কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ধর্ষণের আগে বাসের ভেতরে ফেলে দিয়ে নার্স তানিয়াকে কাবু করা হয়


 আশরাফুল ইসলাম, প্রধান সম্পাদক, কিশোরগঞ্জনিউজ.কম | ৮ আগস্ট ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৭:৩৩ | বিশেষ সংবাদ 


স্বর্ণলতা পরিবহনের চলন্ত বাসে কটিয়াদীর মেয়ে নার্স শাহিনূর আক্তার তানিয়াকে গণধর্ষণ শেষে হত্যার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় ৯ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশীট দাখিল করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (৮ আগস্ট) কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আল মামুন এর আদালতে চার্জশীট দাখিল করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা বাজিতপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. সারোয়ার জাহান।

অভিযুক্তরা হলো, বাসচালক নূরুজ্জামান নূরু, নূরুর খালাতো ভাই বোরহান, বাসের হেলপার লালন মিয়া, সুপারভাইজার আল আমিন, কটিয়াদীর কাউন্টার মাস্টার রফিকুল ইসলাম রফিক, লাইনম্যান মো. খোকন মিয়া, পিরিজপুর কাউন্টার মাস্টার মো. বকুল মিয়া ওরফে ল্যাংড়া বকুল, বাসমালিক আল মামুন এবং স্বর্ণলতা পরিবহনের এমডি পারভেজ সরকার পাভেল।

তাদের মধ্যে নূরুজ্জামান নূরু, লালন মিয়া, রফিকুল ইসলাম রফিক, মো. খোকন মিয়া, মো. বকুল মিয়া ওরফে ল্যাংড়া বকুল ও আল মামুন এই ছয় আসামি গ্রেপ্তারের পর কারাগারে রয়েছে।

বাকি তিন অভিযুক্ত প্রথম ধর্ষণকারী বোরহান, সুপারভাইজার আল আমিন ও স্বর্ণলতা পরিবহনের এমডি পারভেজ সরকার পাভেল পলাতক রয়েছে।

এছাড়া মামলার এজাহারভূক্ত আসামি পিরিজপুর বাসস্ট্যান্ড এলাকার ব্যবসায়ী আব্দুল্লাহ আল মামুনকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।

অভিযুক্ত নয় আসামির মধ্যে বাসের চালক মো. নূরুজ্জামান নূরু গাজীপুর জেলার কাপাসিয়া উপজেলার টোক নয়নবাজার ইউনিয়নের সালুয়াটেকি গ্রামের মৃত গিয়াস উদ্দিনের ছেলে, হেলপার মো. লালন মিয়া একই ইউনিয়নের বীর উজুলি গ্রামের মৃত আব্দুল হামিদের ছেলে, কটিয়াদীর কাউন্টার মাস্টার মো. রফিকুল ইসলাম রফিক একই উপজেলার বাড়িসাবর ইউনিয়নের লোহাদি গ্রামের নজর আলীর ছেলে, লাইনম্যান মো. খোকন মিয়া কটিয়াদী উপজেলার ভোগপাড়া এলাকার দুলাল মিয়ার ছেলে, পিরিজপুরের কাউন্টার মাস্টার মো. বকুল মিয়া ওরফে ল্যাংড়া বকুল বাজিতপুর উপজেলার পিরিজপুর ইউনিয়নের নিলখী মৃত আব্দুস শাহিদ ভূইয়ার ছেলে, বাসমালিক আল মামুন গাজীপুর জেলার কাপাসিয়া উপজেলার ঘোড়াদিয়া গ্রামের আসাদুজ্জামান মনিরের ছেলে, বোরহান গাজীপুর জেলার কাপাসিয়া উপজেলার বীর উজুলী গ্রামের মফিজ উদ্দিন ওরফে দুলাল মিয়ার ছেলে, সুপারভাইজার আল আমিন গাজীপুর জেলার কাপাসিয়া উপজেলার ভেঙ্গুরদিয়া গ্রামের ওয়াহিদুজ্জামানের ছেলে এবং স্বর্ণলতা পরিবহনের এমডি পারভেজ সরকার পাভেল গাজীপুর জেলার কাপাসিয়ার উপজেলার তরগাঁও এর চাঁন মিয়া ডিলারের ছেলে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা বাজিতপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. সারোয়ার জাহান জানান, সিডিডকেটসহ ২৪০ পাতার অভিযোগপত্র আদালতে জমা দেয়া হয়েছে। সাত জন এক্সপার্টসহ মোট ৪৫ জনকে মামলায় সাক্ষী করা হয়েছে। আগামী ১২ই সেপ্টেম্বর এই মামলার পরবর্তী ধার্য্য তারিখ।

নিহত শাহিনুর আক্তার তানিয়া কটিয়াদী উপজেলার লোহাজুরী ইউনিয়নের বাহেরচর গ্রামের গিয়াস উদ্দিনের মেয়ে। তিনি ঢাকার ইবনে সিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কল্যাণপুর শাখায় সিনিয়র স্টাফ নার্স হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

কর্মস্থল ঢাকা থেকে বাড়িতে আসার জন্য গত ৬ মে বিকালে ঢাকার বিমানবন্দর থেকে স্বর্ণলতা পরিবহনের একটি বাসে (ঢাকা মেট্রো ব-১৫-৪২৭৪) ওঠেছিলেন শাহিনুর আক্তার তানিয়া। বাড়ির নিকটতম এলাকা বাজিতপুর উপজেলার বিলপাড় জামতলীতে চলন্ত বাসে গণধর্ষণের শিকার হন। গণধর্ষণ শেষে তাকে বাস থেকে ফেলে হত্যা করা হয়। পরে স্বর্ণলতা পরিবহনের কটিয়াদীর কাউন্টার মাস্টার মো. রফিকুল ইসলাম রফিক ও সুপারভাইজার আল আমিন নার্স তানিয়ার নিথর দেহ কটিয়াদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন তাকে।

তানিয়া হত্যাকাণ্ডের পরদিন ৭ মে রাতে নিহত শাহিনুর আক্তার তানিয়ার পিতা মো. গিয়াস উদ্দিন বাদী হয়ে বাসের চালক নূরুজ্জামান নূরু, হেলপার লালন মিয়া, হাসপাতালে তানিয়ার মরদেহ আনয়নকারী আল আমিন এবং পিরিজপুর বাসস্ট্যান্ড এলাকার ব্যবসায়ী আব্দুল্লাহ আল মামুন এই চারজনের নামোল্লেখ এবং অজ্ঞাতনামা বেশ কয়েকজনকে আসামি করে বাজিতপুর থানায় ধর্ষণ ও হত্যা মামলা দায়ের করেছিলেন।

মামলার এজাহারভূক্ত চার আসামির মধ্যে বাসচালক নূরুজ্জামান নূরু ও হেলপার মো. লালন মিয়া এই দু’জন ছাড়াও সন্দিগ্ধ আসামি কটিয়াদীর কাউন্টার মাস্টার মো. রফিকুল ইসলাম রফিক, লাইনম্যান মো. খোকন মিয়া ও পিরিজপুর কাউন্টার মাস্টার মো. বকুল মিয়া ওরফে ল্যাংড়া বকুলকে ঘটনার রাতেই গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

পরে গত ৮ই মে আদালত গ্রেপ্তার হওয়া পাঁচ আসামির প্রত্যেককে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৮দিন করে রিমান্ড মঞ্জুরের পর ওইদিন তাদের রিমান্ডে নেয়া হয়। তাদের মধ্যে বাসচালক নূরুজ্জামান নূরু, বাসের হেলপার লালন মিয়া ও কটিয়াদীর কাউন্টার মাস্টার রফিকুল ইসলাম রফিক আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। তাদের স্বীকারোক্তিতে বাসমালিক আল মামুনের নাম আসায় তাকে ১৭ জুলাই গ্রেপ্তার করা হয়।

আসামিদের ১৬৪ ধারায় দেয়া স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি এবং তদন্তে ওঠে আসে, বাসচালক নূরুজ্জামান নূরু ও হেলপার লালন মিয়া জানায়, বাসচালক নূরুজ্জামান নূরু, বাসের হেলপার লালন মিয়া এবং নূরুর খালাতো ভাই ও বাসটির অপর হেলপার বোরহান এই তিনজনে মিলে পালাক্রমে তানিয়াকে ধর্ষণ করে। তাদের মধ্যে প্রথম ধর্ষণকারী ছিলো বোরহান। কিন্তু বোরহানকে এখনো গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ।

এছাড়া চার্জশীটভুক্ত নয় আসামির মধ্যে বোরহান ছাড়াও সুপারভাইজার আল আমিন ও স্বর্ণলতা পরিবহনের এমডি পারভেজ সরকার পাভেল ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়ে গেছে।

এ প্রসঙ্গে বৃহস্পতিবার (৮ আগস্ট) দুপুরে পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ, বিপিএম (বার) এক প্রেস ব্রিফিংয়ে জানান, তানিয়া ধর্ষণ-হত্যা মামলাটি একটি গুরুত্বপূর্ণ মামলা। মামলাটির তদন্তে পুলিশকে নিবিড়ভাবে কাজ করতে হয়েছে।

বাসের চালক নূরুজ্জামান নূরু, তার খালাতো ভাই বোরহান ও বাসের হেলপার লালন মিয়া তানিয়া ধর্ষণ ও হত্যার সঙ্গে সরাসরি জড়িত। ধর্ষণের আগে বাসের ভেতরে তাকে ফেলে দেয়ায় বনেটের সাথে লেগে মাথায় প্রচণ্ড আঘাতপ্রাপ্ত হন তানিয়া। এতে তানিয়া নিস্তেজ হয়ে পড়েন। এ অবস্থাতেই তানিয়াকে পালাক্রমে ধর্ষণ করা হয়। ধর্ষণের পর বাস থেকে ফেলে তাকে হত্যা করা হয়।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর