কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেলের বহির্বিভাগে প্রথম দিনেই ১২০০ রোগির চিকিৎসা


 বিশেষ প্রতিনিধি | ১৫ আগস্ট ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৭:৫৭ | সম্পাদকের বাছাই  


অবশেষে কিশোরগঞ্জ জেলাবাসীর বহু কাংখিত শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজে প্রাথমিকভাবে চিকিৎসা সেবা শুরু হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৫ আগস্ট) থেকে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বহির্বিভাগে চিকিৎসা আনুষ্ঠানিকভাবে চালু করা হয়েছে।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে এই মহতী উদ্যোগটি নেওয়া হয়েছে। শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজের বহির্বিভাগের চিকিৎসা সেবার শুভ উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী।

এসময় পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার), কলেজের পরিচালক ডা. সাইফুর রহমান, অধ্যক্ষ ডা. সজল কুমার সাহা, সিভিল সার্জন ডা. মো. হাবিবুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এম এ আফজল, কিশোরগঞ্জ পৌরসভার মেয়র পারভেজ মিয়া, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশফাকুল ইসলাম টিটু, জেলা বিএমএ সভাপতি ডা. মাহবুব ইকবাল, সাধারণ সম্পাদক ডা. এম এ ওয়াহাব বাদল, সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মামুন আল মাসুদ খান, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আব্দুল কাদির মিয়া,  সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট মো. আতাউর রহমানসহ জেলা পর্যায়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা, কর্মচারী, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরীর স্বাস্থ্য পরীক্ষার মাধ্যমে বহির্বিভাগের চিকিৎসা সেবা কার্যক্রম শুরু করা হয়। হাসপাতালের আরপি মেডিসিন ডা. মুহাম্মাদ আবিদুর রহমান জিমি জেলা প্রশাসকের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করেন। পরে তিনি অন্যান্য অতিথিদেরও স্বাস্থ্য পরীক্ষা করেন।

প্রথম দিন ৫ জন প্রফেসরসহ মোট ১১ জন চিকিৎসক এক হাজার দুইশত রোগীকে প্রাথমিক চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হয়।

মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল সুত্রে জানা গেছে, ছুটির দিন ব্যতিত প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত হাসপাতালের বহির্বিভাগের রোগি দেখা হবে। শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মূল ফটকে এ সংক্রান্ত একটি ব্যানার টানানো হয়েছে। ব্যানারে  ১৫ আগস্ট থেকে হাসপাতালের বহির্বিভাগের রোগি দেখার ঘোষণা দেয়া হয়েছে।

মুক্তিযুদ্ধকালীন বাংলাদেশ সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলামের নামে তার নিজ এলাকা কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা যশোদলে প্রায় ৬০০ কোটি টাকা ব্যয়ে ২১ একর ভূমির উপর শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালটি প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। ৫০০ শয্যার এই মেডিকেল কলেজ হাসপাতালটিতে আধুনিক ও উন্নতমানের চিকিৎসার জন্য অবকাঠামোগত সকল সুযোগ-সুবিধা থাকবে।

২০১২ সাল থেকে শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজে প্রথম বর্ষে এমবিবিএস ক্লাসে ছাত্রছাত্রী ভর্তি করা হয়। মোট তিনটি ব্যাচ কলেজ থেকে বের হলেও হাসপাতাল চালু না হওয়ায় তাদের ইন্টার্নীশীপ করতে হচ্ছে কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যার জেনারেল হাসপাতালে। ৭ বছরেও হাসপাতাল চালু না হওয়ায় পাশ করা নতুন চিকিৎসকদের মধ্যে হতাশা বিরাজ করছিলো।

এমন পরিস্থিতিতে শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলামের মেয়ে ও কিশোরগঞ্জ-১ (কিশোরগঞ্জ সদর-হোসেনপুর) আসনের সংসদ সদস্য ডা. সৈয়দা জাকিয়া নূর লিপির সভাপতিত্বে গত ২২ জুলাই শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের প্রথম সভা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালটি চালু করার ব্যাপারে আলোচনা করা হয়। পরে সম্মিলিত সিদ্ধান্তের আলোকে ১৫ আগস্ট বহির্বিভাগ চালুর ঘোষণা দেওয়া হয়।

এ প্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার (১৫ আগস্ট) আনুষ্ঠানিকভঅবে বহির্বিভাগ চালু করা হয়।

ডা. মুহাম্মাদ আবিদুর রহমান জিমি জানান, তিনি নিজে দুইশত রোগীকে দেখে ব্যবস্থাপত্র দিয়েছেন। এছাড়া প্রথম দিন মোট এক হাজার দুইশত রোগীকে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

ইন্টার্নী চিকিৎসকরা জানান, বর্হিবিভাগ চালু হওয়ায় তারা খুশী। কারণ হাসপাতাল চালুর প্রাথীমকি কাজটি সম্পন্ন হয়েছে। তবে, ইন্টার্নীশীপে বর্হিবিভাগ তাদের কোন কাজে লাগবে না।

হাসপাতালের পরিচালক ডা. সাইফুর রহমান বলেন, হাসপাতাল চালুর প্রাথমিক কাজটি সম্পন্ন করেছি। মেডিকেল কলেজের ৫০০ শয্যার পূর্ণাঙ্গ হাসপাতাল চালু করতে হলে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে জনবল নিয়োগ দিতে হবে।

যদিও অধিকাংশ যন্ত্রপাতি ইতোমধ্যে এসে গেছে। ট্যাকনিক্যাল পদগুলোতে দ্রুত নিয়োগ দেওয়া জরুরী। তা না হলে  হাসপাতালটি পূর্ণাঙ্গভাবে চালু করা সম্ভব হবে না।

এবারের জাতীয় শোক দিবসে (১৫ আগস্ট) বহির্বিভাগ চালু হওয়ায় তিনি উচ্ছ্বাস ও আনন্দ প্রকাশ করেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর