কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


শিল্পকলার বাইরের সংগঠন


 মু আ লতিফ | ৬ আগস্ট ২০১৯, মঙ্গলবার, ১২:১০ | সংস্কৃতি 


এটা সত্য যে এ গ্রহেরই মানুষ শিল্পী, সাহিত্যিক ও বুদ্ধিজীবীরা। একটা সমাজ ও রাষ্ট্র যখন নষ্ট-ভ্রষ্টদের খপ্পরে নিপতিত হয় তখন তারা চুপ থাকতে পারেন না। তাই ঘটেছিল সত্তর দশকেও।

পূর্ব পাকিস্তানে পাঞ্জাবীদের শোষণ ও দুঃশাসনের এক চরম পর্যায় ছিল সেই সময়টা। অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে বৈষম্য, চলছিল সাংস্কৃতিক আগ্রাসন। সর্বক্ষেত্রেই বাঙালির ওপর চলছিল নিষ্পেসন।

ঠিক তখনি বাঙালি সুশীল সমাজ, সাংবাদিক, লেখক ও সাংস্কৃতিক কর্মীরাও এর বিরুদ্ধে এগিয়ে এলেন। কিশোরগঞ্জের সাংস্কৃতিক কর্মী ও  কবি  সাহিত্যিকরাও তখন এখানে প্রবল গণজাগরণের সৃষ্টি করলেন।

৬-দফা ও ১১-দফা আন্দালনকে কেন্দ্র করে সারা দেশের মত এখানেও তখন প্রবল আন্দোলন শুরু হয়েছিল। এসময় কবি-লেখক ও সাংস্কৃতিক কর্মীরাও তাদের নিজ নিজ অঙ্গনে গণজোয়ারের পক্ষে কাজ শুরু করেন।

তখনকার নবীন শিল্পীরা ছাড়াও প্রবীন শিল্পীরাও এতে জড়িত হন। এদের মধ্যে কালিয়াচাপড়ার শামসুল হক হায়দার, রশিদাবাদের ছফিরউদ্দিন, চৌদ্দশতের অখিল গোস্বামী, করিমগঞ্জের মিয়া হোসেন ও বারপাড়ার জামাল মীর, গীতিকার শাহ মো. কেরামত আলী স্বরচিত কবিতা আবৃত্তি করে ও গান গেয়ে জনতাকে পাকিস্তানি দুঃশাসনের বিরুদ্ধে উদ্বুদ্ধ করেছিলেন।

এসময় প্রতিষ্ঠা লাভ করে ফালগুণী শিল্পী গোষ্ঠী  ও ঝংকার শিল্পী গোষ্ঠী নামে দুটি সংগঠন। ছাত্রসমাজের ১১-দফার দাবীতে মিছিল-সমাবেশের পাশাপাশি শিল্পীসমাজ সাংস্কৃতিক আন্দোলনের প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেন। তারই ফলশ্রুতিতে ঝংকার ও ফালগুনী শিল্পী গোষ্ঠীর সৃষ্টি হয়েছিল।

ঝংকার শিল্পী গোষ্ঠী পাকিস্তানি শোষণ ও নির্যাতনের চিত্র তুলে ধরে গান ও নাটকের মাধ্যমে জনগণকে উদ্দীপ্ত করে তুলে। পাকিস্তানি শাসকেরা ছিলেন চরম মিথ্যাবাদী। তারা শোষণকে চিরস্থায়ী করতে সময়ে সময়ে ধর্মের দোহাই দিত। আন্দোলনকারীদের ইসলামের শত্রু ও পাকিস্তানের দুশমন বলতো।

১৯৭১ সালেও তারা একই কায়দায় বাঙালির উপর ঝাপিয়ে পড়েছিল। সেদিনও তারা ইসলাম রার নামে মুসলমান হয়েও বাঙালি মুসলমানদেরও হত্যা ও বাড়ি-ঘরে আগুন দিয়েছিল। তাদের ধর্মের দোহাই যে মিথ্যা ও কেবলই শোষণের হাতিয়ার আজ তা প্রমাণিত সত্য।

ঝংকার শিল্পী গোষ্ঠীর শিল্পীরা সেদিন তাদের গানে গানে পাকিস্তানিদের এ ভাওতাবাজির ধারণাই জনগণের সামনে তুলে ধরেছিলেন। তাদের সাহসী ভূমিকা ও এসব জাগরণী গান পরবর্তীতে মুক্তিযুদ্ধের পথ দেখিয়েছিল।

ঝংকারের সঙ্গে সেইসময় যে শিল্পীরা জড়িত ছিলেন তারা হলেন সুশান্ত সাহা, বিপুল ভট্টাচার্য, রাখাল পন্ডিত, মনসুরা বেগম মনি, ভবানী বিশ্বাস, মায়া বিশ্বাস, নারায়ণ দেব, কমল সরকার, বদিউল ইসলাম মতি, আবদুল হাই, শেখ সাকি, শামিম আরা নিপা, শুক্লা সরকার, নাহিদ, কেয়া, শিলা মজুমদার, রত্না পাল, উম্মে কুলসুম এলভিন প্রমুখ।

এ সব শিল্পী জনতাকে ভালোবেসে ও দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়েই এসব কর্মকান্ডে জড়িত হয়েছিলেন। ক্ষমতাসীনদের নানা বাঁধা ও ভয়-ভীতিকে উপেক্ষা করেই তারা সাহসের সঙ্গে স্বীয় দায়িত্ব পালন করেছিলেন্। এ সংগঠনটির সার্বিক তত্বাবধান করতেন নাসিরউদ্দিন ফারুকী ও লিয়াকত হোসেন মানিক।

এসময় ফালগুনী শিল্পী গোষ্ঠীও জনগণকে সচেতন ও উজ্জীবীত করতে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করেছিল। অধ্যাপক নরেন্দ্র চন্দ্র ঘোষের প্রত্যক্ষ সহযোগিতায় এ সংগঠনটি প্রতিষ্ঠার পর থেকে বাংলা নববর্ষ, বসন্ত উৎসবসহ বিভিন্ন মৌসুমি অনুষ্ঠানমালার মধ্য দিয়ে সক্রিয় ছিল।

১৯৬৮-৬৯ এর গণআন্দোলনের সময় উদ্দীপক ও গণজাগরণমূলক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশনার মাধ্যমে মানুষকে উদ্বুদ্ধ করেছিল। এ সংগঠনটির সঙ্গে জড়িত ছিলেন তপন চক্রবর্তী, বিজন কান্তি দাশ, সজল দেব, কাজল দেব, বিকাশ মজুমদার, আরমান চৌধুরী,সগীর আহমেদ, মনোজ গোস্বামী, সৈয়দ সবুর সোহেল, প্রদীপ রায়, সবিতা রায়, শিলা মজুমদার, ভারতী ভট্টাচার্য, রঞ্জিত ঘোস, নিখিলনাথ টুক্কু, আরজু আক্তার বেবি, সীমা ভৌমিক, মিনাপাল, শক্তিপাল, নিয়তিপাল, জাহিদুল হাসান মনি প্রমুখ।

এ সংগঠনটি মুক্তমঞ্চ করে রথখোলা ও টেনিস গ্রাউন্ডে অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করতো। টেনিস গ্রাউন্ডের একটি অনুষ্ঠানে বর্তমান জনপ্রিয় শিল্পী আবেদা সুলতানাও অংশ গ্রহণ করেছিলেন।

এর আগেও এতদঞ্চলে লোকসংস্কৃতির প্রভাব লক্ষ্য করা যায়। এখানে একসময় লোককবি, চারণ কবিদের যথেষ্ট কদর ছিল। এঁরা গ্রামে-গঞ্জে, হাটে-মাঠে ও সভা-সমিতিতে কবিতা ও গান গেয়ে মানুষকে আনন্দ দিত।

এঁরা হলেন লোককবি ছফিরউদ্দিন, অখিল ঠাকুর ও কুতুবউদ্দিন। জানা যায়, এঁরা তৎকালীন জমিদারদের অত্যাচারের বিরুদ্ধে ও স্বদেশের মুক্তির জন্য প্রেরণামূলক কবিতা ও গানে গানে সাধারণ মানুষকে উজ্জীবীত করেছিলেন।

একসময় কিশোরগঞ্জ অঞ্চলে যাত্রাগানেরও বেশ প্রচলন ছিল। তখন প্রধানত ওইসব যাত্রাগানে রাধাকৃষ্ণের লীলা, যথা নৌকা বিলাস, নিমাই সন্যাস ও মৈমনসিংহ গীতিকার মলুয়া পালা অবলম্বনে বাইদ্যার গান পরিবেশন করা হতো।

’৬০ থেকে ’৮০ দশকে এখানে প্রদর্শনীর (এক্সিবিশন) আয়োজন করা হতো। এসব প্রদর্শনীতে বিনোদনের প্রধাণ আকর্ষণ ছিল যাত্রাপালার আয়োজন। রথখোলা, পুরাতন স্টেডিয়াম ও পৌর মার্কেটে প্রায় প্রতিবছর মাসব্যাপী প্রদর্শনী হতো। সেখানে আয়োজিত  যাত্রাপালা দর্শকদের খ্বুই আনন্দ দিত।

তখনকার যাত্রাপালায় দর্শকনন্দিত বহু অভিনেতার দেখা পাওয়া যেত। তাদের মধ্যে ছিলেন যশোদলের এমএ মোতালিব, ইটনার রাখাল বন্ধু চক্রবর্তী আরো অনেকেই। এছাড়াও ছিলেন অমলেন্দু বিশ্বাস, জোৎস্না বিশ্বাস, তুষার দাশগুপ্ত, অঞ্জু ঘোষ, আমির সিরাজী, অরন্য বিশ্বাস প্রমুখ।

সেসময়কার যাত্রাদলগুলোর নাম হচ্ছে নিউ গনেশ অপেরা, বীণাপাণি অপেরা, নবরঞ্জন অপেরা, সবুজ অপেরা, ভোলানাথ অপেরা, নবযুগ অপেরা, কোহিনুর অপেরা ও বলাকা  অপেরা। (চলবে)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর