কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ডেঙ্গু কেড়ে নিলো কিশোরগঞ্জের দুই পরিবারের ঈদ


 আশরাফুল ইসলাম, প্রধান সম্পাদক, কিশোরগঞ্জনিউজ.কম | ১৪ আগস্ট ২০১৯, বুধবার, ৯:০২ | বিশেষ সংবাদ 


ঈদের আনন্দের দিনে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে রাজধানীর এ্যাপোলো হাসপাতালে মারা গেছেন সিআইডিতে কর্মরত কিশোরগঞ্জের সন্তান জামাল আহমেদ। সোমবার (১২ আগস্ট) সন্ধ্যায় হাসপাতালটিতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

এর আগের দিন রোববার (১১ আগস্ট) দুপুরের দিকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা গেছেন কিশোরগঞ্জের কলেজ ছাত্র ফরহাদ আহমেদ।

তাদের মধ্যে জামাল আহমেদ কিশোরগঞ্জ শহরের বত্রিশ মনিপুরঘাট এলাকার মো. আব্দুল মান্নানের ছেলে। তিনি সিআইডি’র সাইবার ক্রাইম ইউনিটে কর্মরত ছিলেন।

অন্যদিকে ফরহাদ আহমেদ জেলার ইটনা উপজেলার বড়িবাড়ি ইউনিয়নের শিমুলবাঁক হাটির পল্লী চিকিৎসক ফেরদৌস মিয়ার ছেলে। তিনি কিশোরগঞ্জ শহরের গুরুদয়াল সরকারি কলেজের অনার্স দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন।

তাদের মৃত্যুতে দু’টি পরিবারে ঈদের আনন্দ বিষাদে পরিণত হয়। স্বজনদের আহাজারি আর কান্না ছুঁয়ে যায় এলাকাবাসীকেও।

কিশোরগঞ্জ শহরের বত্রিশ মনিপুরঘাট এলাকায় জামাল আহমেদ এর বাসায় গিয়ে পরিবারের লোকজনের সাথে কথা হলে তারা জানান, গত ৮ই আগস্ট বিকালে মালিবাগের সিআইডি অফিসে দায়িত্ব পালনের সময় হঠাৎ মাথা ঘুরে পড়ে যান জামাল আহমেদ। সাথে সাথে তাকে রাজারবাগ পুলিশ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে জামাল আহমেদ বাসায় ফিরলেও প্রচণ্ড মাথা ব্যথা অনুভব করায় পরদিন ৯ই আগস্ট উত্তরার বাংলাদেশ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হন। এরপর থেকে ক্রমশ শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটে তার।

সংকটাপন্ন অবস্থায় রোববার (১১ আগস্ট) ভোর রাতে এ্যাপোলো হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় তাকে। সেখানে চিকিৎসকদের সব প্রচেষ্টাকে ব্যর্থ করে দিয়ে ঈদের দিন সোমবার (১২ আগস্ট) সন্ধ্যা ৬টা ২৫ মিনিটে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন জামাল।

রাতে মরদেহ কিশোরগঞ্জের বাসায় নিয়ে আসার পর পরের দিন মঙ্গলবার (১৩ আগস্ট) বাদ জোহর মনিপুরঘাট জামে মসজিদ প্রাঙ্গণে নামাজে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

স্বজনেরা জানিয়েছেন, চার ভাই ও দুই বোনের মধ্যে জামাল আহমেদ দ্বিতীয়। স্ত্রী সালমা আক্তার শান্তি এবং দুই পুত্র সন্তান সাজিদুর রহমান শাওন (১৫) ও সামিউল আহমেদ লিমন (১১) কে নিয়ে ছিল তার সাজানো সংসার। থাকতেন আব্দুল্লাহপুরের সিআইডি কোয়ার্টারে। বড় ছেলে সাজিদুর রহমান শাওন টঙ্গীর সিরাজ উদ্দিন সরকার বিদ্যানিকেতন এন্ড কলেজের দশম শ্রেণির ছাত্র আর ছোট ছেলে সামিউল আহমেদ লিমন একই প্রতিষ্ঠানের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র।

ছোট ছেলে সামিউল আহমেদ লিমন কাঁদতে কাঁদতে জানায়, গত ৮ আগস্ট অফিস শেষে বাসায় ফিরে তাদের নিয়ে ঈদের কেনাকাটা করার কথা ছিল তার বাবার। দুই ভাইকে নতুন পাঞ্জাবি কিনে দেয়ার কথা ছিল। কিন্তু সেই পাঞ্জাবি আর কেনা হয়নি তাদের।

জামাল আহমেদ এর ছোট ভাই কিশোরগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি রুমান আহমেদ জানান, ঈদের পর দিন ছুটিতে কিশোরগঞ্জের বাসায় আসার কথা ছিল তার ভাইয়ের। ঈদের পর দিন প্রিয় ভাইটি বাসায় ঠিকই ফিরেছেন, কিন্তু নিথর দেহে চিরদিনের ছুটি নিয়ে।

রুমান জানান, কোরবানির জন্য তারা গরু কিনে রেখেছিলেন। কিন্তু ভাইয়ের সঙ্কটাপন্ন অবস্থার কারণে ঈদের দিন কোরবানিও দেয়া হয়নি তাদের। এমন হাসিখুশি আর বন্ধু-বৎসল ভাইটি এভাবে তাদের ছেড়ে চলে যাবে, ভাবতেই পারেননি তারা!

এদিকে ঈদের আগের দিন (১১ আগস্ট) বেলা ১১টা ৫০ মিনিটের দিকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ১৫ নং ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন কলেজ ছাত্র ফরহাদ হোসেন (২০)। তিনি কিশোরগঞ্জ শহরের বাসায় থেকে কলেজে পড়তেন।

ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হলে তাকে কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তিন দিন চিকিৎসা নেয়ার পর তার অবস্থার অবনতি হলে গত ১০ আগস্ট তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়। বিকালে তাকে সেখানে ভর্তি করার পর পরদিনই ঢলে পড়েন মৃত্যুর কোলে।

ঈদের আগের দিন এমন মর্মান্তিক মৃত্যুর ঘটনায় ফরহাদের পরিবারে শোকের ছায়া নেমে আসে। ঈদের আনন্দ পরিণত হয় বিষাদে। এমন সম্ভাবনাময় তরুণের মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমে আসে পুরো এলাকায়।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর