কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


মুক্তিযুদ্ধে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার ইতিকথা (পর্ব-৩)


 জাহাঙ্গীর আলম জাহান | ১১ আগস্ট ২০১৯, রবিবার, ৮:৫০ | মুক্তিযুদ্ধ 


সশস্ত্র যুদ্ধের অনিবার্যতা স্পষ্ট হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে আওয়ামী লীগ, ন্যাপ ও কম্যুনিস্ট পার্টির স্থানীয় নেতৃবৃন্দের সমন্বয়ে কিশোরগঞ্জে সর্বদলীয় সংগ্রাম পরিষদ গঠিত হয়। এছাড়া ছাত্রলীগ, ছাত্র ইউনিয়নের দুই গ্রুপ এবং মাহবুবুল হক দোলন সমর্থিত ন্যাশনাল স্টুডেন্ট ফ্রন্টের স্থানীয় ছাত্রনেতাদের সমন্বয়ে গঠিত হয় সর্বদলীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে ছাত্র-জনতাকে ঐক্যবদ্ধ করার ক্ষেত্রে এ দুই সংগঠন ব্যাপক জনসংযোগ অব্যাহত রাখে।

পূর্ব বাংলার স্বাধিকার ও স্বায়ত্বশাসনের প্রশ্নে গড়ে ওঠা কিশোরগঞ্জের গণআন্দোলনে যাদের অগ্রণী ভূমিকা আজও স্মরণীয় হয়ে আছে তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য কয়েকজন হচ্ছেন: আওয়ামী লীগ নেতা আশরাফ উদ্দিন মাস্টার, এড. আব্দুস সাত্তার, মো. আবদুল হামিদ (বর্তমান মহামান্য রাষ্ট্রপতি), মহিউদ্দিন আহমেদ, খন্দকার আব্দুল ওয়াদুদ, আব্দুল কুদ্দুছ মোক্তার, মোস্তাফিজুর রহমান খান (চুন্নু মোক্তার), একেএম শামসুল হক গোলাপ মিয়া, সিরাজ উদ্দিন মোক্তার, আবু হানিফ, বোরহান উদ্দিন মোক্তার, সাবির উদ্দিন আহমেদ, মাহমুদ হাসান, মো. আব্দুল করিম (নিরালা হোটেল), মতিওয়ার রহমান খান, ন্যাপ নেতা কাজী আব্দুল বারী, জমিয়ত আলী, গঙ্গেশ সরকার, বীর আব্দুল মান্নান, কম্যুনিস্ট নেতা নিবারণ চক্রবর্তী ও আব্দুল রাজ্জাক ভূঞা।

এছাড়া স্থানীয় শিক্ষাবিদ ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিগণও সে সময় গণআন্দোলনে নৈতিক সমর্থন প্রদান করে ইতিবাচক ভূমিকা রেখেছেন। তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য কয়েকজন হচ্ছেন অধ্যাপক নরেন্দ্র চন্দ্র ঘোষ, অধ্যাপক জিয়াউদদীন আহমদ, অধ্যাপক রফিকুর রহমান চৌধুরী, অধ্যাপক আতিকুল্লাহ চৌধুরী, প্রধান শিক্ষক মতিয়ুর রহমান, সার্জেন্ট আব্দুল জলিল, ডা. জে.বি. রায়, বিরাজমোহন রায়, নীলোৎপল কর, এম.এ. আজিজ প্রমুখ অন্যতম।

৬৮-৬৯’র গণআন্দোলনে স্থানীয় ছাত্রসমাজের ভূমিকাও ছিল অগ্রগণ্য। সে সময় যে সকল ছাত্রনেতা আন্দোলন সংঘটনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য কয়েকজন হচ্ছেন মো. আবদুল হামিদ (বর্তমান মহামান্য রাষ্ট্রপতি), মো. ফজলুর রহমান, মো. ফজলুল হক, মো. জিল্লুর রহমান, গোলাম রব্বানী বুলবুল, মো. মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাফিজ, লিয়াকত হোসাইন মানিক, শাহাবুদ্দিন ঠাকুর, মো. ইদ্রিস আলী, শাহাদৎ হোসেন, শওকত আহমদ আল-ফারুকী সানা, নাসির উদ্দীন ফারুকী, হেলাল উদ্দিন মানিক, হেলাল উদ্দিন ভূঞা, সাধন সাহা, মাহমুদ হোসেন, শাহ মনসুরুল হক, এম.এ. আফজল, জোনাব আলী, আলমগীর হোসেন, নিয়ামত উল্লাহ, মলং আব্দুল্লাহ মাহমুদ, মতিউর রহমান, কবির উদ্দিন ভূঞা, আগা হিলালী, গৌরাঙ্গ সরকার, নূরুল ইসলাম নূরু, আলমগীর হোসেন, ইকবাল হোসেন, সবিতা রায়, সাব্বির আহমদ মানিক, দিলারা বেগম আসমা, লতিফুর রহমান খান মরু, আনম তৌফিক পানু, জাহাঙ্গীর ভূঞা, মানিক লাল চৌধুরী, মশিউর রহমান, মোজাম্মেল হক খান রতন, গোলাম হায়দার চৌধুরী, বিকাশ মজুমদার, এম.এ. শুকুর, জীবন ঘোষ, ভূপেন্দ্র ভৌমিক দোলন, জাহাঙ্গীর হোসেন, আব্দুল হান্নান মোল্লা, নাজিম উদ্দিন কবির, সিরাজুল ইসলাম বীরবিক্রম (মুক্তিযুদ্ধে শহীদ), মো. আমিরুজ্জামান, শেখ নূরুন্নবী বাদল, আমিরুল ইসলাম, বিমলাংশু রায় বাবলু, মহিউদ্দিন ধন মিয়া, আকবর হোসেন খান, মিজানুর রহমান, অশোক সরকার, হাবীবুর রহমান মুক্তু, এনএসএফ (দোলন) গ্রুপের নেতা মো. আকরাম হোসেন, মাহবুবুল হক, আরজু মিয়া প্রমুখ।

স্থানীয় স্বাধীনতাকামী নেতৃবৃন্দের অনুপ্রেরণায় কিশোরগঞ্জ থেকে সর্বপ্রথম একুশ তরুণ মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিতে সীমান্ত পেরিয়ে ভারতের ত্রিপুরায় পাড়ি জমান। এদের মধ্যে অন্যতম কয়েকজন হচ্ছেন আতিকুর রহমান আতিক, নূরুল ইসলাম খান পাঠান (বীরপ্রতীক), একেএম রফিকুল হক (বীরপ্রতীক), কামরুজ্জামান কমরু, বাশির উদ্দীন ফারুকী, একেএম মুর্শেদুল হক, খলিলুর রহমান, খায়রুল বাশার খান পাঠান (সিরু পাঠান), ফজলুর রহমান বাচ্চু, মো. জসিম উদ্দিন, প্রদীপ সরকার ভজন, মো. পরশ আলী, শামসুল আলম বকুল, বিমলরঞ্জন সরকার, আব্দুর রশীদ, মো. বাবুল, আনিসুল হক সঞ্জু (বীরপ্রতীক), রেজাউল করিম, আজিজুল হক প্রমুখ।

মুক্তিযুদ্ধে স্থানীয় বিশেষ বাহিনী: কট্টর বাম ঘরানার ছাত্র রাজনীতিক হিসেবে সুপরিচিত ছিলেন কিশোরগঞ্জের উদ্যমী তরুণ আব্দুল হান্নান মোল্লা। মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে তিনি স্থানীয় ভিত্তিতে অস্ত্র সংগ্রহ করে সমমনা তরুণ-যুবকদের সমন্বয়ে গড়ে তোলেন একটি বিশেষ বাহিনী। বিভিন্ন প্রতিরোধ যুদ্ধে তার বাহিনীর অসাধারণ ভূমিকা আজও স্মরণীয় হয়ে আছে।

মোল্লা বাহিনী হিসেবে পরিচিত হান্নান মোল্লার সুসংগঠিত গ্রুপটি কিশোরগঞ্জ শহরতলীর মারিয়া, বিন্নাটি, কালটিয়া, চৌদ্দশত, পুলেরঘাটসহ হোসেনপুরের পুমদি, নান্দাইলের বাকচান্দা প্রভৃতি এলাকাকে অনেকদিন হানাদার-মুক্ত রাখতে সক্ষম হন।

মুক্তিযুদ্ধকালীন ১৩৭৮ বঙ্গাব্দের ২৫ আশ্বিন কিশোরগঞ্জ-পাকুন্দিয়া সড়কপথের কালটিয়া বাজারের কাছে গুলি করে পাকিস্তানী মিলিশিয়াবাহী ট্রাক বিধ্বস্ত করা, ৮ ডিসেম্বর শহরতলীর মেলাবাজার-বগাদিয়া এলাকায় রাজাকার বাহিনীর সাথে সম্মুখ যুদ্ধে অবতীর্ণ হওয়া, ১৪ ডিসেম্বর কামালিয়ারচর এলাকায় সম্মুখযুদ্ধে অংশগ্রহণ, হোসেনপুর থানাধীন চরপুমদি বাজারে স্থাপিত রাজাকার ক্যাম্পে আক্রমণ করে ক্যাম্পের অবসান ঘটানো এই বাহিনীর উল্লেখযোগ্য অপারেশন। মুক্তিযুদ্ধের শুরুতে স্থানীয় ভিত্তিতে গড়ে ওঠা মোল্লা বাহিনী পরবর্তী সময়ে ভারত থেকে নিয়মিত মুক্তিবাহিনী হিসেবে অনুমোদন লাভ করেছিল।

শান্তি কমিটি ও হানাদার বাহিনীর সহযোগী ব্যক্তিদের তৎপরতা: মুসলিম লীগ, পাকিস্তান ডেমোক্রেটিক পার্টি (পিডিপি), জামায়াতে ইসলামী এবং নেজামে ইসলাম নামক রাজনৈতিক দলগুলোই ১৯৭১ সালে কিশোরগঞ্জে মুক্তিযুদ্ধের বিরুদ্ধে সক্রিয় ছিল। এই সকল দল এবং দলের নেতারাই পাকিস্তানের তথাকথিত অখণ্ডতা রক্ষার নামে সরাসরি মুক্তিযুদ্ধের বিরুদ্ধে অবস্থান গ্রহণ করে।

হানাদার বাহিনীর নির্দেশে মওলানা সৈয়দ মুসলেহ উদ্দিনকে সভাপতি করে এখানে গঠিত হয় মহকুমা শান্তি কমিটি। কিশোরগঞ্জ শহরের পুরানথানাস্থ পাবলিক লাইব্রেরির দোতলায় শান্তি কমিটির একটি বিচারালয় স্থাপিত হয়েছিল।

পাকিস্তান-বিরোধী কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে ধৃত ব্যক্তিদের এই বিচারালয়ে হাজির করা হতো। বিচারকের আসনে বসতেন মওলানা সৈয়দ মুসলেহ উদ্দিন। স্বঘোষিত পাবলিক প্রসিকিউটরের দায়িত্ব পালন করতেন স্থানীয় একজন অবসরপ্রাপ্ত ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট।

এই বিচারালয়ে সোপর্দ করা ব্যক্তিদের কোনো সাজা হওয়ার অভিযোগ নেই। তবে ধৃত ব্যক্তিদের পাকিস্তানের অখণ্ডতা বিরোধী কর্মকাণ্ডে জড়িত না হওয়ার জন্য সতর্ক করে ছেড়ে দেওয়া হতো।

মুক্তিযুদ্ধবিরোধী শীর্ষস্থানীয় ব্যক্তিদের নাম ও পরিচয়: মুক্তিযুদ্ধকালে রাজনৈতিক বিশ্বাসের কারণে অনেকেই পাকিস্তানের পক্ষে এবং মুক্তিযুদ্ধের বিরুদ্ধে অবস্থান নেন। অনেকে মহকুমা শান্তি কমিটির সদস্যও হয়েছেন। তবে হাতে গোনা কয়েকজন বাদে অধিকাংশ ব্যক্তির বিরুদ্ধেই গণবিরোধী ভূমিকা রাখার উদাহরণ নেই। যারা হানাদার বাহিনীকে গণহত্যা, অগ্নিসংযোগ, লুণ্ঠন ও নারী ধর্ষণে সরাসরি সহযোগিতা করেছে এ জনপদে আজও তাদের নাম ঘৃণার সাথে উচ্চারিত হয়।

এ-রকম চিহ্নিত কয়েকজন দালাল-রাজাকারের মধ্যে  আব্দুর রহমান, মফিজ উদ্দিন, আবু লায়েছ, মানিক মিল্কী, তারা মিয়া, আরফান, বাদশা মিয়া, মওলানা মহিউদ্দিন আজমী, ইসহাক বিহারী, সোলেমান বিহারী, করম আলী, কদম রসুল বিহারী, মাহতাব উদ্দিন, সৈয়দ মুহম্মদ হাসান, সৈয়দ মুহম্মদ হুসেইন, কেএম আমিনুল হক (রজব আলী), শাজাহান চেঙ্গিস প্রমুখ অন্যতম। (চলবে)

# জাহাঙ্গীর আলম জাহান, ছড়াকার, প্রাবন্ধিক, ইতিহাস-মুক্তিযুদ্ধ ও লোকসংস্কৃতির গবেষক, প্রকাশিত গ্রন্থের সংখ্যা ৪১টি।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর