কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


পাকুন্দিয়ায় স্কুল ছাত্রীর ঝুলন্ত লাশ, গণধর্ষণ শেষে হত্যার দাবি পরিবারের


 স্টাফ রিপোর্টার | ১৮ জুলাই ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৫:২২ | পাকুন্দিয়া  


পাকুন্দিয়ায় স্মৃতি আক্তার রীমা (১৫) নামের এক স্কুল ছাত্রীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিহতের পরিবারের দাবি, গণধর্ষণের পর হত্যা করে লাশ ঝুলিয়ে রেখেছে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় তারা মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) সকালে উপজেলার চরফরাদী ইউনিয়নের গাংধোয়ারচর গ্রামে কিশোরীর নানার বাড়ির পাশে পুকুর পাড়ের একটি বরই গাছের ডালে ঝুলন্ত অবস্থায় লাশ উদ্ধার করা হয়। পরে দুপুরে ময়নাতদন্তের জন্য লাশ কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়।

নিহত স্মৃতি আক্তার রীমা জেলার হোসেনপুর উপজেলার জামাইল গ্রামের মৃত আবুল হোসেনের মেয়ে এবং হোসেনপুর পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে নবম শ্রেণির ছাত্রী।

জানা যায়, স্মৃতি আক্তার রীমা পাকুন্দিয়া উপজেলার গাংধোয়ারচর গ্রামে নানার বাড়িতে প্রায়ই বেড়াতে আসতো। এ সুবাদে একই উপজেলার পাশের চরফরাদী গ্রামের খুরশিদ উদ্দিনের ছেলে জাহিদের সাথে তার প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে।

এ রকম পরিস্থিতিতে মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) বিকেলে অসুস্থ নানীকে দেখতে মায়ের সাথে নানার বাড়িতে আসে রীমা।

নানার বাড়িতে আসার পর বুধবার (১৭ জুলাই) রাত ১০টার দিকে রীমার মা আঙ্গুরা খাতুন বাড়ির পশ্চিম পাশে পুকুর পাড়ে রীমাকে প্রেমিক জাহিদের সাথে আলাপ করতে দেখতে পান। এ সময় জাহিদের সাথে আরও ২-৩জন ছেলে ছিল। রীমাকে ডাক দিলে জাহিদসহ অন্যরা পালিয়ে যায়।

পরে রীমাকে ঘরে নিয়ে এসে ঘুমিয়ে পড়েন আঙ্গুরা খাতুন। বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) ভোরে ঘুম থেকে উঠে বিছানায় রীমাকে দেখতে না পেয়ে তিনি খোঁজাখুজি করতে থাকেন। খোঁজাখুজির এক পর্যায়ে বাড়ির পশ্চিম পাশে পুকুর পাড়ে একটি বরই গাছের ডালে রীমাকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পান।

খবর পেয়ে সকাল ১১টার দিকে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে রীমার মরদেহ উদ্ধার করে।

রীমার মামা মোস্তফা জানান, চরফরাদী গ্রামের খুরশিদ উদ্দিনের ছেলে জাহিদ রীমাকে রাতে বাড়ি থেকে ডেকে পুকুর পাড়ে নিয়ে যায়। পরে তার বন্ধু একই গ্রামের রুবেল মিয়ার ছেলে পলাশসহ আরও ২-৩জন মিলে রীমাকে গণধর্ষণের পর হত্যা করে বরই গাছের ডালে ঝুলিয়ে রাখে।

তার প্রমাণ হিসেবে তিনি জানান, বড়ই গাছ থেকে ২০ হাত উত্তর পাশে ধর্ষণের আলামত হিসেবে কয়েকটি কনডম ও সেক্সুয়াল বড়ি পড়েছিল।

এদিকে খবর পেয়ে সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাসুদ আনোয়ার, পাকুন্দিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. মফিজুর রহমান ও পরিদর্শক (তদন্ত) এসএম শফিকুল ইসলাম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

এ ব্যাপারে পাকুন্দিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. মফিজুর রহমান বলেন, লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পাওয়ার পর ধর্ষণ ও মৃত্যুর বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া যাবে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর