কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ভাষা আন্দোলন ও স্বৈরশাসন বিরোধী আন্দোলনে সংস্কৃতিচর্চা


 মু আ লতিফ | ৭ আগস্ট ২০১৯, বুধবার, ১২:১৯ | সংস্কৃতি 


১৯৫২ সালের ২১শে ফেব্রুয়ারির শাহাদৎ বরণের ঘটনা ছিল প্রকৃত অর্থে বাঙালি জাতীয়তাবাদের চেতনার রক্তস্নাত উন্মেষ। এই চেতনাই আমাদের উনসত্তর, সত্তর ও একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ এবং স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদ্বয়। অতএব একুশে আমাদের অহংকার ও  মুক্তির সোপান।

মহান একুশের আন্দোলনে ছাত্রসমাজ, রাজনীতিবিদরা ছাড়াও এদেশের সাংস্কৃতিক কর্মীদের অবদান অনৈস্বীকার্য। সারাদেশের ন্যায় কিশোরগঞ্জেও সেদিনগুলিতে এখানকার সাাংস্কৃতিক কর্মীরা মহান ভাষা আন্দোলন ও স্বৈরশাসন বিরোধী সচেতনতা সৃষ্টিতে কাজ করেছিলেন। তারা জনমনে জাগরণ ও তাদের উদ্দীপ্ত করতে এক অনন্য ভূমিকা পালন করেছিলেন।

একুশের রক্তস্নাত ঘটনার পর সরকার বাংলাকে অন্যতম রাষ্ট্রভাষা হিসাবে মেনে নিলেও শহীদ দিবস পালন কঠিন ছিল। স্বৈরাচারী সরকার কোনো ভাবেই শহীদ দিবস পালন করতে দিত না।

শত প্রতিকূলতার মধ্যদিয়ে গুরুদয়াল কলেজে ১৯৬২ সালে প্রথম শহীদ দিবস পালন করা হয়েছিল। এর নেতৃত্ব দিয়েছিলেন আবু তাহের খান পাঠান।

ইটের ওপর ইট দাঁড় করিয়ে সেদিন শহীদ মিনার তৈরি করেছিল ছাত্ররা। এর সঙ্গে জড়িত ছিলেন আবদুস সহিদ (পরে স্কুল শিক্ষক), মো. শামসুল আরেফিন (পরে কলেজ শিক্ষক), জালাল আহমেদ (পরে কলেজ অধ্যক্ষ) ও সৈয়দ ইরফানুল বারী (পরে হক-কথা’র সম্পাদক) ও আরো অন্যান্য।

এর পরের বছর ১৯৬৩ সালে স্থানীয় খেলার মাঠে (পুরাতন স্টেডিয়াম) বৃহৎ পরিসরে প্রথম শহীদ দিবস পালিত হয়।

কিশোরগঞ্জে স্থানীয়ভাবে রচিত গান দিয়ে শহীদ দিবসে প্রভাতফেরি করা হতো। জানা যায়, আবু তাহের খান পাঠানের আগ্রহে প্রভাতফেরির এ গানটি রচনা করেন শিল্পী নারায়ণ সরকার ও এর সুর করেছিলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার উস্তাদ শিল্পী অশ্বিনী কুমার রায়।

গানটির কয়েকটি পঙক্তি নিম্নরূপ: ‘এলো রে এলো রে এলো আজ এই সেই দিন/ ব্যথায় ভরা বেদনায় গড়া এই সেই দিন। আাঁখি জল ভরা বেদনায় গড়া/ স্মৃতিতে ঘেরা এই সেই দিন। ভায়েরও নয়নে অশ্রু ঝরে/ বোনেরও নয়নে অশ্রু ঝরে/ জননী কাঁদিছে নিশার শেষে/ ওই এলো রে নিশার শেষে/ বাংলা ভাষার দাবিতে মান দিল যাঁরা জীবন কোরবান/ তাঁদের স্মরণে হয়ে মহীয়ান/ ওই এলো রে নিশার শেষে।’

গানটি খুবই হৃদয়গ্রাহী ও জনপ্রিয় ছিল। শহীদ দিবসে প্রভাতফেরিতে গরুর গাড়িতে ওঠে শিল্পীরা হারমনিয়াম তবলাসহ গানটি গাইতো এবং শহর প্রদক্ষিণ করে শেষে শহীদ মিনারে ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন করা হতো।

কিশোরগঞ্জে প্রতিটি গণতান্ত্রিক আন্দোলনেও শিল্পী সমাজের সক্রিয় অংশ গ্রহণ ছিল। আইয়ুব শাহী ও ইয়াহিয়ার রিুদ্ধে এখানকার শিল্পী সমাজ গান, নাটক মঞ্চায়ন ও অন্যান্য সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডের মাধ্যমে শোষণ-বঞ্চনার বিরুদ্ধে সোচ্চার ছিলেন।

তারা প্রতিটি আন্দোলনে রাজনীতিবিদদের সাহস যুগিয়েছেন এবং জনগণকে সচেতন করে গড়ে তুলতে সক্রিয় ভূমিকা পালন করেছেন।

শিল্পী মৃনাল দত্তের লেখা কয়েকটি গানের চরণ নিম্নে দেয়া হলো:
 ক) ‘মানবো না মাননবো না (২)/ ইয়াহিয়ার কোনো শাসন মানবো না (২)/ খ) বীর বাঙালি আমরা স্বাধীন/ পরাজয় আর মানবো না/ গ) ইতিহাস লিখেছি তো আমরা/ আমরা তো কভু হার মানিনি/ শত্রুকে আমাদের পতাকা/ কখনো দিইনি মোরা দিইনি/ ঘ) বিদ্রোহ আজ বিদ্রোহ চারিদিকে/ আমরা সবাই বাঙালি তাই/ এসো আমার ডাকে/বিদ্রোহ আজ বিদ্রোহ চারিদিকে।’

এছাড়াও কালিয়াচাপড়ার শামসুল হক হায়দার, চৌদ্দশতের অখিল গোস্বামী, রশিদাবাদের ছফিরউদ্দিন, করিমগঞ্জের মিয়া হোসেন, বারপাড়ার জামাল মীর, গীতিকার শাহ মো. কেরামত আলী স্বরচিত কবিতা আবৃত্তি  ও গান মানুষের চেতনাকে হৃদ্ধ করে তুলেছিল।

তখনকার সংস্কৃতিকর্মীরা সঙ্গীত ও নাটকে মানুষের মধ্যে গণজোয়ার সৃষ্টিতে বিশেষ অবদান রেখেছিলেন। (চলবে)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর