কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


এবার ডেঙ্গুতে মারা গেলেন মিঠামইনের মনোয়ারা, কিশোরগঞ্জের মোট পাঁচ জনের মৃত্যু


 বিশেষ প্রতিনিধি | ১৭ আগস্ট ২০১৯, শনিবার, ৩:৪৪ | বিশেষ সংবাদ 


ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন মনোয়ারা বেগম (৪৫) নামের মিঠামইনের এক গৃহবধূ। শনিবার (১৭ আগস্ট) দুপুরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। ডেঙ্গুতে মারা যাওয়া গৃহবধূ মনোয়ারা বেগম মিঠামইন উপজেলার চমকপুর গ্রামের সাইফুল ইসলামের স্ত্রী।

স্বামী সাইফুল ইসলাম জানান, তার স্ত্রী মনোয়ারা খাতুন ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হলে ঈদের পরদিন মঙ্গলবার (১৩ আগস্ট) তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতির দিকে বলে সেদিনই তাকে নিবিড় পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রে ভর্তি করা হয়। শনিবার (১৭ আগস্ট) দুপুরে মনোয়ারা শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

ডেঙ্গু জ্বরের প্রকোপ শুরু হওয়ার পর থেকে এতে আক্রান্ত হয়ে শনিবার (১৭ আগস্ট) দুপুর পর্যন্ত কিশোরগঞ্জের মোট পাঁচজনের মৃত্যুর খবর জানা গেছে। তাদের মধ্যে দুইজন নারী এবং তিনজন পুরুষ। ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর এই তালিকায় দুই গৃহবধূ ছাড়াও সিআইডিতে কর্মরত একজন এবং দুই কলেজ ছাত্র রয়েছেন।

তাদের মধ্যে গত ২১ জুলাই সকালে ঢাকার একটি হাসপাতালে আল আমিন (১৭) নামে এক কলেজ ছাত্রের মৃত্যু হয়। আল-আমিন হোসেনপুর পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের দক্ষিণ আড়াইবাড়িয়া এলাকার আব্দুস সাত্তারের ছেলে।

আল-আমিন ঢাকার তেজগাঁও পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে ভর্তির জন্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। রাজধানীর বেগুনবাড়ি এলাকায় ভাড়া বাসায় বসবাস করার সময় তিনি ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হন। পরে তাকে বড় মগবাজার এলাকার একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। নয় দিন চিকিৎসার পর ২১ জুলাই সকালে তার মৃত্যু হয়।

ঈদের আগের দিন (১১ আগস্ট) বেলা ১১টা ৫০ মিনিটের দিকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ১৫ নং ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন কলেজ ছাত্র ফরহাদ হোসেন (২০)।

ফরহাদ আহমেদ ইটনা উপজেলার বড়িবাড়ি ইউনিয়নের শিমুলবাঁক হাটির পল্লী চিকিৎসক ফেরদৌস মিয়ার ছেলে। তিনি কিশোরগঞ্জ শহরের গুরুদয়াল সরকারি কলেজের অনার্স দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন।

কিশোরগঞ্জ শহরের বাসায় অবস্থান করার সময় ফরহাদ ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হন। তাকে কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। সেখানে তিন দিন চিকিৎসা নেয়ার পর তার অবস্থার অবনতি হলে গত ১০ আগস্ট তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়। ওইদিন বিকালে তাকে সেখানে ভর্তি করার পর পরদিনই (১১ আগস্ট) মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন।

ঈদের আনন্দের দিনে (১২ আগস্ট) ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে রাজধানীর এ্যাপোলো হাসপাতালে মারা যান সিআইডিতে কর্মরত সন্তান জামাল আহমেদ। সোমবার (১২ আগস্ট) সন্ধ্যায় হাসপাতালটিতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

জামাল আহমেদ কিশোরগঞ্জ শহরের বত্রিশ মনিপুরঘাট এলাকার মো. আব্দুল মান্নানের ছেলে। তিনি সিআইডি’র সাইবার ক্রাইম ইউনিটে কর্মরত ছিলেন।

গত ৮ই আগস্ট বিকালে মালিবাগের সিআইডি অফিসে দায়িত্ব পালনের সময় হঠাৎ মাথা ঘুরে পড়ে যান জামাল আহমেদ। সাথে সাথে তাকে রাজারবাগ পুলিশ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে জামাল আহমেদ বাসায় ফিরলেও প্রচণ্ড মাথা ব্যথা অনুভব করায় পরদিন ৯ই আগস্ট উত্তরার বাংলাদেশ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হন। এরপর থেকে ক্রমশ শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটে তার।

সংকটাপন্ন অবস্থায় রোববার (১১ আগস্ট) ভোর রাতে এ্যাপোলো হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় তাকে। সেখানে চিকিৎসকদের সব প্রচেষ্টাকে ব্যর্থ করে দিয়ে ঈদের দিন সোমবার (১২ আগস্ট) সন্ধ্যা ৬টা ২৫ মিনিটে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন জামাল।

এর একদিন পর বুধবার (১৪ আগস্ট) ভোর রাতে  ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান নাসরিন আক্তার (২০) নামে কটিয়াদীর এক গৃহবধূ। গৃহবধূ নাসরিন আক্তার কটিয়াদী উপজেলার বনগ্রাম ইউনিয়নের দাসের গাঁও গ্রামের আবুল কাশেমের স্ত্রী।

এক সন্তানের জননী নাসরিন স্বামীর সঙ্গে ঢাকায় থাকতেন। সেখানেই তিনি ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হন। ডেঙ্গু জ্বর নিয়ে তিনি বাড়িতে স্বজনদের সাথে ঈদ করতে যান । ঈদের পর দিন মঙ্গলবার (১৩ আগস্ট) রাতে শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে রাতেই ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত ৩টার দিকে নাসরিন মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর