বধ্যভূমিতে কোনো স্মৃতিফলক নির্মিত হয়নি এবং বধ্যভূমিটি সংরক্ষণেরও কোনো উদ্যোগ নেওয়া হয়নি।

এই বধ্যভূমিতে শহিদ হওয়া মাত্র ৪ জনের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া গেছে। তাদের নাম-পরিচয় নিম্নে তুলে ধরা হলো:

ক্রমিক    শহীদের নাম    পিতা/স্বামীর নাম    গ্রামের নাম    বয়স
০১.    খগেন্দ্র রায় হেলু    শৈলেন্দ্র চন্দ্র রায়    বকুলতলা, খড়মপট্টি, কিশোরগঞ্জ     ৫৫
০২.    মো. জোয়াদ মোল্লা    হাজী মিয়া হোসেন মোল্লা    গ্রাম-বেরুয়াইল, রশিদাবাদ     ৩৫
০৩.    খোকন চন্দ্র সরকার    ধীরেন্দ্র চন্দ্র সরকার    গ্রাম-ধনকুড়া, হোসেনপুর     ১৪
০৪.    ধীরেন্দ্র চন্দ্র সরকার    নরেন্দ্র সরকার (নৈরা)    গ্রাম-ধনকুড়া, হোসেনপুর     ৩৪

সিদ্ধেশ্বরী কালীবাড়িঘাট বধ্যভূমি:
কিশোরগঞ্জ রেলস্টেশন থেকে আনুমানিক ২০০ মিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে কিশোরগঞ্জ-নিকলী সড়কের পার্শ্ববর্তী নরসুন্দা নদীতে এই কালীবাড়িঘাটের অবস্থান। ঘাটের পাশে সনাতন হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের একটি কালীমন্দির রয়েছে; যা সিদ্ধেশ্বরী কালীমন্দির নামে পরিচিত।

মন্দিরের পুজারীরা নদীর এই ঘাটটি দৈনন্দিন বিভিন্ন কাজে ব্যবহার করতো বলে এটি সিদ্ধেশ্বরী কালীবাড়িঘাট নামে পরিচিত হয়। ঘাট থেকে আনুমানিক ৩০০ মিটার উত্তর-পশ্চিমে রেলস্টেশন থেকে শহরমুখী মূল সড়কের পাশে জেলা পরিষদের ডাকবাংলো অবস্থিত।

মুক্তিযুদ্ধের পুরো সময়ে হানাদার পাকিস্তানি সেনারা এই ডাকবাংলোকেই তাদের মূল অফিস ও টর্চার সেল হিসেবে ব্যবহার করতো। অন্যদিকে রেলস্টেশনের পাশে স্টেশন মাস্টারের পরিত্যক্ত বাসভবনটি ছিল মহকুমা আলবদর বাহিনীর অফিস ও টর্চার সেল।

প্রায় প্রতিদিন বিভিন্ন এলাকা থেকে নিরীহ হিন্দু, সন্দিগ্ধ আওয়ামী লীগার, মুক্তিযুদ্ধের পক্ষাবলম্বনকারী এবং তরুণ-যুবকদের ধরে এনে জেলা পরিষদের ডাকবাংলোর টর্চার সেলে বন্দি রাখা হতো। প্রতিরাতে এদের ওপর চালানো হতো অমানুষিক শারীরিক নির্যাতন।

এছাড়া বাঙালি তরুণী-যুবতী-গৃহবধুদের ধরে এনে এখানে দিনের পর দিন চালানো হতো পাশবিক নির্যাতন। নির্যাতন শেষে ২৫-৩০ জনকে একসাথে বেঁধে গভীর রাতে একটি দুই বগির ট্রেনে চড়িয়ে এই বন্দিদের বিভিন্ন বধ্যভূমিতে নিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করা হতো।

কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার বিভিন্ন বধ্যভূমি ছাড়াও হানাদার পাকিস্তানি সেনারা এ মহকুমার বন্দিদের পার্শ্ববর্তী ময়মনসিংহ জেলাধীন কিশোরগঞ্জ-ময়মনসিংহ রেলপথের নান্দাইল উপজেলার কালীগঞ্জ রেলব্রিজে, কিশোরগঞ্জ-ভৈরব রেলপথের কটিয়াদী উপজেলাধীন ধুলদিয়া রেলব্রিজে, বগামারা রেলব্রিজে এবং ভৈরব রেলব্রিজে হত্যা করে। অপরাপর বন্দিদের কিশোরগঞ্জের বিভিন্ন বধ্যভূমিতে হত্যা করা হয়। তন্মধ্যে অন্যতম একটি বধ্যভূমি হচ্ছে সিদ্ধেশ্বরী কালীবাড়িঘাট বধ্যভূমি।

১৯৭১ সালের জুন মাস থেকে নভেম্বরের শেষ সময় পর্যন্ত দখলদার পাকিস্তানি সেনাবাহিনী এ বধ্যভূমিতে শতাধিক নিরীহ বাঙালিকে হত্যা করেছে। তাদের সকলের পরিচয় উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।

উল্লেখ্য যে, এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের দাবি সত্ত্বেও আজ অবধি এই বধ্যভূমিতে কোনো স্মৃতিফলক নির্মিত হয়নি এবং বধ্যভূমিটি সংরক্ষণেরও কোনো উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। সিদ্ধেশ্বরী কালীবাড়িঘাট বধ্যভূমিতে প্রাণ হারানো যে ক’জন শহীদের পরিচয় পাওয়া গেছে তাদের নাম-পরিচয় নিম্নে তুলে ধরা হলো:

ক্রমিক    শহীদের নাম    পিতা/স্বামীর নাম    গ্রামের নাম    বয়স
০১.    মহিউদ্দিন আহমেদ    মো. নবী হোসেন    গাইটাল, শিক্ষকপল্লী কিশোরগঞ্জ     ৫৫
০২.    ছফিরউদ্দিন আহম্মদ    আমুদ আলী ভূইয়া    খিলপাড়া, মারিয়া, কিশোরগঞ্জ     ৪৯
০৩.    হীরেন্দ্র দাস    শচীন্দ্র চন্দ্র দাস    গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ     ১৫
০৪.    শৈলেন্দ্র চক্রবর্তী (কালীবাড়ির সহ-পুরোহিত)    ব্রজনাথ চক্রবর্তী    কালীবাড়ি, কিশোরগঞ্জ      ৩৪
০৫.    প্রফুল্ল কুমার সরকার    ব্রজনাথ চক্রবর্তী    রশিদাবাদ, কিশোরগঞ্জ সদর     ৫৮

০৬.    পরিতোষ সরকার (শংকর)    প্রফুল্ল কুমার সরকার    ঐ    ২৭
০৭.    বিকাশ সরকার কানু    প্রফুল্ল কুমার সরকার    ঐ    ২৫
০৮.    যোগেন্দ্র্র মজুমদার    শরদিন্দু মজুমদার    ঐ    ৬৫
০৯.    নবীন চন্দ্র সাহা রায়    নন্দ কুমার সাহা রায়    সগড়া, কিশোরগঞ্জ সদর  ৬৬
১০.    প্রফুল্ল চন্দ্র সাহা    নবীন চন্দ্র সাহা    ঐ    ৩০

১১.    সুধাংশু চন্দ্র সাহা    নবীন চন্দ্র সাহা    ঐ    ২৮
১২.    গোপাল চন্দ্র সাহা    গগন চন্দ্র সাহা    বত্রিশ (বিপিন ডাক্তারের বাড়ি), কিশোরগঞ্জ শহর   ৩৫
১৩.    হরিচরণ পণ্ডিত    বৃন্দাবন পণ্ডিত    সগড়া, কিশোরগঞ্জ সদর    ৬২
১৪.    নীরদ চন্দ্র পণ্ডিত    হরিচরণ পণ্ডিত    ঐ    ৩৮
১৫.    ক্ষিতিশ চন্দ্র পণ্ডিত    কালীকুমার পণ্ডিত    ঐ    ৩৩

১৬.    শৈলেন্দ্র চন্দ্র পণ্ডিত    কালীকুমার পণ্ডিত    ঐ    ৫০
১৭.    অশোক পণ্ডিত মধু    ক্ষিতিশ চন্দ্র পণ্ডিত    ঐ    ১৭
১৮.    তাপস পণ্ডিত    রজনীকান্ত পণ্ডিত    বিন্নগাঁও,  কিশোরগঞ্জ শহর  ১৬
১৯.    ইন্দ্রজিৎ পণ্ডিত    অজ্ঞাত    ঐ    ৮০
২০.    নগেন্দ্র রায়    ইন্দ্রজিৎ পণ্ডিত    ঐ    ৫৩

২১.    প্রদীপ মজুমদার    অশ্বিনী  মজুমদার    খড়মপট্টি, কিশোরগঞ্জ শহর    ৩২
২২.    সুদীপ মজুমদার    অশ্বিনী মজুমদার    ঐ    ২২
২৩.    দীনেশ রায়    জগৎ চন্দ্র রায়    গ্রাম-নগুয়া, কিশোরগঞ্জ শহর    ৩৫
২৪.    যোগেশ চন্দ্র সাহা    গুরুপ্রসাদ সাহা    বত্রিশ, মেলাবাজার, কিশোরগঞ্জ    ৪৩
২৫.    জিতেন্দ্র বসাক জিতু     রাধানথ বসাক    গ্রাম-বত্রিশ, কিশোরগঞ্জ শহর    ৩৬

২৬.    বিরাজ বসাক    কৈলাশ বসাক      নগুয়া, ঝাঁপানিয়াপাড়া             ২৫
২৭.    আহম্মদ মোল্লা    আব্দুল মজিদ মোল্লা    বিন্নাটী (মোল্লাবাড়ি), কিশোরগঞ্জ    ৪৫
২৮.    মনির হোসেন    গাজী মামুদ    পাতুয়াইর, মজুমদারপাড়া     ৩৩
২৯.    দেবেন্দ্র বিজয় ধর (বোঁচা বাবু)    সারদা ধর    নগুয়া পাঠাগার মোড়,কিশোরগঞ্জ     ৬৫
৩০.    রাধানাথ বসাক    কাশীনাথ বসাক    বত্রিশ, কিশোরগঞ্জ শহর    ৫৫

৩১.    মো. হোসেন আলী    মো. আব্দুল খালেক    গ্রাম-কলাপাড়া, কিশোরগঞ্জ     ৩২
৩২.    বামাচরণ সাহা    দুর্গাচরণ সাহা    গ্রাম-বত্রিশ, কিশোরগঞ্জ শহর    ৬০
৩৩.    কৃষ্ণচরণ সাহা    দুর্গাচরণ সাহা    ঐ    ৫৫
৩৪.    মো. আব্দুর রহমান    ইজ্জত আলী        বেপারীপাড়া, নীলগঞ্জ    ৫৫
৩৫.    অনিল কুমার আচার্য্য    রাজকুমার আচার্য্য    গ্রাম-বিন্নগাঁও, কিশোরগঞ্জ শহর    ৪৫

৩৬.    আব্দুল খালেক    মো. মহর আলী    গ্রাম-চরকাটিহারি, হোসেনপুর    ২৩
৩৭.    হেলাল উদ্দিন    মিয়া হোসেন কেরানী    গ্রাম-সাহেবের চর, হোসেনপুর     ২০
৩৮.    প্রভাত চন্দ্র সাহা    রাধামোহন সাহা    গ্রাম-আড়াইবাড়িয়া, হোসেনপুর থানা সংলগ্ন, কিশোরগঞ্জ  ৬৫
৩৯.    বেনুলাল সাহা    প্রভাত চন্দ্র সাহা    ঐ    ৩৫
৪০.    মণিলাল সাহা    প্রভাত চন্দ্র সাহা    ঐ    ৩২ (চলবে)

(জাহাঙ্গীর আলম জাহান, ছড়াকার, প্রাবন্ধিক, ইতিহাস-মুক্তিযুদ্ধ ও লোকসংস্কৃতির গবেষক, প্রকাশিত গ্রন্থের সংখ্যা ৪১টি।)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর