কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


খড়মপট্টির নাম কি করে হলো


 মু আ লতিফ | ১৫ জুলাই ২০১৯, সোমবার, ৯:১৪ | আমাদের কিশোরগঞ্জ 


ছেলেবেলায় ঘুড়ি উড়ানোর শখ অনেকের মত আমারও ছিলো। সময়ে-অসময়ে ঘুড়ি নিয়ে বের হওয়ার কারণে বড়দের বকুনিও সহ্য করতে হয়েছে। তখন রঙ-বেরঙের কাগজের ঘুড়ি কিনতে পাওয়া যেত।

আমাদের মহল্লার পাশের গলিতেই একজন বৃদ্ধা ঘুড়ি বানিয়ে বিক্রি করতেন। তাঁকে আমরা আফানি ফুফু ডাকতাম। আবার লাটাই ও সুতা কেনা গেলেও নিজেদেরকেই সূতা মাঞ্জন করে নিতে হতো। কিন্তু সখের কাছে এসব অনুসঙ্গের আয়োজন আমাদের জন্য একেবারেই কঠিন কিছু ছিলো না।

আমি নরসুন্দা পাড়ের বালুচরে ঘুড়ি উড়াতাম। বিকাল হলেই লাল-নিল-সবুজ-সাদা-হলুদ নানা বাহারি রঙয়ের ঘুড়িতে আকাশ ছেয়ে যেতো। কি এক দুরন্ত আকর্ষণ ছিলো।

ঘুড়ি ওড়ানোর আনন্দ বলে বুঝানো যাবে না। আমাদের ছেলেবেলায় প্রায়ই ঘুড়ি ওড়ানোর প্রতিযোগিতা হতো। সেই সব প্রতিযোগিতায় বিজয়ী প্রতিযোগিকে পুরস্কৃত করা হতো। বৈচিত্রময় বাঙালি সংস্কৃতিতে ঘুড়ি উড়ানোকে একটি অনুসঙ্গ হিসেবে বিবেচনা করা হতো।

যাক আমি পুনরায় খড়মপট্টির কথায় ফিরে আসি। পৌরসভার চেয়ারম্যান প্রকাশ নন্দী, সূর্য কুমার ভট্টাচার্য, যোগেন্দ্র চন্দ্র ভট্টাচার্য এরা প্রত্যেকেই ছিলেন খড়মপট্টি এলাকার নামি দামি বাসিন্দা। প্রাতঃকালীন ভ্রমণে তাঁরা প্রত্যেকেই বউলা খড়ম ব্যবহার করতেন।

এ উপমহাদেশের প্রাচীনতম পাদুকা শিল্প হচ্ছে খড়ম। তখন বিভিন্ন ধরনের খড়মের ব্যবহার দেখা যেত। বউলার পর ধীরে ধীরে কাঠের সঙ্গে টায়ারের ব্যবহার শুরু হয়। এর প্রচলন সত্তরের দশকে বেশ দেখা গেছে।

সুপরিচিত লেখক ও শিক্ষক নরেন্দ্র চন্দ্র ঘোষ সকাল-সন্ধ্যা খড়ম পরতেন। তিনিও এ এলাকারই বাসিন্দা ছিলেন। গুরুদয়াল কলেজের ইংরেজি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক রফিকুর রহমান চৌধুরীকেও খড়ম পরতে দেখা গেছে।

জনশ্রতি হচ্ছে, এলাকার সুধিজনেরা তাদের প্রাতঃকালীন ভ্রমণ ও গৃহস্থালির কাজের সময় খড়ম পরতেন বলেই এই এলাকার নাম হয়েছে খড়মপট্টি।

এছাড়াও জনশ্রুতি হচ্ছে, খড়মপট্টিতে খড়মের আড়ত ছিল। এই আড়ত থেকে বিভিন্ন অঞ্চলে ব্যবসায়ীরা খড়ম চালান করতেন। খড়মের জমজমাট চালানের কেন্দ্র হিসেবে তখন এই এলাকাটি প্রসিদ্ধি লাভ করায় কালক্রমে এলাকাটির নামকরণ হয়েছে খড়মপট্টি।

এ প্রসঙ্গে বিশিষ্ট কবি আজহারুল ইসলাম সাহিত্য সাময়িকী সৃষ্টি’র এক সংখ্যায় উল্লেখ করেছেন, ‘আমার ছেলেবেলায় শহরের রাস্তা একেবারে কাঁচা ছিলো। সামান্য ঝড় বৃষ্টিতে মাটি গলে যেত। তখন জুতো ব্যবহার একেবারে অসম্ভব হতো। খড়ম পায়ে লোক রাস্তা দিয়ে হাঁটতো।’

হয়তো প্রয়োজনের তাগিদেই কিশোরগঞ্জ শহরে খড়মের ব্যবহার বেশি ছিলো। কত রকমের নকশাদার খড়ম তৈরি হতো এখানে। ধনী বাবুরা খড়ম পায়ে চলতেন বলে তাদের পাড়াটার নাম খড়মপট্টি হয়েছিল।

সত্যি কথা হলো, খড়মপট্টি নামকরণের পেছনে তথ্যনির্ভর কোন সত্য এখনো জানা যায়নি। এ ক্ষেত্রে  বিস্মৃতির অতল গহ্বর থেকে সত্য যেদিন হস্তগত হবে তখন হয়তো এর আসল তথ্য রহস্য উদঘাটিত হবে। তখন জানা যাবে প্রকৃত ইতিহাস। ততদিন আমাদের জনশ্রুতিকেই মেনে নিয়ে অপেক্ষায় থাকতে হবে। (চলবে)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর