কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


যেমন কাটবে কিশোরগঞ্জের ঈদ


 তন্ময় আলমগীর | ১০ আগস্ট ২০১৯, শনিবার, ৬:৩৪ | রকমারি 


ত্যাগের মহিমায় উদ্ভাসিত হয়ে সোমবার (১২ আগস্ট) বৃহত্তম ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল-আজহা উদযাপনে প্রস্তুত দেশের মুসলিমরা। রাজধানী ঢাকা, কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়া ও দিনাজপুরসহ সারা দেশে ঈদের জামাত আয়োজনের জন্য ইতিমধ্যে প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। ঈদের জামাত শেষ হওয়ার পর কুরবানি। তারপর? তারপর কেমন হবে কিশোরগঞ্জের ঈদ? কেমন করে ঈদ কাটায় কিশোরগঞ্জবাসী?

ঐতিহ্যগতভাবে  ঈদের এই দিনটিকে আনন্দের দিন বলা হলেও ডেঙ্গুর আতঙ্কের কারণে সে আনন্দে খানিকটা ভাটা পড়বে এতে কোন সন্দেহ নেই। তারপরও আনন্দ উদযাপনে কমতি নেই কিশোরগঞ্জবাসীর। কেননা, বাঁধভাঙা হৈ-হুল্লোড়, ঘোরাঘুরি, পাড়া-মহল্লায় আড্ডা, হাওরপাড়ায় সমদ্রের স্বাদ, নতুন সংযোজিত নরসুন্দার মুক্তমঞ্চ-ওয়াচটাওয়ার, আত্মীয়দের বাসায় বেড়ানো; কিশোরগঞ্জের ঈদ আনন্দের সংস্কৃতি বছরের পর বছর অনেকটা এ রকমই।

এ বিষয়ে কথা হয় সরকারি গুরুদয়াল কলেজের শিক্ষার্থী ফারিয়ার সাথে। তিনি জানান, ঈদের দিন বিকেলে রিকশায় চড়ে ঘুরে বেড়াবেন বান্ধবিদেরকে নিয়ে। ঘুরাঘুরির কোন গন্তব্য থাকবে না। চলতে চলতে যেখানে যেতে মন চায় যাবেন; হুট করে ঢুকে যাবেন কোন রেস্টুরেন্টে। কেবল কফি খাবেন। কারণ বাসায় তখন রান্না হতে থাকবে কুরবানির গোশত। যদি বৃষ্টি নামে? এমন প্রশ্নের উত্তরে বলেন, এটাই তো চাই। এতে ঈদের আনন্দে নতুন মাত্রা যোগ করবে।

আরেক শিক্ষার্থী স্বপন জানান, আমার কাছে ঈদ মানেই হাওর বিলাস। বন্ধুদের সাথে বাইকে চড়ে চলে যাবো বাংলাদেশের মিনি সমুদ্র সৈকত খ্যাত নিকলির বেরিবাধ, করিমগঞ্জের বালিকলা, তাড়াইলের হিজলজানি, ইটনা-মিঠামইন বা অষ্টগ্রামের মতো আরো গভীর কোন জলরাশির সন্ধানে।

ওয়ালিনেওয়াজ খান কলেজের শিক্ষার্থী সাজ্জাদ নিভু গলায় বলেন, এবারের ঈদটা হয়তোবা আমার জন্য পানসে হয়ে যাবে। আম্মু আব্বুর কড়া নির্দেশ বাসা থেকে বের হওয়া যাবে না। ডেঙ্গুর আতঙ্ক দূর না পর্যন্ত এ আদেশ বলবত থাকবে। শুধু আমার না, এমন অবস্থা আমার প্রায় সব ক্লাসমেটদেরই।

কিশোরগঞ্জ পলিটেকনিকের শিক্ষার্থী জুম্মুন জানান, বাসার কাছে অবস্থিত নরসুন্দার লেকপাড়, মুক্তমঞ্চ আর ওয়াচটাওয়ারই আমার প্রথম পছন্দ। ঈদের দিন হাজারো মানুষ ভিড় করে সেখানে। এই নয়নাভিরাম জায়গাটিতে না গেলে ঈদকে আমার কাছে ঈদই মনে হয় না।

ঈদের দিনটিতে কিশোরগঞ্জের যানজট-মুখর রাস্তা অনেকটাই থাকবে ফাঁকা। মাঝে মধ্যেই হুঁশ করে বেরিয়ে যাবে মোটরসাইকেল আরোহী তরুণের দল। অনেকে বের হবে অটোরিকশা নিয়েও। গাইটালের এমন একটি দলের সাথে কথা হয় আমার। তারা বলেন, পনেরো-বিশজন বন্ধু মিলে কয়েকটা অটোরিকশা ভাড়া করে ঘুরে বেড়াই প্রতি ঈদেই। এবারও এর ব্যতিক্রম হবে না। সবাই এডিশ মশার প্রোটেক্ট সংগ্রহ করেছি। কোন সমস্যা হবে না ইনশাআল্লাহ।

ভিড় জমবে কিশোরগঞ্জের সিনেমা হলগুলোতে। বাংলাদেশে চলচ্চিত্রের এখন বেহাল দশা। তবুও ঈদ মৌসুমেই সবচেয়ে বেশী চলচ্চিত্র মুক্তি পায় । এসব চলচ্চিত্রের দর্শক মূলত নিম্ন আয়ের মানুষ। এদের ঈদ আনন্দ অনেকটা এই চলচ্চিত্র-কেন্দ্রিক। আর বিভিন্ন পার্ক যেমন নেহাল পার্ক, উবাই পার্ক, মায়া কানন তো আছেই। উচ্চবিত্তদের জন্য রয়েছে বিভিন্ন বার বা দেশের বাইরের বিভিন্ন স্পট।

কথা হয় ডাক্তার জাহাঙ্গীর আলমের সঙ্গে। তিনি জানান, সবসময় কিশোরগঞ্জেই ঈদ করেন তিনি। ঈদের দিন বিকেলে বাসায় আত্মীয়-স্বজনরা বেড়াতে আসেন। তাদের আপ্যায়ন করেন যথাযথভাবে। নিজেরাও বেড়াতে যান। কোন কাজ না থাকলে  ঈদের দিনে পরিবার-পরিজনের সাথে বাসাতেই টিভি দেখে সময় কাটান, তেমন একটা বের হন না। এবার তো আরো বের হবেন না। তিনি মেয়রের উপর কিছুটা ক্ষোভও ঢালেন ডেঙ্গু প্রাদুর্ভাবের প্রসঙ্গটি তুলে।

এতসব সমস্যার পরও অবশ্য দেখা যাবে কিশোরগঞ্জের বিভিন্ন উপজেলায় এই প্রজন্মের অনেক তরুণ-তরুণীকে, যারা বৃষ্টিমুখর ঈদের দিনটিতেও ছাতাবিহীন দলবেঁধে হৈচৈ করছে অথবা কাঠফাটা রোদে সানগ্লাস চোখে ঘুরে বেড়াচ্ছে দিগ্বিদিক। এমনটাই মনে করেন কবি জেবুন্নেসা মায়া।

তিনি বলেন, ঘরে বসে বড়জোর বিশ্রাম করা যায়। আনন্দ পাওয়ার জন্য অথবা আনন্দ প্রকাশের জন্য বাইরে খোলা আকাশের নিচে বের হওয়ার বিকল্প নেই। এমন মতামতকে সমর্থন প্রদান করেছেন মনোবিদ আলাম নাশরাক।

আবার রয়েছে উল্টো রথও। সে রথের সদস্যরা সময় কাটাবে মুঠোফোন বা মনিটরের স্ক্রিনে। এ সংখ্যা নেহায়েত কম না। অনেকের ধারণা কিশোরগঞ্জের প্রতি একশ জনের মধ্যে ষাট জনই নাকি এভাবে ঈদ কাটাবে। এ ব্যাপারে জানতে চেয়েছিলাম ফেইসবুক সেলিব্রেটি জব্বর আরমানের কাছে। তিনি বলেন, আমরাও ঘোরাঘুরি কিংবা আত্মীয়-বন্ধুদের সাথে দেখা করে সময় কাটাবো। এর পাশাপাশি ইন্টারনেট ব্যবহার করে দূরে থাকা বন্ধুদের সাথে যোগাযোগ করে আরো বাড়িয়ে নিবো আমাদের ঈদ আনন্দ।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর