কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


মুক্তিযুদ্ধে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার ইতিকথা


 জাহাঙ্গীর আলম জাহান | ৯ আগস্ট ২০১৯, শুক্রবার, ৭:০৪ | মুক্তিযুদ্ধ 


কিশোরগঞ্জ জেলার উত্তরে ময়মনসিংহ, নেত্রকোণা ও সুনামগঞ্জ জেলা, দক্ষিণে নরসিংদী জেলা, পূর্বে হবিগঞ্জ ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা এবং পশ্চিমে গাজীপুর ও ময়মনসিংহ জেলার অবস্থান। জেলার স্থলভাগ ২৪৭৪ বর্গ কি.মি. এবং জলভাগ ৮৩ বর্গ কি.মি.। উজান-ভাটির মিলিত বৈচিত্র্যে কিশোরগঞ্জ যেন প্রাকৃতিক শোভামণ্ডিত এক চমৎকার জনপদ।

একদিকে বিশাল হাওর বেষ্টিত বিস্তীর্ণ ভাটি অঞ্চল, অন্যদিকে প্রকৃতির লীলাময় উজান এলাকা। ভূ-প্রকৃতিগত বিচিত্র শোভাময়তা এ অঞ্চলকে এক অপরূপ সুষমায় সাজিয়ে রেখেছে। জেলার ইটনা, অষ্টগ্রাম, মিটামইন এবং নিকলী থানা হাওর অধ্যুষিত এক বিস্তৃত জনপদ।

এছাড়া করিমগঞ্জ, বাজিতপুর, তাড়াইল ও কুলিয়ারচর থানার অংশবিশেষও হাওরের স্পর্শে প্রাকৃতিক সমৃদ্ধি লাভ করেছে। নরম পলিমাটির কোমল ছোঁয়ায় কিশোরগঞ্জ জেলার আপামর মানুষও যেন লাভ করেছে প্রকৃতির স্নেহার্দ্র্য কোমলতা।

তুলনামূলক বন্ধুবৎসল এবং অতিথিপরায়ণ এ জনপদের মানুষ যে কোনো দুর্যোগে বুক বেঁধেছে সম্মিলিত সাহসে। মোঘল শাসনের বিরুদ্ধে স্বাধীনচেতা ঈশা খাঁ’র বিদ্রোহ, ব্রিটিশবিরোধী সংগ্রামমুখর সুদীর্ঘ আন্দোলন এবং পাকিস্তানী শাসন-শোষণের বিরুদ্ধে তুমুল আক্রোশে ফুঁসে ওঠা বিপুল বিক্রম- সব ক্ষেত্রেই কিশোরগঞ্জবাসীর অগ্রগণ্য ভূমিকা জেলাবাসীকে গৌরবের মর্যাদায় অভিষিক্ত করেছে।

১৯৭১-এর মহান মুক্তিযুদ্ধকালে মুক্তিযুদ্ধের প্রাণপুরুষ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান গ্রেফতার হয়ে পাকিস্তানী কারাগারে নীত হন। মহান নেতার অনুপস্থিতিতে মুক্তিযুদ্ধকে এগিয়ে নেয়ার ক্ষেত্রে কিশোরগঞ্জের কৃতী পুরুষ, প্রবাসী সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলামের বিচক্ষণ ভূমিকা এ দেশের স্বাধীনতার ইতিহাসে এক অবিস্মরণীয় অধ্যায় হয়ে আছে। সে হিসেবে মুক্তিযুদ্ধের গৌরবজনক ইতিহাসে কিশোরগঞ্জের অবদান অবশ্যই অগ্রগণ্য ও অনস্বীকার্য।

মুক্তিযুদ্ধের পটভূমি: ১৯৫২-এর ভাষা আন্দোলনকে কেন্দ্র করে কিশোরগঞ্জের জনমনে পাকিস্তান বিরোধী আবেগ সঞ্চারিত হতে শুরু করে; যার ধারাবাহিকতায় ৬২’র শিক্ষা আন্দোলন, ৬৬’র ছয় দফা এবং ৬৮-৬৯’র গণ আন্দোলনেও এ মহকুমার জনসাধারণ সক্রিয়ভাবে অংশ নিয়েছিলেন। মূলত আওয়ামী লীগ নেতা শেখ মুজিবুর রহমানের ছয় দফাকে কেন্দ্র করেই এ জনপদে গণআন্দোলনের তীব্রতা বৃদ্ধি পায়।

মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম পুরোধা, প্রবাসী বাংলাদেশ সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলামের শহর হওয়ায় কিশোরগঞ্জে মুক্তিযুদ্ধের প্রস্তুতিপর্ব ছিল যে কোনো শহরের তুলনায় অনেক বেশি জোরালো এবং বেগবান।

বাঙালির জাতীয় জীবনে এক উল্লেখযোগ্য ঘটনার নাম মহান মুক্তিযুদ্ধ। পাকিস্তানি শাসকচক্রের প্রায় চব্বিশ বছরের শোষণ-নিপীড়নের বিরুদ্ধে ধীরে ধীরে গড়ে ওঠা অসন্তোষ ১৯৭১-এ এসে দাবানলের মতো ছড়িয়ে পড়ে গাঙ্গেয় বদ্বীপের এই বিস্তৃত জনপদে।

২৬শে মার্চ পাকিস্তানের সামরিক শাসক ইয়াহিয়া খানের নির্দেশে বর্বর পাকিস্তানি সেনারা ঢাকার বুকে ‘অপারেশন সার্চলাইট’ নামক নির্বিচার গণহত্যায় মেতে ওঠে। ওই রাতেই বাঙালির অবিসংবাদিত নেতা সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বঙ্গসন্তান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আনুষ্ঠাকিভাবে স্বাধীনতার ঘোষণা দেন। মহান নেতার ঘোষণার মধ্য দিয়েই শুরু হয়ে যায় বাঙালির সর্বাত্মক মুক্তিযুদ্ধ।

মুক্তিযুদ্ধের প্রস্তুতি ও মুক্তিযোদ্ধাদের প্রশিক্ষণ: বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণের পর সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের অনিবার্যতা স্পষ্ট হয়ে ওঠে। দেশমাতৃকার টানে সর্বস্তরের মানুষ বিশেষ করে তরুণ-যুবকেরা স্বতঃস্ফূর্তভাবে মুক্তিযুদ্ধের প্রস্তুতি নিতে শুরু করে। এ-রকম উদ্যমী তরুণদের সমন্বয়ে কিশোরগঞ্জ স্টেডিয়ামে শুরু হয় সামরিক প্রশিক্ষণের পালা। একজন বাঙালি আনসার কমান্ডার এই প্রশিক্ষণ পরিচালনা করতেন।

অন্যদিকে কিশোরগঞ্জ শহরের আজিম উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয় মাঠেও আরেকদল তরুণ-যুবককে সামরিক প্রশিক্ষণ দেওয়া শুরু হয়। যশোদল গ্রামের আব্দুর রশীদ নামক একজন বাঙালি সৈনিক ছুটিতে এসে আর কর্মস্থলে ফিরে যাননি। তিনিই ওই সকল তরুণ-যুবককে আজিম উদ্দিন হাইস্কুল মাঠে নিয়মিত প্রশিক্ষণ দিতেন।

এছাড়া শহরের আখড়াবাজারস্থ শিল্পকলা একাডেমি সংলগ্ন সনাতন ধর্মাবলম্বীদের আখড়া চত্বরেও তরুণ-যুবকদের সামরিক প্রশিক্ষণ দেওয়া হতো। পাকুন্দিয়ার জাঙ্গালিয়া গ্রামের অধিবাসী, কোদালিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও সাবেক সেনা সদস্য আব্দুস ছোবান এই প্রশিক্ষণ পরিচালনা করতেন।

২৫ মার্চ রাতে ঢাকায় হানাদার পাকিস্তান সেনাবাহিনী গণহত্যা সংঘটনের মাধ্যমে বাঙালি জাতির উপর সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধ চাপিয়ে দেয়। যে কোনোদিন কিশোরগঞ্জেও হানাদার বাহিনীর আগমন ঘটতে পারে- এ আশঙ্কায় কিশোরগঞ্জের বেশকিছু সাহসী তরুণ স্থানীয় ভিত্তিতে সংগৃহীত হাল্কা অস্ত্র নিয়ে শহরের চতুর্দিকে শত্রুপক্ষকে প্রতিরোধের জন্য টহল জোরদার করেন।

শহরের শহিদী মসজিদ সংলগ্ন ইসলামিয়া ছাত্রাবাসটি হয়ে ওঠে মুক্তিকামী ছাত্র-যুবকদের পরামর্শ কেন্দ্র। এখানে বসেই তারা পাকিস্তান সেনাবাহিনীর আগমন ও আক্রমণ প্রতিরোধের ছক তৈরি করেতন।

মুক্তিবাহিনীর প্রাথমিক প্রতিরোধ: ২৫ মার্চ দিবাগত রাতে ঢাকায় হানাদার পাকিস্তান সেনাবাহিনীর নির্মম গণহত্যার পরপরই বেঙ্গল রেজিমেন্টের তৎকালীন বাঙালি সেনা কর্মকর্তা মেজর কে.এম. শফিউল্লাহ (স্বাধীনতা-উত্তর সেনাপ্রধান) তার ট্রুপস নিয়ে বিদ্রোহ ঘোষণা করেন। তিনি জয়দেবপুর এলাকায় বিদ্রোহের দাবানল ছড়িয়ে এক পর্যায়ে অধীনস্থ সৈনিকদের নিয়ে ময়মনসিংহ হয়ে ১ এপ্রিল কিশোরগঞ্জে স্থিত হন। শহরের আজিমউদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ে বিদ্রোহী সেনাদের ঘাঁটি স্থাপিত হয়। বাঙালি সেনাদের আগমনে কিশোরগঞ্জের জনমনে মুক্তিযুদ্ধের প্রশ্নে সৃষ্টি হয় প্রবল সাহস ও উদ্দীপনা।

উল্লেখ্য যে, হানাদার পাকিস্তান সেনাবাহিনীর সম্ভাব্য আগমন প্রতিরোধের জন্য উত্তেজিত ছাত্র-জনতা এপ্রিল মাসের শুরুতেই কিশোরগঞ্জ-যশোদল রেলপথের মধ্যবর্তী স্থান উপড়ে ফেলেছিল।

এপ্রিল মাসের ১১/১২ তারিখে হঠাৎ খবর আসে যে, হানাদার পাকিস্তান সেনাবাহিনী পাকুন্দিয়ার মঠখোলা হয়ে কিশোরগঞ্জের দিকে এগিয়ে আসছে। এ খবর শোনার পর মুক্তিযুদ্ধের মন্ত্রে উদ্দীপ্ত কয়েক তরুণ স্থানীয়ভাবে সংগৃহীত হাল্কা অস্ত্র ও পেট্রোল বোমাসহ পাকিস্তান সেনাবাহিনীকে প্রতিরোধ করার জন্য প্রবল সাহসে মঠখোলার দিকে ছুটে যান। দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা করার পর জানা গেল যে হানাদার বাহিনীর আগমন সংবাদটি ছিল নিছক গুজব।

কিশোরগঞ্জে হানাদার পাকিস্তান সেনাবাহিনীকে প্রতিরোধ করার এই প্রবল বিক্রম তৎকালীন মহকুমাবাসীর মধ্যে মুক্তিযুদ্ধের অদম্য স্পৃহা সঞ্চারিত করেছিল।

এদিকে কুমিল্লা ক্যান্টনমেন্ট থেকে বেরিয়ে আসেন কিশোরগঞ্জের সন্তান ক্যাপ্টেন এ.টি.এম. হায়দার। তিনি শহরের পৈতৃক বাড়িতে ফিরে এসে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর সম্ভাব্য আগমন প্রতিরোধের ছক তৈরি করেন।

সে মোতাবেক ১৪ এপ্রিল বিকেলে ভারতীয় সেনাবাহিনীর ৬ কমান্ডোসহ ক্যাপ্টেন হায়দার চলে যান কিশোরগঞ্জ-ময়মনসিংহ মহাসড়কের তারেরঘাট ব্রিজে। শক্তিশালী ডিনামাইটের আঘাতে তিনি প্রথমে তারেরঘাট ব্রিজ ধসিয়ে দেন। এরপর কিশোরগঞ্জ-ময়মনসিংহ রেলপথের মুশুলী রেলব্রিজটিও একই কায়দায় তিনি ধ্বংস করেন।

কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় হানাদার পাকিস্তান বাহিনীর বিরুদ্ধে স্থানীয় মুক্তিকামী মানুষের এটিই ছিল প্রতিরোধের প্রথম সোপান। (চলবে)

# জাহাঙ্গীর আলম জাহান, ছড়াকার, প্রাবন্ধিক, ইতিহাস-মুক্তিযুদ্ধ ও লোকসংস্কৃতির গবেষক, প্রকাশিত গ্রন্থের সংখ্যা ৪১টি।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর