কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


রিকশা চালক বাবা, মেয়ে কলেজের জিপিএ-৫ প্রাপ্ত একমাত্র কৃতী শিক্ষার্থী


 মিছবাহ উদ্দিন মানিক | ২২ জুলাই ২০১৯, সোমবার, ৬:৫৩ | এক্সক্লুসিভ 


আশা আক্তার। হতদরিদ্র পরিবারে জন্ম নেয়া এক মেয়ে। বাবা দুলাল মিয়া। রিকশা চালান। রিকশার প্যাডেলে ঘুরে তার সংসারের চাকা। বাবার মত আশার জীবন পরিশ্রম আর সংগ্রামের।

কিন্তু পরিশ্রম ও ইচ্ছাশক্তি তাকে সাফল্য এনে দিয়েছে। সার্থক হয়েছে তার সংগ্রাম। হোসেনপুর সরকারি ডিগ্রী কলেজ থেকে এবারের এইচএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়েছে আশা।

কলেজের সবাইকে পেছনে ফেলে একমাত্র পরীক্ষার্থী হিসেবে জিপিএ-৫ পাওয়ার কৃতিত্ব দেখিয়েছে সে। আশার এই সাফল্য আঁধার ঘরে আলোর রোশনাই ছড়ালেও অর্থাভাবে এখন অনিশ্চিত তার উচ্চশিক্ষার স্বপ্ন। ব্যবসায় শিক্ষা শাখা থেকে সে এ প্লাস পেয়েছে।

এখন অর্থের অভাবে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছে সে ও তার পরিবার। হোসেনপুর পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডের দক্ষিণ আড়াইবাড়ীয়া গ্রামের রিকশা চালক দুলাল মিয়া ও পারভীন আক্তারের মেয়ে আশা আক্তার টিউশনী করে চালিয়েছে পড়ার খরচ।

হতদরিদ্র বাবার সামান্য ভিটে বাড়ি ছাড়া সহায় সম্বল বলতে আর কিছুই নেই। ফলে উচ্চশিক্ষার স্বপ্ন আশা আক্তারের কাছে পরিণত হয়েছে দুঃস্বপ্নে।

রিকশা চালক দুলাল মিয়া জানান, মেয়েটি তার লেখাপড়ায় খুবই ভাল। কিন্তু তার সাধ্য নেই মেয়ের উচ্চশিক্ষার স্বপ্ন পূরণ করার।

আশা আক্তার জানায়, টিউশনী করে পড়ালেখার খরচ চালিয়েছি। কিন্তু অর্থের অভাবে উচ্চশিক্ষা নিতে পারব কিনা, তা একমাত্র আল্লাহই ভাল জানেন।

মা পারভীন আক্তার কান্না জড়িত কণ্ঠে বলেন, আমার মেয়েকে বহু কষ্ট করে এ পর্যন্ত এগিয়ে নিয়েছি। এখন আর  তার পড়া লেখার খরচ চালাতে পারছি না।

মনের অদম্য সাহস নিয়ে শিক্ষা যুদ্ধে জয়ী হওয়া আশার উচ্চশিক্ষার স্বপ্ন কি দারিদ্রতার কাছে হেরে যাবে! আশা ও তার পরিবারের প্রত্যাশা, মানবিক মানুষেরা অবশ্যই নিশ্চয়ই তাঁর উচ্চশিক্ষার স্বপ্নপূরণে এগিয়ে আসবেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর