কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে ‘সংগঠন ও নেতৃত্ব বিষয়ক’ দুইদিনের কর্মশালা অনুষ্ঠিত


 স্টাফ রিপোর্টার | ২১ জুলাই ২০১৯, রবিবার, ১২:৪৫ | বিশেষ সংবাদ 


সৃষ্টির আদিকালে প্রাকৃতিক বিপর্যয় ও বন্য প্রাণীর আক্রমণ থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য মানুষ সংগঠিতভাবে বসবাসের প্রয়োজন অনুভব করে। একই সাথে সংগঠিত মানুষকে বিচক্ষণতা ও বুদ্ধিমত্তার মাধ্যমে পরিবেশ-পরিস্থিতির সাথে সংগতি রেখে সঠিক পথে পরিচালনার জন্য উপযুক্ত নেতৃত্ব তৈরির প্রয়োজনও মানুষ অনুভব করতে থাকে।

এভাবেই মানুষের মধ্যে সংগঠন তৈরি ও নেতৃত্ব সৃষ্টির প্রবণতা বৃদ্ধি পায়। সেই প্রবণতার পথ ধরেই আজ দেশে দেশে, সমাজে সমাজে সংগঠনের ব্যাপকতা ও নেতৃত্বের বিচক্ষণতা বিকশিত হয়েছে।

গত শুক্রবার (১৯ জুলাই) ও শনিবার (২০ জুলাই) কিশোরগঞ্জ প্রেসক্লাবে সমকাল সুহৃদ সমাবেশ আয়োজিত ‘সংগঠন ও নেতৃত্ব বিষয়ক’ দুইদিনের কর্মশালায় এসব বিষয়ে বিস্তারিত আলোকপাত করা হয়।

সমকাল সুহৃদ সমাবেশ কিশোরগঞ্জ কমিটির সভাপতি হারুন-আল-রশীদের সঞ্চালনায় উদ্বোধনী দিনে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সমকাল কিশোরগঞ্জের নিজস্ব প্রতিবেদক সাইফুল হক মোল্লা দুলু।

কর্মশালায় সুহৃদ সদস্যসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মোট ৬০ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেন।

প্রতিপাদ্য বিষয়ে প্রধান প্রশিক্ষক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সমকালের সহকারী সম্পাদক ও সমকাল সুহৃদের বিভাগীয় সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম আবেদ, সমকালের সহকারী সম্পাদক সুহৃদের বিভাগীয় সহকারি মো. আসাদুজ্জামান।

কর্মশালায় মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম পদ্ধতিতে বড় পর্দায় সংগঠন কী, কেন এবং সংগঠক কারা, কিভাবে নিজেকে সংগঠক হিসেবে তৈরি করা যায় ইত্যাদি বিষয়ে প্রামাণ্য তথ্যচিত্র উপস্থাপনের মাধ্যমে প্রশিক্ষণার্থীদের বাস্তব ধারণা দেওয়া হয়। তথ্যচিত্রের আলোকে পারস্পরিক প্রশ্নোত্তরের মাধ্যমেও সার্বিক বিষয়টি খোলাসা করে কর্মশালায় মানবাধিকার, জেন্ডার, পরিবেশ ইত্যাদি বিষয়ে প্রশিক্ষণার্থীদেরে সুস্পষ্ট ধারণা প্রদান করা হয়।

পাশাপাশি সিটিজেন জার্নালিজমের গুরুত্ব এবং একজন সুহৃদ বা সংগঠক কিভাবে এসব বিষয়ে ইতিবাচক ভূমিকা রাখতে পারে, সে বিষয়েও বিস্তারিত অবহিত করে কোনো বিষয়ে প্রতিবেদন লিখতে চাইলে কী লিখবেন, কেন লিখবেন এবং কোথায় লিখবেন তা-ও প্রশিক্ষণার্থীদের হাতে-কলমে বুঝিয়ে দেওয়া হয়।

দুইদিনে পাঁচ পবের্র এই কর্মশালায় প্রথম পর্বে সংগঠন বিষয়ক তথ্যাদি, দ্বিতীয় পর্বে সংগঠক কারা ও তৃতীয় পর্বে অন্যান্য বিষয়ে আলোকপাত করে সার্বিক বিষয় উপস্থাপন করা হয়।

কর্মশালার ফাঁকে ফাঁকে প্রশিক্ষণার্থীদের ক্লান্তি ও অবসাদ দূর করার জন্য মজাদার কৌতুক পর্ব, নাচগান ও স্যাটায়ারধর্মী কিশোরগঞ্জের আঞ্চলিক ভাষার হাস্য-রসাত্মক ছড়া পরিবেশন করা হয়। তুমুল হর্ষধ্বনির মাধ্যমে প্রশিক্ষণার্থীরা মুহূর্তেই সকল অবসাদ ভুলে আবারও প্রাসঙ্গিক বিষয়ে মনোযোগী হয়ে ওঠেন। অত্যন্ত আন্তরিক ও ঘরোয়া পরিবেশে নিজেদের মধ্যে সংগঠন, সংগঠক, নেতা এবং নেতৃত্ব বিষয়ে পারস্পারিক ভাব বিনিময়ের মধ্য দিয়ে সবাই নিজেকে শাণিয়ে নেন।

কর্মশালার দ্বিতীয় দিনে সকল প্রশিক্ষণার্থীকে ৫টি গ্রুপে বিভক্ত করার মধ্য দিয়ে প্রতি গ্রুপে একজনকে নেতা ও সদস্য নির্বাচিত করে পূর্বদিনের কর্মশালায় অর্জিত জ্ঞানের আলোকে প্রত্যেক দলকে পৃথক পৃথক জন-গুরুত্বসম্পন্ন প্রকল্প পরিকল্পনা তৈরি করার দায়িত্ব দেওয়া হয়।

গ্রুপভুক্ত সদস্যগণ নিজেদের মধ্যে আলোচনা করে স্ব-স্ব গ্রুপের উদ্ভাবনী জ্ঞান প্রয়োগের মাধ্যমে পাঁচটি পৃথক প্রকল্প পরিকল্পনা উপস্থাপন করেন। প্রকল্পগুলো হচ্ছে- কিশোরগঞ্জ শহরের নরসুন্দা নদী তীরবর্তী দুইপারের ওয়ার্কওয়ে পরিস্কারকরণ, শহরের পরিবেশ সুরক্ষা ও পরিচ্ছন্নতা রক্ষার জন্য বিভিন্ন জনবহুল স্থানে ডাস্টবিন স্থাপন, নারীর আত্মকর্মসংস্থান সৃষ্টি, বিদ্যালয়ে পরিচ্ছন্নতা বজায় রেখে বৃক্ষরোপণ, হাইজেনিক পয়ঃনিষ্কাষণ ও আত্মরক্ষা সম্পর্কে সচেতনেতা তৈরি এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহে যৌন হয়রানি প্রতিরোধে অভিযোগ বাক্স স্থাপন।

গ্রুপভিত্তিক এ সকল প্রকল্প পরিকল্পনা কর্মশালার ভেন্যুতে দর্শনীয় স্থানে টানিয়ে দিয়ে দলনেতা ও সহ-দলনেতা এই পরিকল্পনা বাস্তাবায়নের দিক-নির্দেশনা সকলকে অবহিত করেন। সেই সাথে প্রতিটি দল পরিকল্পনা বাস্তবায়নে নেতা. নেতৃত্ব, তহবিল ও কর্ম-পরিকল্পনার যাবতীয় বিষয় উপস্থিত প্রশিক্ষণার্থীদের সামনে উপস্থাপন করেন।

পাঁচটি  প্রকল্প পরিকল্পনা সুচারুভাবে বিচার-বিশ্লেষণ করে ৫নং গ্রুপের নিগার সুলতানা উজমা, আসলামুল হক আসলাম, পারমিতা ঘোষ প্রমুখের উপস্থাপিত ‘বিদ্যালয়ে পরিচ্ছন্নতা বজায় রেখে বৃক্ষরোপণ, হাইজেনিক পয়ঃনিষ্কাষণ ও আত্মরক্ষা সম্পর্কে সচেতনেতা তৈরি’শীর্ষক প্রকল্পটিকে শীষস্থান অর্জণকারী হিসেবে বিশেষভাবে পুরস্কৃত করা হয়।

শনিবার (২০ জুলাই) বিকেলে সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. আব্দুল্লাহ আল মাসউদ।

সাইফুল হক মোল্লা দুলুর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সমকালের সহকারী সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম আবেদ, মুক্তিযুদ্ধের গবেষক, লেখক ও ছড়াকার জাহাঙ্গীর আলম জাহান, সমকালের সহকারি সম্পাদক মো. আসাদুজ্জামান, কিশোরগঞ্জ সুহৃদের সভাপতি হারুন-আল-রশীদ, সহ-সভাপতি আসলামুল হক আসলাম, সাধারণ সম্পাদক সাইদুর রহমান সাঈদ, সাবেক সাধারণ সম্পাদক জহিরুল ইসলাম, সদস্য এসডি রুবেল, নিগার সুলতানা উজমা, বর্ষা, মাইশা. তাইফা, পাতা, লাকি রেজা প্রমুখ।

প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন, সাদা চোখে আমরা প্রতিটি পরিবারকে একটি সংগঠন হিসেবে বিবেচনা করতে পারি। আর সেই সংগঠনের প্রধান নেতা হচ্ছেন পরিবারের প্রধান বাবা অথবা মা। বাবা-মা যদি পরিবার পরিচালনায় সামান্যতম ত্রুটি করেন, তাহলে সে পরিবারে অনিশ্চয়তা বাসা বাঁধে। একইভাবে কোনো সংগঠনের নেতা যদি ভুল করেন সেই ভুলের খেসারত পুরো সমাজকেই বহন করতে হয়। রাষ্ট্রের নেতা ভুল করলে বিপন্ন হয় রাষ্ট্রের নিরাপত্তা। তাই নেতৃত্ব তৈরির ক্ষেত্রেও আমাদের সকলকেই অধিকতর সচেতন ও দায়িত্বশীল হতে হবে।

তিনি আরও বলেন, যে কাজটি রাষ্ট্রের করার কথা, আজ সেই কাজটিই দৈনিক সমকাল এই কর্মসূচির মাধ্যমে বাস্তবায়ন করছে। এজন্য তিনি সমকাল কর্তৃপক্ষের প্রতি কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। পরে তিনি প্রশিক্ষণার্থী তরুণ-তরুণীদের মধ্যে সুদৃশ্য সনদপত্র বিতরণ করেন।

ব্যাপক আনন্দ-উল্লাসের মধ্য দিয়ে দুইদিনের এই কর্মশালার আনন্দঘন পরিসমাপ্তি ঘটে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর