কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


পিতৃহীন রূপা’র বিয়ে দিলেন স্বেচ্ছাসেবকরা


 আশরাফুল ইসলাম, প্রধান সম্পাদক, কিশোরগঞ্জনিউজ.কম | ১৬ আগস্ট ২০১৯, শুক্রবার, ১:১৭ | এক্সক্লুসিভ 


মেয়েটির নাম রূপা। বাবা ইব্রাহীম মিয়াকে হারিয়েছেন শৈশবেই। দারিদ্রের মধ্যে বেড়ে উঠা রূপা জীবনটাই যেন এক সংগ্রামের নাম। রূপার একমাত্র ভাই ট্রাকের হেলপার হিসেবে কাজ করে। একে তো বিয়ে করে আলাদা, তার উপর ক্ষুদ্র উপার্জন।

ফলে মেয়ে আর নিজের চলার জন্য মা মোছা. রহিমা আক্তারকে নিতে হয় হোটেলে বুয়ার কাজ। বুয়ার কাজ করে পাওয়া টাকায় আধপেটা খেয়ে না খেয়ে কাটে মা-মেয়ের জীবন।

মেয়ে রূপার বিয়ের বয়স হলেও অর্থাভাবে পাত্রস্থ করতে পারছিলেন না তিনি। কন্যা দায়গ্রস্ত অসহায় এই মায়ের বোবাকান্না শোনারও ছিল না কেউ।

এ অবস্থায় অসহায় মায়ের পাশে এসে দাঁড়ান একদল স্বেচ্ছাসেবী। তাদের প্রচেষ্টায় রূপা’র বিয়ের খরচ মেটানোর পাশাপাশি বিয়ে আয়োজনেও সহযোগিতা করা হয়। ফলে বৃহস্পতিবার (১৫ আগস্ট) হাসিমুখে বিয়ের পিঁড়িতে বসে রূপা।

কিশোরগঞ্জ শহরের বয়লা, তারাপাশা এলাকায় রহিমা আক্তারের জীর্ণ কুটিরের সামনে পিবিআই অফিসের পাশে এই বিয়ের আয়োজন করা হয়। বর কিশোরগঞ্জ সদরের চংশোলাকিয়া এলাকার মো. হাদিস মিয়া।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, কিশোরগঞ্জের বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের স্বেচ্ছাসেবকদের প্রচেষ্টায় অসহায় এই মেয়েটির বিয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে। অনলাইন স্বেচ্ছাসেবী গ্রুপ ‘রক্তের সন্ধানে আমরা ক'জন’ এর এডমিন বয়লা, তারাপাশা এলাকার মো. মুখলেছ এর উদ্যোগে অন্যান্য স্বেচ্ছাসেবকদের সহযোগিতায় মেয়েটির বিয়ের ব্যবস্থা করা হয়।

বিয়ের যাবতীয় খরচ স্বেচ্ছাসেবকেরা নিজেদের আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধব ও পরিচিতদের কাছ থেকে সহযোগিতা হিসেবে নিয়ে সফল ভাবে বিয়ের আয়োজন সম্পন্ন করা হয়।

বিয়ে আয়োজনে রক্তের সন্ধানে আমরা ক'জন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের মুখলেছ ও জনি দেবনাথ, মানবতার সেবায় সৃজন সংগঠনের নুসরাত জাহান মিম, ইনফাত ও নজরুল ইসলাম জুয়েল, কিশোরগঞ্জ ব্লাড ফাউন্ডেশন এর মো. আসাদুজ্জামান আসাদ ও উৎস সরকার, স্বেচ্ছাসেবক মুরাদ, রুবেল, কলি ও জনিসহ আরো অনেকেই বিয়েতে আর্থিক সহযোগিতা করেছেন।

মেয়ের বিয়ে দিতে পারার আনন্দ চোখ-মুখে ঠিকরে পড়ছিল রহিমা আক্তারের। তিনি বলেন, অভাবের কারণে মেয়েটাকে বিয়ে দিতে পারছিলাম না। মেয়ের বিয়ে নিয়ে খুব চিন্তায় ছিলাম। ভালা মানুষদের সহযোগিতায় মেয়ের বিয়ে দিতে পারায় আমি এখন নিশ্চিন্ত।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর