কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


আর্টস কাউন্সিল কেন্দ্রীক সংস্কৃতিচর্চা


 মু আ লতিফ | ৫ আগস্ট ২০১৯, সোমবার, ১২:২৭ | সংস্কৃতি 


সংস্কৃতিচর্চার ক্ষেত্রে ষাট ও সত্তর এর দশকটা ছিল কিশোরগঞ্জের জন্য একটি সোনালি অতীত। এসময় আর্টস কাউন্সিল হলকে কেন্দ্র করে শুরু হয়েছিল এক নবজাগরণ। তখন বহু শিল্পীর আবির্ভাব ঘটেছিল।

এসময় রবীন্দ্র সঙ্গীতে তপন চক্রবর্তী চৌধুরী ছাড়াও সঙ্গীতাঙ্গনে বিজন দাশ, সজল দেব, নারায়ণ সরকার, মনসুরা বেগম মনি, জয়া রায়, গেীরী রায়, মিনা পাল, সাধন সাহা, বিপুল ভট্টাচার্য, মৃণাল দত্ত, অসিত রায়, খেলা বর্মণসহ আরো বেশ কিছু শিল্পী সৃষ্টি হয়।

এর আরো পরে কাজল দেব, সীমা ভৌমিক, নিখিল রঞ্জন নাথ টুক্কু, শীলা মজুমদার, মাহমুদা আক্তার, রীমা নাথ সঙ্গীত শিল্পী হিসেবে ওঠে আসে।

একই সময় নৃত্যে সুশান্ত সাহা, কমল সরকার, মিনা রায়, নারায়ণ দেব, বেলা রায়, ফেরদৌস, সেতারা বেগম, বাদল পাল, শুক্লা সরকার, শামীম আরা নিপা, সবিতা রায়, শিখা চক্রবর্তী, কথা ভৌমিক, ঝর্ণা পাল, জরিনা বেগম, মায়া বসাক, রুবা চৌধুরী, পূর্ণিমা দাস, রুমা চৌধুরী, লাকি ও লুসি বেশ সুনাম অর্জন করেন।

পরবর্তীতে শামিম আরা নিপা ও  শুক্লা সরকার নৃত্যে ও বিপূল ভট্টাচার্য সঙ্গীতে জাতীয় পর্যায়ে সুনাম অর্জন করেন।

কিশোরগঞ্জের সাংস্কৃতিক অঙ্গনে তৎকালীন আর্টস কাকউন্সিল হল ও পরে শিল্পকলার অবদান উল্লেখ করার মত। এ প্রতিষ্ঠানটিকে ঘিরে তখন বেশ কিছু প্রতিভাবান ও বিচক্ষণ ব্যক্তিত্ব সক্রিয় ছিলেন।

এঁদের মধ্যে ছিলেন ডা. জেবি রায়, অধ্যাপক জিয়াউদ্দিন আহমদ, অধ্যাপক নরেন্দ্রচন্দ্র ঘোষ, অধ্যাপক সিএল রায়, অধ্যাপক আতিকুল্লাহ চৌধুরী, এমএ আজিজ (মুক্তিযোদ্ধা), মোহাম্মদ সাইদুর, প্রিয়নাথ বসাক, বিরাজ মোহন রায়, এটিএম সাহিদ, গিয়াসউদ্দিন খান, সুধেন্দু বিশ্বাস, নীলোৎপল করসহ আরো অনেকেই।

অধ্যাপক জিয়াউদ্দিন আহমদ একাধারে নাটক লেখক ও অভিনেতা ছিলেন। তাঁর রচিত ‘ছিহ্ন আশা’ আর্টস কাউন্সিল হলে মঞ্চায়িত এবং রেডিও পাকিস্তান থেকেও প্রচারিত হয়েছিল।

অধ্যাপক সিএল রায় ছিলেন নাট্য পরিচালনায় একজন উঁচু মানের কুশলী কারিগর। তাঁর নির্দেশনায় মঞ্চস্থ নাটকগুলো দর্শকদের ভীষণভাবে আকৃষ্ট করতো।

অধ্যাপক আতিকুল্লাহ চৌধরীর নিখুঁত অভিনয় মানুষের হৃদয় স্পর্শ করতো। এমএ আজিজ ছিলেন একাধারে অভিনেতা ও আলোর জাদুকর। ষাট ও সত্তরের দশকে তাঁর আলোকসজ্জা ও আলোর প্রক্ষেপণ অনুষ্ঠানের গুরুত্বকেই বাড়িয়ে দিত।

পরে নীলোৎপল কর আলোকসম্পাতে অধিকতর আধুনিকতা এনেছিলেন। তাঁর জাদুকরি আলোর খেলা অনুষ্ঠানমালাকেই বিশেষভাবে সমৃদ্ধ করতো।

ডা. জেবি রায় ছিলেন আর্টস কাউন্সিলের একজন নিবেদিতপ্রাণ সম্পাদক। শিল্প-সংস্কৃতির প্রসার ও শিল্পীদের উন্নয়নই ছিল তাঁদের নেশা। ওই সময়টা ছিল শিল্প-সংস্কৃতি ক্ষেত্রে একটি উজ্জলতম সময়।

আমার সৌভাগ্য হয়েছিল তাঁদের অভিনয় ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানাদি দেখবার। এঁরা প্রত্যেকেই ছিলেন স্ব স্ব ক্ষেত্রে অনন্য ও অসাধারণ।

পরে সিরাজুল হক আংগুর শিল্পকলার সাধারণ সম্পাদক হন। এ সময় অন্যান্য আরো যারা ছিলেন তাদের মধ্যে অধ্যক্ষ জালাল আহমদ, কাজী শহীদুল হক মিলন, মৃনাল দত্ত, মো. শামসুল হক চুন্নু, আনোয়ার হোসেন মিল্কী প্রমুখ।

শিল্পকলার কার্যকরি কমিটিতে আমিও সে সময় তাদের সঙ্গে বহুদিন কাজ করার সুযোগ পেয়েছিলাম। এখানে শিল্পকলা সম্পর্কে কয়েকটি কথা বলে নেই।

যতদূর জানা গেছে, শিল্পকলা একাডেমী ১৯৫৮ সালে তৎকালীন মহকুমা প্রশাসক জনাব একে চৌধুরীর সময় প্রতিষ্ঠিত হয়। একে চৌধুরী ছিলেন একজন সংস্কৃতিমনা ও সাহিত্যানুরাগী ব্যক্তিত্ব।

কিশোরগঞ্জ শিল্পকলার যথেষ্ট সুনাম রয়েছে। এখানে বহু গুণীব্যক্তি ও কৃতি শিল্পীর পদার্পন ঘটেছিল। জ্ঞানতাপস ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ, প্রফেসর মুনীর চৌধরী, প্রফেসর আবদুল হাই, প্রফেসর কবীর চৌধুরী, ড. আনিসুজ্জমানসহ অনেকেই শিল্পকলার মঞ্চে ভাষণ দিয়েছেন।

বহু কৃতি শিল্পীর মধ্যে বিখ্যাত ওস্তাদ শিল্পী সালামত আলী ও নাজাকত আলী এ দু’ভাই শিল্পকলায় উচ্চাঙ্গ সংগীত গেয়ে দর্শকদের মুগ্ধ করেছিলেন। ওই অনুষ্ঠানটিও আমার দেখার  সৌভাগ্য হয়েছিল।

তৎকালে শিল্পকলা সংস্কৃতিচর্চা, এর লালন ও সংস্কৃতি কর্মীদের উন্নয়নে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করতো। গ্রামে-গঞ্জে ছড়িয়ে থাকা অবহেলিত শিল্পীদের টেনে এনে তাদেরকে সুযোগ দিয়ে তাদের যথাযথভাবে পরিচর্যা করা হতো।

এর কারণ ছিল। তখন মহকুমা প্রশাসক পদাধিকার বলে এর সভাপতি হলেও সম্পাদকসহ পুরো কমিটি করা হতো সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, শিক্ষক, সাহিত্যিক ও অন্যান্য পেশার গুণী ব্যক্তিদের নিয়ে। ফলে মাসাধিকব্যাপী নাটক মঞ্চস্থ, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, সাহিত্য সভাসহ নানা ধরণের আয়োজন লেগেই থাকতো।  প্রতিষ্ঠানগুলো এখনকার মত আমলা নির্ভর ছিল না।

আর্টস কাউন্সিলের বাইরেও তৎকালে শিল্পীরা নানা সংগঠন গড়ে তুলেছিলেন। ওইসব সংগঠন তারা নিজ নিজ আঙ্গিকে ও সাধ্যানুযায়ী শিল্প-সংস্খৃতির চর্চা করতেন।

ওইসব সংগঠন নাটক মঞ্চায়ন, সঙ্গীতানুষ্ঠান ও নৃত্যানুষ্ঠানের আয়োজন করতেন। যে সব সংগঠন গড়ে উঠেছিল এর মধ্যে কল্লোল সমিতি, ঝংকার শিল্পী গোষ্ঠী, ফাল্গুণী শিল্পী গোষ্ঠী অন্যতম।

সম্ভবত ১৯৬০ সাল ও এর কয়েক বছরের মধ্যে উক্ত সংগঠনগুলি গড়ে উঠেছিল। এসব সংগঠন তাদের কার্যক্রমের মাধ্যসে তৎকালীন সাংস্কৃতিক অঙ্গনকে আলোড়িত করে তুলেছিল।

এখানে আরো একটি বিষয় লক্ষ্যনীয় যে, এসব সংগঠন সংস্কৃতিচর্চার মাধ্যমে জনজীবনকে চেতনাদীপ্ত ও উজ্জীবিত করে তুলতো। ওইসময় শিল্পীরা পাকিস্তানি দুঃশাসন ও বাঙালির উপর শোষনের বিরুদ্ধেও সোচ্চার ছিলেন। শাসক শ্রেণির রক্তচক্ষু ও দমন পীড়নেও তারা দায়িত্বশীল ভূমিকা পালনে দ্বিধা করেন নি।

জামেয়া রোডে ছিল কল্লোল সমিতির কার্যালয়। এ সমিতি তখন বেশ কিছু নাটক মঞ্চায়ন করেছিল। নাটকের মাধ্যমে বিনোদন ছাড়াও সমাজ সংস্কার ও সচেতনতা সৃষ্টিতে এদের নাটক মঞ্চায়ন উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রেখেছিল।

একদল নাট্যকর্মী ও সংস্কৃতিসেবী এ সংগঠনের সঙ্গে জড়িত ছিলেন। তাঁদের মধ্যে এমএ আজিজ (মুক্তিযোদ্ধা), এটিএম সাহিদ, গিয়াস উদ্দিন খান, সুধেন্দু বিশ্বাস, জহিরুল হক মঞ্জূ, ডা. অমর চন্দ্র রায়, কাজল লোহ, হেকমত সোলেমান বিবেক, অনিল রায়, এসএ করিম কুসু, অনন্ত সাহা, মৃনাল দত্ত প্রমুখ।

মূল উদ্যোক্তা ছিলেন আনোয়ার হোসেন (আনোয়ার ভাই।  এ সংগঠনটি প্রখ্যাত নাট্যকার ডা. নিহার রঞ্জন গুপ্ত ও কল্যাণমিত্রের নাটক নিয়ে কাজ করে। এদের বেশির ভাগ নাটকের নির্দেশনায় ছিলেন বাবু সুধেন্দু বিশ্বাস। তিনি অভিনয়ে ছিলেন দক্ষ ও তার পরিচালনার পারঙ্গমতা প্রশ্নাতীত ছিল।

কল্লোল সমিতির উদ্যোগে মঞ্চস্থ শ্রেষ্ঠ নাটক ছিল নিহার রঞ্জন গুপ্তের ‘উল্কা’। তাছাড়া কল্যাণ মিত্রের ‘সাগর সেচা মানিক’ ও বিধায়ক উপাচার্যের নাটক ‘ক্ষুধা”। (চলবে)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর