www.kishoreganjnews.com

শহীদ সিরাজের শেষ চিঠি



[ আশরাফুল ইসলাম | ৭ আগস্ট ২০১৭, সোমবার, ১০:১০ | মুক্তিযুদ্ধ ]


ডেট লাইন ৮ই আগস্ট, ১৯৭১। দূর্জেয় হয়ে ওঠা ‘রাক্ষুসে সাচনা’ শত্রুমুক্ত করার দায়িত্ব পান ‘ইকোয়ান’ প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের চৌকস ৩৬ জন যোদ্ধা। হালকা অস্ত্রে সজ্জিত কমান্ডার সিরাজের নেতৃত্বে এ দলটি দুটি নৌকায় শনির হাওরের দীর্ঘ ২৫ মাইল উত্তাল তরঙ্গ পাড়ি দিয়ে সাচনা বাজার আক্রমণ করেন। দীর্ঘ সম্মূখযুদ্ধে শত্রুমুক্ত হয় সুরমা নদীর তীরে ঢাকা-সিলেট নৌপথের গুরুত্বপূর্ণ নদীবন্দর ‘সাচনা’। সাচনা জয়ের পরমুহুর্তে পলায়নরত পাকসেনাদের কভারিং ফায়ারে স্বাধীনতার শ্লোগানরত সিরাজ গুলিবিদ্ধ হয়ে শহীদ হন। তাঁর লাশ নিয়ে আসা হয় সীমান্তবর্তী টেকেরঘাট নামক স্থানে। সেখানে পূর্ণ রাষ্ট্রীয় ও সামরিক মর্যাদায় শহীদ সিরাজকে সমাহিত করা হয়।

স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু সরকার মুক্তিযুদ্ধে বীরত্বপূর্ণ অবদানের জন্য শহীদ সিরাজকে ‘বীর বিক্রম’ খেতাবে ভূষিত করেন। মুক্তিযুদ্ধের পর পরই এমপি সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের সভাপতিত্বে স্থানীয় জনগণ ও মুক্তিযোদ্ধাদের স্বত:স্ফূর্ত সভায় সাচনার নাম আনুষ্ঠানিকভাবে সিরাজনগর করা হয়।

মুক্তিযুদ্ধের সময় সিরাজ কিশোরগঞ্জ গুরুদয়াল কলেজের কলা বিভাগের ৪র্থ বর্ষের ছাত্র ছিলেন। কিশোরগঞ্জের ইটনা উপজেলার এলংজুরী ইউনিয়নের ছিলনী গ্রামের এক কৃষক পরিবারে ১৯৪৮ সালে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম মো. মোক্তুল হোসেন ও মাতার নাম গফুরেন্নেসা।

সম্মুখসমরে শহীদ এ অকুতোভয় মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হওয়ার মাত্র ৮দিন পূর্বে তাঁর প্রিয় বাবার কাছে শেষ চিঠি লিখে যান। সাবেক অধ্যক্ষ দীপক কুমার নাগের উদ্যোগে সিরাজের প্রিয় শিক্ষাঙ্গন গুরুদয়াল কলেজ চত্বরে তাঁর একটি আবক্ষ মূর্তি স্থাপন করা হয়েছে। সেখানে খোদাই করে দেয়া আছে শহীদ সিরাজের শেষ চিঠিটিও।

টেকেরহাট থেকেঃ ৩০-৭-১৯৭১ ইং
প্রিয় আব্বাজান,
আমার সালাম নিবেন। আশা করি খোদার কৃপায় ভালোই আছেন। বাড়ির সকলের কাছে আমার শ্রেণীমত সালাম ও স্নেহ রইল। বর্তমানে যুদ্ধে আছি আলী রাজা, রওশন, সাত্তার, রেনু, ইব্রাহিম ফুল মিয়া সকলেই একত্রে আছি। দেশের জন্য আমরা সকলেই জান কোরবান করেছি। আমাদের জন্য ও দেশ স্বাধীন হবার জন্য দোয়া করবেন। আমি জীবনকে তুচ্ছ মনে করি। কেননা দেশ স্বাধীন না হলে জীবনের কোন মূল্য থাকবে না। তাই যুদ্ধকেই জীবনের পাথেয় হিসাবে নিলাম। আমার অনুপস্থিতিতে মাকে কষ্ট দিলে আমি আপনাদের মা করবো না। পাগলের সব জ্বালা সহ্য করতে হবে। চাচা-মামা, বড় ভাইদের নিকট আমার সালাম। বড় ভাইকে চাকুরীতে নিয়োগ দিতে না করবেন। জীবনের চেয়ে চাকুরী বড় নয়। দাদুকে দোয়া করতে বলবেন। মৃত্যুর মুখে আছি। যে কোন সময় মৃত্যু হতে পারে এবং মৃত্যুর জন্য সর্বদা প্রস্তুত। দোয়া করবেন মৃত্যু হলেও যেন দেশ স্বাধীন হয়। তখন দেখবেন লাখ লাখ ছেলে পুত্র হারাদের বাবা বলে ডাকবে। এই ডাকের অপোয় থাকুন। আর আমার জন্য চিন্তার কোন কারণ নাই। আপনার দুই মেয়েকে পুরুষের মত শিায় শিতি করে তুলবেন তবেই আপনার সকল সাধ মিটে যাবে।
দেশবাসী, স্বাধীন বাংলা কায়েমের জন্য দোয়া করো। মীরজাফরী করোনা। কারণ মুক্তিফৌজ তোমাদের মা করবে না এবং বাংলায় তোমাদের জায়গা দেবেনা ।
সালাম দেশবাসী সালাম
ইতি
সিরাজুল ইসলাম

তাঁর আত্মত্যাগের স্মৃতি সতীর্থ সহযোদ্ধাদের আজো ভারাক্রান্ত করে। গুরুদয়াল কলেজ চত্বরে তাঁর একটি আবক্ষ মূর্তি স্থাপন করা ছাড়াও নিজ উপজেলা ইটনা উপজেলা সদরে ধনু নদীর উপর একটি সেতুর নামকরণ করা হয়েছে। কিন্তু সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার টেকেরঘাটে অবস্থিত শহীদ সিরাজের কবর অযত্ন-অবহেলায় জরাজীর্ণ হয়ে পড়ায় যে কোন সময় নিশ্চিহ্ন হয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে। সাচনা নদী বন্দরের নাম সিরাজ নগর কার্যকর ও সুনামগঞ্জের টেকেরঘাটে শহীদ সিরাজের জরাজীর্ণ কবর সংস্কারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক, জেলা পরিষদের প্রশাসক, মুক্তিযুদ্ধা সংসদ ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দসহ দেশপ্রেমিক জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন কিশোরগঞ্জস্থ ইটনা সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট আব্দুল মালেক ভুইয়াঁ এবং শহীদ সিরাজুল ইসলাম, বীর বিক্রম স্মৃতি সংসদের সভাপতি অ্যাডভোকেট মারুফ আহমেদ।

এদিকে শহীদ সিরাজুল ইসলাম বীর বিক্রমের ৪৬তম শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন নানা কর্মসূচী গ্রহণ করেছে।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]



প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম

সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ

সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার

কিশোরগঞ্জ-২৩০০

মোবাইল: +৮৮০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮

ইমেইল: kishoreganjnews247@gmail.com

©All rights reserve www.kishoreganjnews.com